বুধবার, ১১ এপ্রি ২০১৮ ০৯:০৪ ঘণ্টা

মাদ্রাসাতুল হাসানাইনের খতমে বুখারী সম্পন্ন

Share Button

মাদ্রাসাতুল হাসানাইনের খতমে বুখারী সম্পন্ন

সিলেট রিপোর্ট:

শাহজালাল উপশহরস্থ মাদরাসাতুল হাসানাইন সিলেট-এর খতমে বুখারী ও দোয়া মাহফিল গতকাল মাদরাসা ক্যাম্পাসে অনুষ্ঠিত হয়। মাদরাসার নির্বাহী পরিচালক মাও: ফারুক আহমদের সভাপতিত্বে ও শিক্ষা সচিব মাও: মাশহুদ আহমদের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত মাহফিলে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মাননীয় মেয়র জনাব আরিফুল হক চৌধুরী। মাহফিলে মোনাজাত পরিচালনা ও খতমে বুখারীর দরস প্রদান করেন শায়খুল হাদীস আল্লামা শিহাব উদ্দিন। মাহফিলে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন সিলেট সিটি কর্পোরেশনের ২২নং ওয়ার্ডের সম্মানিত কাউন্সিলর সৈয়দ মিসবাহ উদ্দিন, ২২, ২৩ ও ২৪নং ওয়ার্ডের মহিলা কাউন্সিলর সালেহা কবীর শেপী।
অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ও উপস্থিত ছিলেন, মাওলানা সিরাজুল ইসলাম সিরাজী, মাও: কামাল উদ্দিন, হাফিজ আবুল হোসেন সুফি, তালুকদার হুমায়ূন কবির আফাক, হাফিজ মাও: মনির আহমদ, হাফিজ মাও: ইলিয়াছ আহমদ, মাও: আব্দুস সামাদ, মাও: মাশকুর আহমদ, মাও: ওলীউর রহমান, মাও: জিয়াউদ্দিন, মাও: আলমগীর হোসাইন, মুফতি নোমান বিন আশরাফী, হাজী মুজাম্মিল আলী, হাজী আবুল কালাম, সৈয়দ তাহের আলী প্রমুখ।

মাহফিলে প্রধান অতিথি সিলেট সিটি কর্পোরেশন মেয়র জনাব আরিফুল হক চৌধুরী বলেন, ক্বওমী মাদরাসার শিক্ষাই হচ্ছে প্রকৃত ও বুনিয়াদী শিক্ষা। দ্বীনি শিক্ষার মাধ্যমে সমাজে শান্তি প্রতিষ্ঠিত হয়। তিনি মাদরাসাতুল হাসানাইনের শিক্ষা পদ্ধতির প্রশংসা করে এ প্রতিষ্ঠানের সার্বিক সহযোগিতার আশ্বাস প্রদান করেন।

বিশিষ্ট আলেম শায়খুল হাদীস আল্লামা শিহাব উদ্দিন বলেন, ইসলামী শিক্ষাই একমাত্র মানুষকে মুক্তি ও শান্তি দিতে পারে। মানুষের প্রতিটি কাজ-কর্মের জন্য আল্লাহর কাছে জবাবদিহী করতে হবে। মহিলা মাদরাসার মাধ্যমে মহিলাদের মধ্যে ইসলামী শিক্ষার ধারাবাহিকতা শুরু হয়েছে তা মুসলমানদের প্রতিটি ঘরে ঘরে পৌছে দিতে হবে। তিনি মাহফিলে মুসলিম মিল্লাতের শান্তি ও মুক্তি কামনা করে মোনাজাত পরিচালনা করেন।

এই সংবাদটি 1,010 বার পড়া হয়েছে

পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন।  ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।  পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন।  ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন
পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন। ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন