Sylhet Report | সিলেট রিপোর্ট | সম্পদের লোভে বৃদ্ধ বাবাকে ৯ দিন আটকে রেখে নির্যাতনের অভিযোগ
মঙ্গলবার, ০৮ মে ২০১৮ ১১:০৫ ঘণ্টা

সম্পদের লোভে বৃদ্ধ বাবাকে ৯ দিন আটকে রেখে নির্যাতনের অভিযোগ

Share Button

সম্পদের লোভে বৃদ্ধ বাবাকে ৯ দিন আটকে রেখে নির্যাতনের অভিযোগ

ডেস্ক রিপোর্ট: অর্থ ও সম্পত্তির লোভে বাবাকে ৯ দিন ধরে ঘরে আটকে রেখে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে ছেলে এবং ছেলের বউদের বিপক্ষে। মঙ্গলবার ওই নাজির আহম্মেদ (৭৬) নামে ওই বৃদ্ধের চিৎকারে প্রতিবেশীরা তাকে উদ্ধারের পর এ ঘটনা প্রকাশ পায়। তাকে উদ্ধার করে অসুস্থ অবস্থায় প্রতিবেশীরা বুড়িচং স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেছেন। এ ঘটনার সংবাদ পেয়ে বুড়িচং থানার দেবপুর ফাঁড়ির পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। নাজির আহম্মেদ উপজেলার ময়নামতি ইউনিয়নের কিং বাজেহুরা গ্রামের মৃত তৈয়ব আলীর ছেলে।

বুড়িচং স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের শয্যায় চিকিৎসাধীন বয়সের ভারে ন্যুব্জ নাজির আহম্মেদ বলেন, ব্যাংকে তার নামে এফডিআর করা ২০ লাখ টাকা রয়েছে। এ ছাড়াও তার কিছু জমি-জমা রয়েছে। এগুলো আত্মসাৎ করতে তারই সন্তানরা তার সাথে দুর্ব্যবহার করছে। অসহায় হয়ে তিনি তা এতদিন সহ্য করেছেন।

তিনি বলেন, তার ছেলে আবু জাফর কানু, জসিম উদ্দিন, জামসেদ আলম ও তার পুত্রবধূরা দীর্ঘদিন ধরে তাকে মানসিক ও শারীরিকভাবে নির্যাতন করে আসছে। জামসেদ ও জসিম জোর করে ৭২ শতক জমি দলিল করে নিয়ে যায়। পরে নিরুপায় হয়ে ওই ৭২ শতক জমির দলিল বাতিলের জন্য আদালতে মামলা করলে তার উপর আরো নির্যাতন নেমে আসে।  মামলা এবং জমি ফেরত দেয়ার ভয়ে ওই দুই ছেলে জসিম এবং জামসেদ দেশের বাইরে চলে যায়। তারা সেখানে গিয়েও বড় ভাই আবু জাফর কানু ও তাদের স্ত্রীদের দিয়ে শারীরিক নির্যাতন চালিয়ে আসছে।

তিনি বলেন, গত ৯ দিন যাবৎ ঘরের আটকিয়ে রেখে সম্পত্তি ও ব্যাংকে ডিপিএস এর ২০ লাখ টাকা তাদেরকে দেওয়ার জন্য কয়েকবার প্রাণনাশের চেষ্টা চালায়। তিনি তা দিতে অস্বীকার করেন।

মঙ্গলবার আবারো নির্যাতন শুরু করলে তার চিৎকারে প্রতিবেশী, স্থানীয় ইউপি মেম্বার শিপন ও ডাক্তার দেলোয়ার হোসেন ঘটনাস্থলে গিয়ে তাকে উদ্ধার করে বুড়িচং উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। সংবাদ পেয়ে বুড়িচং থানার দেবপুর ফাঁড়ির এসআই আল আমিন ঘটনাস্থল পরিদর্শনে যান।

স্থানীয় ইউপি মেম্বার শিপন বলেন, ওই বৃদ্ধের ছেলেরা লোভী। তিনি মারা গেলে সম্পদ তারাই পাবে। এখানে কোন অংশীদার নেই। তবু তারা বাবার প্রতি নির্দয় আচরণ করেছে।

এ ব্যাপারে বুড়িচং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মনোজ কুমার দে জানান, এ বিষয়টি জেনে পুলিশ পাঠিয়েছি। অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করব।

এ ঘটনার পর ছেলে ও ছেলের স্ত্রীরা আত্মগোপন করায় তাদের বক্তব্য নেয়া যায়নি। এদিকে ছেলেদের পক্ষের এক ব্যক্তি জানান, নাজির আহমেদ কিছুটা মানসিক ভারসাম্যহীন ছিলেন। তাকে বাড়িতে আটকে রেখে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছিলো।

বুড়িচং উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. রত্না দাস বলেন, সম্পত্তি এবং টাকার জন্য ছেলে ও তাদের বউরা নাজির আহমেদকে নির্যাতন করেছেন বলে জেনেছেন। তার আঘাত গুরুতর নয়। নাজির আহমেদ হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

এই সংবাদটি 1,031 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com