সোমবার, ২০ ফেব্রু ২০১৭ ০৫:০২ ঘণ্টা

কৌড়িয়া ও বিশ্বনাথ মাদানিয়ায় ভারতীয় এমপি বদর উদ্দীন আজমল

Share Button

কৌড়িয়া ও বিশ্বনাথ মাদানিয়ায় ভারতীয় এমপি বদর উদ্দীন আজমল

সিলেট রিপোর্ট:
নিখিল ভারত জমিয়তে উলামায়ে হিন্দের কেন্দ্রীয় সদস্য ও আসাম প্রাদেশিক শাখার সভাপতি, দারুল উলূম দেওবন্দের মজলিসে শুরার সদস্য ও ভারতের লোকসভার এমপি মাওলানা বদর উদ্দীন আজমল কাসিমী এক সংক্ষিপ্ত সফরে সিলেট এসেছেন। সফর কালে সিলেটের প্রখ্যাত দুই বুযুর্গ আলেমের কবর জিয়ারত করেছেন তিনি। তারা হলেন শায়খুল মাশায়েখ আল্লামা আব্দুল করিম শায়খে কৌড়িয়া ও মাওলানা শায়খ আশরাফ আলী বিশ্বনাথী (র)। আজ সোমবার (২০ ফেব্রুয়ারী) সকালে বিশিষ্ট আলেমদ্বয়ের কবর জিয়ারত কালে জামিয়া মাদানিয়া বিশ্বনাথ মাদরাসা দফতরে কিছু সময় অতিবাহিত করে মন্তব্য বহিতে স্বাক্ষরকরেন। এসময় জামিয়ার ছাত্র-শিক্ষগেনের পক্ষ থেকে মাওলানা বদর উদ্দীন আজমালকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান। এসময় উপস্থিত ছিলেন জামিয়ার প্রিন্সিপাল মাওলানা শিব্বির আহমদ, মাদানিয়া ওয়েল ফেয়ার ট্রাস্ট ইউকের সেক্রেটারী আলহাজ্ব হাফিজ হোসাইন আহমদ, মাসিক আল ফারুকের সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি মাওলানা রশীদ আহমদ, জামিয়ার শিক্ষাসচিব মুফতি ইজাদুর রহমান, মুহাদ্দিস মুফতি খন্দকার হারুনুর রশীদ, জামেয়া দারুল হুদা সিলেটের মুহতামিম মুফতি মুজিবুর রহমান কাসেমী, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মাওলানা রেজাউল করিম জালালী, মাসিক আল ফারুকের সহযোগী সম্পাদক মাওলানা রুহুল আমীন নগরী, মাওলানা আব্দুল মুকিত, মাওলানা ইসমত উল্লাহ সিদ্দিকী, মাওলানা হাসান আহমদ, মাওলানা বেলাল আহমদ প্রমুখ। পরে তিনি জামিয়া ইসলামিয়া আব্বাসিয়া কৌড়িয়া মাদরাসার অদুরে অবস্থিত আল্লামা আব্দুল করিম শায়খে কৌড়িয়ার কবর জিয়ারত ও মাদরাসা পর্রিদশন করেন।
মাওলানা বদরউদ্দীন আজমল শায়খুল ইসলাম সায়্যিদ হোসাইন আহমদ মাদানী (র) ও তাঁর শাগরিদগনের ত্যাগের কথা উল্লেখ করে বলেন হযরত আব্দুল করিম শায়খে কৌড়িয়া ও মাওলানা আশরাফ আলী (র) জমিয়তের র্কণধার ছিলেন। তাদের ত্যাগ-তিতিক্ষা ইতিহাসে চির স্মরণীয় হয়ে থাকবে। তিনি বলেন জমিয়ত উপমহাদেশের ঐতিহ্যবাহী একটি কাফেলা। তাই বহুমুখী দ্বীনী কাজের জন্য সকলকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে।’

জন্ম:  ভারতের আসাম প্রদেশের হোজাই জেলা শহরের আলীনগর এলাকায় এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে তিনি জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৭২ এ ভর্তি হন দারুল উলূম দেওবন্দে। তিন বছর লেখাপড়া করে ১৯৭৫ এ সেখান থেকে সুনামের সঙ্গে দাওরায়ে হাদীস পাশ করেন। কর্মজীবনে তিনি পিতা  হাজী আজমল আলী কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত আজমল বিজনেস গ্রুপ অব কোম্পানির হাল ধরেন এবং নিরলস প্রচেষ্টার মাধ্যমে এটাকে বহুমাত্রিক উচ্চতায় নিয়ে যান। অপরদিকে বহুবিধ ইসলামী খেদমত, মানবসেবা ও সমাজ উন্নয়নে ঝাঁপিয়ে পড়েন। এ মহান ব্যক্তিত্বের বর্তমান নিবাস ভারত হলেও তাঁর দাদা মরহুম হাজী আব্দুল মজিদের বাড়ি ছিল মৌলভীবাজার জেলার বড়লেখা উপজেলার আজিমগঞ্জ এলাকার কাঠালতলিতে।
বহু ধর্ম,বর্ণ, জাতি ও ভাষার মানুষের আবাসভূমি ভারত। মুসলমানরা সে দেশের ২য় সংখ্যালঘু হলেও অন্যান্য সংখ্যালঘুর ন্যায় তারা শান্তি ও নিরাপদ নয়। অশান্তি এবং নিরাপত্তাহীনতা যেন তাদের নিত্যসঙ্গী। তাই সংখ্যালঘু এবং সমাজের পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর ত্রাণকর্তা হিসাবে অভির্ভূত হন সামাজিক উন্নয়নের রূপকার মাওলানা বদর উদ্দীন আজমল কাসিমী। তিনি ২০০৫ সালের ২রা অক্টোবর আসামের বিভিন্ন সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিদের নিয়ে মতবিনিময় করেন এবং পরদিন তাঁর পীর ও মুর্শিদ আমিরুল হিন্দ হযরত ফেদায়ে মিল্লাত আল্লামা সাইয়্যিদ আসআদ মাদানী (রহ.) এর উপস্থিতিতে ইউনাইটেড ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট (ইউডিএফ) নামে একটি আঞ্চলিক রাজনৈতিক দল গঠন করেন। আর দলের মূলনীতি নির্ধারণ করা হয় ধর্মনিরপেক্ষতা, সমউন্নয়ন, সমবিকাশ এবং সম-অধিকার। পরবর্তীতে দলটি একটি সর্বভারতীয় দলে পরিণত হয়।
২০০৬ সালে দলটি প্রথম নির্বাচনী লড়াইয়ে অবতীর্ণ হয় এবং আসাম বিধানসভার ১০টি আসন (এমএলএ) লাভ করে চমক সৃষ্টি করে। ২০১১ সালে বিধানসভা নির্বাচনে ১৮ আসন লাভ করে নিজেদের শক্তিমত্তার নতুন পরিচয় তুলে ধরে। আর ২০১৬ সালে বিধানসভা নির্বাচনে প্রবল মোদিঝড় থাকা সত্ত্বেও ১৩টি আসন লাভ করতে সক্ষম হয়। মাওলানা বদর উদ্দীন আজমল কাসিমী পরপর দুইবার ভারতের লোকসভার এমপি নির্বাচিত হন। বর্তমানে লোকসভায় তিনিসহ তাঁর দলের মোট ৩ জন এমপি রয়েছেন। তন্মধ্যে ১ জন হিন্দু সম্প্রদায়ের লোক। এভাবে বিধানসভার এমএলএদের মধ্যেও উভয় সম্প্রদায়ের লোক রয়েছে।
মাওলানা বদর উদ্দীন আজমল কাসিমী ও তাঁর ভ্রাতৃবৃন্দ ১৯৮২ সালে মারকাজুল মাআরিফ নামে একটি সেবামূলক প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলেন। জাতি, ধর্ম,বর্ণ ও দলমতের ঊর্ধে ওঠে সর্বস্তরের জনগণের এবং সর্বপেশার মানুষের শিক্ষাদীক্ষা, সভ্যতা-সংস্কৃতি এবং সামাজিক ও অর্থনৈতিক উন্নয়নে কাজ করাই হচ্ছে এ প্রতিষ্ঠানের মুখ্য উদ্দেশ্য। প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে সংস্থাটি যে সকল নোবেল প্রজেক্ট বাস্তবায়ন করেছে; এর সংক্ষিপ্ত বিবরণ নি¤েœ প্রদত্ত হলো- (১) মারকাজ গণপাঠাগার গঠন: শিক্ষিত জাতি ও আদর্শ সমাজ গঠনের জন্য পাঠাগারের ভূমিকা অনস্বীকার্য। তাই মাওলানা বদর উদ্দীন আজমল কাসিমী এই উদ্দেশ্যে  একটি গণপাঠাগার গড়ে তোলেনÑ যা সবার জন্য উন্মুক্ত। (২) মেধাবী গরীব ছাত্রদের জন্য উচ্চশিক্ষা অর্জনের ক্ষেত্রে প্রধান বাধা হচ্ছে দারিদ্র্য। আর্থিক সমস্যার কারণে সমাজের পিছিয়ে পড়া শ্রেণির সন্তানাদির উচ্চশিক্ষার স্বপ্ন পূরণ হয় না। তাই মারকাজুল মাআরিফ মেধাবী গরীব ছাত্রদেরকে মেডিকেল, টেকনিকেল, এগ্রিকালচার, ইসলামিক স্টাডিজ এবং বিভিন্ন জেনারেল সাবজেক্টের উপর শর্তসাপেক্ষ শিক্ষাবৃত্তি এবং স্কলারশীপ প্রদান করে। (৩) ভর্তি ফি ও পাঠ্যপুস্তক প্রদান: স্কুল-কলেজের যে  সকল গরীব ছাত্র মারকাজুল মাআরিফ থেকে স্কলারশীপ পাওয়ার যোগ্যতা রাখে না, তাদেরকে সংস্থাটি ভর্তি ফি এবং পরীক্ষার ফিসহ পাঠ্যপুস্তকও দিয়ে থাকে। (৪) ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল প্রতিষ্ঠা: সমাজের দরিদ্র শ্রেণি থেকে নিরক্ষরতা দূর করে শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দেয়া এবং সহশিক্ষার করালগ্রাস থেকে মুসলিম সমাজকে রক্ষা করার জন্য মারকাজুল মাআরিফ ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল প্রতিষ্ঠার যুগান্তকারী কর্মসূচি হাতে নেয় এবং মনোরম পরিবেশে ও উন্নত ব্যবস্থাপনায় নবম শ্রেণি পর্যন্ত বালক-বালিকাদের জন্য পৃথক পৃথক শিক্ষা-প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলে। বর্তমানে আসামের বিভিন্ন অঞ্চলে এ ধরনের ৩০টি স্কুল রয়েছে। (৫) কলেজ প্রতিষ্ঠা: মারকাজুল মাআরিফের অঙ্গ-প্রতিষ্ঠান আজমল ফাউন্ডেশন আসামের বিভিন্ন অঞ্চলে এ পর্যন্ত ২০টি কলেজ প্রতিষ্ঠা করেছে। (৬) শিক্ষা-সহায়তা ও পৃষ্ঠপোষকতা কর্মসূচি: এ কর্মসূচির আওতায়- ১. বিভিন্ন শিক্ষা-প্রতিষ্ঠান এবং স্কুল-কলেজে কম্পিউটার বিতরণ ২. জাতীয় কাউন্সিলের মাধ্যমে উর্দূ ভাষার প্রসার ৩. শিক্ষা সচেতনতামূলক সেমিনার ৪. ন্যাশনাল কমিশন ফর উইমেন-এর পক্ষ থেকে অর্থসহায়তার সঙ্গে সঙ্গে মহিলাদের মধ্যে আইনী সচেতনতা সৃষ্টি ৫. স্কুল ও মাদরাসার মেধাবী ছাত্রদেরকে সংবর্ধনা প্রদান ৬. স্কুল ও মাদরাসার ফাইন্যাল পরীক্ষার্থীদের জন্য ফ্রি কোচিং এর ব্যবস্থা ৭. শিক্ষা ও চাকুরির ক্ষেত্রে তথ্য প্রদান ৮. জাতীয় ও প্রদেশ পর্যায়ে বিভিন্ন প্রতিযোগিতার এবং ভর্তি পরীক্ষার ক্ষেত্রে গাইড লাইন প্রদান করে। ৯. প্রতি মাসে বিভিন্ন কওমী মাদরাসার বেতনের একটি অংশ প্রদান করে।
(৭) আলিম-উলামাদের জন্য ফ্রি আইইএলটিএস প্রোগ্রাম: জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পরিম-লে ইসলামের দাওয়াত এবং দ্বীনের উচ্চতর খেদমত আঞ্জাম দেয়ার জন্য ইংলিশ ভাষা শিক্ষার বিকল্প নেই। তাই ১৯৯৪ খ্রি. দিল্লীতে মাওলানা বদর উদ্দীন আজমল কাসিমী মারকাজুল মাআরিফ এডুকেশন এন্ড রিচার্স সেন্টার নামে দু-বছর মেয়াদি একটি  কোর্স চালু করেন। পরবর্তীতে কোর্সটির উপকারিতা দেখে দারুল উলূম দেওবন্দসহ ভারতের বিভিন্ন জামেয়া এবং মাদরাসায় এ ধরনের ইংলিশ কোর্স চালু করা হয়।
(৮) সাবাহী মক্তব পরিচালনা: উপমহাদেশের মুসলমানদের মধ্যে ইসলামী শিক্ষার চর্চা এবং বিস্তারের ক্ষেত্রে মসজিদভিত্তিক সাবাহী মক্তবের ভূমিকা মেরুদন্ডের ন্যায়। তাই সমাজে বিদ্যমান মক্তবগুলোর পৃষ্ঠপোষকতা করা একান্ত প্রয়োজন বিধায়, মারকাজুল মাআরিফের সার্বিক পৃষ্ঠপোষকতায় বর্তমানে আসামের বিভিন্ন মুসলিম অঞ্চলে প্রায় ৬শটি মক্তব পরিচালিত হচ্ছে। ভবিষ্যতে মনিপুর, ত্রিপুরা এবং পাশ্ববর্তী অন্যান্য রাজ্যে এ কর্মসূচি বাস্তাবায়ন করার পরিকল্পনা রয়েছে।
(৯) চিকিৎসা ও স্বাস্থ্যসেবা: স্বাস্থ্য এবং সুস্থতা একটি অমূল্য সম্পদ। তাই মারকাজুল মাআরিফ আসামের চিকিৎসাবঞ্চিত এবং দারিদ্র্যপীড়িত জনগণের মধ্যে চিকিৎসা ও স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছানোর লক্ষ্যে হাজী আব্দুল মজিদ মেমোরিয়াল হসপিটাল এন্ড রিচার্স সেন্টার প্রতিষ্ঠা করে। ৩০০ শয্যাবিশিষ্ট এই হসপিটালটি উদ্বোধন করেন নোবেল শান্তি পুরস্কার বিজয়ী মাদার তেরেসা। এর তত্ত্বাবধানে হাম নার্সিং স্কুলসহ আসামের বিভিন্ন অঞ্চলে আরো ৪টি হসপিটাল রয়েছে।
(১০) এতিম শিশুদের পুনর্বাসন এবং এতিমখানা প্রতিষ্ঠা: আসাম প্রদেশে প্রায় ৩০% মুসলমানের অধিবাস। মুসলমানরা সবসময় শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানে বিশ্বাসী। কিন্তু ভারতের উগ্র হিন্দু জাতীয়তাবাদী এবং ধর্মান্ধ ও গোঁড়া হিন্দু মৌলবাদীরা মাঝে-মধ্যে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা-হাঙ্গামা লাগিয়ে নিজেদের রাজনৈতিক স্বার্থ চরিতার্থ করে থাকে। তখন হাজার হাজার মুসলিম নারী বিধবা এবং অজ¯্র শিশু এতিম হয়ে উদ্বাস্তু ও শরণার্থী শিবিরে আশ্রয় নিতে বাধ্য হয়। সেখানে শিশুরা অশিক্ষা-কুশিক্ষা এবং চরম অযতœ-অবহেলায় খেয়ে-না খেয়ে বেড়ে ওঠে। এই সুযোগে খ্রিস্টান মিশনারি এনজিওগুলো শিশুদেরকে পানির দামে খরিদ করে খ্রিস্টধর্মে দীক্ষিত করার অপতৎপরতা চালায়। এহেন পরিস্থিতিতে এ সকল অসহায় শিশুদের রক্ষণাবেক্ষণ এবং পৃষ্ঠপোষকতায় এগিয়ে আসেন জননেতা আল্লামা বদর উদ্দীন আজমল কাসিমী। তিনি ১৯৯৩ খ্রি. হাতে নেন এতিম শিশুদের জন্য পুনর্বাসন কর্মসূচি এবং পর্যায়ক্রমে প্রতিষ্ঠা করেন ৬টি এতিমখানা। তন্মধ্যে ৪টি বালকদের জন্য এবং ২টি বালিকাদের জন্য। এ ছাড়া মাঝে শত শত কল্যাণমূলক কাজ করে যাচ্ছে তার প্রতিষ্ঠান।

এই সংবাদটি 1,091 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com