‘অর্থ আত্মসাতের উদ্দেশ্যে ফেনু অপপ্রচার চালাচ্ছেন’

প্রকাশিত: ৬:২৪ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১০, ২০১৭

‘অর্থ আত্মসাতের উদ্দেশ্যে ফেনু অপপ্রচার চালাচ্ছেন’

ডেস্ক রিপোর্ট:
সিলেটের আর. আর ট্রান্সপোর্টের স্বত্তাধিকারী রফিকুল ইসলাম ফেনু আমার পাওনা প্রায় ৯৩ লাখ টাকা আত্মসাতের উদ্দেশ্যে আমার বিরুদ্ধে নানা অপপ্রচার চালাচ্ছেন। অপপ্রচারের মাধ্যমে জনমনে বিভ্রান্তি ছড়িয়ে তিনি ফায়দা হাসিলের চেষ্টা করছেন।

আমি হাজী মো. হেলাল উদ্দিন, টুকেরবাজার তেমুখী পয়েন্টস্থ মেসার্স সফাত উল্লাহ ফিলিং স্টেশনের স্বত্তাধিকারী। আমি প্রায় ২০ বছর ধরে জ্বালানী তেলের ব্যবসা করে আসছি। সিলেটের বিভিন্ন বড় বড় ব্যবসায়ী ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে আমি আমার ফিলিং স্টেশন থেকে তেল  ও গ্যাস সরবরাহ করছি। অত্যন্ত সুনামের সাথে আমি তাদের সাথে ব্যবসা করে আসছি।

আমার ফিলিং স্টেশন থেকে গত ২০১৬ সালের ২৯ ফেব্রুয়ারি থেকে ফেনু তার ট্রাকের জন্য জ্বালানী তেল সংগ্রহ করে আসছেন। প্রতি মাসের বিল তিনি মাস শেষে ব্যাংক এশিয়ার চেকের মাধ্যমে পরিশোধ করতেন।

গত বছরের অক্টোবর মাস পর্যন্ত তিনি নিয়মিত বিল পরিশোধ করেন। এরপর তার বিশেষ অনুরোধে গত বছরের নভেম্বর থেকে চলতি বছরের ১১ জানুয়ারি পর্যন্ত তাকে বাকিতে জ্বালানী তেল সরবরাহ করা হয়। একসাথে ওই বিল পরিশোধ করার কথা থাকলেও তিনি তা পরিশোধ না করে টালবাহনা শুরু করেন।

ওই টাকা পরিশোধ না করে আত্মসাত করার উদ্দেশ্যে তিনি বর্তমানে আমার বিরুদ্ধে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক ও গণমাধ্যমে নানা অপপ্রচার চালিয়ে আসছেন। গণমাধ্যমে ভুল তথ্য দিয়ে তিনি বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছেন।

গণমাধ্যমকে তিনি কখনো বলছেন আমার সাথে তার কোন ব্যবসাই ছিল না। কখনো বলছেন আমার সাথে তার লেনদেন শেষ হয়ে গেছে। আবার কখনো বলছেন আমার পাম্প থেকে তাকে পরিমাপে কম তেল দেয়া হয়েছে। এতে তিনি নাকি ৩০-৪০ লাখ টাকা ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন।

তার এই দাবি অযৌক্তিক ও ষড়যন্ত্রমূলক বলে আমি মনেকরি। তার সাথে আমার কোন ব্যবসা না থাকলে গত বছরের ২৯ ফেব্রুয়ারি থেকে অক্টোবর পর্যন্ত চেক মারফত তিনি যে তিন কোটি টাকার উপরে পরিশোধ করেছেন সে টাকা কিসের ছিল?

আর ওজনে কম দিলে তিনি অক্টোবর মাসের বিল পরিশোধের পরই আমার সাথে ব্যবসায়িক সম্পর্ক বন্ধ করে দিতে পারতেন। পরবর্তী দুই মাস ১১ দিন বাকিতে আমার কাছ থেকে জ্বালানী তেল ক্রয় করার কথা নয়।

এছাড়া ওজনে কম দেয়ায় তিনি ৩০-৪০ লাখ টাকা ক্ষতিগ্রস্থ হলে একজন ব্যবসায়ী হিসেবে তিনি নিরবে বসে থাকার কথা নয়। তিনি বিষয়টি অবশ্যই জ্বালানী তেল ব্যবসায়ী সমিতির নেতৃবৃন্দকে অবগত করতে পারতেন। অথবা এ ব্যাপারে আইনানুগ ব্যবস্থা বা নূন্যতম বিএসটিআই’র শরণাপন্ন হতে পারতেন। কিন্তু তিনি তা করেননি। এতেই বুঝা যায় রফিকুল ইসলাম ফেনুর এই অপপ্রচারের উদ্দেশ্য কী?

আগামী ১১ এপ্রিল আমার পাওনা টাকা নিয়ে সিলেটের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট (এডিএম) এর কার্যালয়ে উভয় পক্ষের বৈঠক রয়েছে। আমি আশাবাদী এই বৈঠকের মাধ্যমে সকল সত্য উদঘাটিত হবে এবং আমি আমার পাওনা টাকা পাওয়ার পথ সুগম হবে।

পরিশেষে রফিকুল ইসলাম ফেনুর অপপ্রচারে কেউ বিভ্রান্ত না হওয়ার অনুরোধ জানাচ্ছি।

হাজী মো. হেলাল উদ্দিন
স্বত্তাধিকারী, মেসার্স সফাত উল্লাহ ফিলিং স্টেশন
টুকেরবাজার, তেমুখী পয়েন্ট, সিলেট

এই সংবাদটি 103 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com