হাওরে বিরাট দুর্যোগ: পানিসম্পদ মন্ত্রী

প্রকাশিত: ৭:৩২ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২৭, ২০১৭

হাওরে বিরাট দুর্যোগ: পানিসম্পদ মন্ত্রী

ডেস্ক রিপোর্ট:  উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢল ও বৃষ্টির পানিতে হাওরাঞ্চলে সৃষ্ট বন্যাকে বিরাট দুর্যোগ হিসেবে মন্তব্য করেছে পানিসম্পদ মন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ। তবে তিনি বলেছেন, ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের জন্য সরকারের পর্যাপ্ত ত্রাণ সহায়তা রয়েছে। এ জন্য ত্রাণ মন্ত্রণালয় কাজ করছে।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর মতিঝিলের ঢাকা চেম্বার অব কমার্স ইন্ডাস্ট্রির `Blue Economy: New Frontier New Possibility’ শীর্ষক এক সেমিনার শেষে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন।

পানিসম্পদ মন্ত্রী বলেন, সাধারণত এ সময় এত বৃষ্টি হয় না। গত মার্চের ২৯ তারিখ হাওর এলাকায় পানির (লেবেল) উচ্চতা ২.৪৭ মিটার ছিল। কিন্তু এর পর টানা বৃষ্টিতে মাত্র চার দিনের মধ্যে পানির উচ্চতা বেড়ে ৭.১৭ মিটার হয়। আর আমদের বাঁধের উচ্চতা ৬.৫ মিটার। এর ফলে বাঁধ উপচে পানি ঢুকে যায়। ভবিষ্যতের জন্য এই বাঁধ আরও উঁচু করা যায় কি না, সে বিষয়টি দেখা হবে।

মন্ত্রী বলেন, হাওর অঞ্চলে বর্ষার সময় এ বাঁধ ডুবে থাকে। এখন যে অবস্থা দেখছেন সেটা কিন্তু জুন-জুলাইতে এমনই থাকে। ৮২০ টি স্থান ছিল যেখানে বাঁধ মেরামত করা হয়েছে। এরমধ্যে গত মৌসুমে কৃষরা ফসল আনা নেওয়ার জন্য ৫১০টি স্থানে বাঁধ কেটেছে। যা কৃষকরা প্রতি বছরই করে।  আর যে খালগুলো আছে সেগুলো খুলে দিতে হয় এমন আছে ৪০টি। আর ২৭০টি স্বাভাবিক ব্যবস্থাপনার মধ্যে মেরামত করা হয়েছে। অতি বর্ষণে বাঁধ উপচে পানি হাওরে ঢুকে যাওয়ায় বাঁধগুলো ভেঙে যায়। কারণ বাঁধগুলো করা হয় কাঁচামাটি দিয়ে।

তিনি বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে বাংলাদেশকে প্রায়ই আগাম বন্যা ও অন্যান্য প্রাকৃতিক দুর্যোগের মুখোমুখি হতে হচ্ছে। এ সমস্যা মোকাবেলায় স্বল্প সময়ে ধানসহ অন্যান্য ফসল ফলানোর জন্য কৃষিকদের প্রতি আহবান জানান মন্ত্রী। মন্ত্রী বলেন, হাওরে এখন যে ধান হচ্ছে সেটা বিআর-২৯ ধান। এ জাতের ধানের জীবনকাল ১৬৫ দিন। সেখানে যদি ২০ থেকে ৩০ দিন আগে ফসল ঘরে তোলা গেলে ভালো হয়।এসময় তিনি হাওর অঞ্চলের নদী খননের পরিকল্পনার কথাও জানান।

তবে বাঁধ নির্মাণে কোনো দুর্নীতি হলে সেখানে কোনো ছাড় নেই। আমরা ইতোমধ্যেই তিনটি কমিটি করেছি।

হাওর ও জলাভূমি উন্নয়ন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মজিবুর রহমানসহ সংশ্লিষ্ট ৯ কর্মকর্তার বিদেশ সফরের বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, তাদের বিদেশে থাকার কারণে কোনো হাওরাঞ্চলে কাজ করার ক্ষেত্রে সিদ্ধান্ত নিতে কোনো সমস্যা হচ্ছে না। তবে পাবলিক পারসেপশন হলো তারা থাকলে ভালো হত।

আগামী রবিবার হাওর অঞ্চলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যাবেন উল্লেখ করে আনিসুল ইসলাম মাহমুদ বলেন, সকরারের পর্যাপ্ত সহায়তা রয়েছে হাওর অঞ্চলের মানুষের জন্য। এ জন্য ত্রাণ মন্ত্রণালয় কাজ করছে।

চলতি মাসের শুরুতে পাহাড়ি ঢলে সুনামগঞ্জ, সিলেট, মৌলভীবাজার, হবিগঞ্জ, কিশোরগঞ্জ, নেত্রকোনা ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় হাওরের লক্ষাধিক হেক্টর জমির বোরো ধান পানির নিচে তলিয়ে যায়। এছাড়া মারা যায় কয়েক মেট্রিক টন মাছ ও হাজার হাজার হাঁস। অকাল বন্যায় নিঃস্ব হয়ে পড়ে লাখ লাখ মানুষ।

এই সংবাদটি 145 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com