রবিবার, ০২ সেপ্টে ২০১৮ ১২:০৯ ঘণ্টা

বিএনপির ৪১ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে সমাবেশ

Share Button

বিএনপির  ৪১ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে সমাবেশ

ডেস্ক রিপোর্টি: সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ‘ভালো হয়ে যাওয়ার’ পরামর্শ দেয়া হয়েছে বিএনপির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর জনসভায়। একই সঙ্গে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবি আদায়ের ঘোষণা দিয়েছেন নেতারা।

দলের ৪০ বছর পূর্তি ও ৪১ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে বিকালে নয়াপল্টনে দলীয় কার্যালয়ের সামনে এই সমাবেশ হয়।

নির্বিঘ্নে অনুষ্ঠিত এই সমাবেশে নেতা-কর্মীদের উপস্থিতি ছিল লক্ষ্যণীয়। একপাশে ফকিরাপুল মোড় এবং অন্য পাশে কাকরাইলের নাইটিঙ্গেল মোড় ছাপিয়ে যায় নেতা-কর্মীদের অবস্থান।

দুর্নীতির মামলায় কারাদণ্ড হওয়ায় এবার দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে বাদ দিয়েই এই সমাবেশ করতে হয়েছে বিএনপিকে। আর তার অনুপস্থিতিতে প্রধান অতিথির দায়িত্ব পালন করেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন।

৪০ বছর আগে আজকের দিনটিতেই যাত্রা শুরু বিএনপি। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার পর সেনাবাহিনীতে অভ্যুত্থান পাল্টা-অভ্যুত্থানের এক পটভূমিতে ওই বছরের ৭ নভেম্বর ক্ষমতার কেন্দ্রে চলে আসেন জিয়াউর রহমান। আর সেনাপ্রধান থাকা অবস্থায় রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা নেয়া এই সেনা শাসক প্রথমে তিনি ১৯ দফা কর্মসূচির ভিত্তিতে জাতীয়তাবাদী গণতান্ত্রিক দল (জাগদল) নামে বিভিন্ন দল ও গোষ্ঠীর একটি সমন্বিত প্ল্যাটফর্ম প্রতিষ্ঠা করেন। পরে ১৯৭৮ সালের ১ সেপ্টেম্বর প্রতিষ্ঠা হয় বিএনপি।

প্রতিষ্ঠার পর বিএনপি এবারই সবচেয়ে বেশি সময় ধরে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতার বাইরে। পাশাপাশি চেয়ারপারসন এবং ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন-দুই জনই দণ্ডিত, দুইবার আন্দোলনে নেমে ব্যর্থ হওয়ার পর আর আন্দোলন গড়ে তুলতে না পারার মতো পরিস্থিতিতে পড়েছে তারা।

যদিও প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর মাসেই ঘুরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন বিএনপি নেতারা। আর আজকের সমাবেশে ব্যাপক লোক সমাগমে উজ্জীবিতও তারা।

সমাবেশে অন্যান্য নানা বিষয়ের পাশাপাশি সরকারি চাকুরেদেরকে নিয়েও বক্তব্য রাখেন মোশাররফ। বলেন, ‘আপনারা যারা প্রশাসনে আছেন, নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার আগে অতীতের কথা ভুলে গিয়ে ভালো হয়ে যান। নিরপেক্ষ ভুমিকা পালন করুন। আওয়ামী লীগের চিহ্নিত দুর্নীতিবাজরা যারা দেশ ছেড়ে না পারে তার ব্যবস্থা নিন।’

দলের নেতা-কর্মীতেরকে আন্দোলনের জন্য প্রস্তুতি নেয়ার আহ্বানও জানান বিএনপি নেতা। বলেন, ‘সংগ্রাম, আন্দোলন ছাড়া বেগম খালেদা জিয়া মুক্তি পাবেন না, নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন হবে না।’

‘ডিসেম্বরে নির্বাচনের কথা শুনছি। তার আগে খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিতে হবে, সরকারকে পদত্যাগ করতে হবে, সংসদ ভেঙে দিতে হবে। ইভিএম বলুন আর যাই বলুন একাদশ নির্বাচন ৫ জানুয়ারির মত বিএনপি হতে দেবে না।’

বিএনপিকে দুর্বল করতে নানা সময়ে ষড়যন্ত্র করেছে উল্লেখ করে মোশাররফ বলেন, ‘কিন্তু কেউ সফল হয়নি। সরকার যতই চেষ্টা করুক বিএনপিকে দুর্বল করতে পারবে না।’

দলের প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের প্রশংসা করে বিএনপি নেতা বলেন, ‘তলাবিহীন ঝুড়ির অপবাদ থেকে বাংলাদেশকে মুক্ত করেছিলেন জিয়াউর রহমান। মুক্ত বাজার অর্থনীতি চালু করেছিলেন। আওয়ামী লীগ যেখানে যেখানে ব্যর্থ হয়েছিলো সেখানেই জিয়াউর রহমান সফল হয়েছিলেন। এজন্যই বিএনপিকে আওয়ামী লীগ ভয় পায়।’

সমাবেশে গণফোরাম ও যুক্তফ্রন্টের ঐক্যকে স্বাগত জানান বিএনপির স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য মওদুদ আহমদ। বলেন, ‘জাতীয় ঐক্যকে স্বাগত জানাই। ঐক্যের মাধ্যমেই আমাদের দাবি পূরণ করব, নির্বাচনে অংশ নেব। সেই নির্বাচনে বিএনপি ক্ষমতায় আসবে।’

সরকারের ‘ষড়যন্ত্রে’ আইনি প্রক্রিয়ায় খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা যাচ্ছে না অভিযোগ করে বিএনপি নেতা বলেন,‘ রাজপথে আন্দোলনের মধ্য দিয়ে বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে হবে। তাকে মুক্ত করেই আমরা নির্বাচনে যাব।’

বিএনপি ও এরশাদ-দুই আমলেরই মন্ত্রী মওদুদ বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে দেশ স্বাধীন করা হয়েছে। বড় ট্রাজেডি হলো ৪৭ বছর পরও গণতন্ত্রেরর জন্য আমাদের লড়াই করতে হচ্ছে। এই লড়াইয়ে আমাদের জিততে হবে।…‘এই ফ্যাসিস্ট, স্বৈরাচারী সরকারকে ক্ষমতা থেকে সরাতে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।’

এই সংবাদটি 1,010 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com