সোমবার, ৩১ ডিসে ২০১৮ ০৩:১২ ঘণ্টা

কওমী মাদরাসা কি ও কেন?

Share Button

কওমী মাদরাসা কি ও কেন?

:: আবু সালমান ::

কওমী মাদ্রাসার পরিচয় : “কওমী” আরবি শব্দ। এর শাব্দিক অর্থ জাতি, সম্প্রদায়, দল, ইত্যাদি। আর “মাদ্রাসা” শব্দটিও আরবি যার অর্থ বিদ্যালয়। সুতরাং কওমী মাদ্রাসা মানে হল জাতীয় বিদ্যালয়। “কওমী মাদ্রাসা” নাম সাধারণত ঐ সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে অভিহিত করা হয়, যে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কোরআনে কারীম ও হাদিসে নববীর বিশুদ্ধ শিক্ষা ও দীক্ষা প্রদানের উদ্দেশ্যে মুসলমান জনসাধারণের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ ও সহযোগিতায় বিজ্ঞ ও অভিজ্ঞ আল্লাহওয়ালা আলেমগণের তত্ত্ববধানে প্রতিষ্ঠা করা হয়। আল্লাহ কতৃক মনোনিত দীন ইসলামের হেফাজত , প্রচার-প্রসার, মুসলমানদের ঈমান- আকীদা, আমল-আখলাক, তাহযীব-তামাদ্দুন কোরআন-সুন্নাহর আলোকে বিশুদ্ধভাবে শিক্ষা ও দীক্ষা দানের মহৎ উদ্দেশ্যে যেসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠা করা হয় সেসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠাই মূলত কওমী মাদ্রাসা নামে পরিচিত।
যেসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মুসলিম উম্মাহর দীনী প্রয়োজন ও চাহিদা পূরণের জন্য কোরআন ও হাদীসের সঠিক শিক্ষা ও দীক্ষা প্রদান করা হয় এবং মানবতা, সভ্যতা, নৈতিকতা ও আধ্যাত্মিকতার শিক্ষা প্রদান করে নীতিবান দেশপ্রেমিক, আল্লাহওয়ালা আলোকিত মানুষ তৈরি করা হয় সেসব প্রতিষ্ঠানকেই বলা হয় কওমী মাদ্রাসা। কওমী মাদ্রাসা হলো কোরআন ও হাদীসের বিশুদ্ধ শিক্ষাকেন্দ্র। কওমী মাদ্রাসা হলো আদর্শ মানুষ গড়ার কারখানা।

কওমী মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠার মূল লক্ষ্য :
বায়তুল্লাহর পুনঃ নির্মাণ শেষে হযরত ইব্রাহীম আ: দুয়া করেছিলেন , হে আমাদের প্রতিপালক !  আপনি তাদের মধ্যে তাদের ভেতর থেকেই একজন রসূল প্রেরণ করুন, যিনি তাদের সম্মুখে আপনার আয়াতসমূহ তিলাওয়াত করবেন, তাদেরকে কিতাব ও হিকমত (কিতাবের বিধিবিধান ও সুন্নাহ) শিক্ষা দিবেন এবং তাদেরকে (শিরক ও আধ্যাত্মিক ব্যাধি থেকে) পবিত্র করবেন। (সূরা
বাকারাহ:১২৯)

আল্লাহ তায়ালা ইব্রাহিম আ : এর এ দুআ কবুল করে মহানবী হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে দুয়ায় উল্লেখিত ৪ টি বিষয়ের দায়িত্ব অর্পণ করেন।
১। কোরআন কারীমের আয়াতসমূহের তিলাওয়াত ও তার শিক্ষা প্রদান।
২। কোরআন কারীমের তাফসীর ও বিধিবিধান এর শিক্ষা প্রদান।
৩। হিকমাহ তথা সুন্নাহ এর শিক্ষা দান।
৪। তাযকিয়া তথা আত্মশুদ্ধির দীক্ষা দান।

আর এই ৪ টি বিষয়ই ছিলো সকল নবী ও রাসূলের মৌলিক দায়িত্ব ও লক্ষ্য। কেননা উক্তবিষয়গুলোর উপরই মানুষের ইহলৌকিক ও পরকালীন সুখ ও সফলতা নির্ভরশীল। উক্ত বিষয়গুলোর সঠিক শিক্ষা ও দীক্ষা প্রদান করার লক্ষ্যে যেসব প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠা করা হয় সেসব প্রতিষ্ঠানই হল কওমী মাদরাসা।

কওমী মাদরাসার সূচনা :
ইসলামের ইতিহাসে প্রথম মাদরাসা হল, বিখ্যাত সাহাবী আরকান ইবনে আবিল আরকাম রাঃ এর
বাড়ি যে বাড়িটি ইতিহাসের পাতায় “দারে আরকাম” নামে খ্যাত। নবুয়ত প্রাপ্তির পর নবীজি সাঃ
এ বাড়িতেই সাহাবীদের কোরআন ও হাদীসের তা'লীম দিতেন। এ বাড়িতেই ইসলামের দ্বিতীয় খলিফা
ওমর রাঃ ইসলাম গ্রহণ করেন।
মদীনায় হিজরতের পর নবীজি সাঃ মসজিদে নববী নির্মাণ করেন। তখন মসজিদে নববীই হয়ে ওঠে
নবীজি সাঃ এর শিক্ষাকেন্দ্র। মসজিদে নববীর আঙ্গিনায় দূর থেকে হিজরত করে আসা
মুহাজিরদের থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। মসজিদে নববীর সে আঙ্গিনাকে বলা হত,
“আসহাবে সুফফা”। বিখ্যাত সাহাবী আবু হুরায়রা রাঃ তাদের মধ্যে অন্যতম। এর পর যুগে যুগে
পৃথিবীর বিভিন্ন অঞ্চলে কোরআন ও হাদীসের শিক্ষা দানের উদ্দেশ্যে গড়ে উঠে
ব্যাক্তিকেন্দ্রিক হাজারো মাদ্রাসা বা দরগাহ।
বর্তমানে প্রচলিত প্রাতিষ্ঠানিক রূপে কওমী মাদ্রাসার সূচনাঃ
সর্বপ্রথম প্রাতিষ্ঠানিক রূপসহকারে পূর্ণাঙ্গ মাদ্রাসা কে কবে কোথায় প্রতিষ্ঠা করেছেন এ
বিষয়টি যথেষ্ট আলোচনা ও গবেষণা সাপেক্ষ। তবে এ উপমহাদেশে সর্বপ্রথম ১১০৫ বা ১১০৭
হিজরীতে সিলেবাস ও কারিকুলামভিত্তিক মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা করেন মোল্লা নিযামুদ্দীন সাহলভী
র: । তার প্রণীত সিলেবাস "দরসে নেযামী" নামে খ্যাতি লাভ করে। এ সিলেবাসে সরফ, নাহু,
বালাগাত, উছুলে ফিকাহ, ফিকাহ, মানতিক, ফালসাফা , ইতিহাস, হাদীস, তাফসীর ইত্যাদি বিষয়
অন্তর্ভুক্ত ছিল। পরবর্তীতে ১৮৫৭ সালে সংঘটিত সিপাহী বিদ্রোহ পরবর্তী ক্রান্তিলগ্নে
হুজ্জাতুল ইসলাম কাসেম নানুতবী র: ও ফকিহুন নাফ্স রশীদ আহমেদ গাঙ্গুহী র: কতৃক ১৮৬৬
সালে দারুল উলুম দেওবন্দ প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে বর্তমানে প্রচলিত রূপে কওমী মাদ্রাসার যাত্রা
শুরু হয়। এর পর দারুল উলুম দেওবন্দের আদলে পৃথিবীর প্রায় সকল দেশেই প্রতিষ্ঠিত হয়
অসংখ্য কওমী মাদ্রাসা।
"কওমী মাদ্রাসা" নামকরণের কারণ:
ইতিহাস পাঠ করে এ কথা জানা যায় , কোরআন -সুন্নাহর শিক্ষার্থীদের জন্য এ উপমহাদেশের
সুলতানগণ কোটি কোটি টাকার সম্পত্তি ওয়াকফ করেছিলেন। কিন্তু ব্রিটিশ বেনিয়ারা সেসব
সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করে নিয়েছিল। এরপরও সরকারী ব্যবস্থাপনায় কিছু ধর্মীয় শিক্ষা
প্রতিষ্ঠান চালু ছিলো বটে , তবে তার উদ্দেশ্য ছিলো , লর্ড মেকলের ভাষায় “(এ সব
প্রতিষ্ঠানের) শিক্ষার্থীরা রঙে-রূপে ভারতীয় , কিন্তু চিন্তা-চেতনায় ইউরোপীয় হিসেবে গড়ে
উঠবে”। তাই দারুল উলম দেওবন্দের প্রতিষ্ঠাতা হুজ্জাতুল ইসলাম কাসেম নানুতবী র: এ মূলনীতি
ঘোষণা করেন, এ প্রতিষ্ঠান পরিচালিত হবে সাধারণ মুসলমানদের স্বতঃস্ফূর্ত দান তথা
গণচাঁদার মাধ্যমে। যেহেতু এ প্রতিষ্ঠানগুলো মুসলমান জনসাধারণের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ ও
সহযোগিতায় প্রতিষ্ঠিত ও পরিচালিত হয়ে থাকে তাই এ প্রতিষ্ঠানগুলো কওমী মাদ্রাসা নামেপরিচিত হয়ে ওঠে।
কওমী মাদ্রাসার পাঠ্যসূচি (সিলেবাস ):
কওমী মাদ্রাসার মৌলিক পাঠ্যসূচি হলো কোরআনে কারীম ও হাদিসে নববী। কোরআনে কারীমের বিশুদ্ধ তিলাওয়াত শিক্ষা করা এ শিক্ষা ব্যবস্থার প্রথম ধাপ। এর পরবর্তী ধাপে কোরআন ও সুন্নাহর জ্ঞানে বুৎপত্তি অর্জনকে মৌলিক লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য হিসেবে নির্ধারণ করে জ্ঞান-
বিজ্ঞানের নানা বিষয়কে কওমী মাদ্রাসার পাঠ্য সূচিতে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। কওমী
মাদ্রাসার পাঠ্যসূচীকে মূলত দুই ভাগে বিভক্ত করা হয়ে থাকে। এক: তথা ঐ সকল শাস্ত্র যেগুলো কোরআন- হাদীসের জ্ঞান অর্জনের মাধ্যম হিসেবে পরিচিত। যেমন, আরবি ভাষা ও সাহিত্যে দক্ষতা অর্জনের লক্ষ্যে পাঠ দান করা হয় সরফ (শব্দ সংক্রান্ত ব্যকরণ), নাহু (বাক্য সংক্রান্ত ব্যকরণ), বালাগত (অলংকার শাস্ত্র ) ইত্যাদি। দুই তথা ঐ সকল শাস্ত্র
যেগুলো এ শিক্ষা ব্যবস্থার মৌলিক লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য যেমন , তাফসীর শাস্ত্র, হাদীস শাস্ত্র, ফিকাহ শাস্ত্র ইত্যাদি।
কওমী মাদ্রাসার পাঠ্যসূচিতে যুগের চাহিদার প্রতি সর্বদাই লক্ষ্য রাখা হয়েছে। তাই এ
পাঠ্যসূচিতে উপরোক্ত বিষয়গুলোর পাশাপাশি বাংলা, ইংরেজি, অংক, সমাজবিজ্ঞান, ইতিহাস, অর্থনীতি ইত্যাদি বিষয়গুলো সম্পর্কে পর্যাপ্ত ও মৌলিক জ্ঞান অর্জনের ব্যবস্থা রয়েছে।
কওমী মাদ্রাসার বৈশিস্টঃ
কওমী মাদ্রাসার শিক্ষা ব্যবস্থা আল্লাহ প্রদত্ত। এ শিক্ষা ব্যবস্থার মৌলিক পাঠ্যসূচি হল,
কোরআনের তিলাওয়াত, কোরআন ও সুন্নাহর বিধিবিধানের শিক্ষা ও মানুষের চরিত্রশুদ্ধি। এ
শিক্ষা ব্যবস্থার মৌলিক লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য হল, কোরআন ও সুন্নাহর শিক্ষা অর্জন করে
বাস্তব জীবনে তা প্রয়োগের মাধ্যমে আল্লাহ তায়ালার সন্তুষ্টি অর্জন করতঃ দুনিয়া ও
আখিরাতের সফলতা লাভ করা। তাই এ শিক্ষা অর্জন করে নববী আদর্শে দীক্ষিত হয়ে কওমী
শিক্ষার্থীরা হন নম্র-ভদ্র ও মানবিক গুণাবলীর অধিকারী। ফলে তারা নিজ আদর্শকে বিসর্জন
দিয়ে পাশ্চাত্যের অন্ধ অনুসরণে মেতে ঊঠেননা। সংস্কৃতির নাম অপসংস্কৃতির বেড়াজালে গা
ভাসিয়ে দেন না। কওমী শিক্ষার্থীরা হন অল্পে তুষ্ট, পরকল্যানে সচেষ্ট, দেশ ও দশের জন্য
উৎসর্গিত। তাই অভাব-অনটন ও ক্ষুধা-অনাহারে ক্লিষ্ট থাকা সত্ত্বেও তারা লোভ-লালসা,
সন্ত্রাস, চাঁদাবাজি ও টেন্ডারবাজি থেকে নিরাপদ দূরত্বে অবস্থান করেন। কওমী শিক্ষার্থীরা
হৃদয়ের গভীরে এ বিশ্বাস লালন করেন, অর্থ-সম্পদ, যশ-খ্যাতি ও ভোগ-বিলাসিতার মাঝে শান্তি
ও সফলতা নেই, বরং সততা-ন্যায় নীতি ও বিশ্বস্ততা-আমানতদারীর মাঝেই শান্তি ও সফলতা
বিদ্যমান। তাই তারা দুর্নীতি, অর্থ কেলেঙ্কারি, মদ ও নারীতে আসক্তি ও দূষিত রাজনীতির
পঙ্কিলতা থেকে যোজন যোজন দূরত্বে অবস্থান করেন।
কওমী মাদ্রাসার লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য :
দারুল উলুম দেওবন্দের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যের প্রতি আলোকপাত করে কাসেম নানুতবী র: যা
বলেছেন, তা আমাদের ভাষায় নিম্নে উল্লেখ করা হলো:
 সাহাবায়ে কেরাম ও আইয়াম্মে দীনের গবেষণা প্রসূত জ্ঞানের আলোকে কোরআন মাজীদ
ও হাদীসে নববীতে বুৎপত্তি অর্জন। পাশাপাশি অন্নান্য প্রয়োজনীয় জ্ঞান তথা ফিকাহ,
কালাম, আখলাখ (তাসাউফ ) ইত্যাদি বিষয়ে জ্ঞানার্জন।
 এই জ্ঞানালোকে যুগ-জিজ্ঞাসার জবাব ও উদ্ভূত সমস্যার সমাধান প্রদানে দক্ষতা
অর্জন
 জ্ঞানার্জনের পাশাপাশি জীবন গঠন ও চরিত্র গঠন।
 বাক ও লিখনী প্রতিভার বিকাশ ঘটিয়ে তা’লিম-তাদরীস ও দাওয়াত-তাবলীগের কাজে
আত্মনিয়োগ করা।

কওমী মাদ্রাসার অবদান:
কওমী মাদ্রাসার অবদানের কথা বিস্তারিত বর্ণনা করতে গেলে হাজারো পৃষ্ঠার কিতাব রচনা
করতে হবে। কওমী মাদ্রাসার অবদান শুধু ইসলামী শিক্ষার বিশুদ্ধ চর্চার মধ্যে সীমাবদ্ধ
নয়, বরং মুসলিম উম্মাহর জীবন ধারার সামগ্রিক দিক তথা পারিবারিক, সামাজিক,

অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক ক্ষেত্রসমূহে কওমী মাদ্রাসা এবং কওমী আলেমদের
অবদান অপরিসীম। সংক্ষেপে কিছু অবদানের কথা উল্লেখ করা হলো:
 কোরআনে কারীমের বিশুদ্ধ তিলওয়াত শিক্ষার প্রসার: কোরআনে কারীমের বিশুদ্ধ
তিলাওয়াত শিক্ষার প্রসারে কওমী মাদ্রাসাগুলোর অবদান সম্পর্কে সকলেই জানে।
কোরআনে কারীমের বিশুদ্ধ তিলাওয়াত শিক্ষা দানের উদ্দেশ্যে কওমী মাদ্রাসার
হাফেজ ও আলেমদের হাতে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে অসংখ্য মক্তব ও মাদ্রাসা। মসজিদে
মসজিদে চালু করা করা হয়েছে সবাহী মক্তব ও বয়স্কদের জন্য কোরআন শিক্ষার
বিভিন্ন কোর্স।
 কোরআন সুন্নাহর ব্যাপক গবেষণা: কোরআন ও সুন্নাহর গবেষণায় কওমী মাদ্রাসার
উলামায়ে কেরাম এর অবদান অনস্বীকার্য। কোরআন ও সুন্নাহর গবেষণায় উলামায়ে
কেরাম কতৃক যে পরিমান কিতাব ও গবেষণা পত্র রচিত হয়েছে তার নযীর পৃথিবীর আর
অন্য কোনো ধর্ম বা মতবাদে খুঁজে পাওয়া অসম্ভব। কওমী মাদ্রাসার উলামায়ে
কেরাম কোরআন ও সুন্নাহর বিশুদ্ধ শিক্ষাকে লিখনী শক্তি ও বাক শক্তির মাধ্যমে
সমাজের সর্বস্তরের মানুষের কাছে পৌঁছে দিয়েছেন।
 ইসলামী সংস্কৃতির বিকাশ ও লালন :আদর্শ শিক্ষা বিস্তারের পাশা-পাশি ইসলামী
সংস্কৃতির বিকাশেও কওমী মাদ্রাসার ভূমিকা অনন্য। বহু জাতি ও ধর্মের মানুষের
আবাস স্থল এই ভারতবর্ষ। বিভিন্ন সংস্কৃতির ভাবধারায় গড়ে উঠেছিল এখানকার
মানুষের জীবন। এই বহুবিধ সংস্কৃতির মাঝে ইসলামী সংস্কৃতিকে সতন্ত্ররূপে
প্রতিষ্ঠা করার পিছনে কওমী মাদ্রাসার অবদান সবচেয়ে বেশি। কওমী মাদ্রাসা
প্রমান করে দেখিয়েছে, নবীজী সাঃ এর কর্মময় জীবনই হল সুস্থ ও বিশুদ্ধ সংস্কৃতির
উৎস। আর অপসংস্কৃতির আগ্রাসন থেকে দেশ ও জাতিকে রক্ষার জন্য কওমী
উলামায়ে কেরাম সর্বদাই সচেষ্ট।
 বাতিল কুসংস্কার প্রতিরোধ: হক ও বাতিলের দ্বন্দ্ব চিরন্তন। কোরআন ও সুন্নাহর
বিশুদ্ধ চর্চা যেখানে না থাকে বাতিল ও কুসংস্কার সেখানেই তাদের আস্তানা গড়ে
তোলে। কওমী উলামায়ে কেরাম মুসলিম উম্মাহর ঈমান ও আকিদার সংরক্ষণের জন্য
অতন্দ্র প্রহরীরূপে কাজ করে যাচ্ছেন। সর্বত্র কোরআন ও সুন্নাহর বিশুদ্ধ
চর্চাকে চালু করে বাতিল ও কুসংস্কার প্রতিরোধে জীবনবাজী রেখে তারা জাতিকে এ
কথা বুঝাতে সক্ষম হয়েছেন, মুসলমানদের ঈমান ও আকীদার হেফাজতের একমাত্র
নিরাপদ দুর্গ হলে কওমী মাদ্রাসা।
 কওমী মাদ্রাসার রাজনৈতিক অবদান: দারুল উলুম দেওবন্দ প্রতিষ্ঠার পিছনে
অন্যতম একটা লক্ষ্য ছিল, এর দ্বারা ব্রিটিশ বেনিয়াদের বিরুদ্ধে একটি একাডেমিক
আন্দোলনের সূচনা করা। যে লক্ষ্যকে বুকে ধারণ করে আমৃত্যু সংগ্রাম চালিয়ে
গিয়েছেন শাইখুল হিন্দ মাহমুদ হাসান দেওবন্দী র: ও তাঁর সুযোগ্য উত্তরসূরী শাইখুল
ইসলাম হোসাইন আহমদ মাদানী র: । ভারতবর্ষের স্বাধীনতার ইতিহাসে তাই কওমী
উলামায়ে কেরাম এর অবদান স্বর্ণাক্ষরে লিপিবদ্ধ রয়েছে। এরপর দেশ ও জাতি
যখনই রাজনৈতিক ক্রান্তিলগ্নে উপনিত হয়েছে কওমী মাদ্রাসার উলামায়ে কেরাম
দেশ ও জাতির হেফাজতের লক্ষ্যে বুক টান করে উঠে দাঁড়িয়েছেন। যখনই কোথাও
কোনো অনাচার বা ইসলাম বিরোধী আইন পাশের / পাসের ব্যর্থ অপচেষ্টা দেখা
দিয়েছে তারা প্রতিবাদী সিংহের মতো গর্জে উঠেছেন। অত্যাচারী শাসকের রক্তচক্ষু
তাদের দমাতে পারেনি।
 সমাজ সেবায় কওমী মাদ্রাসার অবদান: মানব সেবা মহৎ কাজ। মানব সেবা
আম্বিয়ায়ে কেরাম আ: এর সুন্নত। অসহায় মানুষের সেবা করা, নির্যাতিতের পাশে
দাঁড়ানো তাদের স্বভাবজাত চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য ছিল। আর উলামায়ে কিরাম হলেন

নবীদের ওয়ারিস; নবীদের জ্ঞান ও আদর্শের ধারক বাহক। তাইতো আমরা দেখতে
পাই, দেশের হাজারো লক্ষ এতিম-অসহায়ের শিক্ষা-দীক্ষা ও লালন-পালনের ব্যবস্থা
হয় কওমী মাদ্রাসাগুলোতে। সারা দেশের কওমী মাদ্রাসাগুলোতে গরিব-এতিম
ছাত্রদেরকে বছরে হাজারো কোটি টাকার সহায়তামূলক বৃত্তি প্রদান করা হয়। এছাড়া
দেশ ও জাতি যখনই কোনো দুর্যোগ বা বিপদের সম্মুখীন হয়েছে কওমী মাদ্রাসার
উলামায়ে কেরাম নিজেদের সর্বশক্তি দিয়ে সাহায্য ও সহযোগিতার হাত বাড়িয়েছেন।
উপসংহারঃ পরিশেষে বলব, কওমী মাদ্রাসা এ যুগে আল্লাহ প্রদত্ত বিশেষ নিয়ামত। কওমী
মাদ্রাসা মুসলমাদের ঈমান-আকীদা ও তাহযীব-তামাদ্দুন রক্ষার সুদৃঢ় দুর্গ। কওমী মাদ্রাসার
কারণেই আজ ইসলামের ঝান্ডা সমুন্নত রয়েছে। কওমী মাদ্রাসা এদেশের মানুষের বিপদের প্রকৃত
বন্ধু, শেষ ভরসা। তাই দেশের সাধারণ নাগরিক থেকে শুরু করে প্রধানমন্ত্রী পর্যন্ত সর্বস্তরের
মানুষের উচিত কওমী মাদ্রাসার সাথে আত্মিক বন্ধনে আবদ্ধ হওয়া। মুসলমানদের মন-মানসে
কওমী মাদ্রাসার এই মর্যাদা ও গুরত্ব বিদ্যমান থাকার কারণেই আজ ইসলামের শত্রুরা এর
স্বকীয়তা ও সম্মান নষ্টের জন্য নানাবিধ ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। তাই আমাদের সতর্ক থাকতে হবে,
রাখতে হবে সজাগ দৃষ্টি। সবশেষে উসতায়ে মুহতারাম আল্লামা রিয়াসাত আলী বিজনূরী র: কতৃক
রচিত তারানায়ে দারুল উলুম দেওবন্দের শেষ দুটি পংক্তি উল্লেখ করে আমার নাতিদীর্ঘ
প্রবন্ধের ইতি টানছি।

আহমদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর দীনের এ প্রদীপ্ত ভাস্কর দিকচক্রবালকে
আলোকিত করে তুলবে। এ আলো সব সময় প্রজ্জলিত ছিল, এ নূর সর্বদাই বিরামহীন ভাবে
চমকাবে।
এ মহান পূর্বসূরীদের এ অতুলনীয় কীর্তি ভূপৃষ্ঠে উজ্জ্বল প্রজ্জল থাকুক। নয়নে জ্বলুক হরমের নূর, বুকের মাঝে জাগ্রত থাকুক পবিত্র হৃদয়-আত্মা। আমীন ।

(সংকলনে-আবু সালমান,সরকারী কর্মকর্তা)

এই সংবাদটি 1,075 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com