বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০১৯ ০৫:০৬ ঘণ্টা

ত্রীর গরম তেলে ঝলসে যাওয়া স্বামীর মৃত্যু

Share Button

ত্রীর গরম তেলে ঝলসে যাওয়া স্বামীর মৃত্যু

ডেস্ক রিপোর্ট: লক্ষ্মীপুরে স্ত্রী দেওয়া ‘গরম তেলে’ ঝলসে যাওয়া স্বামী দিদার হোসেনের (৩২) মৃত্যু হয়েছে। দিদার সদর উপজেলার চররুহিতা গ্রামের আব্দুল খালেকের ছেলে। তিনি পেশায় রাজমিস্ত্রি।

বৃহস্পতিবার (২৭ জুন) সকালে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে তার মৃত্যু হয়। দশদিন চিকিৎসাধীন থাকার পর ঢামেক হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়।

দুপুরে লক্ষ্মীপুরে সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) একেএম আজিজুর রহমান মিয়া বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

এরআগে সোমবার (১৭ জুন) পারিবারিক কলহের জেরে স্বামী দিদার হোসেনের গায়ে গরম তেল ঢেলে প্রথম স্ত্রী জহুরা বেগম ঝলসে দিয়েছেন বলে অভিযোগ করেন ভুক্তভোগীর পরিবার। এ জন্য ভুক্তভোগীর পরিবার প্রথম স্ত্রী জহুরা বেগম ও তার ভাই আলমগীরকে দায়ী করেন।

ঘটনার দিনই দিদারের মা বানু বেগম বাদী হয়ে জহুরা ও আলমগীরের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন।

ঘটনার দিন দিদারের বড় ভাই আকবর হোসেন জানান, ২০০৩ সালে সদর উপজেলার চররমনী মোহন গ্রামের নুরুল ইসলামের মেয়ে জহুরার সঙ্গে দিদারের বিয়ে হয়। পরে পারিবারিক বিবাদে ২০১৬ সালে তাদের বিচ্ছেদ হয়। এরপর দুইজনই অন্যত্র বিয়ে বন্ধনে আবদ্ধ হন। এক বছর আগে দিদার জহুরাকে ফের বিয়ে করেন। তারা লক্ষ্মীপুর শহরে একটি বাসা ভাড়া করে থাকেন। সকালে পারিবারিক কলহের জের ধরে জহুরা ও তার ভাই আলমগীর গরম তেল ঢেলে দেয় দিদারের গায়ে। এরপর তাৎক্ষণিকভাবে তাকে উদ্ধার করে প্রথমে লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালে পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে পাঠানো হয়।

মামলা সূত্র জানা যায়, পারিবারিক কলহের জের ধরে ঘটনার দিন জহুরা ও তার ভাই আলমগীর গরম তেল ঢেলে দিদারের শরীর ঝলসে দেয়। এতে তার মুখ-হাত ও বুকসহ শরীরের ৪০ শতাংশ পুড়ে যায়। দগ্ধাবস্থায় তাকে সদর হাসপাতালে নিয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢামেক হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে পাঠানো হয়।

সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) একেএম আজিজুর রহমান মিয়া বলেন, দিদার ঢাকা মেডিকেল কলেজে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছে। আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে।

এই সংবাদটি 1,012 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com