শুক্রবার, ১২ জুলা ২০১৯ ১১:০৭ ঘণ্টা

সনদের গুরুত্ব ও আমাদের সনদ পরম্পরা

Share Button

সনদের গুরুত্ব ও আমাদের সনদ পরম্পরা

মাওলানা মোহাম্মদ নজমুল হুদা খানঃ ইসলাম একটি পরিপূর্ণ, সত্য ও শাশ্বত ধর্ম। এর সকল বিধি-বিধান ও কর্মপন্থা স্বীকৃত ও গ্রহণযোগ্য বর্ণনাক্রমে প্রিয়নবী (সা.) থেকে আমাদের পর্যন্ত এসে পৌঁছেছে। বর্ণনাকারীদের এ ক্রমধারাই হলো সনদ। ইলমে কিরাত, ইলমে তাফসীর, ইলমে হাদীস, ইলমে তাসাওউফসহ দ্বীনী জ্ঞানের প্রত্যেক শাখায় সনদের গুরুত্ব অনস্বীকার্য। বিশেষত ইলমে হাদীস সনদের উপর নির্ভরশীল। হাদীসের সবলতা, দুর্বলতা, গ্রহণযোগ্যতা, অগ্রহণযোগ্যতা ইত্যাদি সকল বিষয় সনদ পর্যালোচনার মাধ্যমে নির্ণিত হয়।

সাধারণত হাদীস বলতে আমরা রাসূলে পাক (সা.)-এর বাণীকেই বুঝি। পরিভাষায়, হাদীস বলতে রাসূলে পাক (সা.)-এর কথা, কাজ, মৌন সমর্থন, তাঁর সৃষ্টিগত ও চরিত্রগত বৈশিষ্ট্য ইত্যাদি সব কিছুকে বুঝায়। রাসূল (সা.) এর কোনো কথা, কাজ কিংবা তাঁর সংশ্লিষ্ট কোনো বিষয়কে দুর্বল বা অগ্রহণযোগ্য মনে করার কোনো অবকাশ নেই। রাসূলে পাক (সা.)-এর সংশ্লিষ্ট কোনো বর্ণনা পেলে তা নির্দ্বিধায় গ্রহণ করাই ঈমানের দাবি। এজন্য ইমাম আবূ হানীফা (রা.) বলেছেন, ‘আল্লাহর রাসূল থেকে যে বর্ণনা আমাদের নিকট আসে তা আমরা শিরোধার্য করে রাখি’। কিন্তু তারপরও বিভিন্ন হাদীসের ক্ষেত্রে আমরা যে ‘দুর্বল’ বা ‘গ্রহণযোগ্য নয়’ এ ধরনের বিভিন্ন হুকুম লক্ষ্য করি এর কারণ কী? এর কারণ, বর্ণনাকারীদের ক্রমধারা বা সনদের অবস্থা। সনদ তথা বর্ণনাকারীদের মধ্যে কোনো ব্যক্তি কোনো কারণে সমালোচিত হলে তার বর্ণিত হাদীস দুর্বল বলে চিহ্নিত হয়। অবশ্য, হাদীস দুর্বল হলেই পরিত্যাজ্য হয় না এবং সব দুর্বলতার মানও সমান নয়। ‘যঈফ বা দুর্বল’ হাদীসের একটি পরিভাষা মাত্র। সবলতা দুর্বলতাসহ হাদীসের বিভিন্ন দিক বিবেচনায় আরো অনেক পরিভাষা রয়েছে এবং প্রত্যেকটির ভিন্ন ভিন্ন হুকুমও রয়েছে, যার বর্ণনা উসূলে হাদীসের কিতাবসমূহে রয়েছে। তাই কোনো সাধারণ পাঠক কোনো হাদীসের শেষে ‘হাদীসটি দুর্বল’ এমন বক্তব্য দেখে এটা মনে করা উচিত নয় যে, এটি গ্রহণযোগ্য নয়, বা এটি হাদীস নয় কিংবা এটি আমলযোগ্য নয়।

সারকথা হলো, হাদীসের সবলতা-দুর্বলতা, গ্রহণযোগ্যতা-অগ্রহণযোগ্যতা ইত্যাদি সনদের ভিত্তিতেই নির্ধারিত হয়ে থাকে। রাসূলে পাক (সা.)-এর যুগে এবং খুলাফায়ে রাশিদার প্রথম দিকে প্রত্যেক মুসলমানই বিশ্বস্ত ও গ্রহণযোগ্য বলে পরিগণিত হতেন, তখন বেশিরভাগই ছিলেন সাহাবায়ে কিরাম, তাই তারা কোনো বর্ণনা উপস্থাপন করলে কোনো সনদ খোঁজা হতো না। কিন্তু হযরত উসমান (রা.)-এর শাহাদাতের পর যখন ফিতনা শুরু হয় এবং দুরাচার লোকেরা বিভিন্ন পক্ষে হাদীস বানানো শুরু করে তখন সাহাবায়ে কিরাম কোনো বর্ণনা শুনলে বর্ণনাকারীদের নাম জানতে চাইতেন। তারা বলতেন, তোমরা তোমাদের বর্ণনাকারী ব্যক্তিদের নাম বলো। সেসময় থেকেই সনদ যাচাই বাছাই করে হাদীস গ্রহণের রীতি-পদ্ধতি শুরু হয়। পরবর্তীতে সকল মুহাদ্দিসীনে কিরাম অত্যন্ত বিশ্বস্ততার সাথে সনদ যাচাই বাছাই সাপেক্ষে হাদীস সংকলন করেছেন এবং বর্ণনার সাথে সাথে এর স্বরূপও বলে দিয়েছেন। মুহাদ্দিসীনে কিরামের অক্লান্ত পরিশ্রমের বদৌলতে হাদীস শাস্ত্র বিকৃতি থেকে রক্ষা পেয়েছে এবং স্বমহিমায় ঠিকে আছি, কিয়ামত পর্যন্ত থাকবে ইনশাআল্লাহ।

মুহাদ্দিসীনে কিরাম যখন হাদীস সংকলন করেছেন তখন প্রায় সকলেই সনদ তথা বর্ণনাকারীদের নাম পর্যায়ক্রমে উল্লেখ করেই বর্ণনা করেছেন এবং বর্ণনাক্রমকে দ্বীন বা দ্বীনের অংশ বলেছেন।

হযরত আব্দুল্লাহ ইবনু মুবারক (র.) বলেছেন, الإسناد من الدين، ولولا الإسناد لقال مَن شاء ما شاء.
-ইসনাদ বা সনদ দ্বীনের অংশ। যদি সনদ না থাকতো তাহলো যে কেউ যা ইচ্ছা তাই বলতো।

হযরত সুফিয়ান সাওরী (র.) বলেছেন,
الإسناد سلاح المؤمن، فإذا لم يكن معه سلاح، فبأي شيء يقاتل .
-সনদ হলো মুমিনের অস্ত্র। যদি অস্ত্র সাথে না থাকে তাহলে কী দিয়ে যুদ্ধ করবে?

হযরত ইয়াহইয়া ইবনু সাঈদ আল কাত্তান সনদকে অধিক গুরুত্বপূর্ণ বলেছেন। তিনি বলেন,
لا تنظروا إلى الحديث، ولكن انظروا إلى الإسناد؛ فإن صح الإسناد، وإلا فلا تغترَّ بالحديث إذا لم يصح الإسناد .
-তোমরা হাদীসের ভাষ্যের দিকে নয় বরং সনদের দিকে দৃষ্টিপাত করো। যদি সনদ সহীহ হয় তাহলে তা গ্রহণ করো। সনদ সহীহ না হলে কেবল হাদীসের ভাষ্য গ্রহণ করে তোমরা প্রতারিত হয়ো না।

উলামায়ে কিরাম হাদীস ও এর সনদ সংরক্ষণকে উম্মতে মুহাম্মদীর বিশেষ বৈশিষ্ট্য বলে আখ্যায়িত করেছেন। ইমাম আবূ হাতিম আর রাযী (র.) লিখেছেন,
لم يكن في أمة من الأمم منذ خلق الله آدم أمناءُ يحفظون آثار الرسل إلا في هذه الأمة”، وفي رواية: “أمة يحفظون آثار نبيهم غير هذه الأمة.
-আল্লাহ তাআলা আদম (আ.)-কে সৃষ্টির সময় থেকে পরবর্তী কোনো উম্মতের মধ্যে রাসূলগণের হাদীস বা বাণী সংরক্ষণ করার কোনো প্রচলন ছিল না, কেবল উম্মতে মুহাম্মদী ছাড়া।

আল্লামা ইবনে হাযম লিখেছেন যে, ইয়াহুদীদের মধ্যে নবী মুসা (আ.) পর্যন্ত মিলিত কোনো বর্ণনা পাওয়া যায় না। তবে অনেক মুরসাল ও মু’দাল বর্ণনা (যার মধ্যখানে সনদের বিচ্ছিন্নতা রয়েছে) পাওয়া যায়। কিন্তু আমাদের মুরসাল বা মু’দাল বর্ণনা যেভাবে রাসূল (সা.)-এর নিকটবর্তী পর্যন্ত গিয়ে পৌঁছে তাদের সনদ সেরূপ নিকটবর্তী হয় না। বরং তাদের আর মুসা (আ.) এর মধ্যে ত্রিশ পুরুষের ব্যবধান থেকে যায়। তারা সর্বোচ্চ শামঊন বা তার সমকালীন লোক পর্যন্ত পৌঁছতে পারে। আর নাসারাদের মধ্যে কেবল তালাক হারাম হওয়া সংক্রান্ত বর্ণনা ছাড়া আর কোনো বর্ণনা সনদ পরম্পরায় নেই।

আল্লামা মানাভী (র.) লিখেছেন:
وقد أكرم الله هذه الأمة بالإسناد، وجعله من خصوصياتها من بين العباد، وألهمهم شدة البحث عن ذلك، حتى إن الواحد يكتب الحديث من ثلاثين وجهًا وأكثر.
আল্লাহ তাআলা এ উম্মতকে ‘সনদ’ এর মাধ্যমে সম্মানিত করেছেন এবং একে মানুষের মধ্যে তাদের বিশেষত্বের কারণ বানিয়েছেন এবং এ বিষয়ে তাদের কঠোর পর্যালোচনার নির্দেশ দিয়েছেন। ফলে একজন বর্ণনাকারী ত্রিশ বা তার অধিক সনদে পর্যন্ত হাদীস লিখেছেন।

রাসূলুল্লাহ (সা.)-এর সুন্নাহ ইসলামী শরীআতের দ্বিতীয় মৌলিক উৎস এবং প্রথম উৎস কুরআন মজীদের ব্যাখ্যা। সুতরাং তা গ্রহণের ক্ষেত্রে অবশ্যই সত্য-মিথ্যা যাচাই করা আবশ্যক। আর সত্য-মিথ্যা যাচাইয়ের ক্ষেত্রে সনদই মূল ভিত্তি। হাদীসের অকাট্যতা তখনই প্রমাণিত হবে যখন এর সনদ সহীহ হবে। যদি সনদ সহীহ না হয় তাহলে হাদীস দলীল হিসেবে গ্রহণযোগ্য হবে না। এ ধরনের সনদ মূলত হাদীস গ্রন্থবদ্ধ হওয়ার সময়কাল পর্যন্তই ধর্তব্য। গ্রহণ-বর্জনের ক্ষেত্রে পরবর্তী সনদ পর্যালোচনার প্রয়োজন বা অবকাশ নেই।

আমাদের সনদ পরম্পরা
হাদীস যেহেতু গ্রন্থবদ্ধ হয়ে গেছে এবং পূর্বসূরি মুহাদ্দিসীনে কিরাম কর্তৃক এগুলোর মানও নির্ণিত হয়ে গেছে সেহেতু প্রথম যুগে হাদীসের সনদের যে আবশ্যকতা ছিলো বর্তমানে সেরূপ আবশ্যকতা নেই। বর্তমানে কোনো বিষয়ে একটি হাদীস গ্রহণ করতে হলে দেখতে হবে পূর্বসূরি মুহাদ্দিসীনে কিরাম এ হাদীস সম্পর্কে কী বলেছেন। সুতরাং স্বতন্ত্রভাবে এখন আর নতুন সনদ খোঁজা বা এর মান যাচাই-বাছাইয়ের প্রয়োজন নেই। গ্রন্থবদ্ধ হওয়ার পর পরবর্তী স্তরে বর্ণনাকারীদের সনদও তাই আবশ্যকীয় বিষয় নয়। এরপরও মুহাদ্দিসীনে কিরাম প্রিয়নবী (সা.)-এর ইলমের সাথে নিজেদের যুক্ত রাখার মহৎ উদ্দেশ্যে সনদ প্রদান ও গ্রহণ করে থাকেন। আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের শুকরিয়া, আমাদের পীর ও মুরশিদ শামসুল উলামা হযরত আল্লামা ফুলতলী ছাহেব কিবলাহ (র.) ও হযরত আল্লামা ইমাদ উদ্দীন চৌধুরী বড় ছাহেব কিবলাহ ফুলতলী’র মাধ্যমে আমরা বরকতময় এ সিলসিলায় যুক্ত হবার সৌভাগ্য অর্জন করেছি। আল্লাহ যেন এ সম্পর্ককে পরকালীন নাজাতের ওসীলা বানিয়ে দেন, আমীন।

হযরত আল্লামা ফুলতলী ছাহেব কিবলাহ (র.) ছাত্রজীবনে রামপুর অবস্থানকালে সেখানকার দু’জন প্রখ্যাত মুহাদ্দিসের নিকট ইলমে হাদীস অধ্যয়ন করেন এবং তাদের নিকট থেকে সনদ লাভ করেন। তাদের একজন হলেন রামপুর মাতলাউল উলুম মাদরাসার প্রতিষ্ঠাতা ও প্রিন্সিপাল (নাজিমে আ’লা) হযরত আল্লামা খলীলুল্লাহ রামপুরী (র.) [ওফাত: ১৯৪৬ খ্রিষ্টাব্দ], অন্যজন হলেন রামপুর আলিয়া মাদরাসার প্রিন্সিপাল (তৎকালীন হেড মাওলানা) হযরত আল্লামা ওয়াজীহ উদ্দীন আহমদ খান কাদিরী মুজাদ্দিদী রামপুরী (র.) [ওফাত: ১৯৮৭ খ্রিষ্টাব্দ]।

হযরত আল্লামা খলীলুল্লাহ রামপুরী (র.) ভারতের একজন প্রসিদ্ধ মুহাদ্দিস ছিলেন। তিনি ছিলেন পেশওয়ারের বাসিন্দা। হাদীসে নববীর খিদমতের উদ্দেশ্যে তিনি ১৯১৩ খ্রিষ্টাব্দে ভারতের উত্তর প্রদেশের রামপুরে মাতলাউল উলূম মাদরাসা প্রতিষ্ঠা করেন। তিনি তৎকালীন প্রখ্যাত মুহাদ্দিস হযরত আল্লামা মনোওর আলী রামপুরী (র.) থেকে ইলমে হাদীসের সনদ লাভ করেছিলেন। তিনি ঈসায়ী ১৯৪৬ সনে ইন্তিকাল করেন।

হযরত আল্লামা মনোওর আলী রামপুরী (র.) রামপুরে জন্মগ্রহণ করেন এবং সেখানেই শিক্ষা-দীক্ষা লাভ করেন। তাঁর উল্লেখযোগ্য শিক্ষকবৃন্দের মধ্যে রয়েছেন তাঁর পিতা হযরত আল্লামা মাযহারুল হক রামপুরী, আল্লামা ফযলে হক খয়রাবাদী, আল্লামা মুহাম্মদ সিদ্দীক রামপুরী, আল্লামা সায়্যিদ মুহাম্মদ শাহ রামপুরী (র.) প্রমুখ। আল্লামা মনোওর আলী রামপুরী (র.) রামপুর আলিয়া মাদরাসার মুহাদ্দিস ছিলেন। শেষ জীবনে কিছুকাল তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আরবী বিভাগের অধ্যাপক ছিলেন। তিনি হযরত সায়্যিদ মুহাম্মদ শাহ রামপুরী (র.)-এর নিকট থেকে ইলমে হাদীসের সনদ লাভ করেন। তিনি ১৩৫১ হিজরীতে ইন্তিকাল করেন।

হযরত সায়্যিদ মুহাম্মদ শাহ রামপুরী (র.) একজন শ্রেষ্ঠ আলিমে দ্বীন ও বুযুর্গ ছিলেন। তিনি স্বীয় পিতা হযরত সায়্যিদ হাসান শাহ রামপুরী (র.)-এর নিকট থেকে ইলমে হাদীসের সনদ লাভ করেন। তাছাড়া পিতার উস্তায হযরত শায়খ আলম আলী নাকিনাভী (র.)-এর নিকট সহীহ মুসলিমের দারস গ্রহণ করেছেন। প্রখ্যাত মুহাদ্দিস শায়খ ফযলুর রহমান ইবনে আহলুল্লাহ বিকরী আল মুরাদাবাদী (র.)-এর নিকট থেকে হাদীসের ইজাযত লাভ করেছেন। তিনি প্রথমে স্বীয় পিতার নিকট বায়আত গ্রহণ করেন এবং কাদিরিয়া তরীকার খেলাফত লাভ করেন। পরবর্তীতে তিনি হযরত মাওলানা কারামত আলী জৌনপুরী (র.) এর নিকট নকশবন্দিয়া তরীকার বায়আত গ্রহণ করেন এবং তাঁর নিকট কিছুকাল অবস্থান করে ফায়য ও খেলাফত লাভ করেন। তিনি প্রথমে টোঙ্কের নবাবের মাদরাসায় এবং পরে রামপুর প্রত্যাবর্তন করে নিজ বাড়িতে প্রায় ত্রিশ বছর ইলমে হাদীসের খিদমত আঞ্জাম দেন। তিনি ১৩৩৮ হিজরী মোতাবেক ১৯২০ খ্রিষ্টাব্দে ইন্তিকাল করেন।

হযরত সায়্যিদ হাসান শাহ রামপুরী (র.) ইলমে হাদীসের একজন প্রখ্যাত শায়খ ছিলেন। তিনি মুরাদাবাদে হযরত আলম আলী নাকিনাভী (র.)-এর নিকট অবস্থান করে তাঁর নিকট সিহাহ ও সুনানগ্রন্থসমূহ অধ্যয়ন করেন এবং তাঁর নিকট থেকেই ইলমে হাদীসের সনদ লাভ করেন। তিনি হযরত গোলাম জিলানী বিলাশপুরী (র.)-এর নিকট থেকে কাদিরিয়া তরীকার খেলাফত লাভ করেন এবং হযরত শায়খ আবদুল গনী ইবনে আবূ সাঈদ দেহলভী ও হযরত শায়খ মুরতাযা রামপুরী এর নিকট থেকে নকশবন্দিয়া তরীকার ইজাযত লাভ করেন। হযরত শায়খ মুরতাযা রামপুরী (র.) ছিলেন হযরত সায়্যিদ আহমদ শহীদ বেরলভী (র.)-এর সাথীদের একজন। সায়্যিদ হাসান শাহ রামপুরী (র.) রামপুরে দীর্ঘ চল্লিশ বছর ইলমে দ্বীন ও ইলমে হাদীসের খিদমত আঞ্জাম দেন। তিনি ১৩১২ হিজরীতে ইন্তিকাল করেন।

হযরত আল্লামা আলম আলী নাকিনাভী (র.) সমকালীন একজন শ্রেষ্ঠ মুহাদ্দিস ও ফকীহ ছিলেন। তাঁর প্রখ্যাত উস্তাযগণের মধ্যে রয়েছেন হযরত আল্লামা ইসহাক ইবনে আফযল আদ দেহলভী (র.) হযরত আল্লামা মুফতী শরফুদ্দীন রামপুরী (র.), আল্লামা গুফরান ইবনে তায়িব আল আফগানী আল ফকীহ (র.), শায়খ গোলাম মামলুক আলী নানুতভী (র.) প্রমুখ। তিনি স্বীয় উস্তায আল্লামা ইসহাক দেহলভী (র.)-এর নিকট থেকে ইলমে হাদীসের সনদ লাভ করেন। এছাড়া হাকীম নাসরুল্লাহ এর নিকট ইলমে তিব্ব তথা চিকিৎসা শাস্ত্র অধ্যয়ন করেন। তিনি ১২৯৫ হিজরীতে ইন্তিকাল করেন।

হযরত আল্লামা আলম আলী নাকিনাভী (র.) এর উস্তায হযরত শাহ ইসহাক দেহলভী (র.) হলেন হযরত শাহ আবদুল আযীয মুহাদ্দিসে দেহলভী (র.)-এর নাতি। তিনি হযরত শাহ আবদুল কাদির ইবনে ওলীউল্লাহ দেহলভী (র.) এর নিকট থেকে ইলমে হাদীস ও ইলমে ফিকহসহ দ্বীনের সকল জ্ঞান অর্জন করেন এবং স্বীয় নানা হযরত আবদুল আযীয মুহাদ্দিসে দেহলভী (র.)-এর নিকট থেকে সনদ লাভ করেন। হযরত আবদুল আযীয মুহাদ্দিসে দেহলভী (র.) তাঁকে পুত্রবৎ লালন পালন করেন এবং উত্তরসূরি মনোনীত করে যান। নানা হযরত শাহ আবদুল আযীয মুহাদ্দিসে দেহলভী (র.)-এর ইন্তিকালের পর হযরত শাহ ইসহাক দেহলভী (র.) তাঁর স্থলাভিষিক্ত হয়ে দারস-তাদরীস প্রদান করেন। এরপর ১২৪০ হিজরীতে তিনি হারামাইন শরীফাইন গমন করে হজ্জ ও যিয়ারত সম্পাদন করেন। সেখানে শায়খ ওমর ইবনে আবদুল করীম ইবনে আবদুর রাসূল আল মক্কী এর নিকট থেকে সনদ লাভ করেন। এরপর দেশে ফিরে দিল্লীতে ষোলো বছর দারস প্রদান করেন। ১২৫৮ হিজরীতে আবার হারামাইন শরীফাইন গমন করে হজ্জ ও যিয়ারত শেষে স্থায়ীভাবে মক্কা শরীফ অবস্থান করেন। ১২৬২ হিজরীতে ইন্তিকাল করেন এবং জান্নাতুল মুআল্লায় হযরত খাদিজাতুল কুবরা (রা.)-এর কবরের পাশে সমাহিত হন। তাঁর নিকট থেকে অগণিত মুহাদ্দিসীনে কিরাম সনদ লাভ করেছেন।

হযরত শাহ ইসহাক দেহলভী (র.) এর উস্তায ও নানা হযরত শাহ আবদুল আযীয মুহাদ্দিসে দেহলভী (র.) তদীয় পিতা হযরত শাহ ওলীউল্লাহ মুহাদ্দিসে দেহলভী (র.) থেকে ইলমে হাদীসের সনদ লাভ করেন। শাহ আবদুল আযীয মুহাদ্দিসে দেহলভী (র.) ১১৫৯ হিজরীতে জন্মগ্রহণ করেন। মাত্র পনের বছর বয়সে ইলমে হাদীসসহ ইলমে দ্বীনের প্রায় সকল বিষয়ে বুৎপত্তি লাভ করেন। সতের বছর বয়সে ইলমে তাছাওউফের সনদ লাভ করেন। তিনি হাদীস, তাসাওউফসহ প্রায় সকল জ্ঞানই তাঁর পিতার নিকট থেকে হাসিল করেন। হযরত শাহ আবদুল আযীয মুহাদ্দিসে দেহলভী ও শাহ ওলীউল্লাহ মুহাদ্দিসে দেহলভী (র.) এবং তাঁদের পরিবারের ইলমী খিদমত ও রাসূলে পাক (সা.) পর্যন্ত তাঁদের সনদ অত্যন্ত সুবিখ্যাত। ভারত উপমহাদেশের প্রায় সকল মুহাদ্দিস তাঁদের সনদের সাথে সম্পৃক্ত। ফালিল্লাহিল হামদ।

হযরত ওলীউল্লাহ মুহাদ্দিসে দেহলভী (র.) এর الانتباه في سلاسل اولياء الله গ্রন্থে তাঁর বিস্তারিত সনদ রয়েছে। হযরত ওলীউল্লাহ মুহাদ্দিসে দেহলভী (র.) থেকে আমীরুল মুমিনীন ফিল হাদীস ইমাম বুখারী (র.) পর্যন্ত সনদের ক্রমধারা হলো- হযরত শাহ্ ওলীউল্লাহ আল উমরী আদ দেহলভী (র.) > হযরত শায়খ আলহাজ মুহাম্মদ আফদ্বাল (র.) > হযরত শায়খ আবদুল আহাদ (র.) > তাঁর পিতা খাযিনুর রহমত হযরত শায়খ মুহাম্মদ সাঈদ (র.) > হযরত ইমামে রব্বানী মুজাদ্দিদে আলফে ছানী শায়খ আহমদ সিরহিন্দী (র.) > হযরত শায়খ মুহাম্মদ ইয়াকূব কাশ্মিরী (র.) > হযরত শায়খ আহমদ ইবনে হাজার আল হায়তামী আল মক্কী (র.) > হযরত শায়খ যায়নুদ্দীন যাকারিয়া আল আনসারী (র.) > হযরত শায়খ হাফিয আবুল ফদল শিহাবুদ্দীন আহমদ ইবনে আলী ইবনে হাজার আসকালানী (র.) > হযরত ইবরাহীম ইবনে আহমদ আত তানূখী (র.) > হযরত আবুল আব্বাস আহমদ ইবনে আবূ তালিব আল হাজ্জার (র.) > হযরত সিরাজুল হুসাইন ইবনুল মুবারক আয যাবিদী (র.) > হযরত শায়খ আবুল ওয়াক্ত আবদুল আউয়াল ইবনে ঈসা ইবনে শুয়াইব আস সিজযী আল হারাভী (র.) > হযরত শায়খ আবুল হাসান ইবনে আব্দুর রহমান ইবনে মুজাফফর আদ দাঊদী (র.) > হযরত আবূ মুহাম্মদ আব্দুল্লাহ ইবনে আহমদ আস সারখাসী (র.) > হযরত আবূ আব্দুল্লাহ মুহাম্মদ ইবনে ইউসুফ ইবনে মাতার আল ফিরাবরী (র.) > ইমাম মুহাম্মদ ইবনে ইসমাঈল ইবনে ইবরাহীম ইবনুল মুগীরা আল জু’ফী আল বুখারী (র.)।

ইমাম বুখারী (র.) থেকে রাসূলে পাক (সা.) পর্যন্ত হাদীসের সনদ সুপ্রসিদ্ধ ও নির্ভরযোগ্য।

হযরত ফুলতলী ছাহেব কিবলাহ (র.) তাঁর আরেকজন উস্তায ভারতবর্ষের স্বনামধন্য মুহাদ্দিস হযরত মাওলানা ওয়াজীহ উদ্দীন রামপুরী (র.) থেকেও হাদীসের সনদ লাভ করেন। হযরত ওয়াজীহ উদ্দিন রামপুরী (র.) হযরত আল্লামা আনোয়ার শাহ কাশ্মিরী (র.)-এর অত্যন্ত প্রিয়ভাজন ছাত্র ছিলেন এবং তাঁর নিকট থেকে ইলমে হাদীসের সনদ লাভ করেছেন। এছাড়া তিনি স্বীয় পীর ও মুরশিদ মাওলানা ওযীর মুহাম্মদ খান (র.) ও রামপুরের বিশিষ্ট মুহাদ্দিস হাফিয মাওলানা ওযীর আহমদ (র.) এর নিকট থেকে ইলমে হাদীসের সনদ অর্জন করেন। হযরত আল্লামা আনোয়ার শাহ কাশ্মিরী (র.)-এর সনদ অন্য সিলসিলায় হযরত শাহ্ মুহাম্মদ ইসহাক (র.) পর্যন্ত পৌঁছে পূর্বের সনদের সাথে যুক্ত হয়েছে।

পীর ও মুরশিদ হযরত আল্লামা ইমাদ উদ্দীন চৌধুরী বড় ছাহেব কিবলাহ ফুলতলী এর মাধ্যমে আমরা উপমহাদেশের প্রখ্যাত মুহাদ্দিস ও ফকীহ হযরত আল্লামা মুফতী আমীমুল ইহসান মুজাদ্দিদী বারাকাতী (র.)-এর সনদের সাথে যুক্ত হবার সৌভাগ্য অর্জন করেছি। হযরত মুফতী আমীমুল ইহসান (র.) চৌদ্দজন মুহাদ্দিস থেকে ইলমে হাদীসের সনদ লাভ করেছেন। তাঁর সবচেয়ে উঁচুস্তরের সনদ হলো- হযরত আল্লামা মুফতী আমীমুল ইহসান মুজাদ্দিদী বারাকাতী (র.) > হযরত আল্লামা মুশতাক আহমদ (র.)> শায়খুদ দালাইলুল হযরত আল্লামা আব্দুল হক ও আল্লামা হাসবুল্লাহ (র.)> হযরত শাহ আব্দুল গণী মুজাদ্দিদী (র.)> শায়খ আবিদ সিন্ধী (র.)> শায়খ সালিহ আল ফাল্লানী (র.)> শায়খ ইবনু সিন্নাহ (র.)>শায়খ আহমদ আল আজাল (র.)> শায়খ আহমদ আন নাহরাওয়ালী (র.)> শায়খ আবুল ফুতুহ আত তাঊসী (র.)> শায়খ বাবা ইউসুফ আল হারাওয়ী (র.)> শায়খ মুহাম্মদ ইবনে শাযবখত আল ফারগানী (র.)> হযরত ইয়াহইয়া ইবনে আম্মার আল খাতলানী (র.)> শায়খ মুহাম্মদ ইবনে ইউসুফ আল ফিরাবরী (র.)> আমীরুল মুমিনীন ফিল হাদীস আবূ আবদিল্লাহ মুহাম্মদ ইবনে ইসমাঈল আল বুখারী (র.)।

রঈসুল কুররা ওয়াল মুফাসসিরীন, উস্তাযুল আসাতিযা, উস্তাযুল মুহাদ্দিসীন, যুবদাতুল আরিফীন, শামসুল উলামা হযরত আল্লামা ফুলতলী ছাহেব কিবলাহ ও উস্তাযুল উলামা ওয়াল মুহাদ্দিসীন, কাফীলুল ইয়াতামা ওয়াল মাসাকীন, মুরশিদে বরহক হযরত আল্লামা ইমাদ উদ্দিন চৌধুরী বড় ছাহেব কিবলাহ ফুলতলী ছাড়াও আরো কয়েকজন মহান শায়খুল হাদীসের সনদের সাথে যুক্ত হবার সুযোগ আল্লাহ তাআলা এনায়েত করেছেন। তাঁরা হলেন শায়খুল হাদীস হযরত আল্লামা হবিবুর রহমান (মুহাদ্দিস ছাহেব), শায়খ জামাল ফারুক আদ দাক্কাক আল আযহারী (মিশর), শায়খ নাজী বিন রাশিদ আল আরাবী (বাহরাইন)।

আল্লাহ তাঁর প্রিয় এ বান্দাদের ইলমী ও রূহানী ফায়য আমাদের নসীব করুন। আমীন।

এই সংবাদটি 1,043 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com