শনিবার, ১৩ জুলা ২০১৯ ১২:০৭ ঘণ্টা

জমিয়তের শতবর্ষের সভাস্থল মন্ত্রী সিদ্দিকুল্লাহর পরিদর্শন

Share Button

জমিয়তের শতবর্ষের সভাস্থল মন্ত্রী সিদ্দিকুল্লাহর পরিদর্শন

ডেস্করিপোর্ট:ভারতের অন্যতম ঐতিহ্যবাহী সংগঠন ‘জমিয়তে উলামায়ে হিন্দের ১০০ বছর পূর্ণ হওয়ায় শতবার্ষিকী সম্মেলন আয়োজনের উদ্যেগ নিয়েছে জমিয়তে উলামায়ে হিন্দ। ইতোমধ্যেই সম্মেলন সফল করার লক্ষ্যে যাবতীয় প্রস্ততি গ্রহণ করেছে জমিয়ত নেতৃবৃন্দ। এরই ধারাবাহিকতায় কয়েকটি প্রদেশের নেতৃবৃন্দ দেওবন্দে পৌঁছেছেন এবং শতবার্ষিকী সম্মেলনের জন্য স্থান নির্বাচনও শুরু করেছেন।

১১ জুলাই সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে জমিয়তে উলামায়ে হিন্দের সেক্রেটারী জেনারেল মাওলানা হাকীম উদ্দীন কাসেমী বলেন, শতবার্ষিকী সম্মেলনের তারিখ এবং অন্যান্য সমস্ত কার্যক্রমের সিদ্ধান্ত দিল্লির জমিয়তে উলামায়ে হিন্দের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিতব্য মিটিংয়ে নির্ধারিত হবে।
পশ্চিমবাংলা রাজ্য জমিয়তে উলামা হিন্দের সভাপতি ও গণগ্রন্থাগার বিষয়ক মন্ত্রী মাওলানা সিদ্দিকুল্লাহ চৌধুরী শতবর্ষ উদযাপন উপলক্ষ্যে প্রস্তাবিত সভাস্থল পরিদর্শন করেছেন। সঙ্গে ছিলেন, জমিয়তে উলামায়ে হিন্দের কেন্দ্রীয় সম্পাদক জনাব মাওলানা হাকিমুদ্দীন কাসেমী, শতবার্ষিকী উদযাপন কমিটির সর্বভারতীয় কনভেনর জনাব মুফতি আফফান মনসুরপুরী, কলকাতা জেলা জমিয়তের সভাপতি হাফেজ আব্দুর রাজ্জাক, সম্পাদক জিল্লুর রহমান আরিফ প্রমুখ।

মন্ত্রী মাওলানা সিদ্দিকুল্লাহ চৌধুরী সবসময় মুসলমানদের অধিকার আদায়ে সরব। এর আগে তিনি ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামে মাদরাসাগুলো ভূমিকা ছিল। দেশপ্রেম সহিংসতা রক্ষার কথা মাদরাসাগুলোতে এখনও বলা হয়। তবে বর্তমানে ভারতে বিভিন্নভাবে মাদরাসাগুলোকে টার্গেট করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, আমাদের নেতারা গান্ধীজীকে নেতা মেনেছিলেন। ধর্মের নামে, ভাষায় নামে, গোত্রের নামে বিভাজন করার অনুমতি নেই ইসলামে। ইসলামে জাতপাত নেই, হিংসা নেই, অসহিষ্ণুতা নেই।

মাওলানা সিদ্দীকুল্লাহ চৌধুরী বলেন, নামায- রোযা, ইসলামি আদর্শ, ব্যবহারশাস্ত্র, মহিলাদেরকে সম্মান করা, অপরের অধিকার কেড়ে না নেওয়া, দেশপ্রেম, মানবপ্রেমের শিক্ষা মাদ্রাসায় দেওয়া হয়। খাগড়াগড়-কাণ্ডের সময় আমরা বলেছিলাম, এন‌আইএ পশ্চিমবঙ্গের কোন‌ও মাদরাসার সঙ্গে সন্ত্রাস যোগের প্রমাণ দিক। আমরাই সেই মাদ্রাসায় তালা ঝুলিয়ে দেব। আজ পর্যন্ত এন‌আইএ বা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক মাদরাসার সঙ্গে সন্ত্রাসযোগের কোন‌ও তথ্যপ্রমাণ দিতে পারেনি।

পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য জমিয়তে উলামা হিন্দের সভাপতি বলেন, মুসলিম নামধারী কেউ যদি কোন‌ওরূপ সন্ত্রাসী কাজে যুক্ত থাকে, তাহলে সে ব্যক্তিগতভাবে দোষী। মাদরাসা ইস্যুতে ধর্মীয় বিভাজন ঘটিয়ে পশ্চিমবঙ্গ সরকারকে বিপাকে ফেলার জন্যই তারা এই পদক্ষেপ নিয়েছে বলে আমি মনে করি। বাংলার মাদরাসা পরিচালকদের আমি বলব, ভয় পাওয়ার কিছু নেই। নিয়ম মেনে মাদরাসা পরিচালনা করুন। মাদ্রাসা ছিল, আছে এবং ইনশাআল্লাহ কেয়ামত পর্যন্ত থাকবে।

এই সংবাদটি 1,061 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com