রবিবার, ১৪ জুলা ২০১৯ ০৩:০৭ ঘণ্টা

তাওবা করলেন হাফিজুর রহমান সিদ্দিক

Share Button

তাওবা করলেন হাফিজুর রহমান সিদ্দিক

সিলেট রিপোর্টঃঃ আলোচিত বক্তা মাওলানা হাফিজুর রহমান সিদ্দিক উরফে কুয়াকাটা হুজুরের একটি (ইউটুবে) বক্তব্য নিয়ে ধর্মীয় অঙ্গনে গতকাল থেকে সমালোচনার ঝড়বইছে। তার বিরুদ্ধে পবিত্র কুরআনের ভুল ব্যাখ্যার অভিযোগ তুলেন সচেতন আলেম সমাজ। অনেকেই বিতর্কিত বক্তব্য প্রত্যাহারের দাবি জানান। এনিয়ে গতকাল #সিলেট রিপোর্ট একটি অনুসন্ধানী প্রতিবেদন প্রকাশ করে। এর পরেই বিষয়টি হাফিজুর রহমানের দৃষ্টি গোচর হয়। তিনি তাৎক্ষনিক ভাবে নিজের ভুল স্বীকার করে আল্লাহর কাছে তাওবা করেছেন একই সাথে ধর্মপ্রাণ তৌহিদী জনতার কাছে দোয়া চেয়েছেন। এব্যাপারে ফেসবুকের আলোচিত নাম #Wali Ullah Arman বলেন,
মাওলানা হাফিজুর রহমান সিদ্দীকী (কুয়াকাটা) সাহেবের জন্য শুভেচ্ছা। তিনি গতরাতে (১৪ জুলাই) চট্টগ্রামের এক মাহফিলে সূরা আত-তাহরীম এর 8 নং আয়াতে ‘তাওবাতান নাসুহা’ এর নাসুহার ভুল ব্যাখ্যা ও তাফসীরের জন্য তাওবা করেছেন।

ভুল চিহ্নিত হওয়ার পর সাথে সাথে সেটা স্বীকার এবং তাওবার মাধ্যমে শুধরে নিতে প্রতিজ্ঞ হওয়া একটা ভালো দিক। কারণ কুরআনে কারীমের তাফসীর ও তাবীলে ভুল করা অনেক ভয়াবহ এবং কঠিন একটি অপকর্ম, যদি সেটা জেনে শুনে করা হয়।

আর বিনা তাহকীকে সময় ও জ্ঞানের স্বল্পতা অথবা প্রচলিত কথাকে প্রমাণ ধরে যদি কেউ তাফসীর করে, নিশ্চয়ই এটাও নিন্দনীয় এবং আশু সংশোধন কর্তব্য।

মাওলানা হাফিজুর রহমান সিদ্দিকী সাহেব এইসময় দেশের একজন জনপ্রিয় ওয়ায়েজ। অনেকের কাছে তার জনপ্রিয়তা এবং তাকে ঘিরে বিপুল ভালোবাসার বিশেষ উন্মাদনা রয়েছে। যেটা তার মাহফিলে মানুষের স্বতঃস্ফূর্ত কান্নাকাটি করতে করতে গড়াগড়ি খাওয়া অথবা স্বাভাবিক চেতনা হারিয়ে জুনুনি টাইপের আচরণের মাধ্যমে প্রকাশ ঘটে।

আমরা বিশ্বাস করতে চাই, তিনি জেনেশুনে, সজ্ঞানে তাওবাতান নাসুহার মনগড়া তাফসীর করেননি। কিন্তু হাজার হাজার মানুষের সামনে যখন কেউ কোরআনের আয়াত নিয়ে কথা বলেন, অবশ্যই তাহকিক এবং তথ্যভিত্তিক কথা বলতে হবে। বিশেষত যারা যতো বেশি মানুষের সামনে বয়ান করেন, তাদের সতর্কতাও ততো বেশি হওয়া উচিত।

প্রকাশ্যে স্টেজে হাজার হাজার মানুষের সামনে কুরআনে কারীমের মনগড়া তাফসীর করার পর যখন হাজারো অনলাইন মিডিয়ার মাধ্যমে লাখ লাখ দর্শক-শ্রোতার নিকট সেই ভুল ও বিভ্রান্তিকর বক্তব্য উপস্থাপিত হয়, (নিশ্চয়ই অনলাইনে প্রচারিত বক্তব্যের অনলাইনে প্রতিবাদের করার অধিকার রয়েছে) অতঃপর সেই চরম ভুল তাফসীর তাবীলের প্রতিবাদকারীদেরকে কারো প্রতি অন্ধ আবেগ কিংবা ভালোবাসার জায়গা থেকে আক্রমণ না করে প্রকৃত ভালোবাসার দাবিতে মানুষটিকে সতর্ক ও সজাগ করা উচিত।

আশাকরি ভবিষ্যতে তিনি এমন ভুল অন্তত তাফসীরের বেলায় করবেন না। এবং ফেসবুকে এই প্রতিবাদ না হলে হয়তো তিনি নিজের ভুল বুঝতে পারতেন না, বা স্বীকারও করতেন না। সম্ভবত অন্য বক্তারাও তার এই ভুল দেখে সতর্ক হবেন।

পুনরায় মাওলানা হাফিজুর রহমান সিদ্দিকী সাহেবকে শুভেচ্ছা জানিয়ে তার ভবিষ্যৎ পথচলা সুন্দর, সাফল্যমন্ডিত ও ফুলেল হোক সেই কামনা করছি।

নিজ বক্তব্যের জন্য ক্ষমা চাইলেন মাওলানা হাফিজুর রহমান কোয়াকাটা। তিনি গতরাতে চট্টগ্রামের এক মাহফিলে সূরা আত-তাহরীম এর…

Posted by রেজওয়ান আহমেদ on Sunday, 14 July 2019

এই সংবাদটি 6,646 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com