রবিবার, ২১ জুলা ২০১৯ ০৮:০৭ ঘণ্টা

ছেলেধরা ‘সন্দেহে’ গণপিটুনির শিকার মানসিক প্রতিবন্ধীসহ পাঁচজন

Share Button

ছেলেধরা ‘সন্দেহে’ গণপিটুনির শিকার মানসিক প্রতিবন্ধীসহ পাঁচজন

ডেস্ক রিপোর্ট: বগুড়া, দিনাজপুর ও টাঙ্গাইলে রবিবার (২১ জুলাই) ছেলেধরা সন্দেহে পাঁচজন গণপিটুনির শিকার হয়েছেন। তাদের মধ্যে তিনজন মানসিক ভারসাম্যহীন। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের কাছ থেকে খবর পেয়ে পুলিশ তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠিয়েছে। কাউকে সন্দেহজনক মনে হলে আইন হাতে না নিয়ে তাকে পুলিশের হাতে তুলে দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে পুলিশ।

বগুড়া
বগুড়া শহরের শাখারিয়ার তিলেরপাড়ায় রবিবার বিকালে এবং সান্তাহারে সকালে ছেলেধরা সন্দেহে দুই ব্যক্তিকে গণপিটুনি দিয়েছে এলাকাবাসী। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা তাদের উদ্ধার করে পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছেন। তাদের একজন বগুড়ার শাজাহানপুর উপজেলার সাজাপুর গ্রামের আবদুল খালেকের ছেলে আফজাল হোলেন (৪২)। অপরজনের পরিচয় জানা যায়নি। সদর থানার এসআই নুরে আলম জানান, বিকালে অজ্ঞাত এক যুবক (২৭) শাখারিয়া ইউনিয়নের তিলেরপাড়ায় এক শিশুর সঙ্গে কথা বলে। এ সময় শিশুটি ভয়ে বাড়িতে গিয়ে জানায়, তাকে ছেলেধরা নিয়ে যেতে এসেছে। এ খবর প্রচার হলে গ্রামবাসীরা তাকে মারপিট করে। এ সময় ওই ইউনিয়নের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আবদুল জলিল তাকে উদ্ধার করে ইউনিয়ন পরিষদে নিয়ে যান। চেয়ারম্যানের ধারণা- ওই ব্যক্তি মানসিকভাবে অসুস্থ। পুলিশ জানায়, তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে।
এদিকে সান্তাহার পুলিশ ফাঁড়ির ইন্সপেক্টর আনিসুর রহমান ও ইউপি সদস্য শফিক উদ্দিন জানান, সকাল ১০টার দিকে আফজাল হোসেন সান্তাহারের লোকো কলোনী এলাকায় ঘোরাফেরা করছিল। ছেলেধরা সন্দেহ হলে স্থানীয়রা তাকে মারধর করে। খবর পেয়ে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে। ইউপি সদস্য জানান, আফজাল হোসেন মানসিকভাবে অসুস্থ। তিনি গত ১০ দিন আগে বাড়ি থেকে বের হয়েছেন।

দিনাজপুর
চিরিবন্দর উপজেলার ভিয়াইল ইউনিয়নের নানিয়াটিকর গ্রামে রবিবার দুপুরে ছেলেধরা সন্দেহে মিরু মিয়া (৫০) নামে এক ব্যক্তিকে গণপিটুনি দিয়ে পুলিশের কাছে সোপর্দ করেছে এলাকাবাসী। আটক মিরু মিয়া কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার আব্দুল হাইয়ের ছেলে। এলাকাবাসী জানায়, মিরু মিয়া একটি পুরাতন চটের বস্তা নিয়ে নানিয়াটিকর গ্রামে ঘোরাঘুরি করে। এ সময় এলাকার লোকজন তাকে ছেলেধরা মনে করে গণপিটুনি দেয়। খবর পেয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য মাবিয়া বেগম পুলিশকে খবর দেন। পুলিশ তাকে থানায় নিয়ে যায়। চিরিরবন্দর থানার পরিদর্শক (ওসি) হারেসুল ইসলাম বলেন, আটক মিরু মিয়া একজন আধাপাগল ব্যক্তি। ছেলেধরা সন্দেহে পাগলদের মারধর না করতে সকলের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

টাঙ্গাইল
কালিহাতী উপজেলার সয়া বাজারে ছেলেধরা সন্দেহে মিনু (৩২) নামে এক ভ্যানচালককে গণপিটুনি দিয়েছে স্থানীয়রা। মিনু ভূঞাপুর উপজেলার টেপিবাড়ি গ্রামের কুরবান আলীর ছেলে। কালিহাতী থানার এসআই এসএম ফারুকুল ইসলাম জানান, দুপুরে ছেলেধরা সন্দেহে স্থানীয়রা তাকে গণপিটুনি দেয়। খবর পেয়ে গুরুতর আহত অবস্থায় ওই ব্যক্তিকে উদ্ধার করে পুলিশ। পরে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে তাকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পাঠায়। খবর পেয়ে স্বজনরা হাসপাতালে গিয়ে তার পরিচয় নিশ্চিত করেন। তারা জানান, বন্যার পানিতে মাছ ধরার জন্য জাল কিনতে তিনি সয়া বাজারে এসেছিলেন। কাউকে সন্দেহজনক মনে হলে আইন হাতে না নিয়ে তাকে পুলিশের হাতে তুলে দেওয়ার আহ্বান জানান টাঙ্গাইলের পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায়।
এদিকে একই দিন সকালে টাঙ্গাইল সদর উপজেলার গালা ইউনিয়নের কান্দিলা বাজারে ছেলেধরা সন্দেহে এক যুবককে মারধর করে গুরুত্ব আহত করেছে এলাকাবাসী। খবর পেয়ে পুলিশ ওই যুবককে উদ্ধার করে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে।
-সুত্র: বাংলা ট্রিবিউন

এই সংবাদটি 1,021 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com