শনিবার, ১৯ অক্টো ২০১৯ ০৯:১০ ঘণ্টা

মাটির মানুষ : মাওলানা শিহাবুদ্দীন মুহাদ্দিসে রেঙ্গা (র)

Share Button

মাটির মানুষ : মাওলানা শিহাবুদ্দীন মুহাদ্দিসে রেঙ্গা (র)

মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী:
ইতিহাস কারো জন্যে অপেক্ষা করেনা। নিজ কর্মগুণেই ইতিহাসের পাতায় স্থান করে নিতে হয়। কেউ বীরত্বে-বাহাদুরিতে, যুদ্ধে-বিগ্রহের মাধ্যমে। আবার কেউ নিজ মেধা-উদারতায়, খোদাভীতি,প্রিয় নবীজির আর্দশ অনুস্মরণে স্বীয় জীবন পরিচালনা করে নজির বিহীন দৃষ্টান্ত রেখে যান পৃথিবীতে। যাদের অন্তরে খোদাভীতি রয়েছে,তাদের জীবন-যাপন হয় অত্যান্ত সহজ-সরল। তাদের আত্মঅহংকার, গৌরববোধ বলতে কিছুই নেই। নিজেদের মাটির তৈরী মানুষ হিসেবে পরিচয় দিতে ভালোবাসেন। এমনই একজন মাটির মানুষ ছিলেন বৃহত্তর সিলেটের আলেম সমাজের প্রিয়মুখ শায়খুল হাদীস মাওলানা শিহাদ্দীন মুহাদ্দিসে রেঙ্গা (র)।
দুটি প্রতিষ্ঠানের সাথে তাঁর জীবন ঘনিষ্টতা ছিলো। একটি হলো জামেয়া তাওয়াক্কুলিয়া রেঙ্গা। অপরটি হলো আযাদ দ্বীনী এদারায়ে তালিম বাংলাদেশ। অত্যন্ত সহজ সরল প্রকৃতির একজন আল্লাহ ওয়ালা বুর্যুগ ছিলেন। তিনি আমার উস্তাদ ছিলেননা, কিন্তু তাঁর কাছে গিয়েছি অনেকবার। আযাদ দ্বীনী এদারা অফিসে যখনই যেতাম, দেখতাম কর্মব্যস্ত একজন মুরুব্বী হয়তো কোন ভাউচার দেখছেন অথবা ব্যাগ হাতে আসছেন!
একজন বরেণ্য হাদীস বিশারদ ,যিনি হাজার হাজার মুহাদ্দিস-আলেমের উস্তাদ। অনেক বৃহস্পতিবার তাঁকে যখন বন্দর বাজারে নিজ হাতে বাজার খরচ করতে দেখেছি। তরি তরকারী পর্যন্তও তিনি নিজ হাতে ক্রয় করতেন। একবার সিলেট হেড (পোষ্ট) অফিসের সামনে বাজারের ব্যাগ হাতে দেখে আমি সালাম দিয়ে ব্যাগের দিকে হাত এগিয়ে দিলাম। আমার ইচ্ছে ছিলো-এদারা ভবন পর্যন্ত হুজুরের বাজার ভর্তি ব্যাগটি এগিয়ে দেই, কিন্তু অনেক চেষ্টা করেও এই দরবেশের হাত থেকে আমি ব্যাগটি আনতে পারিনি। এক পর্যায়ে আমি লজ্জিত হয়ে হুজুরকে রিকসায় উঠিয়ে দিয়ে চলে আসি।
তিনি আধ্যাত্মক ময়দানে খলিফায়ে মাদানী শায়খুল মাশায়েখ হযরত মাওলানা হাফিজ সৈযদ আব্দুল করিম শায়খে কৌড়িয়া (র) এর কাছে বায়াত ছিলেন। শায়খে কৌড়িয়া তাঁেক খেলাফত প্রদান করেন।
তাঁর পৈত্রিক নিবাস সিলেটের কানাইঘাটে হলেও তিনি র্দীঘ প্রায় র্অধশতাব্দীকাল রেঙ্গা মাদরাসায় হাদীসের দরস দেয়ার ফলে ‘‘রেঙ্গার মুহাদ্দিস ছাব’’ হিসেবেই পরিচিত ছিলেন।
একজন মুখলিস আল্লাহ ওয়ালা হিসেবে তাঁর পরিচয় পেয়েছিলাম সেই ২০০১ সালে। স্বীয় মুর্শিদ শায়খে কৌড়িয়ার
ইন্তেকালের পরে আমার সম্পাদনায় ’আস-সিরাজ’ বুলেটিন প্রকাশিত হয়। এই বুলেটিনে শায়খে কৌড়িয়া (র) এর জীবনী ছাপা হয়। তখন হযরতের খলিফাদের তালিকা সংগ্রহ করার জন্য আমাকে অনেক কষ্ট পোহাতে হয়েছে। অনেকেই বলেছেন যে, খলিফাদের তালিকায় মাওলানা শিহাবুদ্দীন রেঙ্গাও আছেন, কিন্তু লোক মুখে শুনায় আমি বিশ্বাসী নই, তাই সরাসরি তার কাছেই জানতে চাইলাম। তিনি যে, খেলাফত পেয়েছেন এই কথাটি আমি তাঁর কাছ থেকে অনেক চেষ্টা করেও স্বীকারোক্তি নিতে পারিনি। তিনি শুধু বলেছেন, যে শায়খে কৌড়িয়ার কাছে বায়আত গ্রহণ করেছেন! তিনি এসব বিষয় প্রচার করা থেকে বিরত থাকতেন। অনেক আলামত এবং সর্বশেষ শায়খে চাক্তা ও হাফিজ মাওলানা মুহসিন আহমদ (ছাহেব যাদায়ে কৌড়িয়া) এর কাছ থেকে ইয়াযতের বিষয়টি নিশ্চিত হলাম।
২০০৩ এর জাতীয় নিবাৃচনের পরে জমিয়তের কোন এক সম্মলনে কানাইঘাটে যাওয়ার সুযোগ হযেছিলো আমার। তখন আমরা কয়েকজন মাওলানা হাবিবুর রহমান নয়াগ্রামী এবং মরহুম শিহাবুদ্দীন মুহাদ্দিসে রেঙ্গার বাড়ীতে গিয়েছিলাম। তিনি আমাদের আদর-আপ্যায়ন করেন। সমবেত জমিয়ত নেতা-কর্মীদের উদ্দেশ্যে গুরুত্বপূর্ণ নসিহত পেশ করেন। সেদিনকার স্মৃতি যখন হৃদয়ের আয়নায় ভেসে উঠে তখন কিছুটা অনুমান করতে পারি যে, তিনি কতটুকু অহংকার মুক্ত ছিলেন।

জন্ম: ১৯৪৮ ঈসায়ী সনের ১২ আগষ্ট তিনি সিলেট জেলার কানাইঘাট উপজেলার বড়চতুল ইউনিয়নের পর্বতপুর (নয়াফৌদ) গ্রামের এক সম্ভান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা মাওলানা ক্বারী নেসার আলী (র) দারুল উলুম দেওবন্দে উচ্চাশিক্ষা লাব করেন। তিনি হাকিমুল উম্মাত মাওলানা আশরাফ আলী থানবী (র) এর নিকট বায়াত ছিলেন।
মৃত্যু: মাওলানা শিহাবদ্দীন (র) ২৫ রমজান ১৪৪০ হিজরী মোতাবেক ৩১ ২০১৯ ঈসায়ী রোজ শুক্রবার রাতে তিনি ইন্তেকাল করেন। আল্লাহপাক হযরতকে জান্নাতের উচুঁমাক্বাম দান করুন।

লেখক: সাধারণ সম্পাদক-জালালাবাদ লেখক ফোরাম। ০১৭১৬৪৬৮৮০০।

এই সংবাদটি 1,089 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com