শনিবার, ২৮ ডিসে ২০১৯ ০৬:১২ ঘণ্টা

শায়খুল হাদিস মাওলানা নুরুল ইসলাম খানের মতো একজন পন্ডিতের অপমানে অপমানিত হলাম

Share Button

শায়খুল হাদিস মাওলানা নুরুল ইসলাম খানের মতো একজন পন্ডিতের অপমানে অপমানিত হলাম

সৈয়দ মবনুঃ
জামেয়া তাওয়াক্কুলিয়া রেঙ্গা সিলেটের তিনদিন ব্যাপী শতবার্ষিকী ও দস্তারবন্দী সম্মেলনের দ্বিতীয়দিন ছিলাম। তৃতীয়দিন যাবো কি না ভাবছি। হঠাৎ মনে হলো সায়রা অপেক্ষা করবে। তাদের বাড়িতে আজ রাতে ভাত খাওয়ার কথা। দৈনিক সিলেট ডাকের সাহিত্য সম্পাদক ফায়যুর রহমান এবং দৈনিক মিররের ষ্টাফ নাওয়াজ মারজানকে সাথে নিয়ে এশার সময় গিয়ে উপস্থিত হই রেঙ্গা মাদরাসায়। মাদরাসার মাঠে গাড়ি থামাতেই আমার ছেলে মুজাদ্দিদ বললো, বাবা সায়রা ফুফি আপনার অপেক্ষা করছেন। আমি ফায়যুর এবং মারজান চলে যাই সায়রাদের বাড়ি মাহমুদাবাদে। সেখানে খাওয়া-দাওয়া শেষে ফিরে আসি মাদরাসা মাঠে। মারজানের অফিস আছে, সে চলে আসে সিলেট। আমি আর ফায়যুর হাটতে হাটতে চলে যাই মঞ্চের পিছনে। তখন বক্তব্য রাখছিলেন লন্ডনের ড. মাহমুদুল হাসান। পরে একজন উর্দুভাষি বক্তব্য রাখেন। অতঃপর দেওয়া হয় শায়খুল হাদিস মাওলানা নুরুল ইসলাম খানকে। খান সাহেব একজন ভদ্র এবং পন্ডিতে লোক। মনে মনে ভাবছিলাম এই মূর্খ ওয়ায়িজ আর শ্রোতাদের রমরমা যুগে খান সাহেবের মতো পন্ডিতদের ওয়াজ শোনবে কে? একটু নিরবে খান সাহেবের কথা শোনছিলাম। তিনি আল্লামা কাসেম নানতুভী ও দেওবন্দ-এর গৌরবের কথা বলছিলেন। এই সময় এসে উপস্থিত হলেন হাফেজ মাওলানা মামুনুল হক। মামুনুল হক আমার কাছে ছোটবেলা থেকেই প্রিয়, কারণ সে আমার অত্যন্ত প্রিয় ব্যক্তিত্ব শায়খুল হাদিস আল্লামা আজিজুল হক (র.)-এর ছেলে। সে বর্তমান আরও ওয়ায়িজদের মধ্যে বেশ জানাশোনাও বটে। কওমী মাদরাসার তরুণ ছাত্রদের মধ্যে তার বেশ জনপ্রিয়তা রয়েছে। তবে জ্ঞানে, প্রজ্ঞায়, বুজুর্গিতে এবং বয়সে সে অবশ্যই শায়খুল হাদিস আল্লামা নুরুল ইসলাম খানের সমতুল্য নয়। আশা করি আমার একথার সাথে স্বয়ং মাওলানা মামুনুল হকও সহমতে আছেন।

আমার কষ্ট লাগে মামুনুল হক যখন মঞ্চে আসেন তখন মানুষগুলো এভাবে পাগল হলো যে বুঝতেই পারলো না তাদের পাগলামী যে একজন পন্ডিত বুজুর্গের মন ভেঙে দিতে পারে এবং তা আদবের খেলাফ। খান সাহেব হৈচৈ এর কারণে আর বক্তব্যই দিতে পারলেন না। তিনি এক প্রকার অপ্রস্তুতভাবেই মঞ্চ থেকে নেমে নিজ গাড়ি দিয়ে মাঠ ত্যাগ করেন। তিনি যখন আমাদের সামন দিয়ে যাচ্ছিলেন তখন তাঁর চেহরায় বেশ কষ্টের দাগ স্পষ্ট দেখা গেলো। খুব কষ্ট লাগলো একজন পন্ডিতের অপমান দেখে। আর মাঠে থাকতে ইচ্ছে হলো না।

আমি কর্তৃপক্ষ কিংবা মামুনুল হককে দোষ দিচ্ছি না। আমি ভাবছিলাম ওয়াজ মাহফিলগুলোর চরিত্র পরিবর্তনের চিত্র দেখে। আমার মনে প্রশ্ন জাগে ওয়াজ মাহফিলে মানুষ কেন যায়; ইসলাহের জন্য না গর্জন বা সুর শোনার জন্য? শ্রোতাদের মধ্যে তো বেশিরভাগই ছিলো বিভিন্ন মাদরাসার ছাত্র। মাদরাসার ছাত্ররা যদি এই বিষয় অনুভব করতে ব্যর্থ হয় তবে আর কে অনুভব করবে? ঘটনার প্রেক্ষাপটে একটি কেচ্ছা বলতে ইচ্ছে হচ্ছে;

গাধা হরিণকে বললো; দেখ ঘাস কেমন হলুদ দেখাচ্ছে। হরিণ বললো, হলুদ নয়, ঘাস সবুজ। এনিয়ে গাধা এবং হরিণের মধ্যে ঝগড়া হলে সিংহ বিচারের আসনে বসে। বিস্তারিত শোনে সিংহ গাধাকে কিছু উপহার দিয়ে বিদায় দিলো এবং হরিণকে এক মাসের শাস্তি দিলো। এক মাস পর হরিণ মুক্ত হয়ে সিংহকে বললো, বাদশা নামদার আপনি যে আমাকে শাস্তি দিলেন তাতে কোন দুঃখ নেই কিন্তু একটি প্রশ্ন আপনিও কি গাধার মতো মনে করেন ঘাসের রঙ হলুদ। সিংহ বললো, দুর পাগল, ঘাস তো সবুজই। আমি তকে এই ভুলের জন্য শাস্তি দেই নি। আমি শাস্তি দিয়েছি গাধার সাথে তর্ক করার জন্য।

শায়খুল হাদিস নুরুল ইসলাম খান যখন মঞ্চ ছেড়ে যাচ্ছিলেন তখন খুব ইচ্ছে হয় তাঁর কাছে গিয়ে বলি; আপনার মতো পন্ডিত আমাদের মতো গাধা মার্কা শ্রোতাদেরকে ওয়াজ শোনাতে এসে শাস্তির উপযুক্ত অপরাধ করেছেন। শাস্তিস্বরূপ আপনার উচিত আজকের মাহফিলের টাকাগুলো আমাদেরকে কিংবা আমাদের উপযুক্ত বক্তাকে উপহার দিয়ে যাওয়া।
একজন পন্ডিতের অপমান নিজকে খুব অপমানিত করে। আর দাঁড়িয়ে থাকার মানসিকতা অনুভব করলাম না। সাথে সাথে মাঠ ছেড়ে চলে আসলাম।

এই সংবাদটি 1,216 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com