মসজিদ উন্মুক্ত করা নিয়ে আলেমদের বিবৃতি ও সরকারের উদ্দেশ্যে যা বলেলন মাওলানা জুনায়েদ আল-হাবীব

প্রকাশিত: ৬:১০ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৬, ২০২০

মসজিদ উন্মুক্ত করা নিয়ে আলেমদের বিবৃতি ও সরকারের উদ্দেশ্যে যা বলেলন  মাওলানা জুনায়েদ আল-হাবীব

সিলেট রিপোর্টঃ

জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি, হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা জুনায়েদ আল-হাবীব গত ৮ এপ্রিল বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রচারিত দেশের শীর্ষ ১৫ আলেমের মসজিদ উন্মুক্ত করে দেওয়ার বিবৃতির প্রতি পূর্ণ সমর্থন জানিয়েছেন।
বুধবার এক বিবৃতিতে মাওলানা জুনায়েদ আল-হাবীব বলেন, শীর্ষ ১৫ জন আলেমের এই আহ্বান ছিল সময়ের যুগান্তকারী পদক্ষেপ এবং কোটি কোটি ঈমানদারের হৃদয়ের আকুতির বহি:প্রকাশ। আমি তাঁদেরকে মুবারকবাদ জানাই।

তিনি আরো বলেন, করোনাভাইরাস মহামারির সংক্রমণ থেকে সুরক্ষার জন্য সরকারের সতর্কতামূলক পদক্ষেপসমূহ জনস্বার্থেই নেওয়া হয়েছে এবং দেশের প্রতিটি নাগরিকের শারীরিক সংস্পর্শের দূরত্ব বজায় রাখা’সহ সকল সরকারী নির্দেশনা মেনে চলা খুবই জরুরী। তবে ধর্মমন্ত্রণলায় কর্তৃক মসজিদে মুসল্লিদের সংখ্যা নির্ধারণ করে বিধি জারি কোনভাবেই যৌক্তিক ও প্রত্যাশিত নয়৷ কারণ, সরকারী এই নির্দেশনাকে পুঁজি করে দেশের বিভিন্ন স্থানে নাস্তিক্য মনমানসিকতার কিছু দূরাচার বিভিন্ন মসজিদের ইমাম-মুয়াজ্জিন ও খতীব সাহেবদেরকে হয়রানী, অবমাননাকর আচরণ ও নাজেহাল করার সুযোগ পাচ্ছে। অন্যদিকে রাজনৈতিক প্রভাবের কারণে অনেক মসজিদের পরিচালনা কমিটির নেতৃত্ব ক্ষমতাসীন দলের লোকজনের হাতে। আমাদের কাছে প্রচুর সংবাদ আসছে, কোন কোন মসজিদ পরিচালনা কমিটির লোকজনও ধর্মমন্ত্রণালয়ের নির্দেশনার অজুহাত দিয়ে কোথাও কোথাও যেমন আল্লাহর ঘর মসজিদকে তালাবদ্ধ করার দু:সাহস দেখাচ্ছে, তেমনি মসজিদের ইমাম-মুয়াজ্জিন-মুসল্লীদের সাথেও চরম দুর্বব্যবহার করছে। এসব কর্মকাণ্ড একেবারেই অগ্রহণযোগ্য ও মেনে নেওয়ার মতো নয়। এসব কার্যকলাপ প্রতিটি ঈমানদার মুসলমানের হৃদয়ে ক্ষরণ ঘটায় এবং হতাশা ও ক্ষোভ তৈরি করে।

মাওলানা জুনায়েদ আল-হাবীব আরো বলেন, এদেশের লক্ষ কোটি ধর্মপ্রাণ মুসলমান, মসজিদে জুমা ও পাঁচ ওয়াক্ত নামায জামাতের সাথে আদায় করতে না পেরে দু:খিত, মর্মাহত ও বিক্ষুব্ধ৷ কারণ, প্রতিটি মুসলমানের হৃদয়ের আকুতি, এমন ভয়াবহ বিপদ ও জীবনের অনিশ্চিত সময়ে তারা প্রাণভরে আল্লাহর ইবাদত করবে, আল্লাহর ঘরে গিয়ে তাওবা, ইসতিগফার, নামায, তিলাওয়াত ও কান্নাকাটি করে আল্লাহর কাছে আর্জি পেশ করবে এবং নিজের জন্য, জাতির জন্য ও দেশের জন্য সাহায্য চাইবে। কিন্তু তাদেরকে এটা করতে না দেওয়া মানসিক নিপীড়নের শামিল৷ এতে ধর্মভীরু কোটি কোটি মুসলমান দিন দিন অধৈর্য হয়ে পড়ছেন এবং তাদের হতাশাবোধ আস্তে আস্তে ক্ষোভে পরিণত হচ্ছে। এমন ক্ষোভ নতুন সামাজিক ও রাজনৈতিক সঙ্কট তৈরি করতে পারে, যেটা আমরা কখনোই কামনা করি না।

বিবৃতিতে মাওলানা জুনায়েদ আল-হাবীব বলেন, আমরা লক্ষ্য করছি যে, দেশব্যাপী লকডাউন পরিস্থিতেও শহর ও গ্রাম এলাকার প্রত্যেকটি বাজার, নিত্য পণ্যের দোকান ও ব্যাংকগুলোতে দীর্ঘ সময় মানুষের জনসমাগম ও উপচে পড়া ভিড় চলছে। অথচ আল্লাহর হুকুম ফরয নামায, জুমা ও পাঁচ ওয়াক্ত নামায আদায়ে স্বল্প সময়ের জন্য মুসল্লিদের মসজিদে উপস্থিতির ব্যাপারে কঠোরতা আরোপ ও সংখ্যা নির্ধারণ করার কোন যৌক্তিকতা থাকতে পারে না। কারণ, একজন ঈমানদার মুসলমানের কাছে ব্যাংক, বাজার করার জরুরতের চেয়ে মসজিদে নামায আদায়ের জরুরত ও তাড়না অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। মানবিক জরুরতের বিবেচনায় যদি বাজার খোলা থাকতে পারে, তাহলে স্বাস্থ্যবিধি ও সংক্রমণরোধী ব্যবস্থার আওতায় নিয়ে মসজিদসমূহ কেন নামাযের সময় খোলা রাখা যাবে না?

মাওলানা জুনায়েদ আল-হাবীব বলেন, করোনা পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্যঝুঁকি দূর করার প্রয়োজনে মসজিদ কমিটি ও ইমাম-মুয়াজ্জিনের মাধ্যমে সংক্রমণ নিরোধক ব্যবস্থা নিশ্চিত করে হলেও মসজিদ উন্মুক্ত রাখা জরুরী। এজন্য নিয়ম জারি করা যেতে পারে যে- মসজিদে কার্পেট বিছানো যাবে না, প্রতি ওয়াক্ত নামাযের আগে স্যানিটাইজার বা জীবাণুনিরোধক লিক্যুইড দিয়ে মসজিদের মেজে মুছতে হবে, মুসল্লীগণকে নিজেদের বাসা-বাড়ী থেকে অজু করে মুখে মাস্ক পরে আসবেন এবং জামাত শেষে নিজ নিজ বাসায় গিয়ে সুন্নাত ও নফল আদায় করবেন। বয়সের ভারে ন্যুজ ব্যক্তিরা এবং যে কোন রোগাক্রান্ত ব্যক্তি ও নাবালক বাচ্চারা মসজিদে আসতে পারবে না ইত্যাদি।

মাওলানা জুনায়েদ আল-হাবীব সরকারের প্রতি আবেদন জানিয়ে বলেন, এসব সংক্রমণরোধী নিয়ম মানার শর্ত দিয়ে হলেও অতি সত্ত্বর মসজিদে মুসল্লী সংখ্যার বাধ্যবাধকতার বিধি তুলে নিন। কারণ, সরকারী এই বিধি লক্ষ-কোটি মুসলমানের হৃদয়কে ভেঙ্গে দিচ্ছে, তাদেরকে বিক্ষুব্ধ করে তুলছে। এটা একেবারেই অভিপ্রেত নয়।

মাওলানা জুনায়েদ আল-হাবীব বলেন, একদিকে আলেমগণ বার বার বলছেন অসুস্থ, বৃদ্ধ ও মাজুরগণ বাসায় নামায পড়লেও জামাতের সাওয়াব পেয়ে যাবেন। অপরদিকে লকডাউন পরিস্থিতির কারণে শহর খালি এবং সর্বত্র বেশিরভাগ মানুষজন বাসাবাড়িতেই অবস্থান করছেন। আলেমরাও মসজিদে মুসল্লী আসার জন্য উৎসাহিত করছেন না। অনেকে ভীতি থেকেও বাসা-বাড়ী থেকে বের হচ্ছেন না। সব মিলিয়ে অল্প সংখ্যক মুসল্লীই গভীর আবেগ পোষণ করেন মসজিদে নামায পড়ার বিষয়ে। সরকারের কাছে আমি বিনীত অনুরোধ করবো, আল্লাহ পাগল এই মানুষগুলোর মনে আঘাত দিবেন না। এই অল্প সংখ্যক মুসল্লী স্বাস্থ্যবিধি মেনে মসজিদে গেলে সংক্রমণ ছাড়াবে না, ইনশাআল্লাহ। এই অল্প সংখ্যক মুসল্লীর মসজিদে গমন কাঁচাবাজার ও ব্যাংকের বিদ্যমান ভিড়ের তুলনায় একেবারেই ঝুঁকিপূর্ণ নয়। বরং এই মহাবিপদ থেকে রক্ষার জন্য মসজিদগুলোতে কিছু মানুষের তাওবা-ইসতেগফার, কান্নাকাটি ও ইবাদত জারি রাখাও জরুরী। এতে আল্লাহর রহমত ও সাহায্যের উচ্চ আশা করা যায়। অন্যদিকে আল্লাহর ঘর মসজিদকে তালাবদ্ধ করাতে আল্লাহর ক্রোধ ও গযবে পড়ার সমূহ আশঙ্কা।

মাওলানা জুনায়েদ আল-হাবীব আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, হক্কানী উলামায়ে কেরামের আবেদন ও ধর্মভীরু মুসলমানদের আবেগের প্রতি লক্ষ্য করে সরকার সংক্রণনিরোধক ব্যবস্থাপনার শর্ত দিয়ে হলেও আল্লাহর ঘর মসজিদের দরজা সকলের জন্য উন্মুক্ত থাকার প্রতিবন্ধকতা তুলে নিবেন বরে আমার দৃঢ় বিশ্বাস।

এই সংবাদটি 70 বার পঠিত হয়েছে

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com