শনিবার, ২৬ নভে ২০১৬ ০৮:১১ ঘণ্টা

রোহিঙ্গা শরণার্থী: ‘মৃত্যু আমাকে নেবে, জাতিসংঘ আমাকে নেবে না?’

Share Button

রোহিঙ্গা শরণার্থী: ‘মৃত্যু আমাকে নেবে, জাতিসংঘ আমাকে নেবে না?’

 

ফারুক ওয়াসিফ : মুক্তিযুদ্ধের সময় এক কোটি বাঙালি শরণার্থী হয়েছিল হাঁটা পথে, আর এখন হাজার হাজার রোহিঙ্গা শরণার্থী হচ্ছে ভাসা পথে—নাফ নদীতে, বঙ্গোপসাগরে। অথৈ দরিয়া রোহিঙ্গাদের অথৈ দুঃখ ধারণ করছে কিন্তু রাষ্ট্রনিয়ন্ত্রিত কোনো প্রতিবেশী ভূমি তাদের নিতে চায় না। যখন হাত না বাড়ালে নিশ্চিত গণমৃত্যু, তখনে এক দল বলছে রহম করো, আরেক দল যুক্তি দিচ্ছে জাতীয় স্বার্থের। ওদিকে মানুষ মরছে, ওদিকে মানুষ আশ্রয় ভিক্ষা করছে। একাত্তরে যদি ভারত আশ্রয় না দিত, তাহলে আরও কত লাখ বাঙালি মুছে যেত পৃথিবী থেকে?

যতবার রোহিঙ্গা গণহত্যা হবে ততবার বাঙালির নাম আসবেই।বিশ্বজুড়ে বাঙালির নাম আর্তনাদের মতো বাজত মুক্তিযুদ্ধে পাকিস্তানি গণহত্যার সময়। ঘাতকেরা ধর্মের নামেই এসব করেছিল। রোহিঙ্গা নিধন সে রকমই অপরাধ। রোহিঙ্গারা জাতিসংঘের ভাষায় এক রাষ্ট্রহীন জনগোষ্ঠী, পৃথিবীর সবচেয়ে নির্যাতিত জনগোষ্ঠী। তাদের বাস আমাদের সীমান্তের পারে।

দশকের পর দশক ধরে মিয়ানমার রোহিঙ্গা নিধন চালিয়ে আসছে। ২০১২ সালের হত্যাকাণ্ডের সময় সে সময়কার মিয়ানমারের প্রেসিডেন্ট থেইন সেইন বলেছিলেন, ‘রোহিঙ্গারা মিয়ানমারের জনগণ নয়, বিতাড়নই এ সমস্যার একমাত্র সমাধান।’ সুতরাং রাখাইন তথা সাবেক আরাকান রোহিঙ্গাশূন্য করা রাষ্ট্রীয় প্রকল্প। আদমশুমারিতে তাদের গণনা করা হয় না। নাগরিকত্বের অধিকার, ভোটের অধিকার কিচ্ছু নেই। বাঁচামরা, বিবাহ ও সন্তান ধারণ, কাজ ও ভ্রমণ, লেখাপড়া ও বাণিজ্য সবই—সামরিক শাসকদের কৃপার অধীন। মিয়ানমারের রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতাধন্য থেরাভেদা বৌদ্ধ উগ্রপন্থীরা তাদের বিনাশ চায়। গৌতম বুদ্ধের মহান বাণী ‘বুদ্ধং শরণং গচ্ছামী’র শরণ তারা পায় না বলেই তারা আজ আমাদের দুয়ারে শরণার্থী। গণতন্ত্রের মানসকন্যাখ্যাত, অহিংস জননেত্রী অং সান সু চিও রোহিঙ্গা বিতাড়নের পরোক্ষ সমর্থক। কবি আবুল হাসানের ভাষায় বলতে হয়, ‘মৃত্যু আমাকে নেবে, জাতিসংঘ আমাকে নেবে না।’

আল-জাজিরার একটি ভিডিও চিত্রে দেখলাম জ্বলন্ত রোহিঙ্গা গ্রাম, হাত-পা বাঁধা বিকৃত লাশ এবং রাতের অন্ধকারে জঙ্গল দিয়ে পালানো নারী-পুরুষ-শিশুদের সারি। একজন নারী কোলের শিশুকে দুধ খাওয়ানোর জন্য একটু দাঁড়িয়েছিলেন, পেছন থেকে অন্যরা তাড়া দিচ্ছিল। পেছনে ধাবমান বর্মি সেনা। এক বৃদ্ধার মাথার ঝুড়িতে কয়েকটি কপি, হয়তো রাস্তায় কাঁচাই খাবেন বলে এনেছেন। জঙ্গলে আগুন জ্বালিয়ে রান্না করা বারণ, ধোঁয়া দেখে সৈন্যরা যদি টের পায়?

কিন্তু এত পথ পাড়ি দেওয়ার পরও তাদের সামনে সাগরই কেবল খোলা। না বাংলাদেশ, না ভারত, না থাইল্যান্ড—কেউই তাদের আশ্রয় দেবে না। কিন্তু এ দেশগুলোর সবাই জাতিসংঘের শরণার্থীবিষয়ক সনদে স্বাক্ষর করেছে। জীবন বাঁচাতে পালানো শরণার্থীদের আশ্রয় দেওয়া দয়া নয়, এটা আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানসিদ্ধ অধিকার। এটাই সভ্যতা। এই রোহিঙ্গারা যেন বলছে, ‘হাঁটা পথে, ভাসা পথে আমরা এসেছি তোমার কিনারে হে সভ্যতা। আমরা সাতভাই চম্পা মাতৃকাচিহ্ন কপালে করে এসে ঠেকেছি এই বিপাকে—পরিণামে। আমাদের কোলে-কাঁখে শিশু। দরিয়া কিনারে আজ দুঃখ অথৈ, করজোড়ে বলি, গ্রহণ করো রহম করো ভাই।’

আরাকান বহু শতাব্দী ধরেই রোহিঙ্গা মুসলমান, রোসাঙ্গ হিন্দু আর মহাযানী বৌদ্ধদের মাতৃভূমি। মধ্যযুগে এই হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা চন্দ্র-রোসাং আর মুসলমানরা রোহাং নামেই পরিচিত ছিল। হিন্দু চন্দ্র রাজারা এবং মুসলিম সুলতানরাই ছিলেন আঠারো শতকের আগে পর্যন্ত আরাকানের শাসক। রাখাইন উপকূল থেকে বর্মি-অধ্যুষিত মিয়ানমার আরাকান পাহাড় দিয়ে বিচ্ছিন্ন। বর্মি রাজারা প্রায়ই এ অঞ্চলে হামলা করতেন। প্রাচীন সমৃদ্ধ আরাকানের বিপর্যয়ের শুরু মূলত ১০৪৪-১০৭৭ খ্রিষ্টাব্দে বার্মিজ রাজা আনাওরথার আগ্রাসনের সময় থেকে। তিনি হাজার স্থানীয় রোসাং, রোহাং এবং রেকং বা রাখাইনদের হত্যা করেন, দেশত্যাগী হয় লাখ লাখ আরাকানি। চট্টগ্রামে বসবাসকারী চাকমা, রাখাইন, মারমাসহ অনেক জনগোষ্ঠী সে সময়ই দেশত্যাগী হয়ে বাংলাদেশে বসত করে। রাজা আনাওরথাই স্থানীয় বৌদ্ধ মতবাদ হটিয়ে থেরাভাদা বৌদ্ধ মতবাদের পৃষ্ঠপোষকতা দেন। গৌড়ের সুলতানদের সহযোগিতায় আরাকানের সম্রাট নারামেখলা ২৪ বছর বাংলায় নির্বাসিত থাকার পরে ১৪৩০ সালে আরাকানের সিংহাসন ফেরত পান। পরে তিনি ইসলাম ধর্মও গ্রহণ করেন। পরবর্তী আরাকানি রাজারাও বাঙালি ও মুসলমানদের আরাকানের গুরুত্বপূর্ণ পদে অধিষ্ঠিত করেন। সুতরাং আরাকানের রোহিঙ্গাদের বাঙালি বা মুসলমান যা-ই বলা হোক না কেন, তারা কোনোভাবেই বহিরাগত নয়। বরং ১৭৮৫ সালে আরাকান দখলকারী বর্মিরাই হলো নবাগত।

আরাকান দখলের পর বর্মি শাসকেরা হিন্দু ও মুসলিম অধিবাসীদের সঙ্গে আবারও শত্রুতা শুরু করে। এই বৈরিতা কমেছিল ব্রিটিশদের হাত থেকে মিয়ানমারের স্বাধীনতার পর গণতন্ত্রপন্থীদের সময়। বার্মার প্রথম প্রেসিডেন্ট উ নু রোহিঙ্গাদের আরাকানের অধিবাসী হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছিলেন। ১৯৪৭ সালে বার্মার প্রথম সংবিধান সভার নির্বাচনে তারা ভোট দিয়েছিল। ১৯৫১ সালে তারা পায় আরাকানের অধিবাসী হিসেবে পরিচয়পত্র। ১৯৫৯ সালে প্রধানমন্ত্রী উ বা রোহিঙ্গাদের আরাকানের জাতিগোষ্ঠী বলে অভিহিত করেন। ১৯৪৭ সালে স্বাধীন মিয়ানমারের প্রতিষ্ঠাতাদের অন্যতম শাও সোয়ে থাইক বলেছিলেন, ‘রোহিঙ্গারা যদি স্থানীয় আদিবাসী না হয়, তাহলে আমিও তা নই।’ কিন্তু ১৯৬২তে সামরিক সরকারের প্রতিষ্ঠার দিন থেকেই শুরু হয় রোহিঙ্গাদের দুর্ভাগ্যের করুণ মহাকাব্য। তাদের নাগরিকত্ব কেড়ে নেওয়া হয়, বন্ধ হয়ে যায় রোহিঙ্গা ভাষায় রেডিও অনুষ্ঠান প্রচার। শুরু হয় অপারেশন ড্রাগন কিং নামে রোহিঙ্গা বিতাড়ন কর্মসূচি।

যারা সিরীয় শরণার্থীদের জন্য কেঁদেছে, রোহিঙ্গাদের জন্য তাদের হৃদয় কেন পাথর হয়ে গেল? আর বাংলাদেশই বা নিজেদের অমানবিক ও শরণার্থীবিরোধী ভূমিকা নিয়ে কোন অর্জনটা করছে আসলে?

মিয়ানমারের মুসলিম বিদ্বেষ খুব কাজে লাগছে জ্বালানি-সম্রাটদেরও। তেল-গ্যাসের মুনাফার সঙ্গে মানুষের জীবনের কোনো তুলনা হয়? আর যদি তা হয় তেল-গ্যাসের জন্য, তাহলে জ্বালানি ক্ষুধার্ত পরাশক্তিগুলোর সমর্থন নিশ্চিত। চীন-মিয়ানমার পাইপলাইন তৈরি হচ্ছে রোহিঙ্গা বসতির মধ্য দিয়ে। মিয়ানমার সরকার ঘোষণা করেছে, ওই এলাকার সব ‘অবৈধ’ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হবে। এর মধ্যে রয়েছে আড়াই হাজার ঘরবাড়ি, ৬০০ দোকান এবং এক ডজন মসজিদ ও ৩০টি বিদ্যালয়। গত সেপ্টেম্বর মাসে রাখাইন সরকারি কর্মকর্তা কর্নেল হতেইন লিন নিউইয়র্ক টাইমস পত্রিকাকে সরকারের এ পরিকল্পনার কথা বলেন। ২০১২ সাল থেকে এ পর্যন্ত যত দফায় রোহিঙ্গাদের উচ্ছেদ, হত্যা ও ঘরবাড়ি জ্বালিয়ে দিয়ে বিতাড়ন করা হয়েছে, বেশির ভাগই ঘটেছে এসব জ্বালানি প্রকল্প ও পাইপলাইনের আশপাশের এলাকায়।যারা সিরীয় শরণার্থীদের জন্য কেঁদেছে, রোহিঙ্গাদের জন্য তাদের হৃদয় কেন পাথর হয়ে গেল? আর বাংলাদেশই বা শরণার্থীবিরোধী ভূমিকা নিয়ে কোন অর্জনটা করছে আসলে?

এ পরিপ্রেক্ষিতে ২০ সেপ্টেম্বর নিউইয়র্কে অনুষ্ঠিত অভিবাসন ও শরণার্থীবিষয়ক আন্তর্জাতিক সম্মেলনে আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বক্তৃতার কথা স্মরণ করাতে চাই। তিনি বলেছিলেন, ‘সরকারগুলোর উচিত শরণার্থীদের আবাসিত করা এবং দ্রুত পরিবর্তনশীল ভূরাজনৈতিক শর্তগুলোর সঙ্গে মানিয়ে নেওয়া।’ অভিবাসন ও উন্নয়নবিষয়ক বৈশ্বিক ফোরামের বর্তমান সভাপ্রধান হিসেবে তিনি আরও বলেন, ‘যখন অভিবাসন সংকটজনক পর্যায়ে চলে আসে, তখন অভিবাসীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা জরুরি।’

এর বেশি আমাদের আর কী বলার থাকতে পারে?

ফারুক ওয়াসিফ: সাংবাদিক  লেখক


সুত্র_দৈনি প্রথম আলো

এই সংবাদটি 1,040 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com