হাটহাজারী মাদরাসা ও মাদরাসা-ব্যবস্থার সঙ্কট

প্রকাশিত: ৭:৫০ পূর্বাহ্ণ, জুন ১০, ২০২০

হাটহাজারী মাদরাসা ও মাদরাসা-ব্যবস্থার সঙ্কট

আবুল কাসেম আদিলঃ
হাটহাজারী মাদরাসার সঙ্কট স্রেফ হাটহাজারী মাদরাসার সঙ্কট নয়। হাটহাজারী মাদরাসার সঙ্কট পরোক্ষভাবে বাংলাদেশের সব মাদরাসার এবং প্রত্যক্ষভাবে অর্ধ শতাধিক মাদরাসার সঙ্কট। আর সার্বিকভাবে এই সঙ্কট বাংলাদেশের ইসলামী নেতৃত্বের জন্য মহাসঙ্কটের বিষয়। সুতরাং হাটহাজারীর সঙ্কটে নিশ্চিন্ত থাকা যায় না। হাটহাজারী মাদরাসার সঙ্কটে চিন্তিত হওয়ার কারণ যাঁরা খুঁজে পাচ্ছেন না, তাঁরা হাটহাজারী মাদরাসাকে স্রেফ একটি মাদরাসা হিসেবেই গণ্য করছেন। বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় মাদরাসা হিসেবে এর সামাজিক ও সাংস্কৃতিক প্রভাব অস্বীকার করছেন।

হাটহাজারী মাদরাসার সঙ্কট পরোক্ষভাবে সব মাদরাসার সঙ্কট এজন্য যে, হাটহাজারী মাদরাসার ভাবমূর্তির সঙ্গে বাংলাদেশের সব মাদরাসার এবং মাদরাসা-ব্যবস্থার ভাবমূর্তি জড়িত। হাটহাজারীতে অনিয়ম নিয়মসিদ্ধ হয়ে গেলে বাংলাদেশের সব মাদরাসায় এর প্রভাব পড়বে। হাটহাজারী মাদরাসার দুর্নামের ভার সব মাদরাসাকে বহন করতে হবে।

হাটহাজারী মাদরাসার সঙ্কট প্রত্যক্ষভাবে অন্তত অর্ধ শতাধিক মাদরাসার সঙ্কট এজন্য যে, হাটহাজারী মাদরাসার মুহতামিম কমপক্ষে অর্ধ শতাধিক মাদরাসার মুরব্বি। কিছু মাদরাসার মুরব্বি জ্যেষ্ঠ আলেম হিসেবে, আর কিছু মাদরাসার মুরব্বি হাটহাজারী মাদরাসার মুহতামিম হিসেবে পদাধিকার বলে। অনেক মাদরাসার গঠনতন্ত্রে হাটহাজারী মাদরাসার মুহতামিম পদাধিকার বলে মুতাওয়াল্লি।

চট্টগ্রামের অনেকগুলো বড় বড় মাদরাসা প্রকারান্তরে সম্মিলিতভাবে চালিত হয়। উদাহরণ স্বরূপ: নানুপুর জামিয়া উবায়দিয়া, নাজিরহাট বড় মাদরাসা, মেখল মাদরাসা, চারিয়া মাদারাসা— এই সবগুলো মাদরাসার শূরার প্রধান হাটহাজারী মাদরাসার মুহতামিম। আবার এই সবগুলো মাদরাসার মুহতামিম হাটহাজারী মাদরাসাসহ অন্য সব মাদরাসার শূরার সদস্য। (একসময় পটিয়া ও জিরি মাদরাসার প্রধানগণ হাটহাজারী মাদরাসার শূরার সদস্য ছিলেন) সুতরাং এই মাদরাসার মুহতামিম কারা, এর ওপর নির্ভর করে হাটহাজারী মাদরাসার পরবর্তী মুহতামিম কে হবেন। হাটহাজারী মাদরাসার মুহতামিম কে হচ্ছেন, তার ওপর নির্ভর করে অন্য মাদরাসাগুলোর পরবর্তী মুহতামিম কারা হবেন।

হাটহাজারী মাদরাসার মুহতামিম আল্লামা আহমদ শফী বেশ কিছুদিন ধরে মুমূর্ষু অবস্থায় আছেন। ইত্যবসরে নাজিরহাট বড় মাদরাসার মুহতামিম মাওলানা ইদরীস —যিনি হাটহাজারী মাদরাসার শূরার সদস্য — মারা গেছেন। পরবর্তী মুহতামিম নিয়োগের জন্য শূরার মিটিং হওয়া আবশ্যক। মিটিং হওয়ার পথে অন্যতম প্রতিবন্ধক হলো, বিদ্যমান করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে শূরার সদস্যদের একত্রিত হতে না পারা। শূরার বৈঠকের আগ পর্যন্ত আগে থেকে নিযুক্ত সহকারী মুহতামিম এখন ভারপ্রাপ্ত মুহতামিম হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন, এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু কিছু মানুষের যেন তর সইছে না। তারা নিজেদের পছন্দের লোককে — যার বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ আছে — নিয়োগদানের জন্য উঠে পড়ে লেগেছে। হাটহাজারী মাদরাসার মুহতামিম যখন খুব অসুস্থ, এমন কি মৃত্যুর গুজব পর্যন্ত ছড়িয়েছে— তখন নাজিরহাট বড় মাদরাসার শূরার মিটিং হাটহাজারী মাদরাসায় ডেকেছে। শূরার অন্য সদস্যরা উপস্থিত হতে পারবেন না বলে অপারগতা জানানো সত্ত্বেও তারা মিটিং মুলতবি করে নি। তাদের দাবি শূরার মিটিং হয়েছে। শূরার অন্য সদস্যরা অপারগতা সত্ত্বেও তারা কাদেরকে নিয়ে মিটিং করল, তা স্পষ্ট নয়। কিন্তু তাদের দাবি মিটিং হয়েছে; তা আল্লামা আহমদ শফীর নেতৃত্বেই হয়েছে এবং মিটিংয়ে নাজিরহাট বড় মাদরাসার নতুন মুহতামিম নিযুক্ত হয়েছে। অথচ আমরা সবাই জানি, সংবাদমাধ্যমেও এসেছে— আল্লামা আহমদ শফী গুরুতর অসুস্থ। সুতরাং ধরে নিতে পারি, মিটিংয়ের দাবি সত্য নয়। আমাদের এই ধারণার পক্ষে কথিত মিটিংয়ের রেজুলেশনে কৃত আল্লামা আহমদ শফীর স্বাক্ষর একটি দলিল। কারণ এই স্বাক্ষরের সঙ্গে আল্লামা আহমদ শফীর পুরনো স্বাক্ষরের অমিল রয়েছে।

নাজিরহাট বড় মাদরাসার বর্তমান সঙ্কটের মূলে হাটহাজারী মাদরাসার সঙ্কট অনেকখানি দায়ী। নাজিরহাট বড় মাদরাসার সঙ্কট নিরসন করার জন্য আগে হাটহাজারী মাদরাসার সঙ্কট নিরসন করা জরুরি। শুধু নাজিরহাট মাদরাসা নয়, হাটহাজারী মাদরাসার সঙ্কট নিরসন করা না হলে তা আরো অনেক মাদরাসার সঙ্কটের কারণ হবে।

আমরা মনে করি, হাটহাজারী মাদরাসার সঙ্কট নিরসনকল্পে বাংলাদেশের শীর্ষ আলেমদের ভূমিকা রাখা উচিত। মুরব্বির প্রতি আদব রক্ষার্থে চুপ থাকার চেয়ে জাতীয় সঙ্কট নিরসনে অর্পিত দায়িত্ব পালন করা বেশি জরুরি। আদবের চেয়ে কর্তব্য পালনের গুরুত্ব বেশি। অযোগ্য ব্যক্তির হাতে হাটহাজারী মাদরাসা পরিচালনার ভার পড়লে ইসলামী নেতৃত্ব ক্ষতিগ্রস্ত হবে। ইতোমধ্যে চট্টগ্রাম কেন্দ্রিক শীর্ষ আলেমদের মধ্যে যাঁরা এতদিন আল্লামা আহমদ শফীকে অপরিমিত শ্রদ্ধা করতেন, তাঁরাও মুখ খুলতে শুরু করেছেন। আমি মনে করি, ঢাকার শীর্ষ আলেমদেরও উচিত এক্ষেত্রে ভূমিকা পালন করা।

এই সংবাদটি 213 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com