কাওমী মাদ্রাসা ধারায় সর্বোচ্চ পর্যায়ে পদস্খলন, দায়ী কারা?

প্রকাশিত: ১১:০৯ পূর্বাহ্ণ, জুন ২০, ২০২০

জমির বিন মাহমূদঃ

কাওমী মাদ্রাসা ধারায় সর্বোচ্চ পর্যায়ে পদস্খলন, দায়ী কারা?

হেফাজতের আদর্শিক উত্থানে ও দীর্ঘ দিনের গড়ে উঠা তালিম তারবিয়তের ভরসাস্থল কাওমী ধারার উপর জাতির যে আশা দানা বাঁধা শুরু করছিল, তা সুকৌশলে ভেঙ্গে দেয়া হচ্ছে।

কিছু মানুষের কারণে প্রশ্নবিদ্ধ হচ্ছে সমগ্র কওমী জগত।

উপযুক্ত সময়ে যাদের হস্তক্ষেপে এই পরিস্থিতির সুন্দর সমাধান হতে পারতো, তারাও আল্লাহর কাছে দায়ী থাকবেন।

জাতির দান-খয়রাতে পরিচালিত হওয়া প্রতিষ্ঠানগুলো মানুষের কাছে ভিলেন হওয়া মানে সেখান থেকে বের হওয়া লোকগণও তাদের কাছে ভিলেন।

সাধারণ মানুষ যখন আলেম-ওলামাকে ভিলেন মনে করবে তখন তাদের ঈমানের হুকুম কি হবে!?

দ্বীনি মাদ্রাসা সমূহের ছোট ছোট রোগগুলো এখন সর্বোচ্চ পর্যায়ে গিয়ে ক্যান্সারে পরিনত হয়েছে।

পদ-পদবি কুক্ষিগত করার লোভে পরাজিত হচ্ছে আল্লাহ ও তাঁর রাসুলের বাণী শেখার কেন্দ্র।

এর প্রভাবে নষ্ট হচ্ছে জাতির ঈমান-আমল-আখলাক।

ধীরে ধীরে একেবারে আরো বড় ধরনের হযবরল অবস্থা সৃষ্টি হওয়ার আগে সর্বোচ্চ পর্যায়ের ব্যক্তিবর্গ এগিয়ে না আসলে, মূখ না খোললে, ব্যবস্থা না নিলে একটা পর্যায়ে কেউ আর রক্ষা পাবে না।

নিজেরা বাঁচুন। মুরুব্বিগণকে বিতর্কিত হওয়া থেকে বাঁচান।

انصر أخاك ظالمًا أو مظلومًا، فقال رجل: يا رسول الله، أنصره إذا كان مظلومًا، أفرأيت إذا كان ظالمًا كيف أنصره؟ قال: تحجزه أو تمنعه من الظلم فإن ذلك نصره
(বুখারী-6952)

إنَّ النَّاسَ إذا رأَوُا الظَّالمَ فلم يأخُذوا على يدَيْه أوشك أن يعُمَّهم اللهُ بعقابٍ
(আবু দাউদ-4338)

যখন লোকেরা জালেমকে জুলুম করতে দেখেও তাকে জুলুম হতে বাধা দিবে না, তখন অতিসত্ত্বর আল্লহ তায়া’লা তাদের সকলকে স্বীয় ব্যাপক আযাবে লিপ্ত করে দিবেন। (তিরমিযী হা:২১৬৮)

 

এই সংবাদটি 19 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com