রবিবার, ২৭ নভে ২০১৬ ০৬:১১ ঘণ্টা

বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন`বিশিষ্টজন’ ও ইসলামী দৃষ্টিকোণ

Share Button

বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন`বিশিষ্টজন’ ও ইসলামী দৃষ্টিকোণ

বেগম শরীফা আমীন,সিলেট রিপোর্ট: বাংলাদেশে ২০১৪ সালে যে মেয়েদের বিয়ের বয়স নিয়ে আইনের যে খসড়াটি তৈরি হয়েছিলো সেখানে বিয়ের সর্বনিম্ন বয়স ছিলো ১৬ বছর। আগের আইনে বলা হয়েছিল ১৮ বছরের নিচে মেয়েদের বিয়ে দেয়া যাবে না। নতুন আইনে মেয়েদের বিয়ের বয়স ১৬ করা নিয়ে দেশি বিদেশি বিভিন্ন এনজিও সংগঠন আপত্তি জানিয়ে আসছিলো। তাদের যুক্তি ১৮র আগে বিয়ে দিলে মেয়েরা শারীরিক ও মানসিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তাদের আপত্তির মুখে পিছু হটেছে সরকার। মেয়েদের বিয়ের ন্যূনতম বয়স ১৮-ই থাকছে। তবে মা-বাবা চাইলে ১৬ বছরেও বিয়ে হতে পারে। মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয় ইতিমধ্যে এ বিষয়ে একটি আইনের খসড়া তৈরি করেছে। বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন, ২০১৪ নামে আইনের এই খসড়া মতামতের জন্য আইন মন্ত্রণালয়ে পাঠানোও হয়েছে। খসড়ায় উল্লেখ আছে, ‘যুক্তিসংগত কারণে মা-বাবা বা আদালতের সম্মতিতে ১৬ বছর বয়সে কোনো নারী বিয়ে করলে সেই ক্ষেত্রে তিনি ‘অপরিণত বয়স্ক’ বলে গণ্য হবেন না।’ খসড়া আইনটির বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত ১৮ ডিসেম্বর যে অনুশাসন দিয়েছেন, তাতে বলা হয়েছে, ‘বিয়ের বয়স ১৮, তবে পিতামাতা বা আদালতের সম্মতিতে ১৬ বছর সকলের কাছে গ্রহণযোগ্য হবে। সামাজিক সমস্যা কম হবে।’
বাল্যবিবাহ আইন :
অপ্রাপ্তবয়স্কদের বিয়ের সুযোগ রেখে আইন করতে যাচ্ছে সরকার।‘বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন- ২০১৬’ এর খসড়ায় বিশেষ ক্ষেত্রে ১৮র আগে বিয়ের সুযোগ রাখা হচ্ছে। গত বৃহস্পতিবার (২৪ নভেম্বর)  সচিবালয়ে মন্ত্রিসভার বৈঠকে এই খড়সায় অনুমোদন দেওয়া হয়। এই খড়সায় বলা হয়েছে বিশেষ প্রেক্ষাপটে আদালতের নির্দেশনা এবং বাবা-মায়ের সমর্থনে অপ্রপাপ্তবয়স্ক মেয়েদের বিয়ে দেওয়া যাবে।
কিন্তু পরিবর্তিত খসড়া আইনটিও কথিত নারী অধিকারবাদী এনজিওগুলোকে সন্তুষ্ট করতে পারে নি। এই ইস্যুতে তারা আবার সরকারের সমালোচনায় মুখর হয়েছে।
২৪ বিশিষ্টজনের বিবৃতি:
দেশের বিশিষ্ট ব্যক্তিদের সই করা এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ১৮ বছরের কম বয়সে মেয়েদের বিয়ে দেওয়ার ‘বিশেষ বিধান’ রেখে আইনটি সংসদে পাস করা হলে তা হবে টেকসই উন্নয়ন, নারীর ক্ষমতায়ন ও অধিকার প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে বিরাট প্রতিবন্ধকতা। গতকাল (২৬ নভেম্বর ২০১৬) শনিবার ২৪ জন বিশিষ্ট ব্যক্তির সই করা এক বিবৃতিতে এ কথা বলা হয়েছে। বিবৃতিতে বিশিষ্ট ব্যক্তিরা জাতীয় স্বার্থে ‘বিশেষ বিধান’ না রেখে মেয়েদের বিয়ের বয়স শর্তহীনভাবে ১৮ বছর বহাল রেখে বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন পাসের আহ্বান জানিয়েছেন। বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়েছে, গত ২৪ নভেম্বর মন্ত্রিসভায় ‘বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন, ২০১৬’-এর খসড়া অনুমোদন করা হয়। ১৯২৯ সালের আইনে যেখানে মেয়েদের বিয়ের বয়স ১৮ বছর রাখা হয়েছে, সেখানে ২০১৬ সালে এসে আইনে ‘বিশেষ বিধান’ রাখা হবে নারীর ক্ষমতায়নে বিশ্বাসী বর্তমান সরকারের একটি পশ্চাৎপদ সিদ্ধান্ত। ‘বিশেষ বিধান’ রেখে কোনো আইন প্রণয়ন করা হলে তা আইনি ভিত্তিকে দুর্বল করে দেবে। শিক্ষার ক্ষেত্রে পিছিয়ে পড়বে বাংলাদেশ। একই সঙ্গে অপরিণত বয়সে সন্তান ধারণের কারণে বাড়বে মাতৃমৃত্যু ও শিশুমৃত্যুর হার। বাড়বে নারী নির্যাতন। বাধাগ্রস্ত হবে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য (এসডিজি) অর্জন। তাই বিয়ের বয়স কমিয়ে নয়, বরং যেসব কারণে (অসচেতনতা, দারিদ্র্য, সামাজিক নিরাপত্তা ইত্যাদি) বাল্যবিবাহ সংঘটিত হয়, তা দূর করতে পদক্ষেপ নেওয়া জরুরি। বিবৃতিতে সই করেছেন অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী, সৈয়দ আবুল মকসুদ, সেলিনা হোসেন, নাজমা সিদ্দিকী, সালমা খান, আয়শা খানম, মাহফুজা খানম, জাকিয়া হাসান, শাহদীন মালিক, আনু মুহাম্মদ, এম হাফিজউদ্দিন খান, রাশেদা কে চৌধূরী, সালমা আলী, তোফায়েল আহমেদ, বদিউল আলম মজুমদার, আমেনা মহসীন, এম এ মুহিত, নাছিমা আক্তার, তানিয়া হক, বজলুর রশীদ, জোবেরা রহমান, রোকেয়া কবীর, নাসিমুন আরা হক ও রোকেয়া প্রাচী। (সুত্র-প্রথম আলো)

ইসলামী দৃষ্টি কোণ:
সংখ্যা গরিষ্ট মুসলমানের বাংলাদেশের যে কোন আইন প্রণয়নরে ক্ষেত্রে দেশটির সংখ্যাগরিষ্ট ধর্মপ্রাণ জনগনের ধর্মীয় বিধানের প্রতি যথাযথ সম্মান রেখেই আইন প্রনয়ন সাংবিধানিক বিষয়। তাই বাংলাদেশের ৯৫% এই দেশে ইসলামের সাথে সাংঘর্ষিক কোন আইন জনগন মেনে নিবেনা। এমন আইন প্রনয়নকরাও সঠিক হবেনা। ‘বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন- ২০১৬’ এর আইনটি চুড়ান্ত করার আগে সরকারের উচিত হলো দেশটির র্শীষ ইসলাম বিশেষঞ্জদের সাথে কথা বলা তাদের মতামত নেয়া।
আলোচ্য ‘বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন- ২০১৬’ এর খসড়া প্রসঙ্গে জামেয়া ইসলামিয়া দারুল উলুম খাদেমুল ইসলাম গওহরডাঙ্গা মাদরাসার মুহতামিম মুফতি রূহুল আমিন বলেন, যারা এই খসড়া আইনটির ব্যাপারে আপত্তি করছে, তারা আসলে বাইরের কারো প্রতিনিধিত্ব করে। যাদের নেমক তারা খায়, তাদের নেমকহালালি করার জন্যই এগুলোর বিরোধিতা তাদের করতে হয়। তিনি বলেন, বাংলাদেশের সংস্কৃতি ধর্মকে বাদ দিয়ে কল্পনা করা যায় না। এটা সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলমানের দেশ। সব কিছু বিবেচনায় নিয়ে সরকার খুবই ইতিবাচক সিদ্ধান্ত নিয়েছে। যারা বিরোধিতা করছে তারাই আসলে নারীদের উপর একধরনের নির্যাতন করছে। তাদের বিয়ে করার অধিকার হরণ করছে। ইসলামের দৃষ্টিতে আইনটির বিরোধিতা করার কিছু নেই বলেও মন্তব্য করেন তিনি।
একই বিষয়ে জামিয়া কুরআনিয়া লালবাগের মুহাদ্দিস ও  ইসলামী ঐক্যজোটের মহাসচিব মুফতি ফয়জুল্লাহ বলেন, আমি মনে করি এই আইনটি এভাবে করারও কোনো প্রয়োজন নেই। আইনে শুধু বাল্যবিবাহকে নিরুৎসাহিত করা যেতে পারে। কিন্তু আঠারো বা ষোলর আগে বিয়ে দেয়া নিষিদ্ধ করে এমন কোনো আইনই সমর্থনযোগ্য নয়। আগের আইনটির তুলনায় নতুন আইনটি তুলনামূলক ভালো কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি ইসলামের দৃষ্টিকোণ থেকে কথা বলছি। সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলমানের দেশ হিসেবে আমাদের মুসলমানের আকিদা বিশ্বাস ও মৌলিক নীতিমালা অনুসরণ করতে হবে। ইসলামি দৃষ্টিকোণ থেকে আমরা কখনোই বলতে পারি না যে একজন সাবালক ও সাবালিকা যদি বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হতে চায়, আইন করে তাদের বাঁধা দিয়ে রাখা উচিত হবে। তারপর তারা অবৈধ সম্পর্কে রাখবে, ব্যভিচারে লিপ্ত হবে এটা কোনো ভাবেই সমর্থনযোগ্য নয়। তিনি জোর দিয়ে বলেন, পুরনো ও নতুন উভয় আইনই অগ্রহণযোগ্য। বাল্যবিবাহকে নিরুৎসাহিত করা যেতে পারে। নিষিদ্ধ করা ইসলাম সমর্থন করে না। (সুত্র-আওয়ার ইসলাম)।
মাওলানা খান নদভী::
এব্যাপারে দেশের চিন্তাশীল আরেক আলেম, গবেষক মাওলানা উবায়দুর রহমান খান নদভী
বলেন, বাংলাদেশে সাম্প্রতিক সময়ে উত্যাক্তকারীর হামলায় ২ জন কিশোরী নিহত হয়েছে এবং ১ জন গুরুতর আহত হয়েছে। এইসব সহিংসতা মোকাবেলায় কঠোর আইন করার পাশাপাশি মেয়েদের দ্রুত বিয়ে দেয়াকেও একটি পথ হিসেবে দেখেন সমাজবিজ্ঞানীরা। এই বিষয়টি পর্যালোচনা করে ২০১৪ সালে যে মেয়েদের বিয়ের বয়স নিয়ে আইনের যে খসড়াটি তৈরি হয়েছে সেখানে বিয়ের বয়স নির্ধারণ করা হয়েছে ১৬ বছর। আগের আইনে বলা হয়েছিল ১৮ বছরের নীচে মেয়েদের বিয়ে দেয়া যাবে না। নতুন আইনে মেয়েদের বিয়ের বয়স ১৬ করা নিয়ে আপত্তি জানিয়েছে দেশী বিদেশী বিভিন্ন এনজিও সংগঠন। তাদের যুক্তি ১৮র আগে বিয়ে দিলে মেয়েরা শারীরিক ও মানসিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়।
মেয়েদের বিয়ের বয়স নিয়ে বর্তমান আইন ও নতুন আইনের খসড়ার ধরণের ব্যাপারে আপত্তি জানিয়ে তিনি বলেন, রাষ্ট্র নাগরিকদের বিয়ের ব্যাপারে পরামর্শ দিয়ে আইন করলেও তা করতে হবে বিশেষ ক্ষেত্রে শিথিলযোগ্য রেখে। সেটা ১৬ হলে ভালো, বিদেশী চাপে আঠারোও করতে হতে পারে, তবে সব ক্ষেত্রেই বিশেষ ক্ষেত্রে শিথিলযোগ্য রেখে আইনটি করতে হবে। জোর করে মানুষকে বিয়ে করা থেকে ফেরানো মানবাধিকার পরিপন্থী।
মাওলানা নদভী বলেন, বিশেষ ক্ষেত্র নির্ধারিত হবে বাবা মা এবং সরকারী কর্তৃপক্ষের যৌথ বিবেচনার ভিত্তিতে। সে ক্ষেত্রে কমিশনার বা স্থানীয় সরকারের প্রতিনিধি বা অন্য কোনো সরকারী কর্তৃপক্ষকে নির্ধারিত সময়ের আগে বিয়ের অনুমতি দেয়ার অধিকার দেয়া যেতে পারে। যাতে তার অনুমতিতে বাবা মা বা কন্যার বিয়ে দিতে পারে। যেমন মেয়ের বয়স ষোল বা সতের, সে বিদেশ যাবে পড়াশোনার জন্য, পরিবার ভাবলো বিয়ে করিয়ে দিলে ভালো হবে, ছেলের সাথে যাবে অথবা মেয়ের বয়স ষোল বছর, তার বাবা মা ভাই বোন কেউ নেই। এরকম অবস্থায় বিয়ে দেয়ার সুযোগ তো থাকতে হবে।
১৬ বছর বিয়ের বয়স নির্ধারণের বিরোধী এনজিওগুলোর যুক্তি প্রত্যাখ্যান করে উবায়দুর রহমান খান নদভী বলেন, আগে বিয়ে দিলে মেয়েদের স্বাস্থ্যের ক্ষতি হয় বা মাতৃমৃত্যুর হার বাড়ে এই চিন্তাটা ভুল। এই কথার সাথে ইসলামি শরিয়ত একমত নয়। বাংলাদেশে এক প্রজন্ম আগেও মেয়েদের ১৩ বছর বয়সে বিয়ে হয়েছে। সন্তানও হয়েছে। এরপরও দেখা গেছে তারা সুস্থ শরীরে দীর্ঘ জীবন কাটিয়েছে। তাই আগে বিয়ে দিলেই মেয়েদের স্বাস্থ্যের ক্ষতি হবে বা মাতৃমৃত্যুর হার বাড়বে এটা কথাটা সঠিক নয়।
মেয়ে বিয়ে দেয়ার দায়ে বাবা মাকে জেলে নেয়া পুরোপুরি অগ্রহণযোগ্য মন্তব্য করে মাওলানা নদভী বলেন, মেয়ে ব্যভিচারে জড়িয়ে পড়লে তো বাবা মাকে জেলে নেয়া হয় না। ১৫ বছর বয়সী মেয়েরা ব্যভিচারে জড়িয়ে এবরোশন করতে হয় তখন কি স্বাস্থ্যের ক্ষতি হয় না? তিনি বলেন, স্ত্রীর বয়স বেশি কম হলে বা স্বাস্থ্যের ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা থাকলে স্বামী স্ত্রী নিজেদের বিবেচনা অনুযায়ী প্রয়োজনে বাচ্চা দেরিতে নিতে পারে। পারলে আগে নেবে। তিনি মনে করেন, এত বেশি ঘরোয়া ব্যাপারে রাষ্ট্রের নাক গলানো সমীচীন নয়।’
এদিকে,  ‘বিশেষ বিধান’ রেখে আইন প্রনয়নের জন্য গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারকে অভিনন্দ জানিয়েছেন মাদানী কাফেলা বাংলাদেশের নেতৃবৃন্দ।
বিবৃতিদাতারা হলেন কাফেলার উপদেষ্টা মুফতি খন্দকার হারুনুর রশীদ, সভাপতি মাওলানা রুহুল আমীন নগরী,সাধারণ সম্পাদক মাওলানা সালেহ আহমদ শাহবাগী । তারা বলেন, বিয়ে-শাদী ইসলামী শরীয়তের একটি অপরিহার্য বিষয়। ছেলে-মেয়েদের বিয়ের উপযূক্ত সময় নিধার্রন করে দিয়েছে ইসলাম । মাতা-পিতা পরিবেশ পরিস্থিতি উপলব্ধীকরে সন্তানের সম্মতিক্রমেই শরীয়ত মোতাবেক বিয়ে ব্যবস্থা করে থাকেন। কিন্ত আইন করে বিয়ের বয়স নির্ধারনের কারনে অনেক ক্ষেত্রে যিনা-ব্যভিচার বৃদ্ধি পাওয়ার আশংকা রয়েছে! ১৮/২১ বিয়ের বয়স নির্ধারন করাটা উদ্দেশ্য প্রনোদিত। বিষয়টি নিয়ে ইসলাম বিশেষজ্ঞদের সাথে আলোচনা করা জরুরী। কারন সন্তানের বিয়ের কারনে পিতা-মাতার জেল জরিমানাও হতে পারে।
অপর দিকে, বিশিষ্ট নাগরিক’দের ব্যানারে যারা মেয়েদের বিয়ের বয়স শর্তহীনভাবে ১৮ বছর বহাল রেখে বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন পাসের আহ্বান জানিয়েছেন বা
‘বিশেষ বিধান’কে  নারীর ক্ষমতায়ন ও অধিকার প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে বিরাট প্রতিবন্ধকতা’ বলে দাবী করছেন তাদের দাবী উদশ্য্যে মুলক।

এই সংবাদটি 1,069 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com