‘ফ্রম গঙ্গা টু জমজম’ লেখক ড. ‍মুহাম্মদ জিয়াউর রহমান আজমী আর নেই

প্রকাশিত: ২:২৫ অপরাহ্ণ, জুলাই ৩১, ২০২০

‘ফ্রম গঙ্গা টু জমজম’  লেখক ড. ‍মুহাম্মদ জিয়াউর রহমান আজমী আর নেই

ডেস্ক রির্পোট: বছরের সর্বোত্তম দিন আরাফার মোবারক দিনে বিশ্ববিখ্যাত হাদীস গবেষক, মদীনা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক আল্লামা ড: মুহাম্মদ জিয়াউর রহমান আজমী ইন্তেকাল করেছেন। ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্নাইলাইহি রাজিউন।

অমুসলিম পরিবারে জন্ম লাভ করেও যে সকল মনীষী ইসলাম গ্রহণ করে ইলমের বিভিন্ন শাখায় অবদান রেখেছেন তাদের মাঝে স্মরণীয় হয়ে থাকার মত একটি নাম ড: মুহাম্মদ জিয়াউর রহমান আজমী।

এক সময়ের বঙ্কে লাল। আজকের শায়খ জিয়াউর রহমান আজমি। জন্ম ভারতীয় হিন্দু বাহ্মণ পরিবারে। কিন্তু ইসলামধর্ম সম্পর্কে জানতে শৈশব থেকেই প্রচণ্ড আগ্রহ ও ঐকান্তিকতা ছিল। প্রবল আগ্রহের কারণে ধর্মীয় বিভিন্ন বিষয়-আশয়ে নিজেই পড়াশোনা ও গবেষণা শুরু করেন। আর এ পাঠযাত্রা ও গবেষণাকল্পে ইসলামের প্রতি আকৃষ্ট হয়ে ইসলাম ধর্মে দীক্ষিত হন।

ইসলামধর্ম গ্রহণকালে তার বয়স ছিল ১৮। এরপর তার অভিযাত্রা শুরু সম্মুখপানে।
শুধু ইসলাম গ্রহণ করেই থেমে থাকেননি, ধর্মীয় জ্ঞানের প্রখর তৃষ্ণা মেটাতে তিনি ছুটে যান প্রিয় নবীর শহর মদিনা মুনাওয়ারায়। সেখানে মদিনা ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের হাদিস অনুষদে ভর্তি হন। সেখানে হাদিসশাস্ত্রে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর শেষ করে মিশরের কায়রোর আল-আজহার বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিএইচডি সম্পন্ন করেন।কর্মজীবনে তিনি মদিনা বিশ্ববিদ্যালয়েই যোগ দেন শিক্ষক হিসেবে। কিছুদিন হাদিস অনু ক্রমান্বয়ে হাদিস শাস্ত্রে অগাধ পাণ্ডিত্য ও ব্যুৎপত্তি লাভ করেন। শিক্ষকতাকালীন সময়ে হাদিসের মূল্যবান কিছু গ্রন্থও রচনা করেন তিনি।

মদিনা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপনা থেকে অবসর নেওয়ার পর ২০১৩ সালে তিনি রাসুল (সা.) এর মসজিদ ‘মসজিদের নববী’তে বিভিন্ন বিষয়ে পাঠদানের সুযোগ লাভ করেন। ধর্মীয় জ্ঞান চর্চার পরিমণ্ডলে এ দায়িত্ব অত্যন্ত সম্মানজনক ও মর্যাদাপূর্ণ।

এক সময়ের হিন্দু যুবক বঙ্কে লাল ও আজকের শায়খ জিয়াউর রহমান আজমি গুরুত্বপূর্ণ ও তাৎপর্যবহ অনেক কাজ করেছেন। ‘আল জামিউল কামিল ফিল হাদিসিস সাহিহিস শামিল’ তার গ্রন্থগুলোর অন্যতম। এতে শায়খ জিয়াউর রহমান আজমির ১৫ বছরের কর্মসাধনা ব্যয় করেছেন। ২০ খণ্ডের এ বৃহৎ কর্মযজ্ঞে তিনি ২০০টিরও বেশি হাদিসগ্রন্থের সহায়তা নিয়েছেন।

তার অন্যতম আরেকটি বৃহৎ ও গুরুত্বপূর্ণ কাজ হচ্ছে হিন্দি ভাষায় ‘ইসলামী বিশ্বকোষ’। এছাড়াও ‘কম্পারেটিভ স্টাডি অব জুদাইজম, ক্রিশ্চিয়ানিটি অ্যান্ড ইন্ডিয়ান রিলিজিওন্স’। কায়রোতে তার পিএইচডি অভিসন্দর্ভের বিষয় ছিল ‘দি জাজমেন্ট অফ দ্য প্রফেট’। ইসলাম গ্রহণের অভিজ্ঞতা নিয়ে খুবই সুখপাঠ্য ও মুগ্ধতা ছড়ানো আত্মজীবনীমূলক গ্রন্থ লিখেছেন ‘ফ্রম গঙ্গা টু জমজম’।

শায়খ জিয়াউর রহমান আজমির জন্ম (বা বঙ্কে লাল) ১৯৪৩ সালে। ভারতের উত্তর প্রদেশের আজমগড় জেলার বিলার‌্যগঞ্জ গ্রামে। বাড়ির পাশের হাকিম আইয়ুব নামের এক আলেমের সাহচর্যে তিনি ইসলামের সাম্য, সৌন্দর্য ও যুগোপযোগিতায় ‍মুগ্ধ হন। এরপর দীর্ঘ গবেষণা ও পড়াশোনার পর ইসলাম গ্রহণের সিদ্ধান্তে উপনীত হন।

এই সংবাদটি 63 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com