আশুরা: করণীয় ও বর্জনীয়

প্রকাশিত: ৮:৪৬ পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ২৮, ২০২০

আশুরা: করণীয় ও বর্জনীয়

লুকমান হাকিম:

রামাযানের পরে মুহাররম মাস হচ্ছে মাসসমূহের মধ্যে সর্বশ্রেষ্ঠ মাস। (নাসাঈ কুবরা: ৪২১৬, আহমদ, দারেমী, তাবারানী) যেহেতু রামাযানের পরেই এই মাস হচ্ছে, সর্বশ্রেষ্ঠ মাস, তাই এই মাসের গুরুত্বপূর্ণ আমল হলো, অধিক পরিমাণে সিয়াম পালন করা।
হাদিসে এসেছে, عَنْ أَبِي هُرَيْرَةَ رضي الله عنه قَالَ: قَالَ رَسُولُ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم: أَفْضَلُ الصِّيَامِ بَعْدَ رَمَضَانَ شَهْرُ اللهِ الْمُحَرّمُ.
আবু হুরায়রা রাযি. থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ সা. ইরশাদ করেছেন: রামাযানের পর সবচে উত্তম রোযা হলো আল্লাহর মাসের রোযা, অর্থাৎ মুহাররম মাসের। (মুসলিম: ১১৬৩) যেহেতু রামাযান মাসের পরেই এই মাসে রোযার ফযিলত সবচে বেশি, তাই এই মাসে যে কোনো দিন রোযা পালন করা ফযিলত এবং সওয়াবের আমল।
আশুরার রোযা: নবী সা. যখন হিজরত করে মদীনায় এলেন, তখন দেখলেন ইহুদিরা মুহাররামের দশম তারিখে রোযা পালন করে। জিজ্ঞেস করার পর জানতে পারলেন, হযরত মুসা আলাইহিস সালাম ও বনী-ইসরাইল ফেরাউনের আক্রমণ থেকে আল্লাহ তাআলার কুদরতের প্রত্যক্ষ নিদর্শন হিসেবে রক্ষা পাওয়া এবং কোনো বাহন ছাড়াই সমুদ্র পাড়ি দেয়ার এবং ফেরাউন ও ফেরাউন বাহিনীকে সমুদ্রে নিমজ্জিত করার মতো অলৌকিক ঘটনার জন্যে আল্লাহ তাআলার কৃতজ্ঞতাস্বরূপ হযরত মুসা আলাইহিস সালাম এই দিবসে রোযা রেখেছিলেন৷ তাই উম্মত হিসেবে তারাও রোযা রাখে। তখন রাসূল সা. বললেন,
فَأَنَا أَحَقُّ بِمُوسَى مِنْكُمْ فَصَامَهُ وَأَمَرَ بِصِيَامِهِ. (بخاري) মূসা আলাইহিস সালামের ক্ষেত্রে (সেই ঘটনার শুকরিয়া ও স্মৃতি হিসেবে) তোমাদের চেয়ে আমি বেশি হকদার। তখন হুজুর সা.-ও রোযা রাখলেন এবং (সবাইকে) রোযা রাখার নির্দেশ দিলেন। (বুখারী: ১৮৬৫)
ইবনে আব্বাস রা. বলেন, مَا رَأَيْتُ النَّبِيَّ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ يَتَحَرَّى صِيَامَ يَوْمٍ فَضَّلَهُ عَلَى غَيْرِهِ إِلا هَذَا الْيَوْمَ يَوْمَ عَاشُورَاءَ وَهَذَا الشَّهْرَ يَعْنِي شَهْرَ رَمَضَانَ. (بخاري)
আমি নবী সা. কে এ সওম ছাড়া অন্য কোনো সওমকে এত গুরুত্ব দিতে দেখিনি। আর তা হলো আশুরার সওম ও এই রামাযান মাসের সওম। (বুখারী: ১৮৬৭)
অন্য হাদীসে এসেছে, صِيَامُ يَوْمِ عَاشُورَاءَ أَحْتَسِبُ عَلَى اللَّهِ أَنْ يُكَفِّرَ السَّنَةَ الَّتِي قَبْلَهُ. আশুরার দিনের রোযার ব্যাপারে আমি আল্লাহ তাআলার কাছে আশা পোষণ করি, তিনি পূর্ববর্তি এক বছরের গোনাহ মাফ করে দেবেন। (মুসলিম: ১৯৭৬)
আশুরা তথা ১০ম তারিখের সঙ্গে পূর্ব একদিন অথবা পরে একদিন মিলিয়ে রোযা রাখার কথা হাদিসে এসেছে। ইবনে আব্বাস রা. থেকে বর্ণিত রাসুলুল্লাহ সা.বলেছেন, صُومُوا يَوْمَ عَاشُورَاءَ، وَخَالِفُوا فِيهِ الْيَهُودَ صُومُوا قَبْلَهُ يَوْمًا وَبَعْدَهُ يَوْمًا তোমরা আশুরার দিন রোযা রাখ। আর এ ব্যাপারে ইহুদিদের সাথে পার্থক্য স্থাপন করে আশুরার একদিন আগে অথবা একদিন পরে মিলিয়ে রোযা রাখ। (তিরমিযি)
যদিও রাসুলুল্লাহ সা. সারাজীবন কেবল দশম তারিখেই রোযা রেখেছেন। তবে আগামী বছর ৯ম তারিখ মিলিয়ে দুটি রাখার সংকল্প ব্যক্ত করেছিলেন। কিন্তু আগামী বছর আর হায়াতে পাননি বিধায় সংকল্পও বাস্তবায়ন করতে পারেননি। এ ক্ষেত্রে সুন্নাহ হচ্ছে, ৯ম তারিখ মিলিয়ে আশুরার রোযা রাখা। তবে একান্ত প্রয়োজনে ১০ তারিখের সঙ্গে ১১ তারিখ মিলিয়ে রাখলেও হবে।
ইবনে আব্বাস রাযি. থেকে বর্ণিত হাদিসে রাসূল সা. বলেছেন, لَئِنْ بَقِيتُ إِلَى قَابِلٍ لَأَصُومَنَّ الْيَوْمَ التَّاسِعَ আমি যদি আগামী বছর বেঁচে থাকি, তাহলে অবশ্যই নয় তারিখে রোযা রাখব। (আহমাদ: ৩২১৩)
সায়্যিদুনা হুসাইন রাযি. এর নির্মম শাহাদাত বরণে সত্যি আমরা ব্যথিত, মর্মাহত, শোকস্তব্ধ। নিঃসন্দেহে হযরত হুসাইন রাযি. এর কারবালার ময়দানে মর্মান্তিক শাহাদাত বরণের ঘটনা উম্মতের জন্য অত্যন্ত দুঃখজনক, বেদনাবিধুর ও হৃদয়বিদারক। এই ব্যথা ও কষ্ট ভুলে যাবার নয়। এর শোকগাথা প্রত্যেক মুমিনের স্মৃতিপটে সতত জাগরূক। হাদীসের ভাষায় বলি- إِنّ العَيْنَ تَدْمَعُ، وَالقَلْبَ يَحْزَنُ، وَلاَ نَقُولُ إِلّا مَا يَرْضَى رَبّنَا. চোখ অশ্রু বর্ষণ করছে। অন্তর ব্যথিত হয়ে ওঠছে। তবে আমরা কেবল সে কথাই বলব যাতে আমাদের প্রভু সন্তুষ্ট হন। (আল্লাহর ফায়সালা যথার্থ। আমরা তাঁর ফায়সালায় পূর্ণ সন্তুষ্ট।) (বুখারী: ১৩০৩) তবে শোকার্ত হয়ে চিৎকার করে কান্নাকাটি করা, মাটিতে গড়াগড়ি করা, শরীরে আঘাত করা, রক্তাক্ত করে দেয়া, চুল ছেড়া, কাপড় ছেড়া ইত্যাদি হারাম।
নবী সা. বলেছেন, لَيْسَ مِنَّا مَنْ ضَرَبَ الْخُدُودَ ، وَشَقَّ الْجُيُوبَ، وَدَعَا بِدَعْوَى الْجَاهِلِيَّةِ সে ব্যক্তি আমাদের লোক নয় যে গালে চপেটাঘাত করে, জামার পকেট ছিঁড়ে এবং জাহেলিয়াতের মত ডাকে। (বুখারী: ১২৯৪, মুসলিম: ১৬৫)
রাসূল সা. আরও ইরশাদ করেন, النِّيَاحَةُ عَلَى الْمَيِّتِ مِنْ أَمْرِ الْجَاهِلِيَّةِ বিলাপ করা (কারও মৃত্যুতে চিৎকার করে কান্নাকাটি করা, মৃত ব্যক্তির বিভিন্ন গুণের কথা উল্লেখ করে মাটিতে পড়ে গড়াগড়ি করা, শরীরে আঘাত করা, জামা-কাপড় ছেঁড়া ইত্যাদি) জাহেলি যুগের কাজ। (ইবনু মজাহ)
কারো ইনতিকালে শরীয়তের হুকুম হলো সবর করা। দুআ করা। যিনি ইন্তেকাল করেন, তিনি যদি অনুসরণীয় হয়ে থাকেন, তাহলে তাঁর পদাঙ্ক অনুসরণ করা। শরীয়ত সবরের দুআও শিখিয়ে দিয়েছে। যেমন হাদীসে এসেছে রাসূল সা. এর কোনো সাহাবী বিপদাপন্ন হলে বা ঘনিষ্ঠ কেউ মারা গেলে এই দুঅুা পড়তেন এবং ধৈর্য ও সওয়াবের আশা পোষণের নসিহত করতেন।
إِنَّ لِلَّـهِ مَا أَخَذَ، وَلَهُ مَا أَعْطَى، وَكُلُّ شَيءٍ عِنْدَهُ بِأَجَلٍ مُسَمَّىً… فَلْتَصْبِرْ وَلْتَحْتَسِبْ
নিঃসন্দেহে আল্লাহ যাকে উঠিয়ে নিয়েছেন সে তাঁরই। যাকে রেখে দিয়েছেন সেও তাঁর। তাঁর কাছে প্রত্যেক জিনিসেরই নির্ধারিত মেয়াদ রয়েছে। তাই তোমার উচিত সবর করা এবং আল্লাহ তাআলার কছে সওয়াবের আশা করা। (বুখারী: ১২৮৪)

এই সংবাদটি 296 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com