বিছমিল্লাহ’রপরিবর্তে ৭৮৬- অবৈধ নয় কি?

প্রকাশিত: ৬:৩৯ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১, ২০২০

বিছমিল্লাহ’রপরিবর্তে ৭৮৬- অবৈধ নয় কি?

মাওলানা শাহ মমশাদ আহম:

আমাদের দেশে বিছমিল্লাহির রাহমানির রাহীম এর পরিবর্তে ৭৮৬ লেখার প্রচলন রয়েছে, আগের তুলনায় কিছুটা কম হলেও এখনো ওয়াজ মাহফিলের পোষ্টার,দোকানের সাইনবোর্ড, ও ষ্টিকারে ৭৮৬ দেখা যায়,চিঠিপত্রের যুগে তো পত্রের শুরুতে ৭৮৬ লেখা সাধারণ রেওয়াজ ছিল।
অনুসন্ধানপ্রিয় নবীন আলেমদের গবেষণার নিমিত্তে আমার জিজ্ঞাসা, বিছমিল্লা’র পরিবর্তে ৭৮৬ লেখা কতটুকু যুক্তিযুক্ত? তা শরীয়ত সম্মত কিনা?যদি তা নব আবিস্কৃত হয়,তা হলে কেন বেদাত হবেনা?

আমরা জানি ইসলাম কোন গাণিতিক ধর্ম নয় এবং কুরআন কোন গাণিতিক গ্রন্থ নয়,এব্যাপারে মহান আল্লাহর ঘোষণা,

ومن يبتغ غير الاسلام دينا فلن يقبل منه وهو فى الاخرة من الخاسرين،،،
যে ব্যাক্তি ইসলামকে ত্যাগ করে অন্য কোন পথ গ্রহণ করবে সেটা কখনো গৃহীত হবেনা, এবং কিয়ামতে সে ক্ষতিগ্রস্তদের অর্ন্তভুক্ত হবে। (আলে ইমরান)

আবজাদ পদ্ধতির সুত্র মতে বিছমিল্লাহ’র পরিবর্তে ৭৮৬ লেখার যে প্রচলন চলে আসছে তা কিভাবে শারঈ পদ্ধতি হতে পারে?এমনকি মুসলমানরা এপদ্ধতির প্রবর্তক ও নয়।
পদ্ধতিটির আবিষ্কারক হলেন গ্রীস দার্শনিক pythagoras, যিনি ইহুদী ছিলেন,প্রকাশ্যে মুসলিম বিদ্বেষী ছিলেন।সুত্রটির ব্যবহার সম্রাট ও সরকারি উর্ধতন কর্মকর্তাদের তোষামোদির জন্যই বেশী হত,যেমন তাদের সিংহাসনের তারিখ অমুক পুণ্যবাক্যের সঙ্গে,জন্ম ও মৃত্যুর তারিখ অমুক বরকতী কোডের সাথে মিল দেখিয়ে বাহবা কুড়ানোই উদ্দেশ্য হত।

মুলত এপদ্ধতির অনুসরণে আমাদের দেশে বিছমিল্লাহ’র পরিবর্তে ৭৮৬লেখা এবং সংখ্যানির্দেশক তাবিজ লেখার প্রচলন চলে আসছে। অথচ প্রিয় নবী সঃ বলেন,
من تشبه بقوم فهو منهم
কেউ যদি বিজাতীয় সাদৃশ্য গ্রহণ করে তা হলে সে তাদেরই অন্তর্ভুক্ত হবে।আবু দাউদ।

বিছমিল্লাহির রাহমানির রাহীম এর এর মধ্যে আল্লাহর দুটি গুনবাচক নাম রাহমান ও রাহীম রয়েছে। এ নাম দিয়ে আল্লাহ তাকে স্মরণ করার নির্দেশ দিয়ে বলেন
ولله الاسماء الحسنى فادعوه بها وذروا الذين يلحدون فى اسماءه ،،،
আল্লাহ তা’আলার বহু সুন্দর নাম রয়েছে, সুতরাং তাকে সেই নামেই সম্বোধন কর,আর সেই সমস্ত লোকদের পরিত্যাগ কর যারা আল্লাহর নামকে বিকৃত করে, অনতিবিলম্বে তারা তাদের কৃতকর্মের ফল ভোগ করবে।(আল আ’রাফ)

আমরা সকলেই জানি আল্লাহর নাম বিকৃত করা মহা অপরাধ, আল্লাহর সাথে চরম বেয়াদবি। এপদ্ধতির অনুসরনে আমরা কি মহা অপরাধ করছিনা?

অনেকেই বলে থাকেন,কুরআন কারিমকে মর্যাদাহানি থেকে রক্ষার জন্য ৭৮৬লেখা হয়,তাদের বলবো প্রিয় ভাই,কুরআনের মর্যাদা কি আমরা রাসুলুল্লাহ সঃ এর চেয়ে বেশি বুঝি?প্রিয় নবী সঃ অমুসলিম বাদশাহদের নিকট লিখিত পত্র বিছমিল্লাহর রাহমানির রাহীম দ্ধারা শুরু করতেন কেন?পারস্যের সম্রাট কিসরা তো রাসুল সঃ প্রেরিত চিঠিকে টুকরো টুকরো করে ছিড়ে ফেলেছিল,তাহলে কি রাসুলুল্লাহ সঃ কাফেরদের নিকট লিখিত পত্রে বিছমিল্লাহির রাহমানির রাহীম লিখে আল্লাহর সম্মানহানি করেছিলেন? নাউজুবিল্লাহ।

এছাড়া বর্তমানে তো শুধু অমুসলিম নয়, মুসলমানদের পারস্পরিক চিঠিতে ও ৭৮৬ লেখা হচ্ছে, যদি এধরণের গাণিতিক কোড উত্তম হত,তা হলে স্বর্নযুগের সাহাবায়ে কেরাম ও তাবেয়ীগন এমন কোড ব্যবহার করলেন না কেন?
আমাদের যে সমস্ত আলেম উলামা এরুপ ব্যবহার করে থাকেন তাদের স্বপক্ষে দলিলই বা কি?
আল্লাহ পবিত্র কুরআনে ইরশাদ করেন,
ولا تنابزو بالالقاب
তোমারা একে অপরকে অপছন্দনীয় নামে সম্বোধন করনা।(হুজুরাত)
আমাদের নামের পরিবর্তে কেউ যদি কোড ব্যবহার করে,আমরা কি আনন্দিত হবো?মনে করুন, আপনার নাম উমর আলী, আবজাদ পদ্ধতি অনুযায়ী আপনাকে ৪২০তথা four Twenty ডাকা হলে আপনি কি সন্তুষ্ট হবেন? আপনি নিজের জন্য যা পছন্দ করেন না,আল্লাহর জন্য কিভাবে পছন্দ করবেন?

পরিশেষে বলবো, পবিত্র কুরআন শাব্দিক ও অর্থগত উভয়ভাবেই আল্লাহর পক্ষ হতে অবতীর্ণ, গাণিতিকভাবে এর কোড ব্যবহার কিভাবে বৈধ হতে পারে?তা আমাদের মৌলআকীদার পরিপন্থী নয় কি?

আসুন,আবেগ আর যুক্তির নিরিখে নয়,কুরআন সুন্নাহের দালিলের ভিত্তিতে বিষয়টির সমাধান করি।নিজ মত প্রতিষ্টার জন্য গবেষণা না করে কুরআন সুন্নাহের আলোকে সমাধান খুজার চেষ্টা করি।
আল্লাহ তাওফিক দিন।

এই সংবাদটি 148 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com