প্রয়োজন কওমি অঙ্গনেও পরিবর্তনের ঢেউ তোলা

প্রকাশিত: ৩:০০ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২, ২০২০

প্রয়োজন কওমি অঙ্গনেও পরিবর্তনের ঢেউ তোলা


সৈয়দ শামছুল হুদা

আমাদের অনেকেই পরিবর্তনকে ভয় পায়। অথচ নতুন কিছু করতে হলে পরিবর্তন যে অপরিহার্য। স্রোতের ভাঙ্গন ছাড়া নদীর গতিপথ নতুন করে কীভাবে রচিত হবে? আমরা এক ধরণের আবদ্ধ জীবনে আটকে আছি। নতুন কিছু চিন্তা করতে পারছি না। বড় কিছু করা, বড় কিছু হওয়া নিয়ে ভাবি, কিন্তু সেটা কীভাবে হবে? কা’র হাত ধরে আসবে? তা প্রায়শই উপলব্দি করতে পারি না। আমরা আমাদের সম্ভাবনাকে খুঁজে বের করি না। মূল্যায়ণ করি না। আমি বিশ্বাস করি যে, কওমী তরুনদের মধ্যে যে অসাধারণ প্রতিভা লুকিয়ে আছে তার সামান্য পৃষ্টপোষকতা করতে পারলে দেশে কওমী আলেমগণ আগামী দিনে নানা অঙ্গনে বিপ্লব করতে সক্ষম।

আমরা কাজে সফল না হওয়ার পেছনে বড় বাধা হলো, চিন্তাগত জড়তা। শত্রু-মিত্র বানানোর চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত। কাউকে শত্রু বানিয়েছো, তো তার সাথে আর কোনদিন আমার মিট হবে না। বন্ধুত্ব হবে না। না ভাই, এভাবে ভাবলে হবে না। আপনাকে জগত সংসারে চলতে হলে কখনো শত্রুর নৌকায় উঠতে হবে। কারণ আপনাকে এমন একটি নদী পার হতে হবে যেখানে শত্রুর নৌকা ছাড়া আর কোন উপায় নাই। আপনাকে প্রথম লক্ষ্য ঠিক করতে হবে। বড় স্বপ্ন দেখতে হবে। সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নে যাদের যাদের সহযোগিতা প্রয়োজন তাদের সাথে এক ধরণের সাময়িক মিত্রতা তৈরী করতে হবে। তবে যে বিষয়ে কোন আইডিয়াই নাই, সে সব বিষয়ে প্রথম দিনেই যদি চূড়ান্ত বিষয়টা স্বপ্ন দেখা শুরু করেন তাহলে আপনি হারতে বাধ্য। আপনাকে চূড়ান্তে পৌঁছার সবগুলো ধাপ সম্পর্কে আইডিয়া থাকতে হবে। আজকে আমি নির্দিষ্ট কিছু স্বপ্ন দেখা নিয়ে কথা বলতে চাই। মনে রাখবেন, সফলতার জন্য যে যেই পথে পা বাড়িয়েছে, তাকে সেই পথে এগিয়ে যাওয়ার সহযোগিতাই হতে পারে আমাদের অন্যতম করণীয়। আজ এমন কিছু কথাই বলবো।

কওমী অঙ্গনের বর্তমান সীমিত জগতটাকে কীভাবে সমৃদ্ধ করা যায়, কীভাবে ধীরে ধীরে পাখা ছড়ানো যায় তা নিয়ে কথা বলবো। উদাহরণত কিছু মানুষের কথা বলবো। আশাকরি অন্যরা মনক্ষুন্ন হবেন না।

* মনে করেন আমরা একটি বড় হাসপাতাল করতে চাই। আর আমাদের আছেন মুফতি শহীদুল ইসলাম, আমাদের সামনে আছে আল মারকাজের মতো একটি মডেল। বর্তমানে আছেন সমাজসেবক গাজী ইয়াকুব ভাই, শাঈখ আহমাদুলল্লাহ, মাওলানা খালেদ সাইফুল্লাহ আইয়ুবী প্রমুখ। তাহলে আমরা কি বড় একটা কিছু করতে পারার চিন্তা করতে পারি না? আমাদের প্রিয় গাজী ইয়াকুব ভাই, অনেকের মতো তিনিও মানবিক কারণে করোনা রোগীদের দাফন-কাফনের কাজে এগিয়ে আসেন। আস্তে আস্তে তার কর্ম পরিধি বাড়তে থাকে। তিনি একটি এম্বুলেন্স এর স্বপ্ন দেখা শুরু করেন। কাজ করতে গিয়ে একটি সংগঠনের তীব্র প্রয়োজনীয়তা অনুভব করেন। এক সময় সংস্থার অনুমোদন হয়। একটি এম্বুলেন্স এর ব্যবস্থাও হয়। এখন উনি স্বপ্ন দেখছেন, একটি হাসপাতাল তৈরীর। আচ্ছা, মনে করেন উনাকে যদি উপরের সবাই মিলে সহযোগিতা করেন, এগিয়ে যাওয়ার প্রেরণা দেন এবং একটি হাসপাতাল তৈরী করেন, তাহলে কাদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হবে? কারা সেখানে অগ্রাধিকার পাবেন? এর মাধ্যমে জাতীয় পর্যায়েও ভূমিকা রাখা সম্ভব। একদিন হয়তো আলেম-উলামাদের দ্বারা মেডিকেল কলেজ পরিচালিত হবে। নার্সিং ইন্সস্টিটিউট হবে। ফার্মাসিউটিকেলস গড়ে উঠবে। বড়জোর ১০বছরে এসব স্বপ্ন বাস্তবায়ন সম্ভব। এখনই সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা নিয়ে কওমী ফারেগীনদের মেডিকেলে ভর্তির উদ্যোগ নিতে হবে। আলিয়া অথবা জেনারেল থেকে এইচএসসি পরীক্ষা দিয়ে কিছু ছাত্রদের ডোনেশন দিয়ে এসব জায়গায় পাঠাতে হবে। তারা বের হয়ে আসতে আসতে দেখবেন চিকিৎসা জগতেও কওমী আলেমদের পদচারণা বেড়ে গেছে।

* একটি দৈনিকের স্বপ্ন, মনে করেন মাওলানা উবায়দুর রহমান খান নদভী, মাওলানা লিয়াকত আলী, মাওলানা শরীফ মুহাম্মদ এদের নেতৃত্বে একটি জাতীয় দৈনিকের স্বপ্ন দেখা শুরু হলো। সার্বিক সহযোগিতায় এগিয়ে এলেন মুফতি শহীদুল ইসলাম (সাবেক এমপি), আল্লামা ফরিদ উদ্দীন মাসউদ, মাওলানা মাহমুদুল হাসান (যাত্রাবাড়ি), আলী রেযা নদভী এমপি প্রমুখ। আচ্ছা, এরা যদি সত্যিকার অর্থেই এগিয়ে আসেন তাহলে একটি জাতীয় দৈনিকের জন্য ১০০কোটি টাকার ফান্ড করা কি খুব কঠিন? আমার তা মোটেও মনে হয় না। একটি জাতীয় দৈনিকের সাথে শত শত কওমী তরুনের কর্মসংস্থানের যেমন ব্যাপার রয়েছে, তেমনি এর সাথে জড়িয়ে আছে আরো অসংখ্য বিষয়। মাওলানা আকরম খাঁ, মাওলানা মহিউদ্দীন খান রহ. প্রমুখ আমাদের সাংবাদিকতা ও সম্পাদনা জগতের প্রতিকৃত। আমরা কি খুব বড় কিছু চিন্তা করছি? ৫০বছর আগে মাওলানা আকরম খাঁ এরা পারলে আমরা এখন কেন পারবো না? কেন আমরা ইতিবাচকভাবে চিন্তা করছি না? ও, হ্যাঁ, কিছু মানুষ মাসউদ সাহেব, আলী রেজা নদভীর নাম দেখেই চমকে উঠবেন। তাইতো!! এসব পশ্চাদগামী চিন্তা করে কোনদিন আগাতে পারবেন না। জাতীয় স্বার্থে এসব বিষয়ে ছাড় দেওয়া শিখতে হবে।

* মনে করেন আমাদের ঢাকায় একটি ট্রেড সেন্টার দরকার। একশ জন তরুন মিলে একটি উদ্যোগ নিলো। তারা ভাবলো যে, ঢাকায় একটি প্রাথমিকভাবে ১০তলা ভবন করা হবে। মনে করেন, কওমী উদ্যোক্তার সাথে এদেশের উদীয়মান ব্যবসায়ী তরুনরা সবােই সমবেত হয়ে সিদ্ধান্ত নিলো যে, আমরা ঢাকায় বৃহত আকারের একটি ১০তলা ভবনসহ বিভিন্নমুখি ব্যবসায়িক কর্মযজ্ঞের পরিবেশ গড়ে তুলবো। ১০০জনে এককোটি করে টাকা সংগ্রহ করবো। ব্যবসায়িক কাজের জন্য ভবন তৈরী, নিজস্ব পরিবহন ব্যবস্থা গড়ে তোলা, অনলাইন ব্যবসা করতে গিয়ে এখন অনেকেই একটি কুরিয়ার সার্ভিস এর খুব প্রয়োজন অনুভব করছেন। এসব করা কি খুব অসম্ভব? না, কখনোই না।প্রয়োজন শুধু কয়েকজন আস্থাশীল মানুষের। দায়িত্বশীল মানুুষের। ঢাকায় এত আলেম, অথচ বসার মতো একটি জায়গা নেই। মাদ্রাসার বাইরে আমাদের কী কোন অস্তিত্ব আছে? আমার মতো ক্ষুদ্র মানুষের হাত দিয়ে দুটি ৬তলা ভবনের কাজ হয়েছে। প্রায় ৬কোটি টাকার লেনদেন করেছি। তেমন কোনই বেগ পেতে হয়নি। কিন্তু আলেমদের সাহস করে এগিয়ে আসতে হবে। কারো না কারো হাল ধরতে হবে। আচ্ছা বলেন তো, এমন একটি স্বপ্ন বাস্তবায়ন কি খুব কঠিন কাজ? আর এটা বাস্তবায়িত হলে কওমী তরুনদের সামনে অনেক কর্মসংস্থানের পথ খুলে যাবে। মনে রাখবেন, বর্তমান সময়ে কাজ করার জন্য টাকা কোন সমস্যা না, সমস্যা হলো পরিকল্পনা করতে পারার, সমস্যা হলো সৎ ও দায়িত্বশীল লোক পাওয়ার। আমরা কওমীরা কি এ চ্যালেঞ্জ গ্রহন করতে পারি না?

* একটি আর্থিক প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলার স্বপ্ন আমাদের অনেকের। ব্যবসায় সফল হতে হলে আর্থিক লেন-দেন বাড়াতে হবে। নিজেদের নিয়ন্ত্রনে গড়ে তুলতে হবে আর্থিক প্রতিষ্ঠান। এক ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ ইসলামী আন্দোলনের কাজে কী পরিমান সাপোর্ট দিয়েছে তা কি আমরা কেউ ভাবতে পারি? আমরা ফতোয়া দিতে পারি, ব্যাংকে চাকুরী সবচেয়ে খারাপ চাকুরী। কিন্তু ইসলামী ধারার আর্থিক ব্যবস্থাপনা গড়ে তোলার বাস্তবভিত্তিক কোন দিক নির্দেশনা দিতে পারি না। এক্ষেত্রে তরুন প্রজন্মের আইডল ইউসুফ সুলতানরা এগিয়ে এসেছে। তার সাথে আছে একটি অর্থনীতি নিয়ে কাজ করার ভালো একটি টিম। অদুর ভবিষ্যতে একটি ইসলামী ব্যাংক এবং একটি ইন্সুরেন্স কোম্পানী তৈরীর লক্ষ্যে তাদের নেতৃত্বে এখন থেকেই গবেষণা শুরু করতে পারি। মুফতি ফজলুল হক আমিনী রহ. নাকি একটি ইসলামী ব্যাংক অনুমোদন নেওয়ার চেষ্টা করেছিলেন। চারদলীয় জোট সরকার তখন কাউকেই ব্যাংক অনুমোদন দেয়নি। যদিও বর্তমান সরকার তাদের দলীয় নেতাদের কোন আবদারই ফেলে দেয়নি। আগামী দিনে আলেমদের তত্ত্বাবধানে একটি ব্যাংকিং ব্যবস্থা গড়ে তোলার স্বপ্ন কি আমরা দেখতে পারি না? মনে করেন, আজ থেকে আরো ১০বছর পর ব্যাংকটি প্রতিষ্ঠিত হবে। তাহলে তার জন্য এখন থেকেই কাজ শুরু করতে হবে। কওমী আলেমদের নেতৃত্বে আল ইহসান ভালো করেই যাত্রা শুরু করেছিল। নানা অসুবিধার কারণে সেটাকে সঠিকভাবে পরিচালনা করা যায়নি। এর মূল কারণ পরিকল্পনার অভাব। যোগ্যতার অভাব। এ অভাব কাটিয়ে উঠতে পারলে ভবিষ্যতে অনেক কিছুই করা সম্ভব। একটি ব্যাংক প্রতিষ্ঠা করা অসম্ভব কিছু নয়। একটি ব্যাংক করতে পারলে বদলে যাবে অনেক কিছুই । পূরণ করা যাবে অনেক স্বপ্ন। হে কওমী তরুনরা, চলো না- একটি ব্যাংক প্রতিষ্ঠারও স্বপ্ন দেখি।

* আমাদের প্রয়োজন একটি কওমী বিশ্ববিদ্যালয়। কওমী তরুনদের উচ্চশিক্ষা নিশ্চিত করার জন্য উচ্চতর গবেষণার পরিবেশ সমৃদ্ধ একটি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার খুব বেশি প্রয়োজন। হাইয়াতুল উলয়ার স্বীকৃতির সময় সে সুযোগ এসেছিল, কিন্তু আমরা হেলায় হারিয়েছি। ঠেলাঠেলি করে দূরে সরিয়ে দিয়েছি। আমরা ঘরে ঘরে জামেয়া (তথা বিশ্বিবদ্যালয়) দেখতে চাই না। চাই আন্তর্জাতিক মানের একটি উন্নত বিশ্ববিদ্যালয়। যেটা দেশে ও আর্ন্তজাতিক পর্যায়ে রাষ্ট্র স্বীকৃত হবে। কুরআন ও সুন্নাহর উচ্চতর গবেষণার পরিবেশ নিশ্চিত করা হবে। আর্ন্তজাতিক মানের একটি সমৃদ্ধ লাইব্রেরি হবে।এখানে ইসলাম ও জেনারেল শিক্ষার সুমধুর সমন্বয় সাধন করা হবে।

পরিশেষ বলতে চাই, আমাদের দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন করতে হবে। বদ্ধমূল ধারণা নিয়ে এক ধরণের বিচ্ছিন্ন চিন্তা লালন করে জাতীয় ও আর্ন্তজাতিক কোন পর্যায়েই নেতৃত্ব দেওয়া যাবে না। পৃথিবী অনেক এগিয়ে গিয়েছে। আমরা পশ্চাতে পরে আছি। দেশের ‍মূল ধারা থেকে আমাদেরকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। আমরা রাষ্ট্রে কোন ক্ষেত্রেই প্রভাবক শক্তি নই। এখনো সময় আছে। আসুন, একটু চোখ-কান খোলা রেখে চারিদিকটাই চোখ বুলিয়ে দেখি আমার অবস্থান কোথায়? আমি আছি কোথায়?
From:
জেনারেল সেক্রেটারী
বাংলাদেশ ইন্টেলেকচুয়াল মুভমেন্ট বিআইএম
02.09.2020

এই সংবাদটি 72 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com