আ’মরি বাংলা ভাষা : পূরণ হবে কি প্রত্যাশা? ♥শাহিদ হাতিমী♥

প্রকাশিত: ৬:৫৮ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২০, ২০২১

আ’মরি বাংলা ভাষা :  পূরণ হবে কি প্রত্যাশা?  		♥শাহিদ হাতিমী♥

সিলেট রিপোর্ট / শাহিদ হাতিমী::

বাংলা ভাষা। বিষয়টি লিখতে প্রয়োজন পাঁচটি হরফের। সবগুলো হরফই ব্যঞ্জন বর্ণের। বর্ণগুলোর স্তর দু’টি। উভয় স্তরের বর্ণ কিন্তু ৫১টি। জানাকথা, ভাষা সৃষ্ট হয় দেশ, সমাজ ও ধ্বনীর সূত্রপাতে। ‘বর্ণ’ হচ্ছে রাশি অনুসারে জাতকের শ্রেণীভেদ অভিধান মতে। আমার ভাবনা অভিধান নিয়ে নয়!

আমার ভাবনা দীর্ঘকাল হলো আমাদের বাংলা ভাষার বিজয়। ভাষার বিজয়ে আমাদের বিনিময় করতে হয়েছে এক সাগর লাল খুন। যার তরে হারিয়েছি অগণিত ভাই-বোন। যে ভাষার জন্য ধরণীর ধরায় গৌরবের ইতিহাস গড়েছি। জীবন বিলিয়ে ‘মায়ের ভাষাকে’ বিশ্ব দরবারে জিইয়ে রেখেছি। যে ভাষা রাষ্ট্রীয় ভাষা করত: সম্ভ্রমহারা মা-বোনদের, পিতা-পুত্র, স্বামীহারা মেয়েদের ও স্বজনহারা মানুষের মুখে হাসি ফুটিয়েছিলাম। যে ভাষা বিজয় অর্জনে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছিলাম। মূলত যে ভাষার কারণেই লাল-সবুজ (পতাকা ও দেশ) অর্জন মোদের। যে ভাষার সূত্রতেই আজ ‘বাংলাদেশী’ বিশেষণ আমাদের।

সে ভাষাটিকে ব্যক্তি জীবন থেকে নিয়ে আন্তর্জাতিক জীবন পর্যন্ত কতটুকু প্রয়োগ করেছি? সে ভাষাটিকে আমরা কি যতটুকু বাস্তবায়ন করার ততটুকু করেছি? না! কেন আমরা আমাদের প্রিয়, জাতীয়, রাষ্ট্রীয় ও আন্তর্জাতিক ভাষাটি ব্যবহারে উদাসীন? কেন আমরা এ ভাষাটি সর্বত্র প্রয়োগ করতে পারছিনা? কেন আমরা ভাষাটির হক আদায়-বাস্তবায়নের শক্ত উদ্যোগ নিচ্ছিনা? আমরা অতিক্রম করলাম স্বাধীন হওয়ার বিপুল হেমন্ত। অতিক্রম করছি ভাষা বিজয়ের অনেকটি বসন্ত। তবুও কেন মাতৃভাষা ব্যবহারে সচেষ্ট নয়? কেন ব্যস্ত হচ্ছি অন্য ভাষার প্রতি লাগামহীন? আমাদের ভাষাটিতো আর এমনে এমনে আসে নাই। এই ভাষাটি অর্জন করতে আমাদেরকে তৈরি করতে হয়েছে এক রক্তভেজা ইতিহাস। যে ইতিহাসটার উপর চোখ বুলালে এখনও মনে হয় নাসিকায় লাগছে তাজা রক্তের শহীদী বাতাস। আসলে কথা হচ্ছে বর্তমানে আমরা অতীত ফিরে চাইনা। কেন? ইতিহাস ভুলে যাবো কি? আমাদেরকে ফিরে তাকাতে হবে পিছনে। স্মরণ করতে হবে তাদের; মাতৃভাষা ও স্বাধীনতা পেয়েছি যাদের আত্মদানে।

কালের পরিক্রমায় আমাদের মাঝে চলমান ভাষার মাস (আন্তর্জাতিক কারণে) ফালগুন বা ফেব্রুয়ারী। এই ফেব্রুয়ারী হাজির হয়ে (প্রতিবারই) আমাদেরকে জানান দেয় আমরা অসম্ভবকে সম্ভব করতে পারি। নিরব ধ্বনীর মাধ্যমে যাবার বেলা আবার বলে যায় কোথায় গেলো তোমাদের বাহাদূরী? মাত্র কটি দশক হলো, এরই মাঝে হারাতে বসেছে সফল আন্দোলনের (বাংলা ভাষার) ঐতিহ্যের পালতোলা তরি। না,তা হতে পারেনা! আমরা ফিরে তাকাবো অতীতের দিকে। শিক্ষা নেব অতীত থেকে। আমাদরেকে অালস্যের নোনা সলিল চৈতন্যের তোয়ালিতে মুছে ফেলতে হবে। জানতে হবে আমাদরেকে ইতিহাসের পাতা থেকে ‘বাংলা ভাষা আন্দোলন’ সবে।

১৯৫২ সাল। বাংলাদেশ-পাকিস্তান তখনও ভাগ হয়নি। বাংলাদেশকে বলা হয় পূর্ব পাকিস্তান আর পাকিস্তানকে পশ্চিম পাকিস্তান। সারাদেশে বইতে থাকে ভাষা আন্দোলনের জোয়ার। ‘রাষ্ট্রভাষা বাংলা চাই’ এ শ্লোগানের সূত্র ধরে আন্দোলনে ঝাপিয়ে পড়ে পূর্ব পাকিস্তান তথা বর্তমান বাংলাদেশের বিক্ষোব্ধ জনতা। অনেক উলামায়ে কেরামও শরিক হন এ আন্দোলনে। নীরব থাকতে পারেনি টগবগে তরুণরা। ১৯৪৭ সালের সেপ্টেম্বর মাস থেকেই শুরু হয় এ আন্দোলন। পূর্ব পাকিস্তানের প্রতি বৈষম্যমূলক আচরণ করতো পাকিস্তানের শাসকগোষ্ঠী। বৈষম্য দেখাতো বাংলা ভাষার প্রতি। উর্দূর সাথে বাংলাকেও রাষ্ট্রভাষা করার দাবি ছিল পূর্ব পাকিস্তানী জনগণের। কিন্তু এ দাবি মানেনি পাকিস্তানের শাসকগোষ্ঠী। তাই, ১৯৫২ সালের ২৬ জানুয়ারী। আয়োজন করা হয় ঢাকার পল্টন ময়দানে বিশাল জনসভা। হাজার হাজার মানুষের পদভারে মুখরিত সভাস্থল। সবার মধ্যে টান টান উত্তেজনা। মাইক্রোফোনের সামনে প্রধানমন্ত্রী খাজা নাজিমুদ্দীন। সবার তীক্ন দৃষ্টি তার প্রতি। চুক্তির সম্পূর্ণ বিপরীত ঘোষণা করে বসলেন তিনি। ‘উর্দূই পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা’। ঘোষণা শুনে বিক্ষোভে ফেটে পড়েন বিক্ষুব্ধ জনতা। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গনে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয় ৩০ শে জানুয়ারী। গঠন করা হয় রাষ্ট্রভাষা কর্মপরিষদ। তার উদ্যোগে বিক্ষোভ মিছিল বের হয় ৪ ফেব্রুয়ারী। বিকেলে অনুষ্ঠিত হয় জনসভা। বক্তব্য রাখেন মওলানা ভাসানীসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ। নিন্দা করেন সরকারের চুক্তি ও প্রতিশ্রুতি ভঙ্গের। দৃঢ় প্রত্যয় গ্রহণ করেন বাংলা ভাষার দাবি প্রতিষ্ঠার। ওয়াদাবদ্ধ হন অবিরাম সংগ্রাম চালিয়ে যাবার। ২১ ফেব্রুয়ারী সাধারণ ধর্মঘট ঘোষণা করেন।

আসন্ন ২১ শে ফেব্রুয়ারী। ভাষা সৈনিকদের মাঝে চলছে ধর্মঘটের ব্যাপক প্রস্তুতি। ২০ ফেব্রুয়ারীর দিন গড়িয়ে এলো রাত। সরকার বেসামাল হয়ে জারি করলো ১৪৪ ধারা। ঢাকা শহরে একমাস বলবৎ থাকবে এ ধারা। বন্ধ থাকবে মিছিল, মিটিং, ধর্মঘট। ২১ ফেব্রুয়ারীর কুঁয়াশাঘেরা সকাল। আন্দোলনের তীব্র আগুন ছড়িয়ে পড়েছে সারাদেশে। হোকনা ১৪৪ ধারা। পাহাড় সমান বাঁধাও তাদের কাছে তুচ্ছ। মিছিলে মিছিলে ছুটে আসছে বিক্ষোব্ধ জনতা- ‘বাংলা উর্দূ ভাই ভাই, উর্দূর পাশে বাংলা চাই,’ রাষ্ট্রভাষা বাংলা চাই, উর্দূ বাংলায় বিরোধ নাই’!

জরুরি অবস্থা মানি না দাবিতে
কাঁপিয়ে তুলছে ঢাকার রাজপথ। বিভিন্ন স্কুল, কলেজ, মাদরাসা থেকে ছুটে আসছে আন্দোলিত ছাত্র জনতা। সমবেত হচ্ছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আমতলায়। বিক্ষোভে ফেটে পড়েছে হাজার হাজার জনতা। বেলা সাড়ে বারোটায় শুরু হয় সমাবেশ। ১৪৪ধারা ভঙ্গের শপথে উজ্জীবিত হয়ে উঠে দামাল ছেলেরা। চলতে থাকে ১৪৪ ধারা ভঙ্গের প্রচেষ্টা। প্রতিবাদী শ্লোগানে প্রকম্পিত করে তুলে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস। বিক্ষুব্ধ জনতার উত্তাল গর্জনে কেঁপে উঠে শাসকের মসনদ। শাসকগোষ্ঠী দিশেহারা হয়ে গুলি করার নির্দেশ দেয় পুলিশকে। নির্দেশ পেয়ে নির্বিচারে লাঠিচার্জ, কাঁদানেগ্যাস ও গুলি চালালো মিছিলের উপর। মাটিতে ঢলে পড়লো আবদুস সালাম, আবদুল জব্বার, রফিক আহমদ, বরকত উল্লাহ সহ আরো কেউ কেউ। মূহুর্তেই রক্তে রঞ্জিত হয়ে উঠলো ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস। ভিজে স্যাঁত স্যাঁতে হয়ে উঠে সবুজ ঘাস। ইথারে ভাসতে থাকে রক্তের গন্ধ। অনন্ত ঠিকানায় চলে গেল ভাষা শহীদেরা। চিরতরে ভুলে গেল মায়ের আদর, বোনের হাসি। ছেড়ে গেল পৃথিবীর সুখ-দুঃখ। বিনিময়ে দিয়ে গেল বাংলা ভাষার মর্যাদা। করে দিলো ‘রাষ্ট্রভাষা বাংলা’। আজ বিশ্বের বুকে ২১শে ফেব্রুয়ারী এলে পতপত করে উড়ে বাংলাদেশের পতাকা।
এরপরেও শেষ নয়। আমাদের মায়ের ধ্বনী, গর্বের বুলি, রাষ্ট্রীয় ভাষা, বাংলা ভাষা একের পর এক ভাষাকে পিছনে ফেলে এগিয়ে যেতে লাগলো। বিশাল এক ঐতিহাসিক স্মরণীয়-বরণীয় দিবস বাঙালীর কপালে জুটলো। ১৯৯৯ সালের ১৭ই নভেম্বর ইউনেস্কোর ৩১ তম পূর্ণাঙ্গ অধিবেশনে ঘোষণা হলো মাতৃভাষার জন্য বাঙালীদের আত্মত্যাগের কারণে ২১শে ফেব্রুয়ারী ‘আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস’ পালনের সিদ্ধান্ত। তাছাড়াও ২০০০ সালের ২১শে ফেব্রুয়ারী এ বিশেষ দিবসটিকে বিশ্বের ১৮৮টি দেশ একই সাথে প্রথম বারের মত “আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস” হিসেবে পালন করে। ইউনেস্কোর পর খোদ জাতিসংঘও (৮ই ফাল্গুন না বললেও) ২১শে ফেব্রুয়ারীকে ‘আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা’ দিবস হিসেবে স্বীকৃতি দেয়। ৫ ডিসেম্বর ২০০৮ সালে জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে এ স্বীকৃতি দেয়া হয়। জাতিসংঘের উক্ত অধিবেশনে তুলে ধরা রেজুলেশনটি ভারত, জাপান, সৌদিআরব, কাতারসহ বিশ্বের ১২৪টি দেশ রেজুলেশনটি সমর্থন করে। জাতিসংঘের এ ঘোষণায় আমরা অবশ্যই আনন্দিত হয়েছি। বিশ্ব দরবারে বাংলাভাষা ও বাংলাদেশীরা হয়েছে সম্মানিত। কিন্তু বড়ই দুঃখজনক সত্য যে, আমরা এখনো আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থার প্রতিটি স্থরে অফিস-আদালতের সকল ক্ষেত্রে বাংলাভাষাকে পরিপূর্ণ রূপে চালু করতে পারি নি। তাই বলেছিলাম “আ’মরি বাংলাভাষা-পূরণ হবে কি প্রত্যাশা”। মহিমাময় আমাদের সহায় হোন।
আসুন! সকল প্রকার মতনৈক্য ছেড়ে মাতৃভাষার বিশুদ্ধ ব্যবহারে সচেষ্ট হই। ঐক্যবদ্ধভাবে প্রচেষ্টা চালিয়ে যাই। ব্যক্তি, পরিবার, জাতীয়, আন্তর্জাতিক সকল ক্ষেত্রে মোদের গরবো, মোদের আশা আ’মরি বাংলা ভাষা নিয়ে মাতামাতি করি। মাতৃভাষার ব্যবহার নিশ্চিত করি।

লেখক:
বার্তা সম্পাদক- সিলেট রিপোর্ট ডটকম।
শিক্ষক- শায়খুল ইসলাম জামেয়া সিলেট।

এই সংবাদটি 105 বার পঠিত হয়েছে

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com