জগন্নাথপুরের মেয়ে বৃটিশ শিক্ষিকা সাবিনাকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে

প্রকাশিত: ১১:০০ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ১, ২০২১

জগন্নাথপুরের মেয়ে বৃটিশ শিক্ষিকা সাবিনাকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে

ডেস্ক রিপোর্ট: আলোড়ন সৃষ্টিকারী বৃটিশ বাংলাদেশি শিক্ষিকা সাবিনা নেসাকে লন্ডনে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে বলে জানিয়েছে লন্ডন মেট্রোপলিটন পুলিশ। আর সে সময় হত্যাকারী প্রায় দুই ফুট লম্বা একটি অস্ত্র দিয়ে বার বার তাকে আঘাত করে এ হত্যাকাণ্ড ঘটানো হয় বলে সিসিটিভি ফুটেজ থেকে প্রাপ্ত তথ্যে পুলিশ জানতে পেরেছে। বৃহস্পতিবার এ তথ্য বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশ পায়। এর আগে সাবিনার হত্যার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট একটি সিসিটিভি ফুটেজ প্রকাশ করেছিল পুলিশ। সেখানে একজন টাক মাথার পুরুষকে হাতে কিছু একটা নিয়ে হেঁটে যেতে দেখা যায়। তখন লোকটির পরনে ধূসর রঙের জিন্স এবং কালো জ্যাকেট দেখা যায়। ফুটপাথ দিয়ে হেঁটে যাওয়ার সময় তাকে মাথায় হুড টেনে দিতেও দেখা গেছে। উল্লেখ করা যেতে পারে যে, এর আগে এ হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে আলবেনীয় নাগরিক কচি সেলামাজের (৩৬) কে গ্রেপ্তার করার পর তার বিরুদ্ধে হত্যার অভিযোগ এনেছে পুলিশ।

আগেই জানানো হয়েছে যে, গত ১৭ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় হতভাগ্য সাবিনা তার এক বন্ধুর সাথে দেখা করার উদ্দেশ্যে নিজ ঘর থেকে বের হন। এরপর অল্প দূরত্বেই একটি পার্কে তার মৃতদেহ পাওয়া যায়। সাবিনা নেসা দক্ষিণ লন্ডনের একটি স্কুলের শিক্ষক ছিলেন। ২৮ বছর বয়সী এই নারী পড়াশোনা করেছেন গ্রিনিচ বিশ্ববিদ্যালয়ে। তার স্কুলের প্রধান শিক্ষক সাবিনা নেসাকে একজন ‘মেধাবী, দয়ালু ও নিবেদিতপ্রাণ’ শিক্ষক বলে বর্ণনা করেছেন। সাবিনা নেসার পৈতৃক বাড়ি বাংলাদেশের সুনামগঞ্জ জেলার জগন্নাথপুর উপজেলায়। যুক্তরাজ্যের বেডফোর্ডশায়ারের স্যান্ডিতে বসবাস করেন তার পরিবার। এদিকে এ হত্যাকান্ডে বৃটেনের বাঙালী কমিউনিটিতে ব্যাপকভাবে প্রতিক্রিয়া সৃস্টি করেছে এবং বিভিন্ন স্থানে এ নিয়ে প্রতিবাদ অব্যাহত রয়েছে। এরই মধ্যে এ ব্যাপারে একাত্মতা প্রকাশ করেছেন বৃটেনের হাউজ অব পার্লামেন্টের এমপি টিউলিপ সিদ্দিকসহ আরো অনেকে। সম্প্রতি ইস্ট লন্ডন মসজিদের একটি হলে এর প্রতিাদে একটি সভা হয়েছে। এর আগে দক্ষিণ লন্ডনের যে জায়গায় সাবিনা নেসার দেহ খুঁজে পাওয়া গিয়েছিল, তার কাছেই গত শুক্রবার সন্ধ্যায় এক বিরাট প্রতিবাদ সমাবেশে যোগ দেন শত শত মানুষ। সেখানে তারা মোমবাতি জ্বালিয়ে সাবিনার প্রতি শ্রদ্ধা জানান। সমাবেশে এই হত্যাকাণ্ডের বিচার এবং নারীর বিরুদ্ধে সহিংসতার অবসান দাবি করা হয়।

এই সংবাদটি 58 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com