আকাবিরে দেওবন্দের এক নক্ষত্রের নাম- মাওলানা শামসুদ্দীন কাসেমী রাহ.

প্রকাশিত: ৬:৪৭ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ২৬, ২০২১

আকাবিরে দেওবন্দের এক নক্ষত্রের নাম- মাওলানা শামসুদ্দীন কাসেমী রাহ.

 

মুখলিসুর রাহমান রাজাগঞ্জী সিলেট। সহ-সভাপতি জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ সিলেট মহানগরী।
______________________

ভূমিকা:
পৃথিবীতে দ্বীনে ইসলামের খেদমত করার জন্য যুগে যুগে আম্বিয়া আ. পরবর্তী নায়েবে নবী আবির্ভূত হয়েছেন। দায়িত্ব সম্পাদন করার প্রচেষ্টা করেছেন নিখুঁতভাবে। এই দায়িত্বের প্রতি ইঙ্গিত করে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন‌- العلماء ورثه الانبياء (মিশকাত শরীফ) ‌ “হক্কানী- রব্বানী উলামা আম্বিয়াদের উত্তরসূরী”- অর্থাৎ নবীদের ইন্তেকালের পর ইসলাম ধর্মের সংরক্ষণ- খেদমতের মত গুরুদায়িত্ব সম্পাদনা করবেন উলামায়ে কেরাম। অন্য এক হাদীসে ইরশাদ হচ্ছে-لاتزال طائفه من امتى منصورين علي الحق لا يضرهم من خالفهم حتى ياتي امر الله عز وجل
“আমার উম্মতের একটি কাফেলা সর্বদা হকের উপর সাহায্যপ্রাপ্ত হবে। বিরোধিতাকারীরা তাদের কোনো ক্ষতি সাধন করতে পারবেনা এমনকি কিয়ামত এসে যাওয়া পর্যন্ত”। (ইবনে মাজাহ পৃষ্ঠা ০৩)

দ্বীনে ইসলামের খেদমতের ধরন দুই প্রকার।

এক. ইতিবাচক, যথা- মসজিদ- মাদরাসা, দাওয়াত- তাবলীগ , ওয়াজ- তাফসীর, গ্রন্থনা- রচনা ইত্যাদির মাধ্যমে দ্বীনের খেদমত।

দুই. নেতিবাচক, যথা- তাওহীদ- রিসালাত, কুরআন- সুন্নাহ নবী- আউলিয়া, ঈমান- আকিদা, ইসলামী সমাজ ব্যবস্থা ও রাজনীতি ইত্যাদির ব্যাপারে বিভ্রান্তি সৃষ্টিকারীদের প্রতিবাদ প্রতিরোধ করণের দ্বারা দ্বীনের সংরক্ষণ ও হেফাজত।

যুগশ্রেষ্ঠ ইসলামী চিন্তাবিদ, নিপুণ ইলম ও জ্ঞানের অধিকারী, বাংলাদেশের হক্কানী- রব্বানী উলামায়ে কেরামের সফল কাণ্ডারী মাওলানা শামসুদ্দীন কাসেমী রাহ. ছিলেন উপরোক্ত উভয়রকম খেদমতের প্রতিপাদন আলোকময় ব্যক্তিত্ব। দ্বীনে ইসলামের খেদমত ও সংরক্ষণের প্রায় প্রতিটি বিভাগে ছিল তাঁর দীপ্ত পদচারণা।

১৯৯৬ সালের ১৯ অক্টোবর, তিনি মাওলার সান্নিধ্যে চলে যান। আজকে ২০২১ সালের অক্টোবর মাসে তাকে নিয়েই আমার এই পর্যালোচনা।

১৯৮৯-১৯৯৬ পর্যন্ত কয়েকটি বছর জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় কমিটির মিটিংয়ে যাওয়া আসার সুবাদে আমি তাকে যেভাবে স্বচক্ষে দেখতে পেয়েছি। তাঁর কিঞ্চিত মূল্যায়ন করতে চেষ্টা করেছি এই আলোচনায়।

০১. মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা ও পরিচালনার খেদমত: মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা করত ইলমে দ্বীন সংরক্ষণের সহীহ খেদমত করণে তাঁর অবদান ছিল অপরিসীম। দৃষ্টান্ত স্বরূপ দেশের স্বনামধন্য আজকের জামেয়া হোসাইনিয়া ইসলামিয়া আরজাবাদ; যেটির প্রতিষ্ঠাতা তিনি নিজেই। তাঁরই সুদক্ষ পরিচালনায় বাংলাদেশের একটি অন্যতম দ্বীনি শিক্ষাকেন্দ্র হিসেবে সুখ্যাতি লাভ করতে সক্ষম হয়েছে। কোনো মাদ্রাসার মুহতামিম ও শায়খুল হাদিসের উভয়পদ একজন দ্বারা অলংকৃত হওয়া এবং দীর্ঘ ২১ বছর পর্যন্ত এমনকি আমৃত্যু অব্যাহত থাকা, উপরন্তু সুনাম ও মর্যাদাপূর্ণ অবস্থায় পরিচালিত হওয়া বাংলাদেশের মাদ্রাসা বিভাগের জন্য ইহা একটি অন্যতম অনন্য অধ্যায়। একটি সু-কর্ম; যা হযরত কাসেমী রহ. এর জীবনিতিহাসে প্রতিফলিত হয়েছে।

০২. নির্ভুল ইসলামী সিয়াসত পরিচালনা:
সহীহ সিয়াসতের মাধ্যমে দেশবাসী মুসলিম জনসাধারণের প্রতি হক ও হক্কানিয়াতের দাওয়াত পৌঁছানোর ক্ষেত্রে দেশের একজন সফল ও নিঃস্বার্থ রাজনীতিবিদ হিসেবে হযরত কাসেমীর অবদান ছিল অসামান্য। দেশের অন্যতম হক্কানী প্রাচীন ইসলামী রাজনৈতিক দল “জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের” তিনি ছিলেন এক সাড়াজাগানো কিংবদন্তি নেতা ও নির্ভিক কান্ডারী। ১৯৬৬-১৯৯৬ঈ. আমৃত্যু সু-দীর্ঘ ৩০ বছর কালব্যাপী এই হক্কানী কাফেলার বিভিন্ন কেন্দ্রীয় দায়িত্বে সমাসীন থেকে আজীবন এ রাজনৈতিক কাফেলার সংগ্রামে নেতৃত্ব দিয়েছেন। বিশেষত ১৯৭৭-১৯৯১ ঈসায়ী পর্যন্ত ১৫ বছরব্যাপী তিনি ছিলেন জমিয়তে উলামার সংগ্রামী কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক। হিন্দুস্থান জমিয়তের কর্মকাণ্ডে ফেদায়ে মিল্লাত আসআদ মাদানী রাহ. পাকিস্তানে আল্লামা মুফতি মাহমূদ রাহ. উভয়ের অবদান যেভাবে অতুল্য, অসীম, বৈশিষ্ট্যমণ্ডিত ও ঐতিহ্যময় হোয়ার কারণে পরবর্তী প্রজন্মের কাছে তারা অমর হয়ে আছেন ও থাকবেন। অনুরূপভাবে বাংলাদেশে হযরত কাসেমীর নেতৃত্ব, জমিয়তের সুদক্ষ পরিচালনা, দেশব্যাপী সভা-সম্মেলনসহ জমিয়তের ডাকে বাতিল ও তাগুতের প্রতিবাদ মুকাবেলা ইত্যাদি ক্ষেত্রে প্রচুর অবদান ও স্বীকৃতির বিবেচনায় বাংলাদেশের জন্য কাসেমী রাহ. তাদের থেকে পিছনে ছিলেননা। খলিফায়ে মাদানী হাফিজ মাওলানা আব্দুল করিম শায়খে কৌড়িয়া রাহ. জমিয়তের কেন্দ্রীয় সভাপতির নেতৃত্বে কাসেমী রাহ. জমিয়তের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালনের এই যুগটাকে এক বিবেচনায় জমিয়তের বাংলাদেশ আমলের শ্রেষ্ঠযুগ বলা যেতে পারে। কারণ তখনো পর্যন্ত একদিকে যেমন জমিয়তের মধ্যে কোনো রকম আভ্যন্তরীণ দলীয় বিভেদ, অনাকাঙ্ক্ষিত পরিবেশ ও পরিস্থিতি মোটেও ছিলনা। অন্যদিক কাসেমীর বিচক্ষণ রাজনৈতিক নেতৃত্বের ফলশ্রুতিতে ছদ্ববেশী কিংবা প্রত্যক্ষ বাতিলের রক্তচক্ষুর যাহিরি- বাতিনি প্রভাবের সামান্যতম ছোয়া ও স্পর্শ লাগেনি জমিয়তের গায়ে। কারণ তিনি ছিলেন বাংলাদেশ জমিয়তের একমাত্র নিবেদিতপ্রাণ নিরলস নিঃস্বার্থ দলপ্রেমিক ও দেশ প্রেমিক জমিয়ত নেতা; যার অনুপস্থিতি এখন আমরা জমিয়তের অঙ্গনে হাড়ে হাড়ে টের পাচ্ছি। দলের স্বার্থে নিজের স্বার্থ জলাঞ্জলি দেয়া এবং দলের কাজকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া ছিলো হযরত কাসেমীর রাজনৈতিক বৈশিষ্ট্য। তিনি ছিলেন আকাবিরে দেওবন্দের সঠিক উত্তরসূরী নিখুঁত ঝান্ডাবাহী এক সমুজ্জ্বল নক্ষত্র।
১৯৮১ ঈসায়ীতে হযরত হাফেজ্জী হুজুর রাহ. এর রাষ্ট্রপতি নির্বাচন ও তৎপরবর্তী খেলাফত আন্দোলনে জমিয়তের যোগদান কর্মসূচিতে হযরত কাসেমী রাহ. এর ঐকান্তিক মানসিকতার রয়েছে একটি বিশাল অধ্যায়। যাকে খাটো করে দেখার কোন অবকাশ তো নেইই। বরং সেদিন হযরত কাসেমীর নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ প্রচেষ্টা না হলে হয়তো এসবই ভেস্তে যেতো। কিন্তু আমরা দেখেছি। সমগ্র দেশের আনাচে-কানাচে একটি দলের কান্ডারী হয়েও সেবকের ন্যায় হযরত হাফেজ্জী হুজুর রাহ. এর সাথে অবিরামভাবে কাজ করতে। ইহা ছিল কাসেমীর রাহ.’র রাজনৈতিক জীবনের নিঃস্বার্থ খেদমতের এক বিরল নমুনা।

০৩. বাতিলের সাথে আপোষহীনতা:
বাতিলের মোকাবেলায় আপোষহীনতা ছিল কাসেমী রাহ.’র অন্যতম একটি বৈশিষ্ট্য। যথা-
★দেশে শিয়া ইজম প্রচার লাভের বিপরীত হযরত কাসেমীর অনন্য ভূমিকা:

যদিও ১৯৮১ ঈসায়ীতে হাফেজ্জী হুজুর রাহ. এর নির্বাচনকে কেন্দ্র করে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম খেলাফত আন্দোলনকে সমর্থন করে বসে। কিন্তু পরবর্তীতে খেলাফত আন্দোলন গঠনের পর খেলাফতের দলীয় বই-পুস্তকে অনাকাঙ্ক্ষিত বক্তব্য, পত্র-পত্রিকায় বিবৃতি, ইরান দূতাবাসের সাথে পরোক্ষ সম্পর্ক, ইরানি নিউজ লেটারের প্রচার প্রসার ইত্যাদির মাধ্যমে খেলাফত আন্দোলনের মধ্যে জামাতপ্রীতি ও শিয়াপ্রীতির পূর্বাভাস অনুভূত হচ্ছিল। তখন এই “পূর্বাভাস-ই যে সর্বনাশ” এই অনুসন্ধানী আগাম অনুভূতি সমগ্র বাংলাদেশ যে তিনজন বিচক্ষণ ইসলামী বুদ্ধিজীবীর অন্তরে পীড়া দিয়েছিল এবং তারা-ই সর্বপ্রথম জাতিকে এ ব্যাপারে মৌখিক ও লিখিতভাবে অবহিত করেন। তাদের একজন জমিয়তের কেন্দ্রীয় নেতা সিলেটের মাওলানা উবায়দুল্লাহ ফারুক সাহেবের আব্বা মরহুম মাওলানা শফিকুল হক আকুনি রাহ.। অপরজন বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ তদানীন্তন ইসলামিক ফাউন্ডেশনের বিভাগীয় পরিচালক ঢাকার মাওলানা ফরিদ উদ্দিন মাসউদ। এব্যাপারে অন্যতম কর্মকৃতিত্বের অধিকারী হলেন মাওলানা শামসুদ্দীন কাসেমী রাহ.।
মাওলানা কাসেমী তখন তাৎক্ষণিকভাবে জমিয়তের কেন্দ্রীয় শুরা আহ্বান করনের মধ্য দিয়ে দেশের জমিয়ত নেতৃবৃন্দকে এ ব্যাপারে বিস্তারিত অবহিত করার পর ১৯৮৪ ঈসায়ীতে খেলাফত থেকে জমিয়তের সমর্থন প্রত্যাহার করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় এবং পরে “খেলাফত থেকে জমিয়তের সমর্থন প্রত্যাহার” নামক পুস্তক রচনা করেন কাসেমী রাহ.। বইটিতে সমর্থন প্রত্যাহারের কারণ ও বিবরণ তুলে ধরেন সবিস্তারে।
(দ্র: খেলাফত থেকে জমিয়তের সমর্থন প্রত্যাহার- প্রকাশকাল১৯৮৪ ঈসায়ী, প্রকাশনায়- জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ জমিয়ত পরিচিতি পৃষ্ঠা-৫০ প্রকাশিত ১৯৮৯ঈ.) মাওলানা আশরাফ আলী বিশ্বনাথি রাহ.।)

এদিকে তখনকার সময়ে সমগ্র বিশ্বব্যাপী ইরানের ধর্মীয় শিয়া নেতা আয়াতুল্লাহ খোমেনীর শিয়াইজম চিন্তা-দর্শন প্রচার ও প্রসারের জন্য বিভিন্ন রকম অপতৎপরতা চলছিলো।

এমনকি ১৯৮৭ ঈসায়ীতে হজের মৌসুমে ইরানের শিয়ারা মক্কায় হারাম শরীফে অবস্থানকালে খাদেমুল হারামাইন এর বিরুদ্ধে ও তাদের ধর্মীয় নেতা খোমেনীর পক্ষে স্লোগান মিছিলসহ হারামের পবিত্রতা নষ্টকারী বিভিন্ন রকম অপকর্ম চালায়। পবিত্র হারামকে রক্তে রঞ্জিত করে। ফলে সমগ্র মুসলিম বিশ্ব শিয়াদের প্রতিবাদ ও প্রতিরোধে সোচ্চার হয়ে ওঠে। বাংলাদেশে কাসেমী রাহ. তখনো এসবের প্রতিবাদে নিশ্চুপ বসে থাকেননি। বরং সর্বপ্রথম “এবার মক্কায় কী ঘটেছিল” শিরোনামে একটি পুস্তিকা রচনা করত হারাম শরীফে বিশৃঙ্খলাকারী খোমেনীপন্থী শিয়াদের অবমাননাকর কার্যকলাপকে জাতির সামনে তুলে ধরেন। ১৯৮৮ ঈসায়ীর ২৭ শে মার্চ ঢাকায় ইঞ্জিনিয়ার ইনস্টিটিউট হলে এবং পরে সিলেটের রেজিস্টারী মাঠে জমিয়তের উদ্যোগে হেমায়তে হারামাইন সম্মেলন অনুষ্ঠান করে শিয়াদের আক্বীদা, বিশৃঙ্খলা ও বিভ্রান্তি সম্পর্কে দেশবাসীকে অবহিত করেন। পরবর্তিতে আল্লামা মনযুর নোমানী রাহ. কর্তৃক শিয়াদের বাতিল আকিদা ও কর্মকান্ড সংক্রান্ত উর্দু ভাষায় লিখিত বই তিনি নিজে বাংলা ভাষায় অনুবাদ করত জমিয়তের পক্ষ থেকে প্রকাশ করেন। এই আলোড়ন সৃষ্টিকারী বইটির নাম হল- “খোমেনী মতাবলম্বী আশারিয়া শিয়ারা কি মুসলমান?” বইটিতে হিন্দুস্তান, দেওবন্দ, পাকিস্তান ও বাংলাদেশের মুফতী বিজ্ঞ ওলামায়ে কেরামের সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত ফতোয়া আকারে প্রকাশিত হয়েছিলো যে, শিয়াদের ধর্মীয় নেতা ইমাম খোমেনীসহ সমগ্র বিশ্বের শিয়া ইসনা আশারিয়া ফিরকা পবিত্র কুরআন, হাদিস, ইজমা, কিয়াসের আলোকে সর্বসম্মতভাবে কাফের। এই ফতোয়ার কারণেই বইটি একদিকে যেমন বাংলাদেশের মুসলমানদের কাছে সমাদৃত হয়। অন্যদিকে দেশব্যাপী আলোড়ন সৃষ্টি করে সঙ্গত কারণেই। মোটকথা তাঁর এ অভিযান ও নিষ্ঠাপূর্ণ খেদমতের বদৌলতে বাংলাদেশের সাধারণ মুসলমান ওদের ধোঁকাবাজি ও চক্রান্ত বুঝতে পেরেছেন। এমনকি কিছু কিছু আলেম সমাজের মধ্যে অনাকাঙ্ক্ষিত ভুল বুঝাবুঝির কারণে যে শিয়াপ্রীতি সৃষ্টি হয়ে গিয়েছিলো। ক্রমান্বয়ে এরও একটা অবসান হয়েছে।

★ জমিয়তে উলামায়ে ইসলামকে বাতিল থেকে রক্ষা করার প্রচেষ্টা ও ইসলামী ঐক্য জোট গঠন:
ব্যক্তি, সমাজ, রাজনীতি ও জাতীয় জীবনের কোনো ক্ষেত্রেই কোনোরকম পরোক্ষ কিংবা প্রত্যক্ষ বাতিলের ছোঁয়া লাগেনি কাসেমীর রহ. এর জীবনাদর্শে। তিনি একজন বিজ্ঞ ইলম ও জ্ঞানের অধিকারী হওয়ার পাশাপাশি নিপুণ ও তীক্ষ্ণ দৃষ্টিসম্পন্ন বিচক্ষণ ব্যক্তিত্বের অধিকারী হওয়ার কারণে মিযাজগতভাবে বাতিলকে আগাম পরিচয় লাভ করতে পারতেন। “বাতিল শিনাছ” বাতিলকে তার বাতিল আলামতের দ্বারা বাতিলের আবির্ভাব ও প্রকাশের পূর্বে আগাম পরিচয় লাভ করার জ্ঞানটা বর্তমান সময়ে বিরল বললে অত্যুক্তি হবেনা। তবে এই মহৎ গুণের ধারক-বাহক ছিলেন কাসেমী রাহ.। তদুপরিও কাসেমী রাহ. বাংলাদেশ ইসলামী রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার আন্দোলন সংগ্রামে উদার মনোভাবাপন্ন ব্যক্তি ছিলেন। ইহা সর্বজনবিদিত। ইসলামী রাজনৈতিক দলসমূহের সমন্বিত জোট ইসলামী আন্দোলনকে কতটা বেগবান করতে পারে। এই প্রশিক্ষণ খুব ভালোভাবেই তিনি পেয়েছিলেন পাকিস্তানে লেখাপড়া করে। তাই তিনি বাংলাদেশে ইসলামী দলসমূহকে একটি প্লাটফর্মে নিয়ে আসার প্রচেষ্টা চালান। অবশেষে ১৯৯০ ঈসায়ীতে ৬টি ইসলামী দলের সমন্বয়ে “ইসলামী ঐক্য জোট” গঠন করতে সক্ষম হন। এতে কাসেমীর নেতৃত্বাধীন জমিয়তে উলামায়ে ইসলামও অন্তর্ভুক্ত হয়। অবশ্য ইসলামী দল হিসেবে পরিচিত সাহাবা বিদ্বেষী একটি রাজনৈতিক দলকে তখন কাসেমী রাহ. এর বিচক্ষণ চিন্তা ও প্রচেষ্টার বদৌলতে অনেকের জোরালো তৎপরতার পরও ইসলামী ঐক্যজোটে স্থান দেয়া হয় নাই। কাসেমী রাহ ঐক্যজোট গঠনের আলোচনা চলাকালীন সময়ে এই তৎপরতার আঁচ করতে পেরেছিলেন। তাই এর আগে ঢাকায় জমিয়তের কেন্দ্রীয় মজলিসে শুরা আহ্বান করত জমিয়তের কেন্দ্রীয় কমিটি এই সিদ্ধান্তে উপনীত হয় যে, জামাআতে ইসলামী মওদুদীবাদের সাথে জমিয়ত কোনো জোট করবেনা।
(দ্র: রেজুলেশন বুক- জমিয়তের কেন্দ্রীয় কমিটি। সিলেট জেলা জমিয়তের ত্রি-বার্ষিক কাউন্সিল রিপোর্ট ১৯৯৪ ঈ. মাওলানা মনসুরুল হাসান রায়পুরী)

★ ইসলামী ঐক্যজোটে বাতিলঘেষাদের অপতৎপরতা বৃদ্ধি- জমিয়তের সমর্থন প্রত্যাহার:
১৯৯১ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম ইসলামী ঐক্যজোটের ব্যানারে করলো। নির্বাচন-পরবর্তী ইসলামী ঐক্যজোটের বিভিন্ন কাজকর্ম সভা-সমাবেশ অনুষ্ঠিত হতে থাকলো। জমিয়ত এতে অংশীদার রইলো। এদিকে ঐক্যজোটের অন্তর্ভুক্ত একটি দলের দলীয় বই-পুস্তক, সংবিধান, প্রচারপত্র ইত্যাদিতে মওদূদীবাদের সহযোগিতা ও শিয়াবাদের প্রতি মায়াকান্না সম্বলিত বিভিন্ন রচনা জমিয়ত নেতৃবৃন্দের দৃষ্টি এড়াতে পারেনি। অন্যান্য জমিয়ত নেতৃবৃন্দের মত রীতিমতো পেরেশান হয়ে গেলেন কাসেমী রাহ.। এমতাবস্থায় নিকটবর্তী হয়ে গেল ৯৬ এর নির্বাচন। তাই ৯৬ এর নির্বাচনে জমিয়ত এর অবস্থান নির্ধারণ করার লক্ষ্যে জমিয়তের তদানীন্তন নির্বাহী সভাপতি কাসেমী রাহ. কেন্দ্রীয় কমিটির বৈঠক ডাকলেন ঢাকার আরজাবাদ মাদ্রাসায় ৯৫ সালের ২৬ ডিসেম্বর।

এ ব্যাপারে পরামর্শ চেয়ে চিঠি দিয়ে প্রতিনিধি পাঠালেন কেন্দ্রীয় সভাপতি শায়খে কৌড়িয়ার সিলেটস্থ বাসায়। কেন্দ্রীয় সভাপতি শায়খে কৌড়িয়া তদীয় নির্বাহী সভাপতি কাসেমীর চিঠির জবাব দেন উর্দু ভাষায় লিখিত আর একটি চিঠির দ্বারা। শায়খে কৌড়িয়া কর্তৃক লিখিত চিঠিতে উল্লিখিত পরামর্শের আলোকেই অবশেষে জমিয়ত এরকম বিতর্কিত দলের সাথে জোটভুক্ত না হয়ে পৃথক নির্বাচন করার সিদ্ধান্ত নিলো এবং ১৯৯৬ ঈসায়ীর ১২ জুনের নির্বাচনে সরাসরি জমিয়তের ব্যানারেই জমিয়ত অংশগ্রহণ করলো। ৯৬ ঈ. নির্বাচনের ৪ মাস পরে ১৯ অক্টোবর কাসেমী রাহ. ইন্তেকাল করেন।
এভাবে কাসেমী রাহ. তাঁর জীবদ্দশাতে প্রাণপ্রিয় সংগঠন, তদীয় স্কন্ধে অর্পিত আকাবিরের রাজনৈতিক আমানত জমিয়তে উলামায়ে ইসলামকে সর্বপ্রকার বাতিল ও বাতিলঘেষা রাজনীতি থেকে কলুষমুক্ত অবস্থায় রেখে নিখুঁত ও সঠিকভাবে জমিয়তের রাজনীতির আমানতদারী রক্ষা করত এই ধরাধাম থেকে বিদায় নিয়েছেন।
আর তাই জমিয়ত সভাপতি শায়খে কৌড়িয়া জমিয়ত নেতা মাওলানা মহিউদ্দিন খাঁন সাহেবের কাছে স্বহস্তে লিখিত একটি চিঠিতে কাসেমী সম্পর্কে লিখেন- “বিগত দিনে মরহুম কাসেমী রাহ. এর মত সুদৃঢ় সুস্থির চিন্তাসম্পন্ন ব্যক্তিত্বের ওপর আমি আস্থাভাজন ছিলাম।”
(দ্র. শায়েখে কৌড়িয়ার চিঠি)

★ কাদিয়ানী বিরোধী আন্দোলন:
কাসেমী রাহ. এর জীবন সংগ্রামের ঐতিহ্যবাহী অনন্য এক অধ্যায় হলো এই সংগ্রামী মর্দে মুজাহিদের দেশব্যাপী কাদিয়ানী বিরোধী আন্দোলন। কাদিয়ানীদের অপতৎপরতা প্রতিরোধের লক্ষ্যে তিনি “খতমে নবুওয়াত আন্দোলন পরিষদ” গঠন করেন। উক্ত পরিষদের ব্যানারে দেশব্যাপী জেলা ও থানা পর্যায়ে খতমে নবুওয়াত মহা সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। আমাদের দেখা ও জানামতে ১৯৮৯ ঈ. মার্চ মাসে ঢাকার গুলিস্তান চত্বরে ঐতিহাসিক খতমে নবুওয়াত মহাসম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। লক্ষাধিক জনতার উপস্থিতিতে উক্ত সম্মেলনের নেতৃত্ব ও পরিচালনা করেন কাসেমী রাহ.। স্কুল-কলেজ-মাদ্রাসা, ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান, মসজিদসহ দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে আগত লোক সমাগমের কারণে সেদিন ঢাকা শহর মিছিলের নগরীতে পরিণত হয়েছিল। ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় কাদিয়ানী মিশন কর্তৃক প্রলোভন ধারা মুসলমানদেরকে কাদিয়ানী করনের প্রতিবাদ, সরকারের বিভিন্ন সেক্টর থেকে কাদিয়ানীদের অপসারণ, এদেরকে হজ্জের ভিসা প্রদান না করা, সর্বোপরি এদেরকে সরকারিভাবে অমুসলিম ঘোষণার দাবিতে এ সম্মেলনটি ছিলো এ উদ্দেশ্যে অনুষ্ঠিত স্মরণকালের সেরা মহাসমাবেশ; যা পরদিনের জাতীয় পত্রিকাসমূহ “জনসমুদ্রের পদভারে ঢাকা উত্তাল” “গতকাল ঢাকা ছিল মিছিলের নগরী” ইত্যাদি শিরোনামে প্রকাশিত হয়। এছাড়া দেশের অন্যান্য জেলার মত প্রতিবছর সিলেটের রেজিস্টারি মাঠে খতমে নবুওয়াত মহাসম্মেলনের অনুষ্ঠান উপভোগ করার, শরিক হওয়ার, সহযোগিতা করার এবং দায়িত্ব আদায় করার সুযোগ হয়েছে আমারও কাসেমীর রাহ বদৌলতে। কোথায়? হযরত কাসেমীর ইন্তেকালের পর থেকে সেই আন্দোলনের সজীবতা ও চেতনা আজ স্তিমিত হয়ে গেল। ঝুঁকিপূর্ণ এ আন্দোলনের হাল ধরার মতো যেনো আর কেউ নেই। ১৯৮৯ ঈসায়ীতে ঢাকার মহাসম্মেলনের পূর্বে সিলেটের জকিগঞ্জ টাউনে অনুষ্ঠিত হয়েছিলো বিশাল খতমে নবুওয়াত মহাসম্মেলন। উপজেলা পর্যায়ে অনুষ্ঠিত উক্ত সম্মেলনে এত অধিক বরং লাখো জনতার উপস্থিতি দেখে সেদিন লোকমুখে সিলেটি ভাষায় অনেক রসিক বাক্য শুনতে পেয়েছিলাম। এক রিক্সাওয়ালা আরেকজনকে বলছিলো “অতদিন হুনলাম হুজুরদের মুখে খতমে ইউনুস, খতমে শিফা, খতমে বুখারি। এবলা বুঝি আরেকটা বারইছে খতমে নবুওয়াত। ইগু আবার কিতা?” আরেকজনকে বলতে শুনলাম।” খতমে ইউনুস আর খতমে বুখারী পড়াতে বড়জোর ২০ থেকে ৩০ জন হুজুর হইলেই চলে, আর খতমে নবুয়াত পড়তে বুঝি লাখ লাখ মানুষের দরকার হয়”। এছাড়াও কাদিয়ানীদের দেশব্যাপী অপতৎপরতার ধুম্রজাল ছিন্ন করে দিয়ে ওদের সম্পর্কে মুসলিম বিশ্বের নেতৃবৃন্দ ও উলামায়ে কেরামের মতামত ফতোয়া উল্লেখপূর্বক “কাদিয়ানী ধর্মমত” নামক একটি যুগান্তকারী পুস্তক রচনা করেন কাসেমী রাহ.। হযরতের রচিত “খোমেনী মতাবলম্বী শিয়ারা কী কাফের” ও “কাদিয়ানী ধর্মমত” এ দুটি বই স্ব স্ব বিষয়ে এত বেশি তথ্যপূর্ণ প্রামাণ্য যে, ভবিষ্যতে যুগ যুগ ধরে শিয়া-কাদিয়ানী এ দুই প্রকার বাতিলের পূর্ণাঙ্গ মোকাবেলার জন্য এদুটু বই যথেষ্ট বলে অভিজ্ঞ উলামায়ে কেরাম মনে করেন। মহান আল্লাহ তাআলা তাকে উত্তম বদলা দান করুন।
মোট কথা মাওলানা শামসুদ্দীন কাসেমী রাহ. কাদিয়ানী, মওদুদী, বাহাই, খ্রিস্টান মিশনারি, এনজিও ফিতনাসহ সর্বপ্রকার বাতিলের প্রতিরোধ আন্দোলনের লড়াকু সৈনিক ছিলেন। বাতিল বিরোধী সংগ্রামে তিনি ছিলেন তদানীন্তন সময়ের উলামায়ে হক্কানীর আপোষহীন সিপাহসালার ও সংগ্রামী নির্ভিক সৈনিক। রাজধানী ঢাকার তদানীন্তন হক্কানী উলামাদের মধ্যে তিনি-ই ছিলেন এক্ষেত্রে সর্বাপেক্ষা বেশি কৃতিত্বের অধিকারী। তার অবদান ও ভূমিকা সর্বাধিক। এই সত্যকে অস্বীকার করার উপায় নেই। ইতিহাসই তারই জ্বলন্ত প্রমাণ।

০৪. হযরতের অন্যান্য খেদমত:
★ আরজাবাদ মাদরাসা যেনো “সেবা ও খেদমতের সোনালী দস্তারখাঁ”:
হযরতের দীর্ঘদিনের পরিচালনা ও খালেস মেহনতের বদৌলতে আরজাবাদ মাদরাসাটি যে কুরআন সুন্নাহর এক বিশাল শিক্ষাকেন্দ্র হিসেবে গড়ে উঠেছিলো। শুধু তাই নয়, আমি কেন্দ্রীয় জমিয়তের নির্বাহী সদস্য হওয়ার সুবাদে এবং সিলেট জেলা ছাত্র জমিয়তের সভাপতি হওয়ার কারণে বারংবার সংগঠনের কাজে আরজাবাদ গমন করেছি। আরজাবাদের শিক্ষার্থী ছাত্রদের মাঝে তা’লিমের পাশাপাশি তারবিয়াত ও প্রশিক্ষণের এক আমলী নমুনা প্রত্যক্ষ করেছি। সুন্নাতে নববী সা. এর উপর অটল অবিচল আমলের কারণে তালাবাদের দেখে নূরানি কাফেলা মনে করতাম। জমিয়তের কাউন্সিল মিটিংসহ সকল প্রকার সভাসমূহে বিভিন্ন জেলা থেকে আগত মেহমানদের থাকা- খাওয়ার যে সু-ব্যবস্থাপনা কাসেমীর নির্দেশে প্রস্তুত হতো। খাস ও আম মেহমানদের পৃথক পৃথক স্তরভেদে আয়োজন, দাওরা মিশকাতের তালাবাসহ মাদ্রাসার উস্তাদদের নিবেদিত খেদমত ও সেবামূলক আচরণ। এতে আরজাবাদ নিজেই তার উপমা। তদানীন্তনকালে নজিরবিহীন আপ্যায়ন ও মেহমানদারীতে রাজধানী ঢাকায় আরজাবাদের আর কোনো জুড়ি ছিলোনা বলে আমরা মনে করতাম।

★ বিদেশি মেহমানদের এক সমন্বিত সুরভিত কেন্দ্রস্থল হচ্ছে আরজাবাদ:
আরজাবাদ শুধু জমিয়াতের-ই ঘাঁটি নয়। ১৯৭৫ ঈসায়ীতে আরজাবাদে কাসেমীর আগমনের পর থেকে অদ্যাবধি প্রায় ৪৫ বছর পর্যন্ত জমিয়তের কেন্দ্রীয় গুরুত্বপূর্ণ একটি মারকাজ হিসেবে পরিগণিত হয়ে আসছে। এতদ্ব্যতীত দ্বীনে ইসলামের অন্যান্য অনেক বিষয়ে এ প্রতিষ্ঠানটি কেন্দ্রস্থল হিসেবে গণ্য হয়ে আসছে। বিশেষত দারুল উলুম দেওবন্দ, ভারত-পাকিস্তান, আরব, আমিরাত, ইউরোপ, আফ্রিকাসহ সমগ্র বিশ্ব থেকে আগত হক্কানি উলামা মাশায়েখের পদচারণায় মোহিত আরজাবাদ এখন সমগ্র বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার মধ্যে একটি মারকাজি কেন্দ্রস্থল হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে। বাংলাদেশ আগমনকারী বিদেশি মেহমান বুজুর্গ, মাশায়েখের মধ্যে স্বল্প সংখ্যক মেহমান-ই হবেন; যাদের শুভাগমন আরজাবাদে ঘটেনি। আর তাই তাদের খেদমত ফয়েজ ও বরকতের বদৌলতে নয়নাভিরাম চিত্তাকর্ষক পরিবেশের মধ্যে ঈমান ও ইসলামের নূরানী কাফেলার সমন্বয়ে গঠিত আরজাবাদ মাদ্রাসা একটি ঐতিহ্য ও বৈশিষ্ট্যময় সুবিশাল সুরভিত দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে রূপলাভ করতে সক্ষম হয়েছে। তাই বলতে অত্যুক্তি হবেনা বরং মোটেও অতিরঞ্জিত নয় যে, বস্তুত আরজাবাদ মাদরাসা হচ্ছে দেশের হক্কানী-রব্বানী উলামা কাফেলার ঐতিহাসিক বৈচিত্র্যময় এক চলমান আশ্রয়স্থল; যা প্রকৃতপক্ষে হযরত কাসেমী রাহ. এর এখলাছ, লিল্লাহিয়্যাত, ফয়েজ ও বরকতের বাস্তব নমুনা।

মহান আল্লাহ তা’আলা হযরতের রেখে যাওয়া এই আমানতের অগ্রযাত্রাকে অব্যাহত রাখার তাওফীক দান করুন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে। আরজাবাদের নূরানী আলোয় সুরভিত হোক বিশ্বজগত। হযরত কাসেমী রাহ.র মর্যাদা বুলন্দ হোক জান্নাতের ফুল বাগানে।
(প্রতিবেদন তৈরির তারিখ- ২৫/১০/২১ ঈ.)

এই সংবাদটি 47 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com