মঙ্গলবার, ০৩ জানু ২০১৭ ১২:০১ ঘণ্টা

ইজতেমা : স্বকীয় আদর্শে টিকে থাকার লড়াই

Share Button

ইজতেমা : স্বকীয় আদর্শে টিকে থাকার লড়াই

মুফতী খন্দকার হারুনুর রশীদ : দাওয়াত ও তাবলীগের এই মিশনের বয়স এখন বিরানব্বই বছর। ইজতেমার এই ধারা সবখানেই চলছে। নয় দশকের দাওয়াতি মিশন এখন সারা দুনিয়ায় ছড়িয়ে পড়েছে। ঢাকার বিশ্বইজতেমা তারই একটা বড়ো অংশ। দাওয়াত ও তাবলীগের এ মেহনতকে বিশ্বব্যাপী বিস্তৃত করেছে একমাত্র পরম করুণাময়ের সুমর্জি ও সন্তুষ্টি। এতে কখনো এই বিশ্বের তাবৎ কোনো শক্তির সহায়তা দরকার হয় নি। এর পেছনে কারো কোনো অর্থেরও যোগান দিতে হয় নি। এই কাফেলা কোনো সদস্য কারো কাছে কখনো হাত পাতে না। কারো কোনো করুণা চায় না। তারা যা চায় তার সবটুকুই একমাত্র মহান আল্লাহর নিকট চেয়ে থাকে।

আমি টঙ্গির বিশ্বইজতেমায় যোগ দিয়েছি বহুবার। এবার সিলেটের আঞ্চলিক ইজতেমায়ও প্রতিদিন অংশগ্রহণের সুযোগ হয়। ফলে পরম করুণাময় আল্লাহর দরবারে অসংখ্য-অগণিত শুকরিয়াজ্ঞাপন করছি।

ইজতেমার ময়দানে গেলে লক্ষ লক্ষ মানুষকে সকল ভেদাভেদ ভুলে গিয়ে নদীর চরে, হাওরের কাদা-মাটিতে বিছানা পেতে বসতে-শোতে দেখা যায়। একজনের পায়ের কাছে অন্যজনের মাথা। কারো কোনো গৌরব নেই, নেই কোনো আত্মগরিমা। সকলেই মনেকরেন– আমি আল্লাহর এক নগণ্য গোলাম। আমি সবচেয়ে পাপী। আমিই সর্বাধম। যদিও কর্তৃপক্ষ মুরুব্বিগণ বিদেশি মেহমানদের জন্য একটা বিশেষ এরিয়ায় নিরাপদে আগলে রাখতে চেষ্টা করেন, তথাপি সেটা উল্লেখ করার মতো কিছু নয়। এদৃশ্য পৃথিবীর ভিন্ন কোনো জনসমাবেশে দেখা যাবে না।
খানা খাওয়ার সময় স্টীলের মোটাটাইপের একই প্লেটে পাঁচসাতজন মানুষের একসঙ্গে আহার করা, একই গ্লাসে বহু মানুষের পানি পান করা, পানাহারসহ সর্বক্ষেত্রে নিজেকে পেছনে রেখে নিজের অপর মুমিন ভাইকে অগ্রাধিকার প্রদান করা, নিজে না খেয়ে অন্যকে খাওয়ানো, নিজে না পানকরে অন্যকে পান করানো, নিজে না ঘুমিয়ে হলেও অন্য ভাইকে পর্যাপ্ত ঘুমোতে দেওয়া, দুর্বলকে সাহায্য করা, বয়োঃবৃদ্ধদের সেবা করা, অজু-ইস্তেঞ্জায় যাতায়াতে সহযোগীতা করা, পানি থেকে নিয়ে ঢেলা-কুলূখ পর্যন্ত একে অপরকে এগিয়ে দেওয়া, গোসলের ক্ষেত্রে সাহায্য করা, কাপড় কাঁচতে সহায়তা দেওয়া, অন্যের সামানাপথ্য নিজের কাধে বহন করা, কারো সঙ্গে দুর্ব্যবহার না করা, কটুকাব্য না বলা, একে অপরকে সম্মান করা, মর্যাদা দেওয়া, কেউ কষ্ট দিলে তাকে ক্ষমা করা ইত্যাদি অসাধারণ সকল পরম মানবীয় গুণের অনুশীলন একমাত্র দাওয়াত ও তাবলীগে সময় দিলেই অবলোকন করা যায়।

রাতে সকলেই যখন ঘুমিয়ে পড়েন তখন কেউ প্রয়োজনে ময়দানের বাইরে যেতে হলে কতোজনের মাথায়-পায়ে-গায়ে পা লাগে, হাতের ওপর পায়ের ওপর পাড়া পড়ে কিন্তু কেউ কাউকে কিছু বলেন না। প্রতিবাদ করার কথা তো কল্পনাও করা যায় না। চেহারায় কোনো বিরক্তির ভাবও আনেন না। প্রচণ্ড কষ্ট পেলেও তা কাউকে বুঝতে দেন না। উল্টো যার পা লেগেছিলো তাকে পায়ে হাত বুলিয়ে দেওয়া হয়। ব্যথা লেগেছে কি না, শুধানো হয়। এমন নজির পৃথিবীর অন্য কোথাও নেই।
যেকোনো সময় বাইরে বেরোতে গেলে অথবা বাইরের কোনো মানুষ ভেতরে প্রবেশ করলে শত শত বিছানা মাড়িয়েই সামনের দিকে যেতে হয়। আসা-যাওয়াকালে এভাবে অপরিচিতজনদের বিছানায় পা রাখলেও কেউ কিছু বলে না। কষ্টের কথা, অপছন্দের কথা বা কোনো ভাব ও লক্ষণ কেউ প্রকাশ পেতে দেন না। সকলেরই এভাবে অন্যের জন্য নিজের বিছানার ওপর দিয়ে যাতায়াতের সুযোগ দেওয়াকে খেদমত মনেকরেন, পুণ্যকাজ ভাবেন। এভাবে একজন দীনের দা’য়ী তার অপর মুমিন ভাইয়ে জন্য সবকিছু ত্যাগ করেন, বিসর্জন দেন।

আমার নিকট বিস্ময়ের ব্যাপার হলো– ইজতেমার ময়দান থেকে বেরিয়ে আসার সঙ্গে সঙ্গে হাতেগুণা কিছু মানুষ বাদে সকলকেই এই আদর্শ ও শিক্ষা থেকে বিচ্যুত হতে দেখা যায়। অনেককে দেখেছি যে, তিনি যেনো ময়দানের বাইরে কিছুই নিয়ে আসতে পারেন নি। আদর্শ ও শিক্ষার সর্বস্ব রেখে এসেছেন মাঠের ভেতর। যেখানে শুয়েছিলেন সেখানেই রেখে এসেছেন সবকিছু। যেই মানুষগুলো ইজতেমার ময়দানে ছিলো ফেরেশতা, বাইরে বেরিয়ে তারাই আবার হয়ে যাচ্ছে দানব-স্বার্থপর। লোভী ও হিংস্র। হিংসুটে এবং দ্বন্দ্ববাজ-ঝগড়াটে। তাহলে কী করা যায়?
আখেরী মোনাজাতে অংশগ্রহণের জন্য দূরদূরান্ত থেকে ঝাঁকে ঝাঁকে মানুষ আসেন। চোখের জ্বলে বুক ভাসিয়ে তাওবা করেন। কিন্তু দাওয়াত ও তাবলীগের শিক্ষা এবং আদর্শকে অল্প মানুষই গ্রহণ করতে পারেন। যাদের সংখ্যা একেবারেই নগণ্য।
ইমাম গাযালী (রাহ) লিখেন– প্রতিটি মানুষের মাঝে সর্বদা দু’টি শক্তি সমানভাবে কার্যকর থাকে। একটি ফেরেশতাসূলভ শক্তি, অপরটি শয়তানসূলভ শক্তি। যে ব্যক্তি বেশি বেশি নেক আমল করবে, উত্তম আমল ও আদর্শকে গ্রহণের মাধ্যমে ধারাবাহিকভাবে নেক ও কল্যাণকর পথে এগিয়ে যাবে, তার মধ্যেকার সুপ্ত ফেরেশতাসূলভ শক্তি এথেকে খাদ্যগ্রহণ করবে এবং শক্তিমান হয়ে ওঠবে। এভাবে ধীরে ধীরে তারমাঝে প্রতিনিয়ত ফেরেশতাসূলভ শক্তি সুদৃঢ় হতে থাকবে। আর যে ব্যক্তি পাপাচার পরিত্যাগ করবে এবং মন্দ গুণাবলীকে বর্জন করবে তার মধ্যেকার শয়তানি শক্তি তখন আর কোনো ধরনের খাদ্যলাভ করতে পারবে না। খাদ্যের যোগান না পেলে তা শক্তিহারা ও দুর্বল হতে থাকবে। ফলে এ শক্তি ধীরে ধীরে দুর্বল হতে হতে একসময় নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে। এভাবে যে ব্যক্তি নিজের মধ্যেকার শয়তানি শক্তিকে দমন করতে পারবে তার জন্য নেক গুণাবলী নিয়ে দৃঢ়পদ থাকা সম্ভব হবে।

মোটকথা, ইজতেমার ময়দান থেকে বের হওয়া মাত্রই আমাদের মাঝে সত্য-মিথ্যার লড়াই শুরু হয়ে যায়। আর এটা একেবারেই স্বাভাবিক। সুতরাং আমাদের প্রত্যেককে অতি সতর্কতার সঙ্গে স্বকীয় আদর্শের ওপর টিকে থাকার এ লড়াইয়ে বিজয়ী হতে হবে। নিজেদের অবিচল রাখতে এবং সমাজের অন্য মানুষদের এপথে ফিরিয়ে আনতে আমাদের পরিপূর্ণ মেহনত ও সাধনা অব্যাহত রাখতে হবে। তবেই ইনশাআল্লাহ আমাদের বিজয় সুনিশ্চিত হবে। সকল পরিশ্রম কাজে লাগবে।
(খ)
ত্রিশ ডিসেম্বর শুক্রবার। সিলেটের ইজতেমা ময়দানে শেষ রাত্রিযাপন। সকাল থেকেই ভাবছি– যেভাবেই হোক ইজতেমা ময়দানে গিয়ে আজ এশার জামাত আদায় করবো। নামাযের পর হতে সেখানে রাত্রিযাপন করবো এবং পরদিন মোনাজাত শেষে ইনশাআল্লাহ বাড়ি ফিরবো। ঘড়িতে তখন সময় রাত সাতটা ত্রিশমিনিট বাজছে। মনে মনে ইজতেমার ময়দানে রওয়ানা হবার প্রস্তুতি চলছে।
এবার আমাদের গ্রামের মসজিদে এশার আযান শুরু হলো। ড্রাইভার সাহেবের ফোনও এলো। ধীরে ধীরে আমি বাড়ি থেকে বেরিয়ে গাড়িতে গিয়ে ওঠলাম। গাড়ি চলছে আর আমি বসে বসে মনের অজান্তেই আবৃত্তি করছি পবিত্র কুরআনের একটি আয়াত। যেখানে মহান আল্লাহ বলেন– “ওরা তাদের মুখের ফুৎকারে আল্লাহর নূরকে নিভিয়ে ফেলতে চায়। অথচ, আল্লাহ স্বীয় নূরকে পূর্ণতায় পৌঁছাবেন যদিও অকৃতজ্ঞরা সেটা পছন্দ করে না। তিনি সে সত্ত্বা যিনি তার রাসূলকে প্রেরণ করেছেন হেদায়েতের বাণী ও সত্য ধর্মসহ। যাতে তিনি এধর্মকে সকল মতোবাদের ওপর বিজয়ী করেন।”
আমার এই তেলাওয়াত বা অর্থগত কল্পনা একেবারেই ঐচ্ছিকভাবে ছিলো না। যেই ভাবনা নিয়ে ঘর থেকে বের হই তার সঙ্গে এর কোনো মিলও ছিলো না। আমার একমাত্র ভাবনাগুলি হলো– কেবলই আল্লাহর দীনের পথের লক্ষ লক্ষ দা’য়ীর সঙ্গে কিছু সময়যাপন, তাদেরই পাশে থেকে রাত্রিজাগরণ এবং সম্ভব হলে স্বীয় সাংগঠনিক নেতা-কর্মীগণের সাথে একটু দেখাসাক্ষাত করা, খোঁজখবর নেওয়া। যা আমি ইবাদত হিসেবেই পালন করে থাকি। কারণ, হাদীস শরীফে ইসলামী আন্দোলনের নেতা-কর্মীগণের পারস্পরিক সম্পর্ক এবং একে অন্যের সাথে দেখা-সাক্ষাত করাকে ঈমানের অংশ ও ইবাদত গণ্য করা হয়েছে।
প্রতিদিনই নিয়মিত আমরা এখানে ইজতেমার ময়দানে আসছি। বসছি এবং হেদায়েতি বয়ানগুলো শোনছি। তা ছাড়া এমনিতে প্রথম থেকেই (২৮/১২/২০১৬ খ্রি.) ইজতেমা ময়দানে অহর্নিশ পড়ে আছে আমার ছোট ভাই ‘মাওলানা হাফেয খন্দকার হুমায়ুনুর রশীদ’। জুমার পর (৩০/১২/২০১৬ খ্রি.) থেকে যোগ দিয়েছে এবং আখেরি মোনাজাত অবধি ইনশাআল্লাহ মাঠে থাকবে আমার মেঝো ভাই, গোয়াইনঘাট উপজেলা যুবজমিয়তের সাধারণসম্পাদক ‘মাওলানা কারী খন্দকার মামুনুর রশীদ’। আল্লাহ তাদেরকেসহ সকল দীনি বন্ধুর জন্য শেষ পর্যন্ত ময়দানে থাকার তাওফিক দান করুন এবং সকলের সমুদয় দীনি মেহনত ও মুজাহাদাকে কবুল করুন। নিজের শারীরিক অবস্থা সুবিধাজনক না হলেও নিয়ত করেছি– আখেরি মোনাজাত পর্যন্ত থাকবো ইনশাআল্লাহ।

জুমার নামাযে অংশগ্রহণ সম্ভব হয় নি ; তবে সম্পূর্ণ খোঁজখবর নিয়েছি। সরকারি হিসেবমতে জুমায় নাকি পনেরো থেকে ষোললক্ষ মানুষের অংশগ্রহণ ছিলো। যা সিলেটের ইতিহাসে এক বিস্ময়কর চমক। সকলেই বলছেন– ইতোপূর্বে বৃহত্তর সিলেটের কোথাও এমন বড়োসড়ো গণজমায়েত আর কখনো হয় নি। এ হিসেব নাকি জনসংখ্যা অধিদপ্তরের। আমি সরকারের জনসংখ্যা অধিদপ্তর চিনি না। তারা কীভাবে মানুষ গণনা করে তাও জানি না। তবে এ তথ্য আমাকে যিনি সরবরাহ করেন– তিনি তাবলীগবিরোধী! আটরশি ভণ্ডপীরের প্রথমসারির একজন মুরীদ।
ইজতেমার মাঠে পৌঁছে অজু সেরে একেবারে সোজা চলে গেলাম সাতনম্বর খিত্তাভুক্ত আমাদের মাদরাসার সম্মানিত আসাতেযায়ে কেরাম ও প্রিয় ছাত্রদের জামাতটির নিকট। সেখানে পৌঁছে দেখা হলো– জামেয়া মাদানিয়া বিশ্বনাথের প্রিন্সিপ্যাল, মাসিক আল-ফারুক সম্পাদক জনাব মাওলানা শিব্বির আহমদ, মাওলানা সাজিদুর রহমান, মাওলানা আব্দুল কারীম, মুফতী ঈজাদুর রহমান, মাওলানা বশীর আহমদ হায়দরপুরী, মাওলানা রশীদ আহমদ বিশ্বনাথী, মাওলানা আব্দুল মতিন, মাওলানা হাফেয ফয়জুর রহমান, মাওঃ হাফেয ইমাম উদ্দীনসহ সহকর্মীগণের সাথে। সালাম-মোসাফাহা ও মোয়ানাকা পর্ব শেষে ইতমিনানের সঙ্গে এশার জামাত আদায় করলাম। খুবই ভালো লাগলো। অন্তরে বেশ প্রশান্তি অনুভব করলাম।

নামাযের পর হতে আমাকে যে একটি বিষয় বারবার ভাবিয়ে তুলছে তা হলো– আজ যেখানে ইজতেমার স্থান ধার্যকৃত হয়েছে এবং একটি সফল ইজতেমাও সুসম্পন্ন হতে চলেছে– সেই এলাকাতেই তিন-চারবছর আগে আওলাদে রাসূল, আল্লামা সাইয়েদ আরশাদ মাদানী (দা-মাত বারাকাতুহুম) একটা ইসলাহী অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত ছিলেন– তিনি সেদিন হরতালের কারণে হেলিক্যাপ্টারযোগে যথাসময়ে তাশরীফও আনেন– তবে দুঃখজনক হলেও সত্য যে, স্থানীয় প্রভাবশালী “তাবলীগ ও ওলামায়ে দেওবন্দ বিদ্ধেষীরা” লাখো জনতার সে অনুষ্ঠানে মাইক বাজাতে দেয় নি। ফলে আমীরুল হিন্দ আল্লামা সাইয়েদ আরশাদ মাদানী সেদিন মাইক ছাড়াই মুখে মুখে কিছু কথা বলে একটা সংক্ষিপ্ত মোনাজাত করে ফিরে যান। তিনি সেদিনকার মোনাজাতে চোখের পানি ফেলতে ফেলতে একটা কথাই বারবার বলছিলেন– হে আল্লাহ! আপনি এখানকার সকল মানুষকে পরিপূর্ণ হেদায়েত দান করুন এবং এই এলাকাকে আপনি দিনের মারকায বানিয়ে দিন।

আমি নামায শেষে দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে সমগ্র ময়দান দেখছি, পিণ্ড্যালের বাইরে খোলা আকাশের নীচে শামিয়ানা ছাড়া বিছানায় বসে থাকা মানুষজনের কথা ভাবছি, প্রবল শৈত্যের প্রবাহে আল্লাহ আল্লাহ নামজপা দীনের আশেকদের কথা কল্পনা করছি।তো আমার এবার আর বুঝতে বাকি রইলো না যে, মহান আল্লাহ দয়াময় সেদিন হযরত মাদানী দা-মাত বারাকাতুহুমের চোখের পানি বৃথা যেতে দেন নি। যেই ময়দানের আশপাশের লোকেরা দাওয়াত ও তাবলীগকে কখনো পছন্দ করতো না, যারা তাদের মসজিদগুলোতে তাবলীগের দা’য়ী জামাতকে প্রবেশে বাধা দিতো, নিষেধ করতো– আজ বিরুদ্ধবাদীদের সে দূর্গ ভেঙ্গে চূর্ণবিচূর্ণ হয়ে গেলো। তাদের মসজিদে এখন দা’য়ীগণের জামাত যাচ্ছে, সেই তারাই আজ তাবলীগওয়ালাদের সেবকের কাজ করছে। পানি সরবরাহ করছে। বাড়িতে মেহমানদারি করছে। মানুষকে নিজেদের ঘরে থাকার ব্যবস্থা করে দিচ্ছে।

তাবলীগের এই পদ্ধতি জন্মের পর থেকে পৃথিবীর লক্ষ লক্ষ স্থানে বাধাগ্রস্ত হয়েছে, বিভিন্ন স্থানে দা’য়ীগণকে মারপিটও করা হয়েছে, অজস্র মসজিদ থেকে তাদের সামানাপথ্য বাইরে ছুঁড়ে ফেলা হয়েছে, বহু জাগায় তাদেরকে অপমান করে তাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে কিন্তু যেখানেই এ কাফেলার স্বাধীন বিচরণে বাধা-বিপত্তি এসেছে সেখানেই পরবর্তী পর্যায়ে ফুল ফুটেছে। নূরানী এ মাকসাদ ফলপ্রসূ হয়েছে। প্রত্যেক স্থানেই গড়ে ওঠেছে দীনের বাগান। তৈরি হয়েছে দীনের মারকায। যার শেষ খবর– একেকটা গ্রাম আজ আল্লাহর দীন প্রচারের একেকটা দূর্গ। সতত বিচিত্র পরিবেশে সত্যের বিজয় যেনো একটা চিরায়ত রীতিতে পরিণত হয়ে আছে।

ইতোমধ্যে আমার পূর্ণ ধ্যানটা সোজা চলেগেলো বাড়ি থেকে বের হওয়ার সময় পঠিত সেই পবিত্র আয়াতখানার দিকে যেখানে সর্বশক্তিমান আল্লাহ বলেন– “ওরা তাদের মুখের ফুৎকারে আল্লাহর নূরকে নিভিয়ে ফেলতে চায়। অথচ, আল্লাহ স্বীয় নূরকে পূর্ণতায় পৌঁছাবেন যদিও অকৃতজ্ঞরা সেটা পছন্দ করে না। তিনি সে সত্ত্বা যিনি তার রাসূলকে প্রেরণ করেছেন হেদায়েতের বাণী ও সত্য ধর্মসহ। যাতে তিনি এধর্মকে সকল মতোবাদের ওপর বিজয়ী করেন।”

আমাদের সবসময় একটা কথা স্মরণ রাখা উচিত– আর তা হলো মহান আল্লাহর ঘোষণা, সত্য সমাগত, মিথ্যা অপসৃত। নিশ্চয় অসত্যের পতন অবশ্যম্ভাবী।

সকলের দু’য়া কামনা করছি– মহান আল্লাহ যেনো আপনাকে এবং আমাকে ; পৃথিবীর সকল মুমিন-উম্মতে মুহাম্মাদীকে তার দীনের একেকজন খাদেম ও দা’য়ী হিসেবে কবুল করেন। আ মীন।

এই সংবাদটি 1,056 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com