বৃহস্পতিবার, ০১ মার্চ ২০১৮ ০৭:০৩ ঘণ্টা

১১ মার্চ সোহরাওয়ার্দীতে সমাবেশ করবে বিএনপি

Share Button

১১ মার্চ সোহরাওয়ার্দীতে সমাবেশ করবে বিএনপি

ডেস্করিপোর্ট: দুর্নীতি মামলায় পাঁচ বছরের সাজা পেয়ে কারাগারে থাকা বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে আবারও নতুন কর্মসূচি ঘোষণা করেছে বিএনপি। কর্মসূচি অনুযায়ী আগামী ১১ মার্চ রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জনসভা করবে দলটি। ইতিমধ্যে সমাবেশের অনুমতি চাওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন দলটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

বৃহস্পতিবার বিকালে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে রিজভী এই কর্মসূচির কথা জানান তিনি।

গত ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় সাজা হওয়ার পর থেকে কারাগারে আছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। তার মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভ কর্মসূচি, মানববন্ধন, অনশন, অবস্থান কর্মসূচি, কালো পতাকা প্রদর্শনের পর সবশেষ আজ বৃহস্পতিবার দেশব্যাপী লিফলেট বিতরণের কর্মসূচি পালন করে দলটি।

এর আগে খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে গত ২২ ফেব্রয়ারি রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যান অথবা নয়াপল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে সমাবেশ করতে চেয়েছিল বিএনপি। তবে ডিএমপির পক্ষ থেকে অনুমতি না পাওয়ায় সমাবেশ করতে পারেনি দলটি।

আজকের সংবাদ সম্মেলনে রিজভী বলেন, সমাবেশের অনুমতি চেয়ে ইতোমধ্যে ডিএমপির কাছে অনুমতি চাওয়া হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে নির্বাচন কমিশনকে নিয়েও সমালোচনা করেন রিজভী। বলেন, ‘ডিজিটাল প্রচারণা নিয়ে নতুন আইন করার উদ্যোগ নিয়েছে নির্বাচন কমিশন। জাতীয় সংসদ নির্বাচনে (নিবাচন-পূর্ব সময়) ডিজিটাল প্রচারণার উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ বিধানযুক্ত করে রাজনৈতিক দল ও প্রার্থীদের আচরণ বিধিমালা সংশোধন চূড়ান্ত করেছে নির্বাচন কমিশন।’

এই আইনের সমালোচনা করে বিএনপি নেতা বলেন, ‘এই আইন ফ্রি ও ফেয়ার ইলেকশনের চরম পরিপন্থী। নির্বাচনে শুরু থেকে গেজেট প্রকাশ পর্যন্ত বিভিন্ন অনিয়ম, প্রার্থী ও সমর্থকদের ওপর সন্ত্রাসী হামলা, নমিনেশন পেপার জমাদানে বাধা, ছিনতাই, প্রচারণায় বাধা, ভাঙচুর, জোর জবরদস্তি, ভোট কেন্দ্র দখল করে ভোট ডাকাতি, ব্যালট পেপার ছিনতাই করে ব্যালট বাক্স ভর্তি করা এবং আওয়ামী লীগের ভোট সন্ত্রাস যাতে প্রচার না হয় এজন্যই এ নতুন আইন করতে উদ্যোগ নিয়েছে ইলেকশন কমিশন।’

আওয়ামী লীগ প্রধানের নির্দেশে নতুন আইন করা হচ্ছে দাবি করে রিজভী বলেন, ‘আমি এর নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। এবং অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের অন্তরায় এমন কালাকানুন থেকে সরে আসার জন্য নির্বাচন কমিশনের প্রতি জোর দাবি জানাচ্ছি।’

বর্তমান ইসি আইনশৃঙ্খলা বাহিনী থেকে সেনাবাহিনীর নাম বাদ দিতে উঠেপড়ে লেগেছে এমন দাবি করে রিজভী বলেন, ‘সার্বিক অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে- আবারও একটি ভোটারবিহীন একতরফা নির্বাচন অনুষ্ঠিত করতে সরকারি প্রেসক্রিপশনে এগুচ্ছে ইসি। যা অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ, গ্রহণযোগ্য ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের অন্তরায়। সিইসির নেতৃত্বে আবারও একটি নীল নক্শা অনুযায়ী নির্বাচন অনুষ্ঠানের মহাপরিকল্পনা হচ্ছে, যে নির্বাচন হবে একচেটিয়া ও একতরফা এবং তা হবে প্রধানমন্ত্রী ও তাঁর দলকে বিনা ভোটে জেতানোর নির্বাচন।’

সরকারকে ‘আধিপত্য-অভিলাষী’ সরকার আখ্যা দিয়ে রিজভী বলেন, ‘গাণিতিক হিসাবে বিএনপিকে দমন করার কাজ চালাচ্ছে সরকার। বিএনপিকে নির্বাচন থেকে দূরে রাখতে পরিকল্পিতভাকে বানোয়াট ও জাল নথি বানিয়ে মিথ্যা মামলায় বেগম খালেদা জিয়াকে সাজা দিয়ে কারাগারে পাঠানোসহ ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানকে সাজা দেয়া হয়েছে। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার জামিন কিভাবে বাধাগ্রস্ত করা যায় তা নিয়েও সরকার ষড়যন্ত্র করছে। বিরোধী দলের সভা-সমাবেশে বাধা দেয়া হচ্ছে, পশুবৎ হামলা করা হচ্ছে বিএনপির শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে।’

এই সংবাদটি 1,010 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com