মঙ্গলবার, ০৬ জুন ২০১৭ ০১:০৬ ঘণ্টা

রাজনীতিতে ধর্মভিত্তিক সংগঠনের কদর

Share Button

রাজনীতিতে ধর্মভিত্তিক সংগঠনের কদর

ডেস্ক রিপোর্ট:
ধর্মভিত্তিক রাজনৈতিক দলগুলো এখন সবার নজরে। বিশেষ করে ২০১২ সালে ‘নতুন শক্তি’ হিসেবে আবির্ভূত হেফাজতে ইসলামকে কেন্দ্র করে রাজনীতি বেশ সরগরম।

সরকারের তরফ থেকে সংগঠনটিকে কাছে টানার তৎপরতা এখন প্রকাশ্য। উদ্দেশ্য, ভোটের মাঠে এগিয়ে থাকা; পাশাপাশি আওয়ামী লীগ যে ইসলামবিরোধী নয়, এটিও জনমনে স্পষ্ট করা।

বিএনপিও বসে নেই। ভেতরে ভেতরে এ দলটিও ধর্মভিত্তিক দলগুলোর সঙ্গে তাদের আগের সম্পর্ক ধরে রাখতে গোপন তৎপরতা জারি রেখেছে। বিএনপির মতে, প্রতিষ্ঠার পর থেকে এ পর্যন্ত ইসলামী কোনো দল বা শক্তিকে তারা আঘাত করেনি। আর মহাজোট সরকারের অংশীদার হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের নেতৃত্বাধীন জাতীয় পার্টিও কাছে টানার চেষ্টা করছে ইসলামপন্থীদের। সর্বশেষ গত ৭ মে তারা ৫৮টি দলের সঙ্গে জোট করার ঘোষণা দিয়েছে। সব মিলিয়ে রাজনৈতিক অঙ্গনে ইসলামপন্থী দলগুলোর কদর এখন বেশ।

পর্যবেক্ষকদের মতে, ভোটের মাঠে বরাবরই প্রগতিশীল বলে পরিচিতদের সমর্থন পেয়ে এসেছে আওয়ামী লীগ। আর ইসলামপন্থীদের ভোট গেছে বিএনপির বাক্সে। আগামী নির্বাচনে এই ভোটে ভাগ বসাতে চাইছে আওয়ামী লীগ। রাজনীতিতে এটিই এখন আলোচনার বিষয়। অনেকেই একে আওয়ামী লীগের রাজনীতির বাঁকবদল বলেও মনে করছেন।

রাষ্ট্রবিজ্ঞানী অধ্যাপক এমাজউদ্দীন আহমদের মতে, গণতন্ত্র সুপ্রতিষ্ঠিত তথা উদারনৈতিক ও মুক্ত সমাজ থাকলে ধর্মভিত্তিক দলগুলোকে কাছে টানার দরকার হতো না। কিন্তু ‘পাওয়ার পলিটিকস’-এর কারণে সরকার যেভাবেই হোক ক্ষমতায় থাকতে চাইছে। সে জন্যই এত দিনের রাজনৈতিক ঐতিহ্যের বাঁক পরিবর্তন করে ৫ মের ঘটনা ভুলিয়ে দিতে নানা সুযোগ-সুবিধা দিয়ে ইসলামপন্থীদের সরকার কাছে টানার চেষ্টা করছে। কিন্তু এতে কিছু সুবিধা হলেও খুব বড় লাভ হবে না। কেননা হেফাজত কখনই ৫ মের ‘ক্ষত’ ভুলবে না। তারা আদর্শিক ও রাজনৈতিক কারণেই বিএনপিকে ভোট দেবে।

এক প্রশ্নের জবাবে এমাজউদ্দীন আহমদ আরো বলেন, বিএনপিও হেফাজতকে কাছে চাইবে। কারণ ৫ মে-তে এ দলটিই তাদের পাশে ছিল। একই কারণে জামায়াত আগামী নির্বাচনে হয় তাদের দলীয় (স্বতন্ত্র প্রার্থী থাকলে) প্রার্থীকে ভোট দেবে নতুবা বিএনপিকে। কিন্তু আওয়ামী লীগকে তারা ভোট দেবে না; যোগ করেন শত নাগরিক কমিটির এই সভাপতি।

বিশিষ্ট কবি ও রাজনৈতিক বিশ্লেষক ফরহাদ মযহার বলেন, ‘ভোট গৌণ দিক। আসলে ২০১৩ সালের ৫ মের পর বাংলাদেশের রাজনীতিতে একটা গুণগত পরিবর্তন ঘটে গিয়েছে। বাঙালি জাতীয়তাবাদীদের সামাজিক ও মতাদর্শিক অবস্থানকে ইসলামপন্থীরা চ্যালেঞ্জ করতে পেরেছে স্রেফ সাংগঠনিক ও সমাবেশের শক্তি প্রদর্শনের মধ্য দিয়ে। অন্যদিকে মতাদর্শিকভাবেও বাঙালি জাতীয়তাবাদের অন্তর্নিহিত ধর্মবিদ্বেষ বা ইসলামবিদ্বেষ তরুণ সমাজের বড় একটি অংশের কাছে স্পষ্ট হয়ে গিয়েছে। ফলে সমাজে চিন্তাচেতনার ক্ষেত্রেও দ্রুত রূপান্তর ঘটেছে। এতে শ্রেণি ও শক্তির ভারসাম্য বদল ঘটেছে। ইসলামপন্থীরাও রাজনীতিতে কৌশলী হয়েছে। এ বাস্তবতায় তাদের সঙ্গে সমঝোতা ছাড়া ক্ষমতায় থাকা কঠিন, এটা সরকার বুঝতে পেরেছে। এটাই কারণ। ’

কিন্তু তাদের কাছে টেনে সরকারের শেষ পর্যন্ত লাভ হবে কি না এমন প্রশ্নের জবাবে ফরহাদ মযহার বলেন, ‘আমি তা মনে করি না। তবে যদি আদৌ নির্বাচন হয়, তখন হয়তো কিছুটা বোঝা যাবে।   ক্ষমতাসীনরা ভোটের জন্য চিন্তিত নয়, বরং আগামীতে জনগণের ক্ষোভ ও রোষানল থেকে কিভাবে বাঁচবে তা নিয়েই প্রবল উত্কণ্ঠায় আছে। ৫ মে-তে যেভাবে গুলি চালিয়ে ও হত্যা করে আলেম উলামা ও মাদরাসা ছাত্রদের তাড়িয়ে দিয়েছিল, সরকার এখন তার প্রায়শ্চিত্ত করছে। আশা, আগামীতে যাতে প্রাণে বাঁচা যায়! এটাই তো আমি দেখছি। ’

বস্তুত, এ দেশে গত কয়েকটি নির্বাচনে ইসলামপন্থী দলগুলোর প্রাপ্ত ভোটের সংখ্যা তেমন উল্লেখযোগ্য না হলেও তাদের প্রভাব হেলাফেলা করার মতো নয় বলে বিশ্লেষকদের অভিমত। তবে আগামী নির্বাচনে এ প্রভাবের সঙ্গে হেফাজতে ইসলাম, বিশেষ করে কওমি মাদরাসাকেন্দ্রিক ভোটের হিসাব রাজনৈতিক দলগুলোকে ভাবিয়ে তুলছে। হেফাজতের সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা আজিজুল হক ইসলামাবাদী কালের কণ্ঠকে জানান, সারা দেশে ছোট-বড় মিলিয়ে ৩২ হাজার মাদরাসায় মোট ৮৫ লাখ ছাত্র-শিক্ষক রয়েছে। সে হিসাবে হেফাজতের ভোটার সংখ্যা আড়াই কোটির ওপরে বলে তিনি দাবি করেন। তিনি বলেন, ‘যাঁদের স্বার্থের (ভোট) ব্যাপার রয়েছে, তাঁরা হেফাজতের কাছে আসবেনই। তবে আমরা আমাদের নীতি ও আদর্শে অটল আছি। ’

২০০৮ সালের নির্বাচনে জামায়াত দুটি আসন পেয়ে ৪.৭০ শতাংশ ভোট, ২০০১ সালের নির্বাচনে ১৭টি আসন পেয়ে ৪.২৪ শতাংশ, ১৯৯৬ সালের নির্বাচনে তিনটি আসন পেয়ে ৮.৬১ এবং ১৯৯১ সালে ১৮টি আসন লাভ করে ১২.১৩ শতাংশ ভোট পায়। ফলাফলে দেখা যায়, ২০০৮ সালের নির্বাচনে ইসলামপন্থী অন্য আটটি দলের কারোই প্রাপ্ত ভোট ১ শতাংশও ছুঁতে পারেনি। ২০০১ সালের নির্বাচনেও চারটি ইসলামী দলের ভোট ছিল ১ শতাংশের নিচে। অন্যদিকে ১৯৯৬ সালের সপ্তম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ইসলামী ঐক্যজোট ১৬৬ আসনে প্রার্থী দিয়ে একটি আসনে জয়লাভ করে এবং শতকরা ১.০৯ ভাগ ভোট পায়। ১৯৯১ সালের নির্বাচনে তাদের প্রাপ্ত ভোট ছিল ০.৭৯ এবং খেলাফত মজলিসের ০.২৭ শতাংশ। ইসলামপন্থী দলগুলো এ দেশে কখনো সংগঠিতও ছিল না।

১৯৯০ সালে এরশাদ সরকারের পতন-পরবর্তী প্রায় সব নির্বাচনে জামায়াতকে বড় ফ্যাক্টর বিবেচনা করা হতো। গত চারটি নির্বাচনে দলটির প্রাপ্ত ভোটের ফলাফলেও এর প্রমাণ আছে। এর বাইরে চরমোনাই পীরের নেতৃত্বাধীন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ, হাফেজ্জী হুজুর প্রতিষ্ঠিত খেলাফত আন্দোলন, শায়খুল হাদিস আল্লামা আজিজুল হক প্রতিষ্ঠিত বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসসহ কয়েকটি ইসলামী সংগঠনের সারা দেশে কিছু ভোট আছে। নির্বাচন সামনে রেখে এসব দলের সঙ্গেও যোগাযোগ শুরু করেছে মূলধারার দলগুলো। অবশ্য অনেক ইসলামী চিন্তাবিদ মনে করেন, বাংলাদেশে জামায়াতের রাজনীতির সঙ্গে উলামা-মাশায়েখদের রাজনীতির ফারাক এবং অনেক ক্ষেত্রে আদর্শিক বিরোধও রয়েছে।

১৯৯৯ সালে শায়খুল হাদিসের দলসহ বেশ কয়েকটি ইসলামপন্থী দল ইসলামী ঐক্যজোট গঠন করে বিএনপি নেতৃত্বাধীন চারদলীয় জোটে যোগ দেয়। ২০০১ সালের নির্বাচনে চারদলীয় জোট দুই-তৃতীয়াংশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায়। ইসলামী ঐক্যজোট থেকে পরে অবশ্য কয়েকটি দল বেরিয়ে যায়।

১৩ দফা কর্মসূচি বাস্তবায়নে হেফাজতে ইসলাম মাঠে নামে ২০১০ সালের ১৯ জানুয়ারি। ২০১৩ সালের ৫ মে তারা ঢাকার শাপলা চত্বরে বড় ধরনের শোডাউন করে নতুন শক্তি হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে। ব্যাপক তাণ্ডব আর ধ্বংসযজ্ঞ চালানোয় সরকার ও সমর্থক দলগুলো তখন ওই সংগঠনটিকে ‘জঙ্গিবাদী’ আখ্যা দেয়। অথচ সেই হেফাজতের দাবি অনুযায়ী প্রথমে পাঠ্য বইয়ে পরিবর্তন এনে এবং পরে কওমি মাদরাসার সর্বোচ্চ ডিগ্রিকে মাস্টার্সের সমমান দেওয়ার মধ্য দিয়ে সরকার নানা আলোচনার সূত্রপাত ঘটায়। সর্বশেষ তাদের দাবি অনুযায়ী সুপ্রিম কোর্ট চত্বর থেকে ভাস্কর্য অপসারণের ঘটনায় ওই আলোচনা নতুন মাত্রা পায়। আর এভাবেই গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠে ইসলামপন্থী দলগুলো।

ভোটের মাঠে এগিয়ে থাকতেই ইসলামী দলগুলোর সঙ্গে সখ্য আ. লীগের

ভোটের মাঠে এগিয়ে থাকতেই হেফাজতসহ বেশ কিছু ইসলামী দলের সঙ্গে সখ্য রাখতে চায় আওয়ামী লীগ। এ জন্য দীর্ঘদিনের মিত্রদের বিরোধিতা সত্ত্বেও হেফাজতের বিভিন্ন দাবি-দাওয়া মেনে নেওয়া হচ্ছে, ১৪ দলে ইসলামপন্থীদের যোগ দেওয়ানোর উদ্যোগ চলছে, সৌদি সরকারের সঙ্গে সম্পর্কের উন্নয়ন ঘটানো হয়েছে। এর মধ্য দিয়ে দেশবাসীকে আওয়ামী লীগ যে বার্তাটি দিতে চায় সেটি হলো, তারা ইসলামবিরোধী নয়। দলটির নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের বেশ কয়েকজন জানিয়েছেন ইসলামী দলগুলোর সঙ্গে সরকারের সখ্য নির্বাচনী কৌশলমাত্র। এটি আওয়ামী লীগের ধর্মনিরপেক্ষ, অসাম্প্রদায়িক নীতি থেকে পশ্চাদপসরণ নয়।

তাঁদের মতে, ভোট এলেই গ্রামগঞ্জে আওয়ামী লীগকে ইসলামবিরোধী দল হিসেবে প্রচারণা চালানো হয়। এ প্রচারণায় মূল ভূমিকায় থাকেন মাদরাসাকেন্দ্রিক আলেম-উলামারা। বিএনপি-জামায়াত তাঁদের মাঠে নামায়। আগামী নির্বাচনে আর ওই সুযোগ দিতে চায় না সরকার। আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নীতিনির্ধারকরা খুব ভালোভাবেই জানেন, কট্টর ইসলামী দলগুলোর কর্মী-সমর্থকরা নৌকায় ভোট দেবে না। তবে তাঁরা যাতে সরকারবিরোধী ভূমিকায় না নামেন সে জন্যই এ প্রচেষ্টা।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সাবেক সদস্য নূহ-উল-আলম লেনিন কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘হেফাজতের সঙ্গে সরকারের সম্পর্ক নতুন কিছু নয়। ২০০৮ সালে ক্ষমতায় আসার পরই হেফাজতের আমিরকে কওমি মাদরাসা বোর্ডের চেয়ারম্যান করা হয়। কিন্তু মাঝখানে তারা বিএনপি-জামায়াতের ষড়যন্ত্রে পা দিয়েছিল। তারা গণজাগরণ মঞ্চের বিরুদ্ধে নেমে তাণ্ডব চালিয়েছিল। তখন কিন্তু সরকার তাদের বিরুদ্ধে যে ব্যবস্থা নেওয়া দরকার তা নিয়েছিল। এখন হেফাজত আইন-শৃঙ্খলাবিরোধী কোনো কর্মসূচিতে নেই। আমরা কেন তাদের বিএনপি-জামায়াতের সঙ্গে সখ্য গড়তে দেব? ভোটের রাজনীতিতে ধর্মের কার্ড তো সবাই ব্যবহার করে। তার মানে এই নয় যে আওয়ামী লীগ তাদের মৌলিক অবস্থান থেকে সরে গেছে। ’

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আমরা হেফাজতকে বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছি বিষয়টি এমন নয়। অংশগ্রহণমূলক গণতন্ত্র এবং ঐক্যবদ্ধ জাতি বিনির্মাণের স্বার্থে সব ধর্মবিশ্বাসী মানুষের ন্যূনতম কিছু ইস্যুতে একমত হওয়া উচিত। এ ইস্যুগুলো হচ্ছে—দেশপ্রেম, গণতন্ত্র, মানবকল্যাণ ও উন্নয়ন। আমরা চলমান উন্নয়ন ধারায় সবাইকে সংশ্লিষ্ট করতে চাই। মূলত এ কারণেই কওমি মাদরাসার স্বীকৃতি বা ধর্মভিত্তিক রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে একটি সহাবস্থান সৃষ্টির চেষ্টা চলছে। ’

দলের সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য অসীম কুমার উকিল বলেন, ‘আমরা সুন্দরের পক্ষে, কিন্তু কূপমণ্ডূকতার বিরুদ্ধে। আমরা ভাস্কর্যের পক্ষে, কিন্তু ধর্মপ্রাণ মানুষের অনুভূতিতে আঘাত করতে চাই না। ’ হেফাজতের সঙ্গে সখ্যের পেছনে ভোটের সমীকরণ জড়িত কি না জানতে চাইলে অসীম কুমার উকিল বলেন, ‘না, সে সম্পর্ক নেই। তবে ভোট নষ্ট হয় আমরা তেমন কোনো কাজ করব না। ’

দলীয় সূত্রগুলো জানায়, ১৪ দলীয় জোটেও ইসলামী দল যোগ করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। ১৪ দলের সর্বশেষ বৈঠকে ইসলামী ফ্রন্ট বাংলাদেশকে জোটে অন্তর্ভুক্ত করার বিষয়ে আলোচনা হয়। এ বিষয়ে জোটের একাধিক শরিক আপত্তি জানিয়েছে।

সূত্র মতে, আগামী নির্বাচনে ইসলামী দলগুলোকে পক্ষে রাখতে সৌদি সরকারের সঙ্গেও সম্পর্কোন্নয়ন ঘটিয়েছে সরকার। সম্প্রতি সৌদি নেতৃত্বাধীন একটি জোটে যোগ দিয়েছে বাংলাদেশ। অন্যান্য আরব দেশের সঙ্গেও সম্পর্ক মজবুতের চেষ্টা করছে সরকার।

জানতে চাইলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইমেরিটাস অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘হেফাজতের সঙ্গে সখ্য তাদের দিক থেকে কৌশল হতে পারে, কিন্তু আমাদের সাধারণ মানুষের দিক থেকে এটি দুঃখজনক। আওয়ামী লীগের তো ঐতিহাসিক একটি দিক রয়েছে। তারা আওয়ামী মুসলিম লীগ থেকে মুসলিম শব্দটা পরিত্যাগ করে ধর্মনিরপেক্ষ হয়েছে। এখন যদি তারা আবার পুরনো দিকে চলে যায় তাহলে সেটা তাদের জন্য একটি ঐতিহাসিক ব্যর্থতা হবে। আওয়ামী লীগ মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্ব দিয়েছিল। এখন তারা যদি এসব করে তবে তাদের সঙ্গে তো বিএনপির কোনো পার্থক্য থাকল না। ’

একাত্তরের ঘাতক-দালাল নির্মূল কমিটির সভাপতি শাহরিয়ার কবির বলেন, ‘আওয়ামী লীগ যেটাকে কৌশল বলছে সেটাকে আমরা তা বলতে পারি না। আমি মনে করি, এটা বড় ধরনের আদর্শগত বিচ্যুতি। রাজনীতির কারণে তারা আপস করতে পারে, কিন্তু এর ফলে কী হচ্ছে? মৌলবাদী, সাম্প্রদায়িক অপশক্তি সমাজে এক ধরনের গ্রহণযোগ্যতা পাচ্ছে। সমাজের মৌলবাদীকরণ বাড়ছে। মানুষের মধ্যে এক ধরনের ধারণা তৈরি হচ্ছে যে হেফাজত যা করছে তাই ঠিক। তাদের দাবি তো সরকার মেনে নিচ্ছে। নির্বাচন করতে গেলে নানা রকম কৌশল করতে হয়, কিন্তু তার পরিণামটাও ভাবতে হবে। ’

চিন্তিত নয় বিএনপি

হেফাজতের সঙ্গে সরকারের সম্পর্ক ভালো করার চেষ্টা দৃশ্যমান হলেও এ নিয়ে বিএনপি তেমন একটা চিন্তিত নয়। দলটি মনে করে, আদর্শিক কারণে ইসলামপন্থীদের ভোট আওয়ামী লীগ আগেও কখনো পায়নি, ভবিষ্যতেও পাবে না।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘বিএনপির দিকে জনমতের পাল্লা ভারী দেখে সরকার বেসামাল হয়ে এখন এই দল ওই দলকে কাছে টানার চেষ্টা করছে। কিন্তু এতে লাভ হবে না। এ দেশের উলামা-মাশায়েখ ও ধর্মপ্রাণ মানুষ কিছুতেই তাদের ভোট দেবে না। জামায়াত ও হেফাজতের সঙ্গে সরকার যে আচরণ গত কয়েক বছরে করেছে, সেই ক্ষত কোনো মলম দিয়ে উপশম করা সম্ভব নয়। ’

দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের মতে, ‘হেফাজতের সঙ্গে সম্পর্ক করার তৎপরতা দেখে কেবল বিএনপি নয়; তাদের জোটের অনেকেই লজ্জা পাচ্ছে। কিন্তু আওয়ামী লীগের সেদিকে ভ্রুক্ষেপ নেই। তারা ক্ষমতায় থাকার জন্য পাগল হয়ে গেছে। কিন্তু বলছি, এসব করে লাভ হবে না। ’ এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘২০ দলীয় জোটের বাইরে আরো যে যে দলের সঙ্গে সম্পর্ক রাখা দরকার বিএনপি অবশ্যই তা রাখছে। ’

বিএনপি মনে করে, জামায়াত তাদের জোটে না থাকলেও তার ফলাফল সরকারের অনুকূলে যাবে না। কারণ মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচারকে কেন্দ্র করে গত সাত-আট বছরে মৃত্যুদণ্ড ছাড়াও আন্দোলনের কারণে জামায়াতের ব্যাপক লোকবল ক্ষয়, সাংগঠনিক ও আর্থিক ক্ষতিসহ আরো যেসব ঘটনা ঘটেছে তার ক্ষতিপূরণ সরকারের পক্ষে দেওয়া সম্ভব নয়। পাশাপাশি জামায়াতও এসব ভুলে গিয়ে আওয়ামী লীগকে ভোট দেবে না। যদিও যুদ্ধাপরাধের বিচারসহ বিভিন্ন ইস্যুতে জামায়াতের পক্ষাবলম্বন না করায় বিএনপির ওপরও দলটির ক্ষোভ রয়েছে।

জানতে চাইলে মীর নাসির কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘ইসলামপন্থীদের সঙ্গে বিএনপির সম্পর্ক ভালো থাকাটাই স্বাভাবিক। কারণ বিএনপি জাতীয়তাবাদী ইসলামী মূল্যবোধে বিশ্বাসী। তা ছাড়া প্রতিষ্ঠার পর থেকে বিএনপি কখনো ইসলামী মূল্যবোধে বিশ্বাসী দল বা মানুষকে আঘাত করেনি। ফলে সরকার কী করল সে নিয়ে আমরা চিন্তিত নই। ’

পিছিয়ে নেই জাপাও

ইসলামী দলগুলোকে কাছে টানার ব্যাপারে পিছিয়ে নেই সংসদে বিরোধী দল জাতীয় পার্টিও। এরই মধ্যে তারা ৫৮ দল নিয়ে যে সম্মিলিত জাতীয় জোট গঠন করেছে তার মধ্যে ৩৪টিই ইসলামপন্থী।

এরশাদ এই জোট নিয়ে ৩০০ আসনে প্রার্থী দিয়ে ক্ষমতায় যেতে চান বলে জানান জাপা নেতারা।

এ বিষয়ে দলটির মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদার বলেন, ‘১৪ বা ২০ দলীয় জোটের বাইরে অনেক দলের নামই মানুষ জানে না। তাই বলে কি জোট প্রশ্নবিদ্ধ হবে?’ তিনি বলেন, ‘আমরা সবেমাত্র পথচলা শুরু করলাম। আগামীতে দেশের মানুষই এই জোটের মূল্যায়ন করবে। ’

বিএনএ চেয়ারম্যান সেকান্দার আলী মনি জানান, তাঁরা চাচ্ছেন শক্তিশালী জোট। কিন্তু নাজমুল হুদার কারণে এত দিন তা সম্ভব হয়নি।

এরশাদের এই জোটে ৫৮টির মধ্যে দুটি দল নিবন্ধিত।
সুত্র-কালের কন্ঠ

এই সংবাদটি 1,102 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com