মঙ্গলবার, ০৬ জুন ২০১৭ ০২:০৬ ঘণ্টা

গোলাপগঞ্জ ও বিয়ানীবাজর আসনে আলোচনায় যারা

Share Button

গোলাপগঞ্জ ও বিয়ানীবাজর আসনে আলোচনায় যারা

সিলেট রিপোর্ট: সিলেট -৫ (গোলাপগঞ্জ ও বিয়ানীবাজর) আসনে নৌকা প্রতীক আগামীতে নৌকা পাচ্ছেন কে? বর্তমান সংসদ সদস্য শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ নাকি কানাডা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি সারওয়ার হোসেন। এছাড়া যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুল হাসিব মামুনও জেলা আওয়ামীলীগ নেতা এডভোকেট নাসির উদ্দীন খান ও মনোনয়ন চাইবেন বলে জানিয়েছেন ঘনিষ্ঠজনরা। তবে সিলেট আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা জানিয়েছেন, যারাই মনোনয়ন চান না কেন, নৌকার টিকিট পেতে পারেন নাহিদই।
আওয়ামী লীগের প্রতিদ্বন্দ্বী কে হবে? নির্বাচন কমিশনে নিবন্ধন হারানোয় জামায়াতের সুযোগ নেই। ফলে জামায়াত নেতা হাবিবুর রহমানের ভোটে দাঁড়ানোর সুযোগ নেই বললেই চলে। তবে জোটের অন্যতম শরিক জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের অবস্থান কিছুটা শক্তহলেও এখানে শক্তিশালী প্রাথীর সংকট আছে মনে মনেকরেন সচেতন মহল। এই সুযোগে ইসলামী ঐক্যজোটের এডভোকেট এম এ রকিব মনোনয়ন চাইতে পারেন। অবশ্য এম এ রকিবের সাংগঠনিক ভিত্তি একেবারেই শুন্যের কোটায়। জমিয়তের পক্ষ থেকে যদি এডভোকেট রকিব বা মাওলানা রশিদ আহমদকে সর্মথন দেয়া হয় তাহলে এই আসনে ভাল রেজাণ্ট করতে পারেন তাদের কেউ।

২০০১ সালে এ আসনে স্বতন্ত্র প্রাথী হিসেবে নির্বাচন করে সাংসদ নির্বাচিত হন শিল্পপতি সৈয়দ মকবুল হোসেন লেচু মিয়া। পরে তিনি বিএনপিতে যোগ দেন। নবম নির্বাচনে এখানে জোটের প্রার্থী জামায়াত নেতা হাবিবুরকে মনোনয়ন দিলে বিদ্রোহী হয়ে আবার স্বতন্ত্র প্রার্থী নির্বাচন করেন। ৪৮ হাজার ৯৭৪ ভোট পেয়ে তৃতীয় হন মকবুল হোসেন।

বিএনপির রাজনীতিতে সক্রিয় না হলেও দলীয় মনোনয়ন চাইতে পারেন সৈয়দ মকবুল হোসেন লেচু মিয়া। এ আসনে বিএনপির মনোনয়ন পেতে দীর্ঘ দিন থেকে মাঠে কাজ করছেন জেলা বিএনপির উপদেষ্টা রশিদ আহমদ চৌধুরী, জেলা বিএনপির বর্তমান সভাপতি আবুল কাহের শামীম, সাবেক মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক শাহরিয়ার হুসেন চৌধুরী, জেলা ছাত্রদলের সাবেক আহ্বায়ক ফয়সল আহমদ চৌধুরীও মনোনয়ন পেতে আগ্রহী।

পাশাপাশি বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ইনাম আহমদ চৌধুরীর বাড়িও এ আসনে। বিএনপি চেয়ারপারসন চাইলে তিনিও এ আসনে বিএনপির প্রার্থী হতে পারেন।

এছাড়া এ আসনে নেজামে ইসলাম পার্টির কেন্দ্রীয় সভাপতি মাওলানা আবদুর রকিব এ আসনে প্রার্থী হতে আগ্রহী। তিনি বিএনপির জোটের শরিক।

এই সংবাদটি 1,045 বার পড়া হয়েছে

কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।  শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ।  নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে।  জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।  আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি।  লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ। নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে। জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন। আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি। লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com