বুধবার, ১৮ জুলা ২০১৮ ০৩:০৭ ঘণ্টা

মাওলানা আব্দুল মালেক কে বিতর্কিত করা দু:খজনক

Share Button

মাওলানা আব্দুল মালেক কে বিতর্কিত করা দু:খজনক

 

সাইমুম সাদী :

 

কিছু জিনিস হজম করতে আমার সময় লাগে। মুফতি আবদুল মালেক সাহেবের বিরুদ্ধে কয়েকটি বাচ্চা পোলাপানের বিষোদগার দেখে হতভম্ব হয়ে গেছি। এমন লোকের বিরুদ্ধে বলা যায় তা বুঝতেও সময় লেগেছে।

আবদুল মালেক সাহেবের ফতোয়ায় কারো লেজ আটকে গেছে বাশের চিপায় বুঝা যাচ্ছে। উনার ফতোয়ার এত শক্তি যে লক্ষাধিক সাক্ষরের চেয়েও একজনের সাক্ষরকে কেউ কেউ ভয় পাচ্ছেন মনে হল।

এখন পুরোপুরিই ক্লিয়ার হল, এই সাদ সাহেবের বাংলাদেশী পৃষ্ঠপোষক আমাদের শাহবাগী হুজুরই। ডিপ্লোমেটিক ভিসায় সাদ সাহেব বাংলাদেশে কিভাবে এসেছিলেন তাও পরিস্কার।

আজীবন রাজনীতি এড়িয়ে চলা মুফতি আবদুল মালেক সাহেব এই ঐতিহাসিক ফতোয়া দিয়ে যে কাজ করেছেন ইতিহাসে তা লিপিবদ্ধ হবে তাজদীদ ও এহইয়ায়ে দ্বীন হিসেবে।

কেউ কেউ যুগের চাকাকে ঘুরিয়ে দেন, নদীর স্রোতকে প্রবাহিত করেন উল্টোপথে, গড্ডলিকা প্রবাহের বিপরীতে দাড়িয়ে যান একলা একজন মানুষ।

১৮০৩ সালে ইংরেজ দের বিরুদ্ধে ফতোয়া দিয়েছিলেন শাহ আবদুল আজীজ মুহাদ্দিসে দেহলভী রহ.। ২০১৮ তে এসে সেই ধারাবাহিকতায় যুক্ত হল আরেকটি নাম মুফতি আবদুল মালেক দামাত বারাকাতুহুম।

যখন চতুর্দিকে নাই নাই শব্দ শুনি তখনও প্রবল বিস্ময়ে দেখি চট্টগ্রামের হাটহাজারী থেকে বটবৃক্ষের মত একটি মানুষ তোড়া এবং কোড়া, ভয় এবং লোভের সাগর পেরিয়ে এসে হাজির হয়ে যান আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরী। একটা ফতোয়া দিয়ে যুগের হাওয়াকে ঘুরিয়ে দেন প্রচারবিমুখ ব্যাক্তি মুফতি আবদুল মালেক।

বলতে দ্বিধা নেই, যে গ্রহে একজন মুফতি আবদুল মালেক আছেন, একজন জুনাইদ বাবুনগরী আছেন সেই গ্রহে নতুন কোন মুফতি, নতুন কোন বিপ্লবী না হলেও চলবে।

 

গাজী ইয়াকুব:

পাথেয়_নয়_ফাত্তান
ওদের_বিরুদ্ধবাদে_জনমত_গড়ে_তুলুন
ওরা_ভিনদেশী_এজেন্ট

হে_শাহবাগের_কথিত_হযরতেরা
আপনারা উম্মতের মাঝে ঐক্য সৃষ্টি করতে না পারলে কি হবে বিভেদ সৃষ্টিতে ভালোই পারঙ্গম

একজন মাওলান আবু তাহের মিসবাহ এবং একজন মুফতী আব্দুল মালেক আমাদেরকে যা দিয়েছেন আপনি এবং আপনার অনুগামীরা হাজার বছর চেষ্টা করেও কি তা দিতে পারবেন???

আবু তাহের মিসবাহ এবং আব্দুল মালেক সাহেবরা যদি প্রচারবৈমুখ্য না হয়ে আমাদের মতো লোকদেখানো ধান্ধাবাজ হতেন তাহলে শুধু দেশের আলেমসমাজই নয় বর্হিবিশ্বের সাধারন জনতা ও সংস্থা সমূহ তাদের কাজের স্বীকৃতি দিতে লাইন ধরতেন

আমার জীবনের চেয়েও প্রিয় হযরত মিসবাহ সাহেবের একটি ঘটনা আজ না লিখে পারলাম না

সন ২০১৩ হজ্বের সফরে একদিন বাইতুল্লাহর উম্মে হানীতে হুজুরের সাথে বসে আছি, “মাওলানা ইয়াকুব” আমি সাধারনত তাওয়াফ করার সময় কাউকে সাথে করে নিতে চাই না, আজ তোমার অনুরোধ না রেখে পারছি না বিদায় আমার সাথে চলো! প্রচন্ড ভিড়ের মাঝে হুজুর আমার ডানহাতটা ধরে মাতাফে নেমে তাওয়াফ শুরু করলেন
আমার ধারনা ছিল এমন পরিস্থিতিতে কোনভাবেই আমাদের পক্ষে তাওয়াফ সম্পন্ন করা সম্ভব নয়!

হে ভাই, হে সমালোচক বন্ধু! আল্লাহুর কসম আশেকে বাইতুল্লাহ এই মানুষটি আমাকে নিয়ে যখনি তাওয়াফ শুরু করলেন কোন কুদরতি ইশারায় যেন আপসে আপ সামনের জায়গা গুলো ফাঁকা হয়ে যাচ্ছিল, ওনি নির্ভাবনায় আমাকে নিয়ে তাওয়াফ শেষ করে মুছাল্লায়ে জীবরাইলে দুরাকাত নামাজ আদায় করে আবারো তিলাওয়াতে বসে গেলেন
এবং আমার তারাক্কীর জন্য অনেক অনেক দোয়া করলেন

একদিন একজন আইনজীবী বন্ধু খুউব অনুরোধের সুরে আজ মিসবাহ সাহেব হুজুরকে একটু কাছ থেকে দেখবেন বলে সাথে করে নিয়ে যাওয়ার বায়না ধরলেন! হোটেল রুম থেকে বের হয়ে বাইতুল্লাহর উম্মেহানীতে ঢুকতে দূর থেকেই ইশারা করে “এডভোকেট বাবুল ভাই” বলতে লাগলেন ‘ইয়াকুব ভাই” হুজুরকে আর আমাকে চিনিয়ে দিতে হবে না, আমি যদি ভুল না করে থাকি ঐ যে ওনিই হচ্ছেন “বাইতুল্লাহর মুসাফির” নামক কালজয়ী গ্রন্থের লিখক মাওলানা আবু তাহের মিসবাহ সাহেব
বললাম কি করে চিনলেন? ভাই আমরা ওকালতি করে খাই, মানুষ চিনতে কখনো সময় নেই না! হাজারো লোকের মাঝে নুরে ঝলমল আলোকিত মানুষটিকে চিনতেও যদি ভুল করি তাহলে ওকিল হয়ে কি লাভ!আমিও সায় দিলাম জ্বী আপনি ঠিকই ধরেছেন

উম্মতের দরদী মালী এই আলেম মানুষটিকে সাউদীর শ্রেষ্ঠ আলেম মরহুম বিন বাজ (রাহ্) ভারতরত্ন “বিশ্বখ্যাত আকাবির’ হযরত নদভী (রাহ্) পাকিস্তানের সর্বজন শ্রদ্ধেয় হযরত সলিমুল্লাহ খান (রাহ্) বাংলাদেশের ওলিকুল শিরোমণি হযরত হাফেজ্জী হুজুর (রাহ্) এবং ইরাকের সিংহশাবক প্রেসিডেন্ট সাদ্দাম হোসাইন চিনতে পারলেও শুধু চিনতে পারি নি আমাদের মতো হতভাগারা!!!

হে শাহবাগী চেতনাধারী কথিত হযরতরা!!! এদেশের আলেমসমাজের “নীরব রাহবার” জীবন্ত কিংবদন্তী হযরত আবু তাহের মিসবাহ ও তাঁর শিষ্য মুফতী আব্দুল মালেক সাহেবকে নিয়ে আপনাদের কথিত ধর্মীয় পত্রিকা “পাথেয়” তে আর কোনরূপ মনগড়া প্রতিবেদন ও প্রোপাগান্ডা চালায়েন না
নতুবা বিভিন্ন অপকর্ম ও বিতর্কের জন্ম দেওয়ায় এতদিন তো ডাস্টবিনে নিক্ষেপ হয়েছেন এখন নিক্ষিপ্ত হবেন সোঝা নালা নর্দমায়………

 

রোকন রাইয়ান:

মাওলানা সাদ ইস্যুর বিষ কতটা ছড়াচ্ছে এবং ছড়াবে তা আশা করি সবাই টের পাচ্ছেন। বিষয়টা আরও বেশি স্পষ্ট হতে স্থান কাল পাত্র ভেদে উদ্ভট কিছু মানুষ ও তাদের নোংরা বাণী প্রকাশ পেতে থাকবে এতে অবাক হওয়ার কিছু নেই। তবে সেই নোংরামিতে যে নিজেরাই ডুববেন তা যতদ্রুত টের পাবেন আশা করি ততই মঙ্গল।

ভুল মাসলাক বা ভ্রান্ত আকিদা থেকে মানুষকে সতর্ক করাই আলেমদের কাজ। শ্রদ্ধেয় মাওলানা আবদুল মালেক সাহেব এর বাইরে কিছু করেননি। মাওলানা সাদকে হটিয়ে নিজে ক্ষমতায় বসেবন এমন কোনো মতলবও আটেননি।

মাওলানা সাদের পক্ষাবলম্বনকারীরা তার ভুল মাসালা ও আকিদার ইফেক্ট নিয়ে চিন্তা করলে বিষয়টা এমন তালগোল পাকাতো না।

ক্যামেরা-মোবাইল নিয়ে নামাজ নাজায়েজ ও মাদরাসার কামাই বেশ্যার চেয়ে খারাপ এ দুই অভিযোগ আমলে নিলে কোটি মুসলিম ইসলাম থেকে খারিজ হয়ে যান। ‘বাংলাপন্থী’ মানুষরা কি এ বিষয়টা চিন্তা করে দেখবেন?

মাওলানা সাদপন্থীরা বলতে পারেন, তিনি রুজু করেছেন, দেওবন্দ তা গ্রহণ করছে না।

রুজুর বিষয়টা আমরা জানি, কিন্তু যে প্রকারের রুজু তিনি করেছেন তাকে বাংলায় বলে “কথার কথা”। আবার রুজু পরবর্তী তার রুক্ষ ভাবও আমরা দেখেছি, দেখতেছি।

রুজুর নাম দিল থেকে ভুলকে মুছে ফেলা, প্রলেপ দেয়া নয় যাতে সেটা পুনরায় ভেসে উঠে।

আবার সাদ সাহেবের রুজুর বিষয়টা এমনই যে ভক্তরা কিলিয়ে পিটিয়ে তা বাস্তবায়ন করতে চাচ্ছেন কিন্তু অভিযুক্ত ব্যক্তি সেটা নিয়ে কোনো রা করছেন না। আরে রুজুই যদি করেন তবে কি নিজের দল দুই ভাগ হয়ে যাচ্ছে দেখেও চুপ করে থাকেন? তাহলে তো দল ভাগকারী ভিনদেশি এজেন্ট বলবে কেউ কেউ।

মাওলানা আবদুল মালেক সাহেবের পক্ষ থেকে যে ফতোয়া প্রচার হয়েছে তা নিয়ে আলোচনা সমালোচনা হতে পারে, কিন্তু পাকিস্তানপন্থী টেগ দিয়ে সাময়িক যে নিষিদ্ধসুখ অনুভব করলেন তার ঘা একদিন নিশ্চয়ই পোড়াবে বিবেককে।

সুতরাং দ্রুত ভুল বুঝতে পেরে সরে আসুন। নিজেদের মধ্যে দ্বন্দ্ব জিইয়ে শত্রুপক্ষকে খুশি করা বোকামি।

এই সংবাদটি 1,278 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com