বৃহস্পতিবার, ২৭ সেপ্টে ২০১৮ ১০:০৯ ঘণ্টা

শামিমরুমি টিটনের ” অমৃত রসে মৃগতৃষ্ণা প্রেমে “

Share Button

শামিমরুমি টিটনের ” অমৃত রসে মৃগতৃষ্ণা প্রেমে “

মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দীকী তালুকদার ,সিলেট রিপোর্ট: সাম্প্রতিক বছরগুলোতে একুশের বইমেলায় প্রায় চার-পাঁচ হাজার নতুন বই প্রকাশিত হচ্ছে। এসব গ্রন্থের এক বড় অংশই নতুন ও নবীণ কবিদের অনুল্লেখযোগ্য রচনা। কবিতার বইয়ের বাইরে শত শত উপন্যাস, ছোটগল্প, প্রবন্ধ, ছড়া, বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনী, শিশুতোষ সাহিত্য, ভ্রমণ বিষয়ক ও অনুবাদ সাহিত্য থাকে। সব মহাকাব্য সমান বড় নয়। যদিও মহাকাব্য মানেই বড় কাব্য। যেমন “মহাভারত”, প্রাচীন এ মহাকাব্যটি অসম্ভব রকমের বড়। শুধুমাত্র আয়তনে নয়! মহাকাব্য বড় আরও একদিক দিয়ে, মহাকাব্য বীরত্বের গাথা, বীরের কাহিনীই এর ভিত্তি। বীরের মহাকাব্য তার বীরত্ব অসামান্যত্ব সব ধরা পড়ে একটি মহাকাব্যে। মহাকাব্যে বীর থাকে একজন, থাকেই ঘিরেই কাহিনী। এই মহাকাব্যের অধিনায়ক হচ্ছেন প্রাকৃতজ শামিমরুমি টিটন। তিনি একজন কবি, গীতিকার ও সুরকার। তারিসাথে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড ( এনসিটিবি ) কতৃক অনুমোদিত দেশের সর্বসেরা’ একমাত্র ভাষা বিষয়ক গ্রন্থ সহ নিম্ন মাধ্যমিক, উচ্চমাধ্যমিক, ও স্নাতক শ্রেণির শতাধিক টেকস্ট ও সহায়ক গ্রন্থের প্রণেতা তিনি শামিমরুমি। এছাড়াও সংগীত বিষয়ক গ্রন্থ : উচ্চাঙ্গ সংগীত ( ১ম ও ২ য় পত্র ) ও লঘুসংগীত ( ১ম ও ২য় পত্র ) জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড ( এনসিটিবি ) কতৃক অনুমোদিত, সহ আরও অনেক জ্ঞান ভূবনের সহায়ক প্রান্ডিত্য প্রতিভাবান ব্যক্তিত্ব তিনি।
একজন প্রখ্যাত দার্শনিক কিছুদিন আগে জাতিসংঘে যে বক্তব্য রেখেছেন তার আলোকে বলা যায় বিশ্বসভ্যতার শুরু থেকে এ পর্যন্ত যতগুলো সভ্যতা আসার অবলোকন করেছি তাতে সবগুলো সভ্যতার মিশেলে আজকের এ আধুনিক সভ্যতা যা আমাদের রক্তে চিরপ্রবাহমান চিরজাগ্রত এক মুর্তমান সহাবস্থান। মহাকাব্যের প্রকৃত রস আস্বাদনের জন্য প্রাচীন সভ্যতা গুলোর অবতারণা করা হলো। জড় এবং জীবন নিয়ে আমাদের চলতে হয়! অবিরাম ধারায় জগৎ জীবন ও সৃষ্ট এবং সৃষ্টির সঙ্গে স্রস্টার যে প্রগার আর নিবিষ্টতা তা এ মহাকাব্যের মূল উপজীব বিষয়, যা বহুলাংশে অমৃত সমান। সেই ভাবে এই “অমৃত রসে মৃগ তৃষ্ণা প্রেমের ” অধিনায়ক স্বর্গ মর্ত্য খুড়ে খুড়ে নীহারিকাপুঞ্জের পথ ধরে জ্যোতিস্কের অনন্ত আলোর সন্ধানে এক নিবিষ্টচারি অনুসন্ধানী দার্শনিক ” প্রাকৃতজ শামিমরুমি টিটন” তিনি সেই পরশমণি। তবে এই মহাকাব্য যে কোন ভাষার অমূল্য সম্পদ ও বিরল দৃষ্টান্ত ঘটনা। বর্তমান সময়ে দুুই বাংলার মধ্যে এই ধরনের একটি মহাকাব্য এখন পর্যন্ত প্রথিতযশা লেখকরাও উপস্থাপন করেনি। যাহা এই কাব্য উপন্যাসে প্রাকৃতজ শামিমরুমি টিটন উল্লেখ করতে সক্ষম হয়েছেন, সেই বিষয়টি অত্যান্ত এক বিরল দৃষ্টান্ত প্রতিভাধর। ২০১৮ সালের একুশে গ্রন্থমেলার শেষদিনে তেমনই এক বিরল প্রকাশনার নজির স্থাপিত হয়েছে। আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন সৃষ্টিশীল প্রকাশনা সংস্থা দি- অ্যাটলাস পাবলিশিং হাউজের অন্যতম কর্ণধার প্রাকৃতজ শামিম রুমি টিটন ইতিমধ্যেই বহুমুখী প্রতিভার স্বাক্ষর রেখেছেন।
‘অমৃত রসের মৃগতৃষ্ণা প্রেমে কেটে যায় নিশি ভোর।
কেঁদেছি অতুল! মৃত্যু-অনিদ্রায়-এখন আর কাঁদি না-
শুকিয়েছে জল খড়কুটোর মতো- খাঁ খাঁ ধূঁ-ধূঁ বালুচর!’
‘ফুরায় না ধরা যৌবনজলে
নিশিদিন চিরদিন
মুছে ফেলে জীবনের লেনদেন
রাখে না কিছু।
তাঁর লেখা ‘অমৃত রসে মৃগতৃষ্ণা প্রেমে’ গতবারের (২০১৮) একুশের গ্রন্থমেলার শেষ মুহুর্তের বিশেষ চমক হিসেবে আবির্ভূত হয়েছিল। লেখক এর নাম দিয়েছেন মহাকাব্য-উপন্যাস। এই মহাকাব্যোপন্যাসের মূল উপজীব্য, মানবীয় প্রেম ও আধ্যাত্মবোধ।
‘অমৃত রসের মৃগতৃষ্ণা প্রেমে কেটে যায় নিশি ভোর।
কেঁদেছি অতুল! মৃত্যু-অনিদ্রায়-এখন আর কাঁদি না-
শুকিয়েছে জল খড়কুটোর মতো- খাঁ খাঁ ধূঁ-ধূঁ বালুচর!’
‘ফুরায় না ধরা যৌবনজলে
নিশিদিন চিরদিন
মুছে ফেলে জীবনের লেনদেন
রাখে না কিছু।
জীবনের প্রলেপনে প্রলপন স্বপ্নঋতু-
ভেসে ওঠে মেঘজলে-জলছবি গল্প বলে:
ফুল-পাখি, লতাপাতা, নদী-জল নৈ:শব্দ্যে-’
এভাবেই ললিত গীতল ছন্দে এগিয়েছে মহাকাব্য উপন্যাসের কাব্য-গাঁথা।
সাম্প্রতিক বাংলাসাহিত্যের প্রকাশনায় নি:সন্দেহে এ এক ব্যতিক্রমী সংযোজন। প্রথমত: মহাকাব্য যে ভাষায় একটি বিরলপ্রজ সৃষ্টি। হাজার বছরে সমগ্র বিশ্বসাহিত্যে সার্থক মহাকাব্যের সংখ্যা এক ডজনের বেশী নয়। বিশ্বসাহিত্যে গ্রীক পুরাণ অবলম্বনে লেখা প্রাচীন মহাকাব্যগুলোর কথা বাদ দিলেও মাইকেল মধূসুদনের মেঘনাধবধ থেকে, নবীন চন্দ্র সেনের ত্রয়ী মহাকাব্য, কায়কোবাদের মহশ্মশান, সৈয়দ ইসমাইল হোসেন সিরাজীর স্পেন বিজয় কাব্য পর্যন্ত বাংলা সাহিত্যে যে দশ-বারোটি মহাকাব্য প্রকাশিত হয়েছে তার সবই হিন্দু পুরাণ ও ঐতিহাসিক ঘটনাবলী নির্ভর সাহিত্য। প্রাকৃতজ শামিমরুমির মহাকাব্য-উপন্যাসকে সে ধারায় ফেলা যাচ্ছেনা। তার কাব্যপোন্যাসে মানবিক প্রেমের আখ্যান এবং আধ্যাত্মিক চেতনার এক বিমূর্ত বহি:প্রকাশ ঘটলেও কোন বিশেষ ধর্ম বা ঐতিহাসিক ঘটনার সুনির্দ্দিষ্ট বিবরণ এখানে নেই। তবে প্রকাশনা শৌকর্যে এটি অনন্য। সোয়া দুইশ পৃষ্ঠার এই গ্রন্থের অসাধারণ প্রচ্ছদ থেকে শুরু করে প্রতিটি পৃষ্ঠায় রয়েছে শিল্পীর সৃজনশীলতা এবং উচ্চমানসম্পন্ন্ আধুনিক প্রকাশনা প্রযুক্তির উজ্জ্বল কারুকাজ। মোটা আর্ট পেপারে ছয়রঙ্গা শৈল্পিক অলংকরণে মন্ডিত এক খন্ডের সঙ্গে আরেকটি সুলভ সংস্করণসহ দুই খন্ডের এই মহাকাব্য-উপন্যাসের বহুবর্নিল প্রচ্ছদ অঙ্কিত বক্সটিও দর্শনীয়। সংগ্রহে রাখার মত। সোয়া দুইশ পৃষ্ঠার মূল গ্রন্থটির মূল্য রাখা হয়েছে ৮৩৫ টাকা। আর সুলভ সংস্করণের মূল্য ৬০০ টাকা। সৃজনশীল প্রকাশনার অন্যতম পথিকৃত দি ইউনিভার্সেল একাডেমী গ্রন্থটির একমাত্র পরিবেশক হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেছে। সাম্প্রতিক বাংলা সাহিত্যের এই অনন্য সংযোজন মহাকাব্য-উপন্যাস অমৃত রসে মৃগতৃষ্ণা প্রেমে’র বহুল প্রচার দাবী রাখে। পরিশেষে বই প্রেমিক পাঠক সু- হৃদয়ের নিকট আহ্বান উক্ত বইটি প্রত্যকের ঘরে ঘরে একটি কপি সংগ্রহীত করে রাখা মানে ঘরকে প্রদীপ্ত আলোয় আলোকিত করার মত বিদ্বমান। প্রকাশনায় বহুমুখী প্রতিভা ও অনন্য কৃতিত্বের জন্য কবি প্রাকৃতজ শামিমরুমি টিটনকে আমার আন্তরিক অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা।

এই সংবাদটি 1,009 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com