বৃহস্পতিবার, ১১ অক্টো ২০১৮ ১১:১০ ঘণ্টা

নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনে ২০ দলীয় জোটের মনোনয়ন প্রত্যাশী মুফতি মুনির হোসাইন কাসেমী

Share Button

নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনে ২০ দলীয় জোটের মনোনয়ন প্রত্যাশী মুফতি মুনির হোসাইন কাসেমী

সিলেট রিপোর্ট: আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে নারায়ণগঞ্জ-৪ (ফতুল্লা-সিদ্ধিরগঞ্জ) আসনে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের তৎপরতা শুরু হয়ে গেছে। এর মধ্যে এ আসনে ২০ দলীয় জোটের প্রার্থী হতে চান জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের যুগ্ম-মহাসচিব ও নারায়ণগঞ্জ জেলা কমিটির সভাপতি মুফতী মুনির হোসাইন কাসেমী। এই লক্ষে নারায়ণগঞ্জ-৪ নির্বাচনী এলাকার স্থানীয় জমিয়ত নেতা-কর্মীরা পুরোদমে গণসংযোগ ও নির্বাচনী প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন।
জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের স্থানীয় নেতা-কর্মীরা জানান, মুফতী মুনির হোসাইন কাসেমীর নির্বাচনী এলাকা ফতুল্লা-সিদ্ধিরগঞ্জ উপজেলার গরীব-দুঃখী মানুষের আপদে-বিপদে তিনি সব সময় সহযোগিতা ও সাহায্যের হাত বাড়িয়ে পাশে দাঁড়াতেন। শীত ও ঝড়সহ প্রাকৃতিক দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্তদের কাছে ছুটে যেতেন ত্রাণ নিয়ে। তিনি সবসময় ২০ দলীয় জোটের শরীক দলের নেতা-কমীদের সাথে নিয়মিত মতবিনিময় ও যোগাযোগ করে চলেন সবসময়। পাশাপাশি এলাকার বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডেও নিয়মিত অংশগ্রহণ করে থাকেন। যে কারণে এলাকার তৃণমূল পর্যায়ে মুফতী মুনির হোসাইন কাসেমী অত্যন্ত জনপ্রিয় ও ক্লিন ইমেজের অধিকারি একটি পরিচিত মুখ। সাধারণ তৌহিদী জনতা ও ভোটারদের কাছেও তিনি অত্যন্ত আস্থাভাজন একজন ব্যক্তিত্ব। বাংলাদেশের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ও আলোচিত এই আসন থেকে ২০ দলীয় জোটের প্রার্থী হিসেবে তিনি নির্বাচনী প্রতিযোগিতায় নামলে, সহজেই জিতে আসবেন বলে প্রবল আশাবাদী দলীয় নেতাকর্মীরা।
এ বিষয়ে মুফতি মুনির হোসাইন কাসেমী জানান, নারায়ণগঞ্জ-৪ সংসদীয় এলাকার সাথে তার নাড়ি ও আত্মার সম্পর্ক। এলাকার মানুষের সুখে-দুঃখে তিনি সবসময় পাশে ছিলেন এবং এখনও আছেন। ২০ দলীয় জোট প্রার্থী হিসেবে জয়ের বিষয়ে তিনি শতভাগ আশাবাদি। নির্বাচনে জয়ী হলে তিনি এলাকা থেকে সন্ত্রাস, দূর্নীতি, মাদক, চাঁদাবাজি ও নারী নির্যাতন নির্মূলকে অগ্রাধিকার দিয়ে কাজ করে যাবেন। এর পাশাপাশি তিনি সুশাসন, সুবিচার, ন্যায় ও ইনসাফ প্রতিষ্ঠার পাশাপাশি সমাজে বিভিন্ন মতাদর্শের মানুষের শান্তিপূর্ণ সহাবস্থান গড়ে তোলা, উন্নত যাতায়াত ও যোগাযোগ ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা, নাগরিক সেবাকে মানুষের দোরগোড়ায়ে পৌঁছে দেয়া এবং শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসমূহে নৈতিকতা চর্চার প্রতি বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে সার্বিক জনসেবায় নিবেদিত হয়ে কাজ করে যাবেন বলে উল্লেখ করেন।
নারায়ণগঞ্জ জেলা জমিয়তের সাধারণ সম্পাদক মাওলানা ফেরদাউসুর রহমান মুঠোফোনে বলেন, ইতিমধ্যেই জমিয়ত নেতা মুফতী মুনির হোসাইন কাসেমীর পক্ষে গত সপ্তাহ থেকেই আমরা ব্যাপক নির্বাচনী প্রচারণা ও গণসংযোগের কাজ শুরু করেছি। সাধারণ ভোটারদের কাছ থেকে জমিয়ত নেতার প্রতি দৃঢ় আস্থা ও ব্যাপক সমর্থন আমরা দেখতে পাচ্ছি। ২০ দলীয় জোট নেতাকর্মীসহ সাধারণ ভোটারদের কাছ থেকে আমরা ইতিমধ্যেই যে পরিমাণ সমর্থন ও সহযোগিতা পাচ্ছি, এই আসনে মুফতি মুনির হোসাইন কাসেমীর বিজয়ী হওয়ার ব্যাপারে আমরা শতভাগ আশাবাদি। এর আরেকটা বড় কারণ, দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় বিরাজ করা রাজনৈতিক মাস্তানী, সন্ত্রাস, খুনাখুনি, চাঁদাবাজী, নারী ধর্ষণ, মাদকের ভয়াবহ বিস্তার এবং জোরজবরস্তি করে মানুষের সম্পদ লুটপাট ও জিম্মিদশার কালচার থেকে এলাকার মানুষ নিষ্কৃতি লাভের জন্য আল্লাহর দরবারে প্রতিদিনই ফরিয়াদ জানিয়ে আসছেন। এমন হতাশাজনক পরিস্থিতিতে যোগ্য ও অভিজ্ঞ রাজনীতিবিদ এবং প্রখ্যাত আলেম মুফতি মুনির হোসাইন কাসেমী নির্বাচনে প্রার্থী হচ্ছেন জেনে এলাকার মানুষ আশাবাদি হয়ে ওঠেছেন। ভোটারগণ নারায়ণগঞ্জকে দীর্ঘ দুঃশাসন থেকে মুক্ত করে ইনসাফ ও সুবিচার প্রতিষ্ঠার জন্য জমিয়ত নেতাকে সংসদে পাঠাতে চান।

এই সংবাদটি 1,024 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com