বৃহস্পতিবার, ০৮ নভে ২০১৮ ০৬:১১ ঘণ্টা

ক্যালিফোর্নিয়ার বারে বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত ১৩

Share Button

ক্যালিফোর্নিয়ার বারে বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত ১৩

ডেস্ক রিপোর্ট :
যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়া অঙ্গরাজ্যের একটি বারে এক বন্দুকধারীর এলোপাথাড়ি গুলিতে এক পুলিশ কর্মকর্তাসহ অন্তত ১২ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরও দশ থেকে ১৫ জন। পরে বন্দুকধারী নিজেও গুলি করে আত্মহত্যা করেন। হামলার সময় বারটিতে শতাধিক কলেজ ছাত্রছাত্রীদের অংশগ্রহণে সংগীত অনুষ্ঠান চলছিল। খবর ডেইলি মেইল ও লস অ্যাঞ্জেলস টাইমসের।

স্থানীয় পুলিশ কর্মকর্তা জানান, স্থানীয় সময় বুধবার রাত ১১টা ২০ মিনিটে লস অ্যাঞ্জেলস থেকে ৬৫ কিলোমিটার উত্তর-পশ্চিমে থাউজ্যান্ড ওকস এলাকায় বর্ডারলাইন বার অ্যান্ড গ্রিলে কালো রঙের ওভারকোট পরিহিত সন্দেহভাজন এক বন্দুকধারী ১৮ বছরের তরুণ-তরুণীদের লক্ষ্য করে গুলি চালানো শুরু করে। এতে হতাহতের এই ঘটনা ঘটে। আহতদের মধ্যে একজন দারোয়ান, বারের এক নারী কোষাধ্যক্ষ ও কয়েকজন কলেজ শিক্ষার্থী রয়েছেন।

হামলার সময় বারটিতে কলেজ কান্ট্রি সংগীত সন্ধ্যা চলছিল। এই সময় সেখানে অন্তত ২০০ জন উপস্থিত ছিলেন।

ভেঞ্চুরা কাউন্টি পুলিশ কার্যালয়ের ক্যাপ্টেন গারো কুরেদজিয়ান বলেছেন, জরুরি নম্বর ৯১১-এ ফোন পেয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন ডেপুটি শেরিফ সার্জেন্ট রন হেলাস। সেখানে তিনি গুলিবিদ্ধ হন। দ্রুত তাকে হাসপাতালে নেয়া হয়। পরে তিনি সেখানে মারা যান। গত ২৯ বছর ধরে তিনি পুলিশ বিভাগে চাকরি করছেন। দুই এক বছরের মধ্যে চাকরি থেকে অবসরে যাওয়ার কথা ছিল।

হামলাকারীর পরনে কালো রঙের ওভারকোট, চোখে কালো রঙের সানগ্লাস এবং মুখের নিচের অংশে মুখোশ পরা ছিল। তিনি বারের প্রবেশদ্বারে এসে দারোয়ানকে গুলি করে ভেতরে চলে যান। এরপর তিনি এক নারী কোষাধ্যক্ষকে গুলি করে ড্যান্স ফ্লোরে দর্শকদের ওপর স্মোক গ্রেনেড ছুড়ে মারেন এবং এলোপাথাড়ি গুলি করা শুরু করেন।

পুলিশ জরুরি নম্বরে ফোন পেয়ে ১১টা ২৩ মিনিটে ঘটনাস্থলে পৌঁছান। সেখানে বন্দুকধারীর সঙ্গে তাদের গুলি বিনিময়ের ঘটনা ঘটে। এতে ডেপুটি শেরিফ গুলিবিদ্ধ হন। স্থানীয় লস রবলেস হাসপাতালে নেয়ার পর তিনি সেখানে মারা যান।

কিছুক্ষণ পর সোয়াট টিম ঘটনাস্থলে এসে পোঁছান। তারা বারের ভেতর থেকে ১১ জনের মৃতদেহ উদ্ধার করেন। এই সময় সন্দেহভাজন হামলাকারীকেও মৃত অবস্থায় পাওয়া যায়। ধারণা করা হচ্ছে, গুলি চালানোর পর তিনি নিজেও আত্মহত্যা করেন।

কর্মকর্তারা বলছেন, এই হামলা পূর্ব পরিকল্পিত। স্মোক গ্রেনেড ব্যবহারই তার প্রমাণ।

পুলিশ জানায়, ঘটনাস্থলে অন্তত দুশো ব্যক্তি উপস্থিত ছিলেন। হতাহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে।

গুলির ঘটনার সময় বর্ডারলাইন বার অ্যান্ড গ্রিলে উপস্থিত ছিলেন হল্ডেন হারাহ। প্রায় প্রতি সপ্তাহে বন্ধুদের সঙ্গে তিনি এখানে আসেন বলে সিএনএনকে জানান।

তিনি বলেন, ‘প্রায় ছয় মাস হলো এখানে এসেছি। বন্ধুবান্ধবীদের সঙ্গে আড্ডা দেয়ার জন্য এটি চমৎকার জায়গা। একজন ভদ্রলোক সামনে দরজা দিয়ে প্রবেশ করে গেটের সামনে দাঁড়াল এবং ডান পাশে কাউন্টারের সামনে থাকা একজন তরুণীকে লক্ষ্য করে গুলি চালানো শুরু করে ওই ব্যক্তি।

ওয়াশিংটন থেকে আল জাজিরার প্রতিবেদক রব রেনল্ডস জানান, বন্দুকধারী গুলি চালানোর আগে বারটিতে প্রচুর কলেজ শিক্ষার্থীর জমায়েত ছিল।

রব রেনল্ডস বলেন, ‘বন্দুকধারী একটি স্বয়ংক্রিয় পিস্তল থেকে গুলি ছুড়েছে। পিস্তলের পাশাপাশি সন্দেহভাজন হামলাকারী স্মোক গ্রেনেড ব্যবহার করেছেন।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও জরুরি বিভাগের সদস্যরা ঘটনাস্থলে রয়েছেন।

একজন প্রত্যক্ষদর্শী জানান, অনেকেই বারের জানালা ভেঙে পালিয়ে আসতে সক্ষম হয়েছেন।

এই সংবাদটি 1,008 বার পড়া হয়েছে

কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।  শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ।  নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে।  জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।  আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি।  লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ। নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে। জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন। আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি। লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com