সোমবার, ২৬ নভে ২০১৮ ০৩:১১ ঘণ্টা

একজন মিলাদ গাজী ও জনমনে প্রত্যাশা

Share Button

একজন মিলাদ গাজী ও জনমনে প্রত্যাশা

সিলেট প্রতিনিধিঃ

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অত্যান্ত ঘনিষ্ট সহচর, সাবেক মন্ত্রী, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের উপদেষ্টা মন্ডলীর সাবেক অন্যতম সদস্য, বারবার নির্বাচিত সাবেক সংসদ সদস্য মরহুম দেওয়ান ফরিদ গাজী’র সুযোগ্য জ্যাষ্ঠ পুত্র হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের অন্যতম নেতা জননেতা দেওয়ান শাহনেওয়াজ গাজী মিলাদ। পিতা ফরিদ গাজী’র মতো তাঁরও রয়েছে নবীগঞ্জ- বাহুবলের মাঠি ও মানুষের সাথে এক হৃদ্যতাপূর্ণ সম্পর্ক। মরহুম ফরিদ গাজীকে যেমন মানুষজন আপন করে নিয়েছিলো তাঁর বেলায় ও কোন কমতি নেই। অসাধারন ব্যক্তিত্বের অধিকারী, সৎ, ধার্মিক ও পরিচ্ছন্ন রাজনীতির এক অন্যতম প্রতিকৃত জননেতা দেওয়ান শাহনেওয়াজ গাজী মিলাদ। তিনি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শের এক অতন্দ্র প্রহরী হিসেবে গ্রামে-গঞ্জে, মাঠে-ঘাটে-হাটে নিরলসভাবে কাজ করে চলেছেন। ক্লান্তি কখনই তাকে বশ করতে পারেনি। মরহুম ফরিদ গাজী’র অসমাপ্ত কাজ ও স্বপ্ন- পূরণে নবীগঞ্জ- বাহুবলের আবাল-বৃদ্ধ-বনিতা, কৃষক-শ্রমিক, মজুর ও ছাত্র-যুবা সহ সকল শ্রেণী- পেশার মানুষের সাথে বৈষম্যহীন সম্পর্ক বজায় রেখে চলেছেন। উন্নয়ন বঞ্চিত এলাকায় উন্নয়নের দ্বার উন্মোচন করা বিরামহীন ছুটে চলা এক পথিকের নাম মিলাদ গাজী। তাঁর সহজ-সরল ও মার্জিত আচরণ খুব সহজেই সাধারণ মানুষকে কাছে টেনে নেয়। প্রচুর বিত্ত- বৈভবের মাঝে বেড়ে ওঠা মিলাদ গাজী সাবেক মন্ত্রী ও সাংসদ পুত্র থাকার পরও লোভ-লালসা কখনই তাকে স্পর্শ করতে পারেনি। মানব সেবাকে ইবাদতের এক অন্যতম মাধ্যম মনে করে তিনি সর্বদা পিতার পাশে থেকে এলাকার মানুষের জন্য কাজ করে গেছেন। সেবার মানসিকতা নিয়ে জীবনের বাকী সময়টুকুও মানুষের তরে বিলিয়ে দিতে চান। তাইতো বঙ্গবন্ধু’র স্বপ্নের বাংলার বিনির্মান, প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সামগ্রিক উন্নয়নে অংশগ্রহণ ও পিতা ফরিদ গাজী’র অসমাপ্ত কাজ সম্পন্ন করতে তিনি আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে হবিগঞ্জ-১ (নবীগঞ্জ- বাহুবল) আসনে আওয়ামীলীগ দলীয় মনোনয়ন চেয়েছেন। তাঁর মনোনয়ন চাওয়ার যৌক্তিক কিছু কারণ হলো- প্রয়াত ফরিদ গাজী’র মৃত্যুতে ২০১০ সালে শূন্য হওয়া আসনে উপ-নির্বাচনে তিনি প্রার্থী হয়েছিলেন। তখন তাকে মনোনয়ন থেকে বঞ্চিত করে মনোনয়ন প্রদান করা হয় হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের তৎকালীন সভাপতি ডাঃ মুশফিক হোসেন চৌধুরীকে। সেই নির্বাচনে বিএনপি’র প্রার্থী শেখ সুজাত মিয়া’র কাছে পরাজিত হন ডাঃ মুশফিক।আওয়ামীলীগের দূর্গ খ্যাত আসনটি পুনরুদ্ধার করা সম্ভব হয়নি, চলে যায় বিএনপি’র ঘরে। যার মাশুল আজও দিতে হচ্ছে আমাদের দলটিকে। ২০১৪ সালের দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগ দলীয় মনোনয়ন পেয়েছিলেন মিলাদ গাজী। সেখানেও বিধি বাম মহাজোটের সাথে আসন বন্টনে নৌকার দূর্গে আঘাত হানে মহাজোটের শরীক দল জাতীয় পার্টির লাঙ্গল প্রতীক মনোনীত প্রার্থী মুনিম চৌধুরী বাবু। তখন দল ও সরকারের স্বার্থে প্রিয় নেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে মিলাদ গাজী হাসিমুখে মনোনয়ন প্রত্যাহার করে নেন। কিন্তু একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মতো এতো সহজ নয়। এবারের নির্বাচন হচ্ছে একটি অস্তিত্বের লড়াই, বড় চ্যালেঞ্জিং নির্বাচন। জনমনে প্রত্যাশা, এ চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে হলে নৌকার কান্ডারী মিলাদ গাজী’র বিকল্প নেই। আপামর জনসাধারন লাঙ্গলের বোঝা বহন করতে চায় না। অস্তিত্ব লড়াইয়ের এ নির্বাচনে গণতন্ত্রের মানসকণ্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার পূর্ব ঘোষিত গোপালগঞ্জ খ্যাত নৌকার দূর্গ হিসেবে পরিচিত হবিগঞ্জ-১ (নবীগঞ্জ- বাহুবল) আসনটিতে নৌকা প্রতীক ছাড়া বৈতরণী পাড়ি দেওয়া সম্ভবপর নয়। তাইতো মানবতার মা জননেত্রী শেখ হাসিনা ও সংসদীয় মনোনয়ন বোর্ডের কাছে আমাদের আবদার মহাজোটের আসন ভাগাভাগির শেষ পর্যায়ে হলেও জননেতা মিলাদ গাজীকে নৌকা প্রতীক প্রদান করা হলে নবীগঞ্জ- বাহুবলের গৌরবময় অতীতের ন্যায় খুব সহজেই আসনটি আবারও পুনরুদ্ধার করা সম্ভব।

এই সংবাদটি 1,071 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com