সোমবার, ১৭ ডিসে ২০১৮ ১০:১২ ঘণ্টা

ইসলামি আন্দোলন বাংলাদেশঃ তিনশ আসনে প্রার্থী দেয়ার যৌক্তিকতা কী?

Share Button

ইসলামি আন্দোলন বাংলাদেশঃ তিনশ আসনে প্রার্থী দেয়ার যৌক্তিকতা কী?

পলাশ রহমান : ইসলামি আন্দোলন বাংলাদেশ, একাদশ জাতীয় নির্বাচনে তিনশ আসনে প্রার্থী দিয়েছে। নির্বাচন কমিশন কর্তৃক প্রার্থীতা বাতিল, প্রার্থীর আপিল এবং আইন আদালত করে চুড়ান্ত ভাবে দলটির ২৯৯ জন প্রার্থী নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছেন। বাংলাদেশে এর আগে কোনো ইসলামি দল একক ভাবে তিনশ আসনে প্রার্থী দিয়েছে কিনা আমার জানা নেই, তবে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ইসলামি আন্দোলন একমাত্র দল যারা তিনশ আসনে প্রার্থী দিয়েছে। যা আওয়ামীলীগ বিএনপির মতো বড় দলও পারেনি। তারা জোটবদ্ধ হয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছে। সুতরাং জোটের শরিকদের কিছু কিছু আসন ছেড়ে দিতে হয়েছে।
ইসলামি আন্দোলন বাংলাদেশ কোনো বড় দলের সাথে নির্বাচনী জোট করেনি। উভয় দল থেকে লোভনীয় অফার থাকলেও তারা সাড়া দেয়নি। কারো সাথে জোটবদ্ধ হয়ে নির্বাচন করতে রাজি হয়নি। কিন্তু কেনো, তারা কোনো জোট নির্বাচনে সাড়া দেয়নি? কেনো তারা একক ভাবে তিনশ আসনে প্রার্থী দিতে গেলো? তাদের ক’জন প্রার্থী নির্বাচনে জিততে পারবে? এসব নিয়ে নির্বাচনের মাঠে ব্যাপক আলোচনা সমালোচনা আছে। বিরোধী রাজনৈতিক শিবির থেকে নানা কথা ছড়ানো হচ্ছে। মানুষকে বিভ্রান্ত করা হচ্ছে। সবচেয়ে হতাশার বিষয় হলো বিরোধী রাজনৈতিক শিবির থেকে প্রচারিত নানা কথায় দেশের ইসলামপন্থী নেতাকর্মীরাও বিভ্রান্ত হচ্ছেন। তিনশ আসনে প্রার্থী দেয়া, জোটবদ্ধ নির্বাচনে না যাওয়া, ইত্যাদী নিয়ে তারাও বিভ্রান্তিমূলক কথাবার্তায় জড়িয়ে পড়ছেন। কেউ কেউ বলার চেষ্টা করছেন, এমপি মন্ত্রী হওয়া বা সংসদে যাওয়ার জন্য ইসলামি আন্দোলন নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছে না। ইসলামি আন্দোলন এবারের নির্বাচনকে ‘দাওয়াতি’ কাজ হিসাবে গ্রহণ করেছে।
কোনো সন্দেহ নেই- তিনশ আসনে ইসলামি আন্দোলনের একক নির্বাচনের মধ্যদিয়ে দলটির ‘দাওয়াতি’ মিশন অনেক দুর এগিয়ে যাবে। পাড়ায় পাড়ায়, মহল্লায় মহল্লায় হাতপাখার দূর্গ গড়ে উঠবে। দেশের একদম প্রত্যন্ত অঞ্চলে সাংগঠনিক ভাবে ইসলামি আন্দোলন বেগবান হবে। নেতাকর্মীরা রাজনীতির মূলধারায় ভুমিকা রাখার তালিম পাবেন। কিন্তু মনে রাখা দরকার এটাই একমাত্র কারন নয়।
আমি মনে করি ইসলামি আন্দোলন বাংলাদেশ অত্যান্ত সময় উপযোগী এবং দূরদর্শী একটা সিদ্ধান্ত নিয়েছে। যে সিদ্ধান্ত নিতে শুধু রাজনৈতিক মেধাই দরকার হয় না, বুকের পাটাও লাগে। তাদের একক নির্বাচনের সিদ্ধান্ত দেশের আদর্শহীন রাজনীতিতে একটা বড় চ্যালেঞ্জ সৃষ্টি করেছে। তারা আদর্শহীন রাজনীতির দূর্গে একটা ঝাকুনি সৃষ্টি করতে সক্ষম হয়েছে। ইসলামি আন্দোলন বাংলাদেশ প্রমান করতে পেরেছে- তারা অন্য আদর্শের তলপি বাহক হয়ে ক্ষমতার স্বাদ পেতে চায় না। অন্যের করুনায় এমপি মন্ত্রী হতে চায় না। তারা দেশবাসীর সমর্থন নিয়ে, ইসলামের আদর্শ সামনে রেখে বিজয় অর্জন করতে চায়। তারা দেশের শাসন ব্যবস্থায় ভুমিকা রাখার মতো শক্তি নিয়ে সংসদে যেতে চায়। তারা বাংলাদেশের রাজনীতিতে ‘ইসলাম’ কে স্বতন্ত্র শক্তি হিসাবে দাঁড় করাতে চায়। আর এখানেই অন্যান্য ইসলামপন্থী দলের সাথে ইসলামি আন্দোলনের মৌলিক পার্থক্য।
বাংলাদেশের প্রায় সকল রাজনৈতিক দল আজ দুই শিবিরে বিভক্ত। আওয়ামীলীগ বিএনপি সুকৌশলে জোট রাজনীতির মাধ্যমে দেশের প্রায় সকল রাজনৈতিক শক্তিকে ভাগাভাগি করে নিয়েছে, যাতে দুই দলের বিপরীতে বিকল্প কোনো রাজনৈতিক শক্তি সৃষ্টি হতে না পারে। আদর্শহীন জোট রাজনীতির অনৈতিক সফলতা আওয়ামীলীগ বিএনপিকে রাজনৈতিক দানবে পরিণত করেছে। তাদের স্বৈরতান্ত্রিক মনোবল অনেকাংশে বৃদ্ধি পেয়েছে। আওয়ামীলীগ এখন চেষ্ট করছে দুই দলের গোন্ডি ভেঙ্গে একদলের শাসন কায়েম করতে। তারা মরিয়া চেষ্টা করছে দেশকে ৩৫ বছর পেছনে নিয়ে যেতে। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের বাকশাল কায়েম করতে।
ইসলামি আন্দোলনের রাজনৈতিক বিচক্ষণতা এখানেই- তারা বড় দুই দলের আদর্শহীন জোট রাজনীতির ষড়যন্ত্র ধরতে পেরেছে। তারা আওয়ামীলীগ বিএনপির ফাঁদে পা দেয়নি। বরং দেশকে দ্বিদলীয় দুশাসন থেকে বের করে আনার রাস্তা তৈরী করেছে। তিনশ আসনে ইসলামি আন্দোলনের একক নির্বাচনী উদ্যোগ বড় দুই দলের বিপরীতে দেশের গণমানুষের মনোবল বৃদ্ধি করেছে। মানুষ এখন ভাবতে শুরু করেছে, আওয়ামীলীগ বিএনপির গন্ডি ভাঙ্গা সম্ভব। তাদের স্বৈরশাসন থেকে মুক্তি পেতে বিকল্প রাজনৈতিক শক্ত সৃষ্টি করা মোটেও অসম্ভব কিছু নয়, যা এতদিনে দেশের গণমানুষ প্রায় ভুলতে বসেছিল। ইসলামি আন্দোলন দেশের গণমানুষের সেই মনোবল জাগিয়ে তুলেছে।
তিনশ আসনে একক নির্বাচনের সাহস দেখিয়ে ইসলামি আন্দোলন দেশের প্রতিটি মানুষের কাছে একটা বার্তা পৌছে দিতে পেরেছে, দেশের সব রাজনৈতিক নেতা বা দল শুধুমাত্র এমপি মন্ত্রীত্বের জন্য লালায়িত নয়। যারা আদর্শের রাজনীতি করে, দেশ গড়ার রাজনীতি করে, যারা তৃণমূলের রাজনীতি করে তারা যেনতেন ভাবে ক্ষমতার স্বাদ গ্রহণ করতে চায় না। বরং দেশের মানুষের ঘরে ঘরে ক্ষমতার স্বাদ পৌছে দিতে চায়। তারা গণমানুষকে সাথে নিয়ে বিজয় অর্জন করতে চায়।
ইসলামি আন্দোলন তিনশ আসনে প্রার্থী দিয়েছে, কিন্তু তাদের ভোটের সংখ্যা কতো? কজন প্রার্থী এমপি হতে পারবে হাতপাখায় নির্বাচন করে? যারা হরহামেশা এমন প্রশ্নের পসরা সাজান তাদের কাছে আমার জিজ্ঞাসা- এতদিনের জোট রাজনীতি করে কোন দলের কী লাভ হয়েছে? আওয়ামীলীগ বিএনপির বাইরে ছোট দলগুলো কী পেয়েছে বা তাদের রাজনৈতিক কী উন্নতি হয়েছে?
গ্রাম্য একটা প্রবাদ আছে- ‘চোরের ঘরে কখনো দাঁলান ওঠে না’। ঠিক তেমনি আদর্শহীন জোট রাজনীতি করে আওয়ামীলীগ বিএনপির বাইরের দলগুলোর ঘরে দাঁলান ওঠেনি। তাদের রাজনৈতিক কোনো উন্নতি হয়নি। দুই একজন এমপি মন্ত্রী হওয়া ছাড়া তাদের দলের এবং দেশের কোনো উপকার হয়নি। বরং বহুলাংশে ক্ষতি হয়েছে। দেশে আদর্শের রাজনীতির কবর হয়েছে। রাজনৈতিক দেউলিয়ত্ব সৃষ্টি হয়েছে। বড় দুই দলের দুশাসন জালে জাতী বন্দি হয়ে পড়েছে।
যেসব ইসলামি দল আওয়ামীলীগ বিএনপির সাথে জোটবদ্ধ রাজনীতি করে তাদের কী উন্নতি হয়েছে বা তারা দেশের উন্নয়নে কী ভুমিকা রাখতে পেরেছে? তাদের দল, তাদের রাজনীতি আগের অবস্থানেই পড়ে আছে। দুই একজন এমপি হওয়া ছাড়া তারা আর কিছুই পায়নি। দেশের জন্য বা নিজেদের দলের জন্যও তারা বিশেষ কিছুই করতে পারেনি। বরং আওয়ামীলীগ বিএনপির দুশাসন কায়েমের সহযোগী হয়েছে। গণতন্ত্রের বোতলে স্বৈরশাসন বাজারজাত করেছে। ইসলামের আদর্শ এবং নৈতিক রাজনীতি বড় দুই দলের কাছে বন্দক রেখে নিজেরা অনৈতিক ক্ষমতায় বিষাক্ত সরাব পান করেছে।

ইসলামি আন্দোলন অনৈতিক ক্ষমতায় স্বাদ গ্রহণ করেনি। বড় দলগুলো থেকে অফার করা এমপি মন্ত্রীত্বের লোভ তারা সংবরণ করতে পেরেছে, এটা কোনো ছোট বিষয় নয়। তারা জাতীকে নতুন স্বপ্ন দেখাতে শুরু করেছে। রাজনীতির প্রতি, রাজনীতিকদের প্রতি দেশের মানুষের, বিশেষ করে তরুণ প্রজন্মের শ্রদ্ধাহীনতা ফিরিয়ে আনতে ইসলামি আন্দোলন গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকায় অবতীর্ণ হয়েছে। দেশের রাজনীতিতে নীতিগত পরিবর্তনের যে সুর বেজে উঠেছে এর জন্য একক কৃতিত্ব পেতে পারে ইসলামি আন্দোলন বাংলাদেশ।
এসব বিষয়ে রাজনীতি সচেতন অনেক মহলেই আলোচনা হয়। বিশেষ করে ইসলামি আন্দোলনের ঘোর বিরোধী জামায়াতে ইসলামির নেতাকর্মীরাও এ বিষয়ে ব্যাপক বাদানুবাদ করেন। তবে তাদের বিচক্ষণ নেতাকর্মীরা বড় দুই দলের বিপরীতে ইসলামি আন্দোলনের সাহসী ভুমিকা এবং আদর্শের প্রতি অবিচল নীতির প্রশংসা করেন আড়ালে-আবডালে। তারা স্বীকার করতে বাধ্য হয়েছেন, আদর্শের প্রতি অবিচল থেকে রাজনীতি করতে তাদের নেতারা ব্যর্থ হয়েছে। যার চরম মূল্য দিতে হয়েছে, হচ্ছে দলটির নেতাকর্মীদের।
জামায়াতের কেউ কেউ বলার চেষ্টা করেন- রাষ্ট্র পরিচালনা করতে হলে সব স্তরের জন্য যোগ্য মানুষ তৈরী করা দরকার। রাষ্ট্রের প্রতিটি ধাপে সমাদর্শের মানুষ থাকা দরকার। যা জামায়াতে ইসলামি পেরেছে জোট রাজনীতির বদৌলতে। মজার বেপার হলো- দলের নেতাকর্মীদের মনোবল বৃদ্ধির জন্য জামায়াত নেতারা এসব কথা প্রচার করলেও একান্ত আলোচনায় তারা স্বীকার করেন, জোট রাজনীতি করে জামায়াতের কোনো লাভ হয়নি। বরং দেশের এবং ইসলামি আদর্শের রাজনীতির ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

রাষ্ট্রের প্রতিটি স্তরে সমাদর্শের বা যোগ্য মানুষ সৃষ্টি করে কী লাভ হয়েছে জামায়াতের? তারা ক্ষমতায় যেতে পেরেছে? দেশে আল্লাহর আইন এবং সৎ লোকের শাসন কায়েম করতে পেরেছে? ইসলামি বিরোধী আইন বা কার্যকলাপ রোধ করতে পেরেছে, নাকি নিজ দলের নেতাকর্মীদের নিরাপত্তা দিতে পেরেছে? কোনোটাই পারেনি। বরং তারা আল্লাহর আইন এবং সৎ লোকের শাসন কায়েম করার আদর্শিক জায়গা থেকে সরে গিয়েছে।
জামায়াতের এতদিনের জোট রাজনীতির অর্জন হলো ইসলামের আদর্শ বিরোধী শক্তিকে বারবার ক্ষমতায় বসাতে পেরেছে। একগাদা বর্ষিয়ান নেতা খুয়াতে হয়েছে। দলের প্রতীক হারিয়েছে। দলীয় ভাবে নির্বাচন করার যোগ্যতা হারিয়েছে এবং দেশের মানুষকে বিশ্বাস করাতে পেরেছে, ইসলামের মৌলিক আদর্শ বর্তমান সময়ে অচল। দেশে একক ভাবে ইসলামি আদর্শের কোনো শক্তি তৈরী করা সম্ভব হয়। ইসলামি রাজনৈতিক দলগুলোর নিয়তি হলো বড় দুই দলের ক্ষমতায় শিড়ি হিসাবে ব্যবহারিত হওয়া এবং তাদের ছিটানো খুদ-কুড়ো খেয়ে বেঁচে থাকা।
ইসলামি আন্দোলন দেশের মানুষকে এই কূচিন্তা থেকে বের করে আনার চেষ্টা করছে। ইসলামি আদর্শের শক্তিগুলোকে অন্যের তলপিবাহকে পরিণত না করে আলাদা শক্তি হিসাবে দাঁড় করানোর চেষ্টা করছে, যা সত্যিই প্রশংসার দাবি রাখে। সুতরাং দেশের সচেতন এবং দেশপ্রেমিক মানুষদের উচিত হবে হাতপাখায় ভোট দেয়া। দেশের রাজনীতিতে নতুন ধারা সৃষ্টি করতে এগিয়ে আসা। বিশেষ করে দেশের সকল ইসলামপন্থী যুবকদের উচিত আওয়ামীলীগ বিএনপির বিপরীতে ইসলামি আদর্শের স্বতন্ত্র প্লাটফর্ম গড়ে তুলতে এগিয়ে আসা।
ইসলামি আন্দোলন দেশের রাজনীতিতে তৃতীয় শক্তি নয়, বিকল্প শক্তি হিসাবে মাথা তুলে দাঁড়াবে। সৈয়দ রেজাউল করিমের হাত ধরেই দেশের রাজনীতিতে নীতিগত পরিবর্তন আসবে এমনটাই প্রত্যাশা করি।

লেখক: কলামিস্ট ও ইতালি প্রবাসী

এই সংবাদটি 1,105 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com