বুধবার, ০২ জানু ২০১৯ ০৫:০১ ঘণ্টা

সংসদ সদস্য প্রার্থীও নেতা-কর্মী সমীপে

Share Button

সংসদ সদস্য প্রার্থীও নেতা-কর্মী সমীপে

 

আহমদুল হক উমামা: সদ্যসমাপ্ত প্রহসনের নির্বাচনের ফলাফল বিপর্যয়ে হতাশ বা ভেঙ্গে পরলে চলবে না। কারণ আমরা নির্বাচনে হেরে যাই নি বরং নির্বাচনে অংশগ্রহন করার মাধ্যমে জনগণের সামনে পরিস্কার হয়ে গেলে দলীয় সরকারের অধীনে ১ আনা সুষ্ঠ নির্বাচন সম্ভব না।
তাছাড়া ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচন ইতিহাসের কালো অধ্যায়ের একটি অংশ হয়ে যুগের পর যুগ দংশন করবে আওয়ামীলীগকে।
জনগণ দেখেছে ভোট ডাকাতি কিভাবে আওয়ামীলীগরা করে।
আমি বলবো সাময়িকভাবে যদিও মনে হচ্ছে আমরা পরাজিত কিন্তু আগামী দিনের নতুন সূর্য আমাদের আহ্বান করতেছে।
বর্তমানে সাধারণ মানুষরা ভয়ে কিছু বলতেছে না কারণ কথা বললেই গুম হবে, খুন হবে,ধর্ষন হবে।
কিন্তু বিশ্বাস করুন নিকট ভবিষ্যতে এই সাধারণ জনগণ থু দিবে বর্তমান স্বৈরাচারীদের।
এরা নিজেদের আওয়ামীলীগ হিসাবে পরিচয় দিতে লজ্জাবোধ করবে।

তাই সংগ্রামী সাথীগণ এই মুহূর্তে আমাদের শক্তভাবে,ধৈর্য্য ধরে,সঠিক স্বীদ্ধান্ত নিয়ে বর্তমান প্রতিকূল স্বৈরাচারী, বাকশালী পরিবেশ মোকাবিলা করতে হবে।

এই জন্য আমি মনে করি অতি তাড়াতাড়ি কিছু ব্যাপারে পদক্ষেপ নিতে হবে।
০১
প্রতিটি আসনে প্রার্থীসংখ্যা অনেক ছিলো। কেবল বাকশালীরা ভোট ডাকাতি করেছে। সেই হিসাবে ডাকাত প্রার্থী একজন । কিন্তু বাদবাকীরা ডাকাতির শিকার হয়েছে। তাই বাদবাকী প্রার্থীগণ ঐক্যবদ্ধভাবে সকল মতপার্থক্য ভুলে নিজ আসন থেকে একযোগে সংবাদ সম্মেলন করে পুনরায় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবী জানাতে হবে ।
তখন নির্বাচন কমিশন একজন প্রার্থীর পক্ষ নিয়ে কয়েকজন প্রার্থীর অভিযোগ আমলে না নিলে সেই ব্যাপারে কমিশনের পক্ষপাতিত্বের অভিযোগে নিজ নিজ আসনে সব প্রার্থীরা মামলায় যেতে হবে।
কোর্টে ন্যায় বিচার পান বা না পান এই মামলা প্রমাণ হয়ে তাকবে নির্বাচন অসুষ্ঠ, পক্ষপাতিত্বপূণ্য,নিরপেক্ষহীন ।

০২
অনেক আসনে মোট ভোটারের চাইতে হাজার হাজার ভোট বেশী পরেছে।
সেই আসন গুলোর সুনিদিষ্ট নাম সহ নির্বাচন কমিশনের বিরুদ্ধে মামলা করতে হবে অতিরিক্ত ব্যালেট পেপার ছাপানো ও সরকারী দলকে সহযোগিতার জন্য ।
মামলার রায় আজ হয়তো বা তারা তাদের পক্ষে ক্ষমতা দিয়ে নিয়ে নিবে কিন্তু ১০ বছর পরে এই মামলাই আমাদের বিরাট দলীল হবে।
ইতিহাস এদেরকে মীরজাফরের সাথে লিপিবদ্ধ রাখবে।
০৩
৩০০ টি আসনের প্রতিটি আসনে গড়ে ৩ জন ভোট ডাকাতিতে ক্ষতিগ্রস্ত প্রার্থী হলে মোট প্রার্থী সংখ্যা হবে ৯০০ জন।
এই ৯০০ জন প্রার্থীকে নিয়ে নির্বাচন কমিশন ঘেরাও করে পুনঃনির্বাচন দেয়ার দাবী করতে হবে।
বিফল হলেও অসুবিধা নেই কারণ ৯০০ জন প্রার্থীর সম্মেলিত প্রতিবাদ নির্বাচন প্রশ্নবিদ্ধের জন্য যথেষ্ট।
হয়তো বা সুফল এখন না পেলেও নিকট ভবিষ্যতে মিলবে।

০৪
নির্বাচনে অংশগ্রহনকারী অনেক পুলিশ সদস্য ,পোলিং এজেন্ট চাপের মুখে ব্যালেট পেপারে নৌকার সীল মেরে ব্যাল্যাট বাক্স ভর্তি করেছে ।
তাদের অনেকেই সত্য প্রকাশ করবে যদি আমাদের সহযোগিতা পায় ।
তাই তাদের ঠিকানা,কেন্দ্রের নাম তাদের বক্তব্যগুলো রেকর্ড করে জমা রাখতে হবে । তাদের নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে এখন প্রকাশ না করলেও কোন একদিন এই নির্বাচন এবং ক্ষমতালাভ অবৈধ সেটা প্রমান করা যাবে এই বক্তব্যগুলো দিয়ে ।

০৫
নির্বাচনে অংশগ্রহনকারী সরকারী টাকা খেয়ে আসা পর্যবেক্ষদের হোটেলের সামনে প্রতিবাদ করতে হবে ।
এবং প্রার্থীগণকে যেকোন মূল্যে তাদের সাথে স্বাক্ষাত করে সার্বিক পরিস্থিতির চিত্র তথ্য প্রমাণ সহ উপস্থাপন করে সেগুলোর ভিডিও ক্লিপ রাখতে হবে ।
জানি কোন লাভ হবে না।
কিন্তু ভবিষ্যতের জন্য সুফল হতে পারে।

০৫
নির্বাচনের সকল অনিয়মের ভিডিওগুলো সংবাদ সম্মেলন করে প্রকাশ করতে হবে।
কোন টিভি প্রচার করুক বা না করুক অন্তত ফেসবুক, ইউটিউবে জমা রাখলেই পরবর্তীতে কাজ দিবে।
এবং এই সকল ডকুমেন্ট প্রতিটি দেশের কুটনীতিকদের হাতে তুলে দিতে হবে ।

০৬
নির্বাচনে নৌকা মার্কায় ভোট না দেয়ায় আওয়ামীলীগের লোকদের দ্বারা একজন মহিলাকে গণধর্ষন করার ব্যাপরটি পৃথিবীর মানবধিকার সংস্থাগুলো সহ সারা পৃথিবীর সামনে তুলে ধরতে হবে ।এতে প্রবাসীরা ভূমিকা রাখতে পারে।
এবং এই মহিলার জবানবন্দি বিদেশী টিভিগুলোতে প্রচার করতে হবে ।

০৭
বিদেশে বাংলাদেশী দ্রুতাবাসগুলো প্রবাসীরা যেনো ঘেরাও করে সুষ্ঠ নির্বাচনের দাবী জানায়।
এবং নির্বাচনের সকল অনিয়মের ছবিগুলো প্লেকার্ড হিসাবে সঙ্গে নিবে।

০৮
কোন প্রকার সংঘাত, সহিংসতায় যাওয়া যাবে না।
সর্বোপরি আল্লাহর কাছে সাহায্য চাইতে হবে।
তিনিই আশ্রয়স্থল, ভরসারস্থল।

এই সংবাদটি 1,056 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com