রবিবার, ২৭ জানু ২০১৯ ০৯:০১ ঘণ্টা

ইসলামী লেখক ফোরামের সাহিত্য ও ভ্রমণ সম্পন্ন

Share Button

ইসলামী লেখক ফোরামের সাহিত্য ও ভ্রমণ সম্পন্ন

 

শাহিদ হাতিমী,সিলেট রিপোর্ট: ইসলামী ধারার তরুণ লেখকদের জাতীয় সংগঠন বাংলাদেশ ইসলামী লেখক ফোরাম এবারও দিনব্যাপী সাহিত্য ও আনন্দ ভ্রমণ ২৬ জানুয়ারি (শনিবার) গাজীপুরের বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্কে অনুষ্ঠিত হয়। এতে লেখক ফোরামের দেড় শতাধিক সদস্য, উপদেষ্টা এবং সুধীবৃন্দ অংশগ্রহণ করেন।  এবারের আনন্দ ভ্রমণে সাফারি পার্কের নয়টি রাইড ব্যবহারের সুযোগ ছিলো। মনোমুগ্ধকর সব রাইড ব্যবহারের মাধ্যমে বিশাল আয়তনের বনে ঘুরে বেড়ান লেখক ফোরামের সদস্যগন। সকাল ৮ ঘটিকায় বায়তুল মুকাররম এলাকা থেকে ৩টি বাস এক সাথে যাত্রা শুরু করে। সেখানে অনুষ্ঠিত হয় সাহিত্য ও আনন্দ প্রতিযোগিতা। উপস্থিত ছড়া লেখা, হাসিভরা ধাঁধাঁ, সাধারণ জ্ঞান, ইসলামি সঙ্গীত, লেখক যখন গায়ক, যেমন খুশি তেমন বলা, চেয়ার খেলা, বিস্কুট দৌড় এবং শরীর চর্চামূলক অন্যান্য আনন্দ খেলা। ফুটবল-ক্রিকেট তো থাকছেই। প্রতি পর্বে বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। তাছাড়া ভ্রমণে অংশ নেয়া প্রত্যেকের জন্যই ছিলো আকর্ষণীয় উপহার সামগ্রী। গাড়ি ছাড়ার খানিকটা পরই পরিবেশন করা হয় সকালের নাস্তা। জোহরের নামাজ শেষে ছিলো সুস্বাদু খাবার। সন্ধ্যায় ফিরতে ফিরতেও ছিলো হালকা নাস্তা পর্ব,চকলেট। ফোরামের সভাপতি ঢাকাটাইমস টোয়েন্টিফোর ডটকমের যুগ্ম বার্তা সম্পাদক জহির উদ্দিন বাবর,সাধারণ সম্পাদক কবি মুনীরুল ইসলাম ও সাংগঠনিক সম্পাদক আমিন ইকবাল এর সার্বিক পরিচালনায় দিন ব্যাপি অনুষ্ঠিত সাহিত্য ভ্রমনে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, সাবেক সভাপতি মুফতি এনায়েতুল্লাহ,কবি মহিউদ্দিন আকবর [নজরুল গবেষক], ড. গোলাম রব্বানী [শিক্ষক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়], মাওলানা মুসলেহুদ্দীন রাজু [সহসভাপতি, বেফাকুল মাদারিস], মুফতি তাসনিম, বিশিষ্ট বক্তা মাওলানা হাবিবুর রহমান মিসবাহ,মুফতি রেজাউল করি আবরার, মাসউদুল করিম, মাওলানা আমীর ইবনে আহমদ, সিলেট রিপোর্ট সম্পাদক মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী, মুফতি জাবের কাসেমী প্রমুখ।

বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্কে দর্শনীয় স্থানগুলো পরিদর্শন করা হয়। এরপর নির্ধারিত রিসোর্ট প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত দিনভর নানা সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা, আড্ডা, মতবিনিময় ও সদস্যদের বইয়ের মোড়ক উন্মোচনসহ বিভিন্ন আয়োজনে প্রাণবন্ত হয়ে ওঠে এ আনন্দ ভ্রমণ। ব্যতিক্রমধর্মী এসব প্রতিযোগিতা সবার মনে অন্যরকম এক আনন্দ যোগায়। প্রতিযোগিতার পর অনুষ্ঠিত হয় বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ, অতিথিদের সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান। আর সবার জন্য বিশেষ গিফট তো ছিলই। মাগরিবের নামাজের পর ভ্রমণসঙ্গীরা নির্ধারিত গাড়িতে করে গাজিপুর ত্যাগ করেন।

একনজরে সাফারি পার্ক :

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্ক বা সংক্ষেপে বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্ক বাংলাদেশের গাজীপুর জেলার শ্রীপুর উপজেলাধীন মাওনা ইউনিয়নের বড় রাথুরা মৌজা ও সদর উপজেলার পীরুজালী ইউনিয়নের পীরুজালী মৌজার খন্ড খন্ড শাল বনের ৪৯০৯.০ একর বন ভূমি ছোট বড় বিভিন্ন প্রজাতির প্রাণির জন্য নিরাপদ আবাসস্থল হিসাবে পরিচিত। এর মধ্যে ৩৮১০.০ একর এলাকাকে সাফারী পার্কের মাস্টার প্ল্যানের আওতাভূক্ত করা হয়েছে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারী পার্ক শীর্ষক প্রকল্পটি ২০১০ সালে ৬৩.৯৯ কোটি টাকা প্রাক্কলিত ব্যয়ে একনেক কর্তৃক অনুমোদিত হয় এবং পার্ক প্রতিষ্ঠা কার্যক্রম শুরু হয় এবং ২০১১ সালের ২ ফেব্র“য়ারী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারী পার্ক, গাজীপুর এর আনুষ্ঠানিকভাবে নির্মাণ কার্যক্রম শুরু হয়। প্রকল্পের শুরুতে কোন মাষ্টার প্লান প্রণয়ন করা সম্ভব হয়নি। পরবর্তীতে দেশী-বিদেশী বিশেষজ্ঞদের সহায়তায় আন্তর্জাতিক মানের সাফারী পার্কে উন্নীত করার লক্ষ্যে একটি মাষ্টার প্লান তৈরী করা হয়। মাষ্টার প্লানে বর্ণিত কার্যক্রম বাস্তবায়ন ও ভূমি অধিগ্রহনের জটিলতা নিরসনের লক্ষ্যে ৪ অক্টোবর ২০১১ তারিখে ’’বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারী পার্ক, গাজীপুর (১ম সংশোধিত) প্রকল্পটি একনেক কর্তৃক বর্ধিত আকারে ২১৯.৮৯ কোটি টাকা প্রাক্কলিত ব্যয়ে অনুমোদিত হয়। ঢাকা থেকে ৪০ কিলোমিটার উত্তরে ঢাকা – ময়মনসিংহ মহাসড়কের বাঘের বাজার থেকে ৩ কিলোমিটার পশ্চিমে সাফারী পার্কটির অবস্থান। এর আয়তন ৩৬৯০ একর। সাফারি পার্কে আছে জলহস্তী, বাঘ, সিংহ, হাতি, সাম্বার, মায়া হরিণ, চিত্রা হরিণ, বানর, হনুমান, ভল্লুক, গয়াল, কুমির ও বিচিত্র পাখী।

এই সংবাদটি 1,194 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com