শনিবার, ০২ ফেব্রু ২০১৯ ০১:০২ ঘণ্টা

সিলেটে বর্ণমালার মিছিলে ভাষার মাস বরণ

Share Button

সিলেটে বর্ণমালার মিছিলে ভাষার মাস বরণ

সিলেট রিপোর্ট: হৃদয়ে বাংলা ভাষা আর হাতে বর্ণমালা। একুশের স্লোগান ‘রাষ্ট্র ভাষা বাংলা চাই’ লেখা প্ল্যাকার্ড, আর কন্ঠে দেশাত্মবোধক গান নিয়ে দৃপ্ত পায়ে এগিয়ে চলেছে বর্ণমালার মিছিল।

স্বরবর্ণ, ব্যঞ্জন বর্ণের সুন্দর সুন্দর প্ল্যাকার্ডে সাজানো এই ব্যতিক্রমী মিছিল দিয়ে ভাষার মাস হিসাবে খ্যাত ফেব্রুয়ারির প্রথম দিনটিকে মহান ভাষা শহীদদের স্মরণে মাসটিকে বরণ করলেন সিলেটবাসী।

১ ফেব্রুয়ারি (বুধবার) সকাল ১০টায় জেলা পরিষদ প্রাঙ্গণ থেকে শুরু হয় বর্ণমালার মিছিল।

মিছিলটি সুরমা পয়েন্ট, কোর্ট পয়েন্ট, জিন্দাবাজার পয়েন্ট অতিক্রম করে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে গিয়ে সমাবেশে মিলিত হয়।

রাজপথ অতিক্রম করার সময় রাস্তার পথচারী, ব্যবসায়ী বা নগরে নানা কাজে আগন্তুকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে। তাদের কেউ কেউ স্বতঃস্ফুর্তভাবে যোগ দেন বর্ণমালার মিছিলে।

মিছিলটি চৌহাট্টাস্থ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পৌঁছালে বেদিতে ৫২ জন নৃত্যশিল্পীর পরিবেশনায় ছন্দ নৃত্যালয় মিছিলকারীদের বরণ করে নেয়।

একুশ ও বাঙালীর চেতনার ওপর ভিত্তি করে দেশাত্মবোধক এই নৃত্যটি পরিচালনা করেন নৃত্য প্রশিক্ষক বিপুল শর্মা।

এরপর শহীদ মিনারে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে সম্মিলিত নাট্য পরিষদের সভাপতি মিশফাক আহমেদ চৌধুরী মিশু বলেন, ‘ভাষার মাস বরণে সম্মিলিত নাট্য পরিষদ প্রতিবারই বর্ণমালার মিছিল আয়োজন করছে। এ মিছিল এক আলাদা আবেদন সৃষ্টি করেছে। একুশের মহান শহীদদের স্মরণ ও শ্রদ্ধা নিবেদনে নতুন প্রজন্মের কাছে এ এক অনন্য উদাহরণ।

বর্ণমালার মিছিলে সিলেটের সাহিত্য-সাংস্কৃতিক অঙ্গনের বিশিষ্টজনেরা উপস্থিত ছিলেন।

তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্যরা হলেন, বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সিলেট মহানগর ইউনিটের সাবেক কমান্ডার ভবতোষ রায় বর্মণ রানা, ব্যারিস্টার মোহম্মদ আরশ আলী, জেলা কালচারাল অফিসার অসিত বরণ দাশ গুপ্ত, সিলেট প্রেসক্লাব ফাউন্ডেশনের সভাপতি আল আজাদ, আবৃত্তিকার মোকাদ্দেস বাবুল, সম্মিলত নাট্য পরিষদের সভাপতি মিশফাক আহমেদ চৌধুরী মিশুসহ একুশ ও একাত্তরের চেতনায় বিশ্বাসী বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতা-কর্মী।

এছাড়াও সিলেটের বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষ এতে অংশ নেন।

উল্লেখ্য, ৫২’র ২১ ফেব্রুয়ারি বাঙালীর গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাসের এক অনন্য অধ্যায়। মায়ের ভাষাকে রক্ষার জন্য রাজপথে আন্দোলন করে পাকিস্তানি বাহিনীর গুলিতে প্রাণ উৎসর্গ করেন সালাম বরকত রফিক জব্বার শফিউলসহ বাংলার কয়েকজন বীর সন্তান।

পাক-পুলিশের ছোঁড়া কঁদানো গ্যাস ও লাঠিচার্জে আহত হয়েছিলেন আরও অনেক তরুন তরুণী, যারা মাতৃভাষার মর্যাদা রক্ষায় নেমেছিলেন ঢাকার কালো রাজপথে।

তাদের ত্যাগের প্রতি সম্মান রেখে সম্মিলিত নাট্য পরিষদ ২০১৪ সাল থেকে বর্ণমালার মিছিলের আয়োজন করছে। এবার তা ৬ বছরে পদার্পণ করল।

এই সংবাদটি 1,020 বার পড়া হয়েছে

কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।  শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ।  নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে।  জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।  আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি।  লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ। নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে। জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন। আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি। লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com