রবিবার, ১৭ ফেব্রু ২০১৯ ০৬:০২ ঘণ্টা

মোহনগঞ্জে জয়ের পথে শহীদ ইকবাল

Share Button

মোহনগঞ্জে জয়ের পথে শহীদ ইকবাল

বিশেষ প্রতিনিধি:

আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে নেত্রকোনার মোহনগঞ্জে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের তিন নেতা মনোনয়নপত্র দাখিল করলেও যাচাই-বাছাইয়ে আওয়ামী লীগের দুই বিদ্রোহী প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। এতে করে তৃণমূল আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মো. শহীদ ইকবালই একক প্রার্থী হিসেবে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান হওয়ার অপেক্ষায় রয়েছেন। অপর দিকে ভাইস চেয়ারম্যান হিসেবে অবস্থানগত দিকদিয়ে  রুহুল আমীন নগরী ও শান্তা আক্তার ভালো অবস্থানে রয়েছেন বলে স্থানীয়রা জানান।

রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে নেত্রকোনার মোহনগঞ্জে গত সোমবার মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার শেষ দিনে চেয়ারম্যান পদে তৃণমূল আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মো. শহীদ ইকবাল ছাড়াও বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হাজী মজিবুর রহমান ও উপজেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি ইজাজুল হক রয়েল উপজেলা সহকারি রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে গিয়ে মনোনয়নপত্র জমা দেন।

পরে মঙ্গলবার রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে যাচাই-বাছাই শেষে তথ্যে অসামঞ্জস্য থাকায় ওই দুই বিদ্রোহী প্রার্থীর প্রার্থীতা বাতিল হওয়ায় এ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে মো. শহীদ ইকবালই একক প্রার্থী হিসেবে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার অপেক্ষায় রয়েছেন।

এছাড়াও যাচাই-বাছাইয়ে ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৬ জন প্রার্থীর সবারই প্রার্থীতা বহাল রয়েছে। তবে নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করলেও সাবেক উপজেলা নারী ভাইস চেয়ারম্যান কামরুন্নাহার বুলবুল ও শান্তা আক্তারের প্রার্থীতা বহাল থাকলেও তথ্যে গরমিল থাকায় নাছিমা আক্তার লিপী ও রুনা আক্তারের প্রার্থীতা বাতিল করা হয়েছে।
রিটার্নিং কর্মকর্তা ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) সাবিহা সুলতানা এসব তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, যাচাই-বাছাইয়ে যেসব প্রার্থীর প্রার্থীতা বাতিল করা হয়েছে তারা অনেকেই তা আপিল করার জন্য কার্যালয় থেকে ফরম নিয়েছেন। শনিবার ইজাজুল হক রয়েল আপিলে প্রার্থীতা ফিরে পেয়েছেন। এবং অপর চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী হাজী মজিবুর রহমান কাচা মিয়া প্রার্থীতা ফিরে পেতে হাইকোর্টে আপিল করেছেন বলে জানাগেছে।

এদিকে,

ভাইস চেয়ারম্যান পদে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে যাদের মনোনয়ন বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে তাদের মধ্যে রয়েছেন  সাংবাদিক মাওলানা রুহুল আমীন নগরী, মোঃ ওয়াজ উদ্দিন, দিলীপ দত্ত, আবুল খায়ের মিলন, ওমর ফারুক, মোঃ কাজল তালুকদার। উল্লেখ্য যে,  ভাইস চেয়ারম্যানপদে রুহুল আমীন নগরীর বাড়ী মোহনগঞ্জ উপজেলার ২নং বরতলি বানিহারি ইউনিয়নের নগর গ্রামে। তিনি যুব জমিয়ত বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় সহসাংগঠনিক সম্পাদক এবং নেত্রকোনা জেলা জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের যুব বিষয়ক সম্পাদক। তিনি একজন লেখক ও সাংবাদিক হিসেবে পরিচিত। তার পিতা মরহুম আব্দুর রাজ্জাক তাবলীগ জামাতের প্রবীণ মুরুব্বী ছিলেন। তিনি মোহনগঞ্জ উপজেলা সম্মিলিত উলামাপরিষদের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য। আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে তিনি উলামা মাশায়েখ ও সর্বস্থরের তৌহিদী জনতা সমর্থিত প্রার্থী হিসেবে সকলের দোয়া ও সহযোগিতা কামনা করেছেন।

এই সংবাদটি 1,111 বার পড়া হয়েছে

কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।  শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ।  নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে।  জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।  আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি।  লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ। নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে। জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন। আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি। লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com