সোমবার, ০১ এপ্রি ২০১৯ ০১:০৪ ঘণ্টা

জমিয়তের জন্মবৃত্তান্ত বনাম ওলামায়ে দেওবন্দ!

Share Button

জমিয়তের জন্মবৃত্তান্ত বনাম ওলামায়ে দেওবন্দ!

মুফতী খন্দকার হারুনুর রশীদ :
ভারতীয় উপমহাদেশের বিপ্লবী মুসলিম জনগণকে সশস্ত্র সংগ্রামের পথে বিরতি দিয়ে গণতান্ত্রিক ধারার আন্দোলনের দিকে নিয়ে আসার পেছনে যাদের অবদান সবচেয়ে বেশি, নিখিল ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনে পূর্ণতা এসেছিলো যাদের ছুঁয়ায় এবং ত্যাগের মহিমায়, যাদের তিতিক্ষা ও সৃষ্টির পথ ধরে তখন দেওবন্দি ননদেওবন্দি, সুন্নী-রেজবী, ওয়াহাবী সকল মতবাদ ও মতাদর্শের ওলামা-মাশায়েখের মাঝে তৈরি হয়েছিলো এক সীসাঢালা প্রাচীরসম ঐক্যের আদর্শিক বন্ধন, যাদের সম্মিলিত অগ্রযাত্রা ও একমুখী চিন্তাধারা বিগত এক শতকের ইসলামী রাজনৈতিক সংগ্রামের সোনালি ইতিহাসের প্রাণ, যে ক’জন বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ আলেমে দীন, মুহাদ্দিস, ফেকাহবিদ, সাংবাদিক-সাহিত্যিক ও লেখক-গবেষকের অক্লান্ত পরিশ্রমকে কেন্দ্র করে জন্ম নিয়েছিলো মুসলিম মিল্লাতের রাজনৈতিক প্রহরী এবং আজকের দুঃখজনকভাবে চৌখণ্ডিত উম্মুল আহযাব খ্যাত– জমিয়ত, সে মুষ্টিমেয় স্বর্ণমানবদের শীর্ষ মুরুব্বীর আসনে যারা ছিলেন সমাসীন, তারা হলেন মাওলানা আব্দুল বারী ফিরিঙ্গি মহল্লী (রাহ), মাওলানা মুহাম্মাদ আকরম খাঁ (রাহ) ও মাওলানা মুহাম্মাদ মনিরুজ্জামান ইসলামাবাদী (রাহ)। চিরসংগ্রামী এই মর্দেমুজাহিদগণ সকল সময়ে সকল আন্দোলনে সামনের সারিতে থেকে নেতৃত্ব দিয়ে গেলেও পদ-পদবী ছাড়া আড়ালে থেকে সর্বদাই শক্তির যোগান দেওয়ার কাজ করে গিয়েছেন বেশি বেশি।

এই তিন মনীষীর মাঝে মাওলানা কেয়ামুদ্দীন আব্দুল বারী (রাহ) ছিলেন সকলের বয়োজ্যেষ্ঠ। তিনি ‘ফিরিঙ্গিমহল্লা’র এক বিখ্যাত এলেমী খান্দানে ১২৯৫ হিজরি মোতাবিক ১৮৭৮ খ্রিস্টাব্দে জন্মগ্রহণ করেন। প্রাথমিক শিক্ষা থেকে নিয়ে যাবতীয় ফনুনাত তিনি স্বীয় খান্দানের আলেমগণের নিকটেই অধ্যয়ন করেন। তার জন্মস্থানের দিকে সম্বন্ধ রেখেই তাকে ‘ফিরিঙ্গিমহল্লী’ বলা হয়। তার হাদীসের উস্তাদ হলেন– মাওলানা আব্দুল বাকী ফিরিঙ্গি মহল্লী (রাহ) এবং আপন খালাত ভাই মাওলানা আব্দুল হাই লক্ষ্ণৌবী (রাহ)। মাওলানা আব্দুল বারী ফিরিঙ্গি মহল্লী (রাহ) দারুল উলূম দেওবন্দ-পড়ুয়া কোনো আলেম ছিলেন না। আর তিনিই উপমহাদেশের বুকে গণতান্ত্রিক ধারায় ইসলামী রাজনীতির স্থপতি এবং আজকের দুঃখজনকভাবে চৌখণ্ডিত জমিয়তের স্বপ্নদ্রষ্টা এবং জন্মদাতা। সুতরাং জমিয়তের জন্ম দেওবন্দে হয় নি। যারা এই দাবি করেন তারা অনুমাননির্ভর কথাই বলে থাকেন।

কর্মজীবনে মাওলানা আব্দুল বারী ফিরিঙ্গি মহল্লী (রাহ) ১৩১৩ হিজরি সনে নিজ এলাকা ফিরিঙ্গিমহল্লায় ‘নেযামিয়া মাদরাসা’ নামে একটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নিজেই প্রতিষ্ঠা করেন। এখানে তিনি ১৩৪৪ হিজরি পর্যন্ত হাদীস, তাফসীর, ফেকাহ প্রভৃতি এলেম শিক্ষাদানে মশগুল থাকেন এবং গবেষণা ও লেখালেখির কাজ চালিয়ে যান। ইসলামী শরিয়ার নানা বিষয়ে তিনি প্রায় একশত গ্রন্থ রচনা করেন। কেবল হাদীস শাস্ত্রের ওপর তার লিখিত ১৩ বা ১৪ খানা অসাধারণ গ্রন্থ রয়েছে।

মাওলানা আব্দুল বারী ফিরিঙ্গি মহল্লী (রাহ) লিখিত প্রসিদ্ধ কয়েকটি গ্রন্থ হলো——
০১. আল-আসারুল মুহাম্মাদিয়্যাহ।
০২. আল-আসারুল মুত্তাসিলাহ।
০৩. আদ দুররাতুল বাহিরাহ ফিল আহাদীসিল মুতাওয়াতিরাহ।
০৪. আল-ইরশাদ ফিল ইসনাদ।
০৫. আল-হায়াকিলুল মা’নাবিয়্যাহ ফিশ শামাঈলিন নাবাবিয়্যাহ।
০৬. আল- আরবাঈনুয যাজিরাহ ফিল হাওয়াদিসিল হাজিরাহ।
০৭. আসারুল ইমামাহ।
০৮. আল-হাদিয়াতুত তায়্যিবাহ লি সিলাতি ইবনি আবী শাইবাহ, ইত্যাদি।

মাওলানা আব্দুল বারী ফিরিঙ্গি মহল্লী (রাহ) সেই সৌভাগ্যবান ব্যক্তি যার পরিকল্পনায় ও সভাপতিত্বে ১৯১৯ খ্রিস্টাব্দে নভেম্বর মাসের শেষের দিকে [২৩/১১/১৯১৯ খ্রি.] দিল্লিতে অনুষ্ঠিত সর্বভারতীয় ওলামা-মাশায়েখের বৈঠকে জমিয়তে উলামায়ে হিন্দ গঠিত ও প্রতিষ্ঠিত হয়। জমিয়ত গঠনকালে হযরত শাইখুল হিন্দ মাওলানা মাহমুদ হাসান (রাহ) ও মাওলানা সাইয়েদ হুসাইন আহমদ মাদানী (রাহ) মাল্টা দ্বীপে রাজবন্দী ছিলেন এবং তখনো তারা ছিলেন সশস্ত্র সংগ্রামের প্রবক্তা। তারা ১৯২১ খ্রিস্টাব্দে কারামুক্তির পর ‘সশস্ত্র পন্থা’ ত্যাগ করে জমিয়তের সাথে যুক্ত হন এবং গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় ইসলামী আন্দোলনের নেতৃত্বে যুক্ত হন।

সেদিন [২৩/১১/১৯১৯ খ্রি.] মাওলানা আবুল ওয়াফা সানা উল্লাহ (রাহ) এর প্রস্থাবে এবং বাংলাসাহিত্যের প্রবাদপুরুষ মাওলানা মুনীরুজ্জামান ইসলামাবাদী (রাহ) সহ উপস্থিত অন্যান্য ওলামায়ে কেরামের সমর্থনে সর্বজনাব মাওলানা আব্দুল বারী ফিরিঙ্গিমহল্লী (রাহ) সভায় সভাপতিত্ব করেন। আর এ মহতি বৈঠকেই জমিয়তে উলামায়ে হিন্দের প্রতিষ্ঠা ও কার্যকরী কমিটি গঠিত হয় আর কমিটির সভাপতি হিসেবে মাওলানা মুফতী কেফায়াতুল্লাহ (রাহ) এবং সেক্রেটারি হিসেবে মাওলানা হাফেয আহমদ সায়ীদ (রাহ) কে দায়িত্ব প্রদান করা হয়। নবনির্বাচিত সেক্রেটারি সভায় উপস্থিত থাকলেও প্রস্তাবিত আকারে দায়িত্ব প্রদত্ত সভাপতি মাওলানা মুফতী কেফায়াতুল্লাহ (রাহ) সেদিন সভায় অনুপস্থিত ছিলেন। এ বৈঠকে আরো উপস্থিত ছিলেন– বাংলায় মুসলিম সাংবাদিকতার জনক মাওলানা মুহাম্মদ আকরম খাঁ (রাহ)।

মাওলানা মুহাম্মদ আকরম খাঁ [জন্ম-১৮৫৩, ইন্তেকাল-১৯৬৮ খ্রি.] একাধারে একজন প্রখ্যাত সাংবাদিক, রাজনীতিবিদ, গবেষক, ইসলামতত্ত্ববিদ, সাহিত্যিক ও চিন্তাশীল প্রাবন্ধিক। মূলতঃ একজন দূরদ্রষ্টা-বুদ্ধিজীবি হিসেবে তিনিই ছিলেন ইসলামী আন্দোলনকে গণতান্ত্রিক ধারায় রূপায়নের মূল কারিগর। তিনি আরবি, ফারসি, উর্দু, বাংলা ও সংস্কৃত ইত্যাদি ভাষায় সুপণ্ডিত ছিলেন। তাকে মুসলিম সাংবাদিকতার ‘জনক’ বলা হয়। তার রচিত ‘মোস্তফা চরিত’ পড়লে বুঝা যায় তিনি নবীগণের মু’জেযা এবং আউলিয়ায়ে কেরামের কেরামাত স্বীকার করতেন না।
তিনি ১৯০৪ খ্রিস্টাব্দে সাপ্তাহিক মোহাম্মদী প্রকাশ করেন। মাসিক মোহাম্মদী ও দৈনিক আজাদ সম্পাদনা করেন।

মাওলানা মুহাম্মাদ আকরম খাঁ (রাহ) একদিকে যেমন ১৯১৯ খ্রিস্টাব্দে বর্তমান ভারতীয় উপমহাদেশের প্রাচীনতম রাজনৈতিক কাফেলা জমিয়তে উলামায়ে হিন্দের অন্যতম উদ্যোক্তা, প্রতিষ্ঠাতা ও স্থপতি অন্যদিকে ১৯৪৬ খ্রিস্টাব্দে কলিকাতায় ‘জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম’ তার ঐকান্তিক সাধনা ও প্রচেষ্টায় গঠিত হয়। সে হিসেবে তিনি জমিয়তে উলামায়ে ইসলামেরও অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা এবং জনক।

বাংলা সাহিত্যে তার রচিত গ্রন্থাবলীর মাঝে রয়েছে—–
(ক) যীশু কি নিষ্পাপ? [১৯১৫ খ্রি.]।
(খ) এসলাম দর্শন [১৯১৭ খ্রি.]
(গ) আঞ্জুমানে ওলামায়ে বাঙালার রিপোর্ট [১৯১৩ খ্রি.]।
(ঘ) আমপারা [১৯২৪ খ্রি.]।
(ঙ) মোস্তফা চরিত [১৯২৫ খ্রি.]।
(চ) উম্মুল কেতাব [১৯২৯ খ্রি.]।
(জ) সমস্যা ও সমাধান [১৯৩১ খ্রি.]।
(ঝ) মিশ্র ও স্বতন্ত্র নির্বাচন [১৯৩২ খ্রি.]। এটা জোটবদ্ধ নির্বাচন প্রসঙ্গে লিখিত।
(ঞ) মোস্তফা চরিত্রের বৈশিষ্ট্য [১৯৩২ খ্রি.]
(ট) পাকিস্তাননামা বা নয়া রাহে নাজাত [১৯৪৩ খ্রি.]।
(ঠ) তাফসীরুল কোরান [১৯৫৯ খ্রি.]।
(ড) বাইবেল নির্দেশ ও প্রচলিত খ্রিস্টান ধর্ম [১৯৬২ খ্রি.]
(ঢ) মোসলেম বঙ্গের সামাজিক ইতিহাস [১৯৬৫ খ্রি.] ইত্যাদি।
(ণ) বাংলা অনুবাদ সাহিত্যে তার কৃত অত্যন্ত স্বচ্ছ ও প্রাঞ্জল ভাষার এক অনন্য কীর্তি হলো, পাঁচ খণ্ডে সমাপ্ত পবিত্র কুরআনের অনুবাদগ্রন্থ [১৯০৫ খ্রি.]।

জমিয়ত জন্মের পর সেদিন সর্বসম্মতিতে মাওলানা মুহাম্মদ আকরম খাঁ (রাহ) ও মাওলানা মুফতী কেফায়াতুল্লাহ (রাহ) এর ওপর জমিয়তের “লক্ষ্য উদ্দেশ্য ও গঠনতন্ত্র” প্রণয়নের জিম্মাদারি অর্পণ করা হয়। সুতরাং এখানে প্রাসঙ্গিকভাবে হলেও একটি কথা পরিস্কার হলো যে, মাওলানা আব্দুল বারী ফিরিঙ্গি মহল্লী (রাহ) জমিয়ত প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে অনুষ্ঠিত প্রথম বৈঠকের সভাপতি। আর মুফতী কেফায়াতুল্লাহ (রাহ) সভায় অনুপস্থিত থাকলেও জমিয়তের প্রথম মনোনীত দলীয় সভাপতি।[বিস্তারিত বিবরণ- ‘মুখতাসার হালাতে জমিয়তে উলামায়ে হিন্দ : প্রকাশকাল- ১৯২০ খ্রি.]

এবার আসা যাক মাওলানা মুহাম্মদ মুনীরুজ্জামান ইসলামাবাদী [জন্ম-১৮৭৫, ইন্তকাল-১৯৫০ খ্রি] প্রসঙ্গে। তিনি একাধারে একজন উঁচু স্তরের ইসলামী চিন্তাবিদ, রাজনীতিক, সাংবাদিক, সাহিত্যিক, সমাজ সংস্কারক। আরবি, উর্দু, ফারসি ও বাংলা ভাষাবিদ। জমিয়তে উলামায়ে হিন্দের অন্যতম উদ্যোক্তা, প্রতিষ্ঠাতা ও জনক। হযরতের সঙ্গে সুসম্পর্কের ভিত্তিতে মাওলানা মুহিউদ্দীন খান (রাহ) তাকে আহলে হাদীস বা সালাফি চিন্তার আলেম বলেই জানতেন। এই লেখককে যা তিনি বহুবার নিশ্চিত করেছেন।

বাংলা সাহিত্যে তার মূল্যবান রচনাবলীর মাঝে রয়েছে–
(ক) ভারতে মুসলমান সভ্যতা, [১৯১৪ খ্রি.]।
(খ) কনস্টান্টিনোপল, [১৯১৩ খ্রি.]।
(গ) ভারতে ইসলাম প্রচার, [১৯১৫ খ্রি.]।
(ঘ) খাজা নেজামুদ্দীন আউলিয়া, [১৯১৬ খ্রি.]।
(ঙ) তুরস্কের সুলতান, [১৯১৮ খ্রি.]।
(চ) মুসলমানের অভ্যুত্থান।
(ছ) মুসলিম বীরাঙ্গনা।
(জ) ইসলামের উপদেশ।
(ঝ) ইসলামের পুণ্যকথা।
(ঞ) সমাজ সংস্কার।
(ট) খগোল শাস্ত্রে মুসলমান।
(ঠ) ভূগোল শাস্ত্রে মুসলমান।
(ড) আওরঙ্গজেব।
(ঢ) কোরানে স্বাধীনতার বাণী ইত্যাদি।

পরবর্তীতে (২৮/১২/১৯১৯ খ্রি.) অমৃতসর মুসলিম হাইস্কুলে জমিয়তের দ্বিতীয় বৈঠক অনুষ্ঠিত হলে সে বৈঠকেও সংগঠনের সভাপতি মাওলানা মুফতী কেফায়াতুল্লাহ (রাহ) এর প্রস্থাবে এবং মাওলানা কাজী হাবীবুল্লাহ (রাহ) ও মাওলানা মুহাম্মদ ফাখির (রাহ) সহ উপস্থিত ওলামায়ে কেরামের সমর্থনে মাওলানা আব্দুল বারী ফিরিঙ্গিমহল্লী (রাহ) সভার সভাপতিত্ব করেন। তার সম্মতি ও অনুমোদনে এদিন অনেকগুলো প্রস্থাব গৃহীত হয়। [বিস্তারিত বিবরণ- জমিয়তুল উলামা কিয়া হ্যায়? পৃ.৭৫] এখানে বিশেষতঃ প্রাসঙ্গিকভাবে হলেও আরেকটি কথা পরিষ্কার হয়ে গেলো যে, মাওলানা নূর মুহাম্মদ আ’যমী (রাহ) সহ যেসব লেখক মাওলানা আব্দুল বারী ফিরিঙ্গি মহল্লী (রাহ) কে জমিয়তের প্রথম সভাপতিরূপে উল্লেখ করেছেন মূলতঃ তারা এর দ্বারা জমিয়ত গঠনের জন্য সর্বপ্রথম অনুষ্ঠিত বৈঠকের সভাপতিই বুঝিয়ে থাকবেন। অন্যথায় নিঃসন্দেহে তা ভুল বলেই গণ্য হবে।

আশাকরি এতোক্ষণের আলোচনায় একথা পরিস্কার হয়ে গিয়েছে যে, জমিয়ত জন্মগতভাবে ওলামায়ে দেওবন্দের একক কোনো প্রতিষ্ঠান ছিলো না এবং এটা নিছক দেওবন্দকেন্দ্রিক কোনো সংগঠনও নয়। জমিয়ত ছিলো সকল মাসলাক-মাশরাব ও মতাদর্শের ওলামা-মাশায়েখের সমন্বিত একটা রাজনৈতিক প্লাটফর্ম মাত্র। সময়ে সময়ে যারা ঐক্যের এই প্লাটফর্মকে কখনো দেওবন্দকেন্দ্রিক, কখনো মাদারিসে কাওমিয়াকেন্দ্রিক আবার কখনো আহলে সুন্নাহের আকীদার সাথে সীমিত করেছেন প্রকৃতপক্ষে তারাই জমিয়তকে আজকের লজ্জাজনক পরিস্থিতির মুখোমুখি করেছেন। অত্যন্ত পরিতাপের সঙ্গে বলতে হয়; বাংলাদেশে জমিয়ত এখন চার টুকরো। আজ সুন্নী বা রেজভীরা জমিয়তে নেই। আহলে হাদীস বা সালাফিরা নেই। ওলামায়ে আলিয়া নেই। শর্ষিনা এবং ফুরফুরা’রাও নেই। অথচ, একসময় জমিয়ত ছিলো সবার এবং সবাই ছিলেন এই জমিয়তের ছায়াতলে ঐক্যবদ্ধ।

স্মরণীয় যে, বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার প্রসিদ্ধ শিল্পপতি জনাব, জামাল মিয়া আমাদের আলোচনাকৃত মাওলানা আব্দুল বারী ফিরিঙ্গি মহল্লী (রাহ) এর সন্তান ছিলেন। শিল্পপতি জামাল মিয়ার প্রকৃত ও পূর্ণ নাম, মাওলানা জামাল উদ্দীন আব্দুল ওয়াহহাব। তিনি মাওলানা আব্দুল বারী ফিরিঙ্গি মহল্লী (রাহ) এর পুত্র।

মাওলানা আব্দুল বারী ফিরিঙ্গি মহল্লী (রাহ) এর প্রসিদ্ধ শাগরেদগণের সংখ্যা অনেক। তাদের আলোচনা পরে কোনো একসময় করার ইচ্ছে আছে। যাদের অক্লান্ত ত্যাগ এবং অশেষ সাধনায় তদানীন্তনকালে উপমহাদেশের ঘরে-ঘরে জমিয়তের আওয়াজ পৌঁছে ছিলো। তিনি ১৩৪৪ হিজরি মোতাবিক ১৯২৬ খ্রিস্টাব্দে ইন্তেকাল করেন।
আমরা উল্লেখিত হযরাতগণের জন্য পরম করুণাময় দয়ালু আল্লাহর দরবারে মাগফেরাত ও আ’লা মাকাম প্রার্থনা করছি।

———–০
#পরিচালক, নাযারাতুল মা’রিফ আল ইসলামিয়া, ফতেহপুর, গোয়াইনঘাট, সিলেট।
#খতীব, মৌচাক জামে মসজিদ, শিবগঞ্জ, সিলেট।
#তারিখ: (২৯/০৩/২০১৯ খ্রি. শুক্রবার।)

এই সংবাদটি 1,030 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com