বৃহস্পতিবার, ০৯ মে ২০১৯ ০৪:০৫ ঘণ্টা

ফিলিস্তিন নিয়ে ট্রাম্প-নেতানিয়াহুর ‘শতাব্দীর সেরা চুক্তি’ ফাঁস

Share Button

ফিলিস্তিন নিয়ে ট্রাম্প-নেতানিয়াহুর ‘শতাব্দীর সেরা চুক্তি’ ফাঁস

ডেস্ক রিপোর্ট :

মধ্যপ্রাচ্যে শান্তি ফিরিয়ে আনতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ট ট্রাম্পের বহুল আলোচিত ‘শতাব্দীর সেরা চুক্তি’র আদ্যোপ্রান্ত ফাঁস হয়েছে।

মঙ্গলবার (৭ মে) ইসরায়েল সরকার সমর্থিত জাতীয় দৈনিক ‘হাইয়ুম’ মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু স্বাক্ষরিত কথিত ‘শান্তি’ চুক্তি নামক একটি নথি প্রকাশ করেছে। যে নথিটিকে দুই দেশের মধ্যে শান্তি চুক্তি বা শতাব্দির সেরা চুক্তি বলে অভিহিত করা হয়েছে।

নেতানিয়াহুর মুখপত্র হিসেবে পরিচিত জাতীয় দৈনিক হাইয়ুম সেই নথি প্রকাশ করলেও যুক্তরাষ্ট্র, ইসরায়েল কিংবা ফিলিস্তিন হাইয়ুমের প্রকাশিত ওই চুক্তির সত্যতা নিশ্চিত করেনি।

ইসরায়েলের ওই দৈনিকটির দেয়া তথ্য অনুযায়ী, এ চুক্তিতে হামাস সদস্য ও নেতাদের বেতনভূক্ত করার প্রস্তাবনা রয়েছে ট্রাম্পের।

এছাড়াও একটি ত্রিপক্ষীয় চুক্তি হবে যেটি ইসরাইল, ফিলিস্তিনি লিবারেশন অর্গানাইজেশন (পিএলও) ও হামাসের সঙ্গে। এতে ফিলিস্তিনি রাষ্ট্রের নতুন নাম হবে ‘নতুন ফিলিস্তিন,’ যেটি প্রতিষ্ঠিত হবে জুডিয়া, সামারিয়া (পশ্চিম তীর) এবং গাজা এলাকা নিয়ে। একই সঙ্গে ব্যতিক্রম হবে ইসরাইল পশ্চিম তীরে বসতি স্থাপন করবে।

চুক্তি স্বাক্ষর হলে এটি বাস্তবায়ন ধরা হবে। হামাস মিসরীয় কর্তৃপক্ষের সঙ্গে ব্যক্তিগত অস্ত্রসহ তার সমস্ত অস্ত্র জমা দেবে।

সরকার গঠনের পর হামাস সদস্যরা এবং তাদের নেতারা সহযোগী দেশেগুলো থেকে সবসময়ের জন্য বেতন পাবেন। গাজা সীমান্ত এবং সমুদ্র সীমানা উন্মুক্ত থাকবে। সেখান দিয়ে মালামাল ও শ্রমিক ইসরাইল এবং মিসর যেতে পারবে। যেটি হবে জুডিয়া এবং সামারিয়ার বর্তমান অবস্থার মতো।

এক বছরের মধ্যে নতুন ফিলিস্তিনের গণতান্ত্রিক সরকার গঠন করা হবে। যেখানে প্রত্যেক ফিলিস্তিনের নাগরিক ভোটযুদ্ধে অংশগ্রহণ করতে পারবে।

নির্বাচন ও সরকার প্রতিষ্ঠার এক বছর পর ইসরাইলি কারাগারে ফিলিস্তিনি বন্দিদের তিন বছরের মধ্যে ধীরে ধীরে মুক্তি দেয়া হবে।

আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে নতুন ফিলিস্তিনের জন্য সমুদ্রবন্দর এবং বিমানবন্দর তৈরি করে দেয়া হবে। এর মধ্যে ফিলিস্তিনিরা ইসরাইলের বিমানবন্দর এবং সমুদ্রবন্দর ব্যবহার করতে পারবে।

সীমান্তে নতুন ফিলিস্তিন এবং ইসরাইলের নাগরিকরা চলাচল এবং পণ্য পরিবহন করতে পারবে। বন্ধুত্বপূর্ণ দেশের সঙ্গে যেমন হয়।

পশ্চিম তীর ও গাজার সঙ্গে হাইওয়ে সড়ক হবে। এতে চীন ৫০ শতাংশ খরচ দেবে। এবং দক্ষিণ কোরিয়া, অস্ট্রেলিয়া, কানাডা, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপীয় ইউনিয়ন দেবে ১০ শতাংশ।

যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে আগামী মাসে এই চুক্তিটি প্রকাশ করা হবে বলে পত্রিকাটি জানিয়েছে। তবে ফিলিস্তিন ও ইসরাইলের মধ্যে প্রস্তাবিত শান্তি পরিকল্পনা রমজানের শেষে বা পরে ঘোষণা করা হবে বলে জানিয়েছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের জামাতা ও হোয়াইট হাউসের উপদেষ্টা জ্যারেড কুশনার।

এই সংবাদটি 1,028 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com