মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০১৯ ০১:০৫ ঘণ্টা

সংবিধানে মানুষের জীবনের অধিকার স্বীকৃত, পশুর নয় : মোদির প্রতি ভারতের দুই শীর্ষ মুসলিম নেতা

Share Button

সংবিধানে মানুষের জীবনের অধিকার স্বীকৃত, পশুর নয় : মোদির প্রতি ভারতের দুই শীর্ষ মুসলিম নেতা

ডেস্ক রিপোর্ট:

ভারতে লোকসভা নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণার পর মুসলমানরা আক্রান্ত হওয়ার ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে শান্তিতে বসবাস করার জন্য প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে চিঠি লিখে আহ্বান জানানো হয়। মুসলমানদের শান্তির সাথে নির্ভয়ে বাস করতে দেয়ার পাশাপাশি তাদের খুন হওয়া আটকাতে এই আহ্বান জানিয়েছেন ভারতের দুইজন শীর্ষ মুসলিম নেতা। মুসলমানরা যাতে ভারতে শান্তিতে বসবাস করতে পারে এবং সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা ও ধর্মীয় উগ্রতার কারণে তারা যাতে ভীতসন্ত্রস্ত না হয় সে জন্য ভারতের সংখ্যালঘু মুসলমানদের দিকে বিশেষ দৃষ্টি রাখার জন্য প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন ভারতের সবচেয়ে প্রভাবশালী মুসলিম নেতা মাওলানা সাইয়্যিদ মাহমুদ মাদানী।
ভারতের পার্লামেন্ট নির্বাচনে ভ‚মিধস জয় লাভ করায় ভারতীয় মুসলমানদের সর্ববৃহৎ সামাজিক সংগঠন জমিয়তে উলামা হিন্দের জেনারেল সেক্রেটারি মাওলানা সাইয়্যিদ মাহমুদ মাদানী প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে অভিনন্দন জানিয়ে চিঠি পাঠিয়েছেন। ওই চিঠিতে শিক্ষা, স্বাস্থ্য এবং কর্মসংস্থানের ক্ষেত্রে ধর্মীয় ভেদাভেদ ভুলে সব নাগরিকদের এক দৃষ্টিতে দেখার জন্য নরেন্দ্র মোদির প্রতি তিনি আহ্বান জানান। গত রোববার ভারতীয় বিভিন্ন গণমাধ্যমে মাওলানা মাহমুদ মাদানীর ওই চিঠি প্রকাশিত হয়। জাতি ও ধর্মের ভিত্তিতে কোনো ভেদাভেদ করা হবে না, নির্বাচনে জয়ের পর এমন বক্তব্য দিয়েছেন মোদি। তার এমন বক্তব্যকে স্বাগত জানিয়ে চিঠিতে মাওলানা মাদানী বলেন, আপনার সাম্প্রতিক বক্তব্য থেকে আমরা জানতে পেরেছি সংখ্যালঘুদের ভোটব্যাংক হিসেবে ব্যবহার করার পরিবর্তে তাদের শিক্ষা, স্বাস্থ্য এবং কর্মসংস্থানের ব্যাপারে আপনি বিশেষ মনোযোগী হবেন। আমাদের দৃঢ় বিশ্বাস আপনার এ কথাগুলো বাস্তবায়িত হবে।
ধর্মীয় উগ্রতার বিষয়ে লক্ষ্য রাখার আহ্বান জানিয়ে মোদিকে মাওলানা মাদানী বলেন, আমরা আশা করছি আপনি ভারতের সংখ্যালঘু মুসলমানদের দিকে বিশেষ দৃষ্টি রাখবেন। যাতে মুসলমানরা ভারতে শান্তিতে বসবাস করতে পারে এবং সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা ও ধর্মীয় উগ্রতার কারণে মুসলমানরা ভীতসন্ত্রস্ত না হয়।
উল্লেখ্য, জমিয়তে উলামায়ে হিন্দ ভারতীয় মুসলমানদের সর্ববৃহৎ পুরোনো প্লাটফর্ম। ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলন থেকে এ সংগঠনটির জন্ম। উপমহাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে এ দলটির ব্যাপক অবদান রয়েছে। মাওলানা মাহমুদ মাদানী ব্রিটিশ বিরোধী সংগ্রামের প্রাণপুরুষ সাইয়্যেদ হুসাইন আহমদ মাদানীর দৌহিত্র ও সাইয়্যেদ আসআদ মাদানীর ছেলে। তার বুদ্ধিবৃত্তিক প্রচেষ্টা ও সৃজনশীল কর্মপন্থায় ভারতীয় মুসলমানরা এক অভিন্ন প্লাটফর্মে ঐক্যবদ্ধ হয়েছে। মাওলানা মাদানীর রাজনৈতিক দূরদর্শিতা ভারতের সর্বমহলে স্বীকৃত। আন্তঃধর্মীয় সম্প্রীতি, মত পথ ভুলে এক কাতারে সবাইকে নিয়ে চলার মানসিকতা ও উদ্যোগ তাকে পৌঁছে দিয়েছে এক অনন্য উচ্চতায়।
এদিকে ভারতে মুসলমানদের খুন হওয়া আটকাতে প্রধানমন্ত্রী মোদির প্রতি জোর আহবান জানিয়েছেন এআইএমআইএম নেতা ও এবার লোকসভা ভোটে গেরুয়া ঝড়ের মধ্যে হায়দরাবাদ কেন্দ্রে ফের জয়ী হওয়া পার্লামেন্ট সদস্য আসাদুদ্দিন ওয়াইসি।
বিজেপি জামানা নিয়ে মুসলিমদের মিথ্যে ভয় দেখানো হচ্ছে বলে দাবি করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তিনি বলেন, তার সরকার সকলকে সঙ্গে নিয়ে চলার পক্ষপাতী। কিন্তু সোমবার তথাকথিত ‘গোরক্ষকদের’ তান্ডব নিয়ে মোদির কঠোর সমালোচনা করেন আসাদুদ্দিন ওয়াইসি। তার প্রশ্ন, মোদি এই ধরনের গোষ্ঠীর তান্ডব রুখতে কী পদক্ষেপ করছেন?
বিজেপি দেশে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাওয়ার ঠিক পরেই ফের ‘গোরক্ষকদের’ তান্ডবের অভিযোগ উঠেছে মধ্যপ্রদেশে। সিওনীতে গরুর গোশত নিয়ে যাওয়ার ‘অপরাধে’ এক দম্পতিসহ তিনজনকে মারধর করার অভিযোগ উঠেছে পাঁচ জন ‘গোরক্ষকে’র বিরুদ্ধে। তার পরে আক্রান্ত তিন জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। কারণ, মধ্যপ্রদেশে গরুর গোশত রাখা বা বিক্রি করা বেআইনি।
ওয়াইসি বলেন, ‘সংবিধানে মানুষের জীবনের অধিকার স্বীকৃত, পশুর নয়। প্রধানমন্ত্রী যদি মনে করেন সংখ্যালঘুরা ভয়ে ভয়ে আছেন তাহলে তার জানা উচিত উত্তরপ্রদেশের দাদরিতে যারা মহম্মদ আখলাককে পিটিয়ে মেরেছিল তারা একটি নির্বাচনী জনসভার প্রথম সারিতে বসেছিল।’ ২০১৫ সালে দাদরিতে বাড়িতে গরুর গোশত রাখার ‘অপরাধে’ মহম্মদ আখলাককে পিটিয়ে হত্যা করা হয়। সেই ঘটনায় ১৪ জন গ্রেফতার হয়। তাদের মধ্যে ১২ জন জামিন পেয়েছে।
ওয়াইসির প্রশ্ন, ‘প্রধানমন্ত্রী এই ধরনের গোষ্ঠীগুলিকে রুখতে কী ব্যবস্থা নিচ্ছেন? এই গোষ্ঠীগুলি মুসলিমদের পিটিয়ে খুন করছে। সেই ঘটনার ভিডিও পর্যন্ত তুলে রাখছে। আমাদের চ‚ড়ান্ত অপমান করা হচ্ছে। মধ্যপ্রদেশের ঘটনাই এর সাম্প্রতিক নজির।’ তার বক্তব্য, ‘সংসদে মুসলিমদের প্রকৃত প্রতিনিধিত্বের বিষয়ে কি বিজেপি উদ্যোগী হয়েছে? প্রধানমন্ত্রীর নিজের দলের সংসদ সদস্যের সংখ্যা এখন ৩০০ জনের বেশি। কিন্তু তাদের মধ্যে ক’জন মুসলিম?’
উল্লেখ্য, এবারের লোকসভা ভোটে গেরুয়া ঝড়ের মধ্যে হায়দরাবাদ কেন্দ্রে ফের জয়ী হয়েছেন ওয়াইসি। সূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা।

এই সংবাদটি 1,003 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com