মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০১৯ ১২:০৬ ঘণ্টা

মহিলা মাদরাসায় অভিন্ন সিলেবাস : কতটা যৌক্তিক?

Share Button

মহিলা মাদরাসায় অভিন্ন সিলেবাস : কতটা যৌক্তিক?

হামমাদ রাগিব :

বাংলাদেশে ব্যাপকভাবে গড়ে ওঠা মহিলা মাদরাসাগুলোতে পুরুষ মাদরাসার দরসে নেজামির সিলেবাসের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে প্রায় অভিন্ন সিলেবাসে পাঠদান করা হয়। তবে ছেলেদের শিক্ষাবর্ষের তুলনায় মেয়েদের শিক্ষাবর্ষ ২ থেকে ৪ বছর কম।

মেয়েরা কাফিয়া বা কুদুরি জামাত পড়ার পর সরাসরি মেশকাত জামাতে ভর্তি হয়ে যায়। আর ছেলেদেরকে কাফিয়ার পর আরও তিনটি জামাত—শরহে জামি, শরহে বেকায়া, জালালাইন অতিক্রম করে তারপর মেশকাতে ভর্তি হতে হয়। কোনো কোনো মাদরাসায় তো শরহে বেকায়ার পর হেদায়ার স্বতন্ত্র জামাতও থাকে। অবশ্যি বিগত কয়েক বছর ধরে প্রচুর মাদরাসায় কাফিয়া ও শরহে জামিকে একীভূত করে এক বছরে পাঠদান করা হয়।

বাংলাদেশের রাষ্ট্রীয় আইনে মেয়েদের বিয়ের সর্বনিম্ন বয়সসীমা ১৮ বছর নির্ধারিত থাকলেও তাদের বড় একটি অংশের বিয়ে যেহেতু ১৬ থেকে ১৭ বছরের মধ্যে হয়ে যায় এবং নিয়মতান্ত্রিক সিলেবাসে পাঠদান করা হলে অধিকাংশ মেয়েই যেহেতু ১৭/১৮ বছরের আগে দাওরায়ে হাদিস সম্পন্ন করতে পারে না, মাদরাসাওয়ালারা এজন্যই মূলত মেয়েদের শিক্ষাকালকে খানিকটা সংক্ষিপ্ত করেছেন।

শিক্ষাকালের সংক্ষিপ্ততার কারণে মেয়েরা নিয়মিত সিলেবাসের তিন বা চার জামাত না পড়লেও এ জামাতগুলোর মূল কিতাব কিন্তু তাদেরকে কুদুরি অথবা মেশকাত জামাতে পড়ে দরসে নেজামির ‘নেজামের’ সঙ্গে সামঞ্জস্য বিধান করতে হয়। ফলে ছেলেদের তুলনায় মেয়েদের পড়াশোনায় বড় ধরনের একটা চাপ তৈরি হয় এবং একটা কমতি থেকে যায়।

ছেলেদের তুলনায় মেয়েরা অনেক পিছিয়ে থাকে বোর্ডপরীক্ষার ফলাফলেও। বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ কওমি মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড বেফাকের সর্বশেষ কেন্দ্রীয় পরীক্ষার ফলাফলে ছেলেদের পাশের হার যেখানে ৮৩.২৭%, মেয়েরা সেখানে উত্তীর্ণ হয়েছে ৬৯.৯৯% হারে।

মেয়েদের এই পিছিয়ে থাকার দরুণ মহিলা মাদরাসার উচ্চ ক্লাসগুলোতে শিক্ষকতা করার মতো শিক্ষিকারও সংকট থেকে যাচ্ছে বড় আকারে। যার দরুণ মহিলা মাদরাসাগুলো পুরোপুরি মহিলা শিক্ষিকা দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হবার ক্ষেত্রে বড় ধরনের বাধার সৃষ্টি হচ্ছে। বাধ্য হয়ে নিয়োগ দিতে হচ্ছে দক্ষ পুরুষ শিক্ষককে। ফলে শরয়ি সীমা যেমন অলঙ্ঘিত থাকছে না, তেম্নি ঘটছে অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনাও।

শিক্ষাকাল সংক্ষিপ্ত করে সিলেবাস প্রায় অভিন্ন রাখা কতটা যৌক্তিক? প্রশ্ন রেখেছিলাম চট্টগ্রামের বিশিষ্ট আলেম ও শিক্ষাবিদ ড. আ ফ ম খালেদ হোসেনের কাছে।

ড. খালেদ হোসেন বলেন, বিয়ের অজুহাতে মেয়েদের শিক্ষাকাল সংক্ষিপ্ত করার কোনো মানে হয় না। আমার ব্যক্তিগত মতামত হলো ছেলেদের মতো মেয়েদের শিক্ষাকাল সমান রাখা হোক। সংক্ষিপ্ত সময়ে মেয়েদের পক্ষে দরসে নেজামির এত দীর্ঘ সিলেবাস, যেখানে জটিল ও কঠিন কিতাবের সংযুক্তি রয়েছে, সম্পন্ন করা প্রায় অসম্ভব। মেয়েদেরকে যোগ্য আলেমা বানানোর জন্যই তো এই শিক্ষাব্যবস্থা। তাহলে সংক্ষিপ্তভাবে নামকাওয়াস্তে কেন পড়ানো হবে তাদেরকে? দাওরায়ে হাদিস পর্যন্ত পড়িয়ে আলেমের সনদ দিতে হলে তাঁদেরকে সিলেবাসের সিস্টেম অনুযায়ী পড়ানো হোক। ছেলে এবং মেয়ের মধ্যে এখানে বিভাজন করার কোনো যৌক্তিকতা নেই।

ড. খালেদ আরও বলেন, ‘ইসলামের ইতিহাসে যাঁরাই আলেমা হয়েছেন, তাঁরা কিন্তু কোনোভাবেই পুরুষদের চেয়ে পিছিয়ে ছিলেন না। ইলম অর্জনে পুরুষদের সঙ্গে সমান মাত্রায় প্রতিযোগিতা করেছেন। তাহাবি শরিফ, হাদিসের বিখ্যাত গ্রন্থ, ইমাম তাহাবির পাশাপাশি এ গ্রন্থে তাঁর মেয়েও হাদিস সংকলনে উল্লেখযোগ্য মাত্রায় সাহায্য করেছেন। এ রকম অসংখ্য জ্ঞানতাপসী এবং মুহাদ্দিসা আছেন ইসলামের ইতিহাসে। আম্মাজান হজরত আয়েশা সিদ্দিকা রাদিয়াল্লাহু আনহার ব্যাপারে বলা হয়েছে—’কানাত আয়েশা আ’লামান নাস, আফকাহান নাস—মানুষের মধ্যে আয়েশা ছিলেন উঁচুমাপের জ্ঞানতাপসী, উচ্চপর্যায়ের ইসলামি আইন শাস্ত্রবিদ।’ আয়েশা তো কোনো সংক্ষিপ্ত পথ অবলম্বন করে এই আসনে সমাসীন হননি।’

আ ফ ম খালেদ বলেন, ‘আমার কথা হচ্ছে মেয়েদের জন্য যখন প্রাতিষ্ঠানিকভাবে দাওরায়ে হাদিস পর্যন্ত পড়ার সুযোগ তৈরি করা হয়েছে, তাহলে এখানে শিক্ষাকালকে সংক্ষিপ্ত করা হবে কেন? কেউ কুরআন-সুন্নাহ বিষয়ে পাণ্ডিত্য অর্জন করতে চাইলে নিয়মিত এবং প্রচলিত ক্লাসগুলো অতিক্রম করে দাওরায়ে হাদিস পর্যন্ত পড়ুক, ভালোভাবে যোগ্যতা নিয়ে গড়ে উঠুক, আর পাণ্ডিত্য অর্জন করতে না চাইলে ফরজ পরিমাণ ইলম অর্জন করে গার্হস্থ্য কাজে মনোনিবেশ করুক। অথবা যে ক্লাস পর্যন্ত পড়ার সুযোগ হয়, সে ক্লাস পর্যন্ত পড়ুক। সবাইকে দাওরা পর্যন্ত পড়ে আলেমা হতে হবে, এমন তো কোনো কথা নেই।’

তবে মেয়েদের শিক্ষাসিলেবাসকে ঢেলে সাজানো বর্তমানে অপরিহার্য হয়ে পড়েছে বলে মনে করেন কওমি মাদরাসা শিক্ষা বিষয়ক বিশ্লেষক আলেম ও লেখক মাওলানা লাবীব আবদুল্লাহ। তিনি বলেন, শরয়ি নেজাম ঠিক রেখে বাংলাদেশে মেয়েদের উচ্চতর ধর্মীয় শিক্ষার যে চর্চা শুরু হয়েছে মহিলা মাদরাসার মাধ্যমে, তা খুবই প্রশংসনীয়, তবে তাঁদের সিলেবাসের কাঠামো ও আঙ্গিক নিয়ে ব্যাপক গবেষণার প্রয়োজন। বাংলাদেশের মেয়েদের উপযোগী করে এমন একটা সিলেবাস দরকার যার মাধ্যমে একটা মেয়ে ধর্মীয় জ্ঞানে বুৎপত্তি অর্জনের পাশাপাশি গার্হস্থ্য কাজকর্মেও সচেতন হয়ে উঠতে পারে।

এই সংবাদটি 1,033 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com