শনিবার, ১৩ জুলা ২০১৯ ১২:০৭ ঘণ্টা

ধর্ষণ প্রতিরোধে কিছু কথা

Share Button

ধর্ষণ প্রতিরোধে কিছু কথা

লাবীব আব্দুল্লাহ : মেয়েদের সঙ্গে অবাধ মেলামেশা, নির্জনতা, সহশিক্ষা, হিজাববিরোধী মানসিকতা, বিনোদনের নামে নারীকে ভোগ্যপণ্য করা ধর্ষণ, পরকীয়ার অন্যতম কারণ৷অশ্লীল বিজ্ঞাপনও এইসব অপকর্মের জন্য দায়ী৷

যোগাযোগ মাধ্যমে নারীর লাইভ প্রচার, প্রেমালাপ, ইনবক্সে খোশালাপ, ছবি ও ভিডিও আদান প্রদানও অশ্লীলতা ও নগ্নতার করণ৷ সর্বোপরি নারী ও পুরুষের যথাসময়ে বিয়ে না হওয়া বা বিয়ে না দেওয়া বা দিতে পারাও সমাজে নারীসংক্রান্ত অপরাধ সংঘঠিত হবার কারন৷ অপিসে মেয়েদের কর্মস্থল পৃথক ও নারীবান্ধব না হওয়া পরকীয়া বৃদ্ধির অন্যতম কারণ৷

পত্রপত্রিকায় বিনোদন পাতায় নায়িকাকে তারকা বানিয়ে তাদের প্রেম প্রীতি এবং তাদের অশালীন ছবি দিয়ে প্রতিবেদন করাও ধর্ষণ বৃদ্ধির সহায়ক৷ ছোট বড় সবার হাতে এন্ড্রয়েড ফোন এবং নীতিমালা ছাড়া এর অপব্যবহার যুবসমাজকে নিয়ে যাচ্ছে অন্ধকার পথে৷

নীল ছবির ছোবলে ধ্বংস হচ্ছে জীবন৷ মাদরাসার তালেবে ইলম সে ছাত্র হোক বা ছাত্রী তাদের চরিত্রের অধঃপতনের জন্য দায়ী এই মোবাইল৷ এবং নেট কানেকশন৷ স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীরা তো আগেই এই আগ্রাসনের শিকার৷ ফেবুতে মেয়েবন্ধুরাও যুবসমাজ নষ্টের জন্য দায়ী৷ এই দায় যুবকদেরও৷ সমাজে মদ মাদকতার সয়লাব৷ নেশাদ্রব্য অনিয়ন্ত্রিত৷ এইসব নেশাখোরিও দায়ী ধর্ষণের মাত্রাবৃদ্ধিতে৷ পর্নোগ্রাফিও নেশা৷ এই নেশায় পঙ্গু হতে যাচ্ছে একটি সমাজের সবস্তরের বয়সী মানুষ৷

মিডিয়ায় যেসব খবর প্রচারিত হয় এরচে ভয়াবহ সমাজের চালচিত্র৷ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোও আক্রান্ত হচ্ছে ধর্ষণের মতো রোগে৷

ডিজিটালাইজেশন ভালো তবে একটি নীতিমালা থাকতে হবে অন্যথা যবসমাজ হারিয়ে যাবে ধ্বংসের গহবরে৷ সমাজ হবে অন্ধকার৷ তৃতীয় বিশ্বে নেটের অবাধ ব্যবহার কতটা যৌক্তিক তা ভাবতে হবে৷

এইসব অপকর্ম রুখতে পারে সঠিক ধর্মীয় অনুশাসন চর্চা৷ ইসলামী আখলাকের প্রচার৷ কুরআনী আলো ছড়িয়ে দেওয়া৷ কুরআনী হিজাববিধান বাস্তাবায়ন৷
সূরা নূর ও সূরা হুজুরাতে বর্ণিত নারী পুরুষের যৌন নীতিমালা ও হিজাবের নির্দেশের বাস্তবায়ন৷

যিনা ও ধর্ষণের কুরআনী বিধান বাস্তবে প্রয়োগ৷

পশ্চিমা সংস্কৃতির খোলা আকাশে ওড়াওড়ি বন্ধ না হলে সমাজ হবে বিপন্ন৷ আক্রান্ত হবে যুবশক্তি৷

এই অশ্লীল ও অপসংস্কৃতি রুখতে ইসলামের সুস্থ ও সুন্দর এবং ভারসাম্যপূর্ণ সংস্কৃতি চর্চা ছড়িয়ে দিতে হবে৷

বস্তুবাদী চিন্তা চেতনা থেকে মানুষকে তাযকিয়া ও আত্মশুদ্ধির দিকে দাওয়াত দিতে হবে৷ শুদ্ধমানসিকতার বিকাশে প্রচেষ্টা করতে হবে৷

ধর্ষণ বন্ধে রুখতে হবে মাদকদ্রব্যের নিয়ন্ত্রণ ও বন্ধকরণ৷ এর জন্য প্রয়োজন ইসলামী শরীয়ার ভারসাম্যপূর্ণ হদ ও কিসাস ও তাযীরের প্রয়োগ৷

কুরআনী আলো আলোকিত করতে পারে চলমান নষ্ট সমাজকে৷ কুরআনের ছায়ায় এলে মানুষ আবার ফিরে পাবে খেলাফতে রাশেদার সোনালী যুগের পরশ৷
এছাড়া অন্যকোনো পথ খোলা নেই উত্তরণের৷

আমাদের সমাজ হোক ধর্ষণ ও সন্ত্রাসমুক্ত৷ ঘরে ঘরে ছড়িয়ে পড়ুক কুরআনের নূর৷ কুরআনের সৌরভ৷

নববী চরিত্রের দ্যুতিতে দ্যুতিময় হোক আমাদের সমাজ৷

ইবনে খালদুন ইনস্টিটিউট
13/7/2019

এই সংবাদটি 1,014 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com