শুক্রবার, ০২ আগ ২০১৯ ০৪:০৮ ঘণ্টা

ইন্টেলেকচুয়াল মুভমেন্টের আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

Share Button

ইন্টেলেকচুয়াল মুভমেন্টের আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

ডেস্ক রিপোর্ট :
দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ায় শান্তি বজায় রাখতে ভারতের অনেক দায়িত্ব আছে। সংবিধানে দেয়া সকল অধিকার মুসলমানের পাওনা। তা সত্ত্বেও ভারতে উগ্রবাদীরা যা করছে তা মানবাধিকারের স্পষ্ট লঙ্ঘন। ভারতের উগ্রবাদীদের আচরণ ভারতকেই চরম ক্ষতিগ্রস্থ করছে। বাংলাদেশে সম্প্রীতি বজায় রাখার ক্ষেত্রে সবারই ভূমিকা থাকা উচিত। ভারতে ৩০% মুসলমান, অথচ সরকারী চাকরীতে তারা ২%। বাংলাদেশে ৭% হিন্দু, চাকরীতে তারা ৩০ ভাগেরও বেশী। শতশত বছরের ঐতিহ্য নষ্ট করে ভারতে মুসলমানদের হত্যা ও উৎপীড়ন করা হচ্ছে। বাংলাদেশে মুসলিম শিশুদের ওপর ভিন্ন ধর্মীয় উপাসনা ও প্রসাদ চাপিয়ে দেয়া হয়েছে। এসব অনিয়ম যারা করছে তাদের বিবেক জাগ্রত করা ছাড়া কোনো পথ নেই। গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র হিসাবে ভারতকে যেমন নিজ দেশের নাগরিকদের মানবাধিকার দিতে হবে, তেমনি প্রতিবেশীদের সাথে তার আচরণ হতে হবে ন্যায়ভিত্তিক।

গতকাল (১ আগষ্ট) রাজধানীর ফটো জার্নালিস্ট এসোসিয়েশন মিলনায়তনে ‘বাংলাদেশ ইন্টেলেকচুয়াল মুভমেন্ট’ (বিআইএম) আয়োজিত আলোচনা সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন।

২০২৩ সালে তুরস্কের আন্তর্জাতিক চুক্তির ১০০ বছর শেষ হলে বিশ্বে নতুন দিগন্তের উন্মোচন হবে। রোহিঙ্গাদের বিষয়ে ড. মাহাথির মোহাম্মাদের নাগরিকত্ব কিংবা স্বাধীন রাষ্ট্রের দাবি তাদের নতুন পথের দিশা দিতে পারে। ভারতেও বহু রাজ্যে মুসলিম খৃষ্টান ও শিখদের সংখ্যাগরিষ্ঠতার আলোকেও ভারতকে উদার ও গণতান্ত্রিক হতে হবে। বিশ্বব্যাপী বিশাল পরিবর্তনের দিকে লক্ষ্য রেখে উপমহাদেশের সকল রাষ্ট্রকে সংকীর্ণতা মুক্ত হয়ে সহিষ্ণু ও মানবিক হতে হবে। ক্ষমতার ভারসাম্যের যুগে কুপম-ুকতার কোনো স্থান নেই। বড় শক্তিগুলোর এক তরফা দাদাগিরি নতুন বিশ্ব প্রেক্ষাপটে অচল। বক্তাদের আলোচনায় এসব কথাও উঠে আসে।

লেখক ও সাংবাদিক উবায়দুর রহমান খান নদভীর সভাপতিত্বে অন্যান্যের মধ্যে আলোচনা করেন রাজনীতিবিদ ড. আহমদ আব্দুল কাদের, প্রথম আলোর ধর্মীয় কলামিষ্ট শাঈখ উসমান গনি, ইসলামী ল’ রিসার্চ সেন্টারের নির্বাহী পরিচালক শহিদুল ইসলাম, শাইখুল হাদীস মুফতি জহির ইবনে মুসলিম, পীর ইয়ামেনী মসজিদের খতিব মুফতি ইমরানুল বারী সিরাজী, সবার খবরের সম্পাদক আব্দুল গাফফার, মারকাজু শাইখুল ইসলাম আল মাদানীর পরিচালক মাওলানা আব্দুল আলীম, মাওলানা মাহমুদুল হাসান সিরাজী, লেখক আনাস বিন ইউসুফ প্রমুখ।

এই সংবাদটি 1,023 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com