বুধবার, ১১ সেপ্টে ২০১৯ ০২:০৯ ঘণ্টা

আশুরায় সিলেটে হাদা মিয়া-মাদা মিয়ার বিদ্রোহ

Share Button

আশুরায় সিলেটে হাদা মিয়া-মাদা মিয়ার বিদ্রোহ

রফিকুর রহমান লজু : আরবী ভাষায় আশুরা বা আশারা শব্দের অর্থ হলো দশ বা দশম। মহররম আরবী ক্যালেন্ডারের প্রথম মাস। এই মহররম মাসের ১০ তারিখ হযরত মুহাম্মদ (সা:) এর দৌহিত্র ইমাম হোসেন কারবালা প্রান্তরে ইয়াজিদের সৈন্যদের হাতে শহীদ হন। এই শোকস্মৃতি স্মরণে বিশ্বব্যাপী মুসলিম সম্প্রদায় প্রতি বছর যথাযথ মর্যাদায় ও ভাবগম্ভীর পরিবেশে ধর্মীয় চেতনায় দিনটি পালন করে থাকেন।
ধর্মীয় চেতনার পাশাপাশি সিলেটবাসীর জন্য ১০ মহররম আশুরার দিনটি আরেকটি কারণে স্মরণীয় ও গুরুত্ববাহী। এই বিশেষ দিনটিতেই অবিভক্ত ভারতে ব্রিটিশ স¤্রাজ্যের বিরুদ্ধে বিদ্রোহের লেলিহান শিখা প্রথম প্রজ্জ্বলিত হয় সিলেটের মাটিতেই। এই বিদ্রোহ ব্রিটিশ ভারতের ইংরেজ বিরোধী প্রথম স্বাধীনতার সংগ্রাম। যা সিলেট অঞ্চলের ইতিহাস ঐতিহ্যকে সমৃদ্ধ ও অনন্য গৌরবে গৌরবান্বিত করে রেখেছে। এই ঘটনা সিলেটের দেশপ্রেমিক বীরদের বিদ্রোহের ইতিহাস ঐতিহ্যের অবিচ্ছেদ্য অংশ।
ব্রিটিশ শাসনের বিরুদ্ধে সিলেটবাসীর বিদ্রোহ বা স্বাধীনতার লড়াই সংঘটিত হয় ১৭৮২ সালে হিজরী মাসের ১০ মহররম। পলাশীর যুদ্ধে বাংলার স্বাধীনতা সূর্য অস্তমিত হবার মাত্র ২৫ বছর পর এবং ১৮৫৭ সালের সিপাহী বিদ্রোহের পঁচাত্তর বছর পূর্বে সিলেট ব্রিটিশ দুঃশাসনের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়েছিলো। এই যুদ্ধ সংঘটিত হয় সিলেট শহরের শাহী ঈদগাহ’র একটি টিলার উপর। বলা বাহুল্য, এটা ছিলো অসম ও অপরিকল্পিত এক যুদ্ধ। এক নিখাদ দেশপ্রেমের টানে শহীদরা অস্ত্র ধরেছিলো শত্রুর বিরুদ্ধে। ঘটনাস্থলেই শহীদ হন বিদ্রোহের নেতা পীরজাদা ও তার দুই সহোদর সৈয়দ হাদা মিয়া ও সৈয়দ মাদা মিয়া। ১৭৫৭ সালে পলাশীর যুদ্ধের পর এই বিদ্রোহ ছিলো ইংরেজদের বিরুদ্ধে স্বাধীনতা যুদ্ধের প্রথম সূচনা। সিলেটবাসীর অতীত ইতিহাসের স্বর্ণোজ্জ্বল এই অধ্যায়টি ইতিহাসে ‘হাদা মিয়া-মাদা মিয়ার বিদ্রোহ’ নামে খ্যাত।
১৭৫৭ সালে পলাশীর যুদ্ধে বাংলার স্বাধীনতা বিলুপ্ত হবার পর মাত্র সিকি শতাব্দীর মধ্যে সিলেটবাসী ইংরেজদের বিরুদ্ধে স্বাধীনতা যুদ্ধে অবতীর্ণ হয়েছিল। পাক-ভারত উপমহাদেশে ব্রিটিশ বিরোধী স্বাধীনতা যুদ্ধের সূচনা ঘটেছিল, এই যুদ্ধের মাধ্যমে । ১৭৮২ সালে আশুরার (১০ই মহররম) দিনে সিলেট শহরের শাহী ঈদগাহ’র সন্নিকটে এক টিলার উপর সংঘটিত হয় যুদ্ধ। এক ঝাঁক স্বাধীনতাকামী সাহসী মানুষ এই দিন ইংরেজ শাসনের বিরুদ্ধে প্রকাশ্য সম্মুখ বিদ্রোহে অবতীর্ণ হয়। ১৭৫৭ সালের পলাশীর যুদ্ধের পর পাক-ভারত উপমহাদেশে এটাই প্রথম স্বাধীনতা যুদ্ধ। বিদ্রোহীদের প্রথম টার্গেট ছিল সিলেটের ব্রিটিশ রেসিডেন্ট কালেক্টর রবার্ট লিন্ডসে। এই বিদ্রোহ পরিচালনার জন্য কোন পূর্ব প্রস্তুতি ছিল না পরিকল্পনা ছিল না, কারো সঙ্গে যোগাযোগও ছিল না। অসংগঠিত ও বিচ্ছিন্নভাবে শুধু স্থানীয় শক্তির উপর নির্ভর করে যুদ্ধ সংঘটিত হয়। ফলে দেশপ্রেমিক বিদ্রোহী বাহিনী উন্নত অস্ত্রধারী ও সুসংগঠিত শক্তিশালী ব্রিটিশ বাহিনীর সামনে টিকতে পারেনি। কিন্তু বিদ্রোহী বাহিনী যে মহৎ আত্মত্যাগ ও দেশপ্রেমের উজ্জ্বল স্বাক্ষর রেখেছে, তা বিশ্বের মুক্তিকামী, স্বাধীনতাকামী লড়াকুদের জন্য আজও অনুপ্রেরণার উৎস হয়ে আছে। রবার্ট লিন্ডসে তার আত্মজীবনীতে এই বিদ্রোহকে মহররমের দাঙ্গা বলে উল্লেখ করেছেন। লিন্ডসে একই সঙ্গে দেশপ্রেমিকদের বিদ্রোহকে হিন্দু-মুসলমানের মধ্যে সংঘটিত সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা বলেও চালাতে প্রয়াস পেয়েছেন। ঘটনাটি আসলে মহররমের দাঙ্গা কিংবা হিন্দু-মুসলমানের সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা ছিল না। এটা ছিল ইংরেজ দুঃশাসনের বিরুদ্ধে সিলেটবাসীর ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ। সিলেটবাসীর অতীত ইতিহাসের স্বর্ণোজ্জ্বল এই অধ্যায়টি ইতিহাসে ‘হাদা মিয়া-মাদা মিয়ার বিদ্রোহ’ নামে খ্যাত হয়ে আছে। এদেশে ব্রিটিশ আধিপত্য বিস্তার ও সম্পদ লুণ্ঠনই ছিল রবার্ট লিন্ডসের লক্ষ্য। লিন্ডসে এতই কৃপণ ও স্বার্থপর ছিলেন যে, সিলেট থেকে কাড়ি কাড়ি অর্থ ও সম্পদ হাতিয়ে নিয়ে নিজের আখের গোছালেও সিলেট বা সিলেটবাসীর উন্নতির জন্য লিন্ডসে কোন অবদানই রাখেননি। বস্তুত রবার্ট লিন্ডসের অত্যাচার ও নির্মম আচরণ এবং তার সম্পদলোলুপতা সিলেটবাসীর ক্ষোভ ও বিদ্রোহকে ত্বরান্বিত করেছিল। উক্ত বিদ্রোহ বা স্বাধীনতা যুদ্ধের পক্ষে ছিলেন সমাজের সাধারণ মানুষ। উঁচু তলার কেউ বা কোন বাহিনী এই অভ্যুত্থানের নেতৃত্বে ছিল না। সমাজের একেবারে সাধারণ স্তর থেকে উঠে আসা একজন ধর্মীয় নেতা রবার্ট লিন্ডসে নিজে যাকে ‘পীরজাদা’ বলে অভিহিত করেছেন এই লড়াইয়ের মূল নেতা ছিলেন। পীরজাদার দুই সহোদর সৈয়দ হাদা মিয়া ও সৈয়দ মাদা মিয়াও বিদ্রোহের নেতৃত্বে ছিলেন। একেবারে সামনাসামনি যুদ্ধ হয়। অত্যন্ত অসম ছিল এই যুদ্ধ। ইংরেজ পক্ষে লিন্ডসের সঙ্গে তার ট্রেনিং প্রাপ্ত অস্ত্রধারী সৈন্য ছিল। পীরজাদার সঙ্গে যারা ছিল তারা অত্যন্ত গোবেচারা সাধারণ মানুষ। তাদের না ছিল অস্ত্র, না ছিল যুদ্ধ সম্পর্কে কোন ধারণা। তাদের কোন সংগঠিত শক্তিও ছিল না। বিদ্রোহীদের একমাত্র অস্ত্র ছিল তলওয়ার। তাদের হৃদয়ে ছিল স্বদেশের প্রতি অগাধ ভালোবাসা, আর চোখে জ্বলছিল লুটেরা ইংরেজদের প্রতি প্রচন্ড ঘৃণা। তারা ছিলেন মাতৃভূমির স্বাধীনতা ও দেশপ্রেমের চেতনায় অনুপ্রাণিত। পীরজাদা, হাদা মিয়া-মাদা মিয়া তাদের বাহিনী নিয়ে শাহী ঈদগাহ’র অনতিদূরে এক টিলার উপর জমায়েত হন ইংরেজদের দুঃশাসনের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ শুরু করার জন্য। লিন্ডসে তার অস্ত্রধারী সৈন্যসহ পীরজাদার সামনে এসে হুংকার দিয়ে বলেন, আমি ঘটনা তদন্ত করে আগামীকাল ন্যায়বিচার করবো। তবে এখনই অস্ত্র ফেলে দিতে হবে। লিন্ডসের কথা শেষ হতে না হতেই পীরজাদা তাঁর খাপ থেকে তলওয়ার বের করে চিৎকার করে উত্তর দেন: ‘আজ মারবার অথবা মরবার দিন। ইংরেজ রাজত্ব এই খতম হয়ে এলো’-বলেই তিনি নিজ হাতের তলওয়ার দিয়ে সজোরে লিন্ডসেকে আঘাত করেন। লিন্ডসে এই আঘাত প্রতিহত করতে সক্ষম হলেও তার তলওয়ার ভেঙ্গে দুই টুকরো হয়ে যায়। লিন্ডসে সঙ্গে সঙ্গে তার ভৃত্যের হাত থেকে পিস্তল নিয়ে পীরজাদাকে নিশানা করে গুলি ছুঁড়েন। পীরজাদার দেহ মুহূর্তে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। পীরজাদা শহীদ হওয়ার পর তার সহোদর সৈয়দ হাদা মিয়া ও সৈয়দ মাদা মিয়াও শহীদ হন। বিদ্রোহীদের আরো অনেকেও শহীদ হন। কেউ কেউ আহত বা পঙ্গু হয়ে পরে মৃত্যুবরণ করেন।
লিন্ডসের সশস্ত্র সেপাই বাহিনীর সামনে দুর্বল স্বাধীনতাকামী দেশপ্রেমিক বিদ্রোহীরা টিকতে পারেনি। বিদ্রোহী শীর্ষ নেতৃত্রয় শহীদ হবার পরে পরিস্থিতি কালেক্টর রবার্ট লিন্ডসের নিয়ন্ত্রণে চলে যায়। বিদ্রোহ বা অভ্যুত্থানের সমাপ্তি ঘটে এখানেই। কিন্তু পিছনে রয়ে যায় স্বাধীনতাকামী দেশপ্রেমিক বীরদের ত্যাগ ও বীরত্বগাঁথা।
চাকরি জীবন থেকে অবসর নিয়ে ১৭৮৯ সালে রবার্ট লিন্ডসে স্বদেশে ফিরে যান। লিন্ডসে তার চাকরির বাইরে রেসিডেন্ট হিসেবে তার ক্ষমতা ও প্রভাব খাটিয়ে হাতিধরা, নৌকা ও জাহাজ নির্মাণ, চুনের ব্যবসা, ঠিকাদারীসহ ব্যক্তিগত বিভিন্ন ব্যবসা-বাণিজ্য করে বিপুল অর্থবিত্তের পাহাড় গড়ে তুলেন। অতঃপর ভাবনাহীন অবসর জীবন যাপন শুরু করেন। রবার্ট লিন্ডসে কস্মিনকালেও কল্পনা করেননি যে, সিলেটে তার কোন দুষ্কর্মের জন্য সাত সমুদ্র তেরো নদীর এপার ওপার হতে সুদূর স্কটল্যান্ডে পৌছে ঘটনার সাতাশ বছর পর কেউ প্রতিশোধ নিতে সচেষ্ট হবে। দশ মহররমের সম্মুখ যুদ্ধের একজন শহীদের পুত্র সৈয়দ উল্লাহ পিতৃহত্যার প্রতিশোধ নিতে ঠিক ঠিক স্কটল্যান্ডে উপস্থিত হয়েছিলেন। রবার্ট লিন্ডসে স্বয়ং এই ঘটনার উল্লেখ করেছেন তার আত্মজীবনী An Anecdotes of an Indian life (১৮৪০) গ্রন্থে (সিলেটে আমার বারো বছর) সম্মুখ বিদ্রোহের সংঘর্ষে স্বাধীনতাকামী পীরজাদা, সৈয়দ হাদা মিয়া ও সৈয়দ মাদা মিয়ার অন্যতম সঙ্গী সৈয়দ উল্লাহর পিতা লিন্ডসে বাহিনীর হাতে আহত হয়ে কয়েকদিন পরে মারা যান। সৈয়দ উল্লাহ তখন বালক মাত্র। তিনি একেবারে কাছে থেকেই লিন্ডসে ও তার সেনাদের নৃশংসতা দেখেছেন। পিতার মর্মান্তিক মৃত্যু বালক সৈয়দ উল্লাহর মনে প্রতিশোধ স্পৃহা জাগিয়ে তুলে। তিনি প্রতিজ্ঞা করেন বড় হয়ে তিনি এর প্রতিশোধ নেবেন। দীর্ঘদিন পরেও সৈয়দ উল্লাহ এই প্রতিজ্ঞার কথা থেকে বিস্মৃত হন নাই। বড় হয়ে তিনি এই প্রতিজ্ঞা পালনে স্থির সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন। তিনি ঠিক করেন পিতার হন্তারক রবার্ট লিন্ডসেকে হত্যা করেই পিতৃহত্যার প্রতিশোধ নেবেন। কিন্তু লিন্ডসে তখন সৈয়দ উল্লাহর একবারে নাগালের বাইরে। লিন্ডসে তখন সিলেট থেকে অনেক অনেক দূরে স্কটল্যান্ডে নিজের বিলাসবহুল বাড়িতে আরামে নিশ্চিন্তে অবসর জীবন যাপন করছিলেন। সৈয়দ উল্লাহ দমবার পাত্র নন। তিনি পিতৃহত্যার প্রতিশোধ স্পৃহা মনের গহিনে সযতেœ লালন করেন। তিনি বুঝতে পারেন সিলেটে বসে লিন্ডসেকে হত্যা করা যাবে না। এ জন্য তাকে সাত সমুদ্র তেরো নদী পাড়ি দিয়ে ইংল্যান্ডে যেতে হবে।
সৈয়দ উল্লাহ তার মনে পোষে রাখা জিঘাংসা চরিতার্থের লক্ষ্যে সিলেটে হত্যাযজ্ঞ ঘটনার দীর্ঘ সাতাশ বছর পর জাহাজে চাকরি নিয়ে ১৮০৯ সালে ইংল্যান্ডে পাড়ি জমান। ইংল্যান্ড থেকে তিনি চলে যান স্কটল্যান্ডে এবং সেখানে তার পিতার হত্যাকারী রবার্ট লিন্ডসেকে খুঁজতে থাকেন। এক পর্যায়ে দ্বৈবক্রমে লিন্ডসের সঙ্গে সৈয়দ উল্লাহর সাক্ষাৎ হয়ে যায়। কিন্তু হাতের মুঠোয় পেয়েও সৈয়দ উল্লাহ তার পিতার হন্তারক লিন্ডসেকে হত্যা করতে পারেননি। তার মধ্যে মনুষ্যত্ব ও মানবতাবোধ জেগে উঠে। তাই অশীতিপর বুড়ো লিন্ডসের প্রাণনাশে তার মন সায় দেয়নি।
রবার্ট লিন্ডসের সঙ্গে সৈয়দ উল্লাহর সাক্ষাৎ, কথোপকথন ও পরিচয়ের বিস্তারিত বিবরণ লিন্ডসে তার আত্মজীবনীতে তুলে ধরেছেন। একদিন ঘোড়ায় চড়ে বেড়ানোর সময় প্রাচ্যদেশীয় পোষাক পরা একজন লোকের সঙ্গে তার সাক্ষাৎ ঘটে। এ সময় উভয়ের মধ্যে টুকটাক কথা হয়। লিন্ডসে লোকটিকে তার বাড়ি দেখিয়ে দিয়ে পরদিন সকালে দেখা করতে বলেন। প্রাচ্যদেশীয় পোষাক পরা এই লোকটিই সৈয়দ উল্লাহ। তার পিতার হন্তারককে হত্যা করে পিতৃহত্যার প্রতিশোধ নেওয়ার সংকল্প নিয়েই তিনি লিন্ডসের দেশ স্কটল্যান্ডে হাজির হন। পরদিন যথারীতি সৈয়দ উল্লাহ লিন্ডসের বাড়িতে গিয়ে তার সঙ্গে দেখা করেন। সৈয়দ উল্লাহ তার পিতার ঘাতক হিসেবে যাকে খুঁজে বের করতে সুদূর স্কটল্যান্ডে উপস্থিত হয়েছিলেন, লিন্ডসে তার আত্মজীবনীর সিলেট প্রসঙ্গ অংশে তার বিবরণ দিয়েছেন। লিন্ডসের এই বিবরণ নিম্নরূপ ঃ
সৈয়দ উল্লাহ আরো বললো, “আপনার নামের এক ভদ্রলোক সিলেটে খুব পরিচিত ছিলেন। লন্ডনে আমি তাঁকে খুঁজে বেড়াচ্ছি। কিন্তু পাইনি। কোথাও পাচ্ছি না।’
সরাসরি তার মুখের দিকে তাকিয়ে আমি বললাম, “মনে করো, তুমি যাকে খুঁজছো আমি সেই ব্যক্তি।’
ঘৃণাভরে আমার দিকে ফিরে সে এবার বললো, তা হলে আপনিই পীরজাদাকে হত্যা করেছিলেন?’ আমি বললাম, “হ্যা, আমিই। কিন্তু তিনি আমাকে তার তলওয়ার দিয়ে আক্রমণ করেছিলেন। তাঁর কাজের ফল তিনি পেয়েছেন।’ সৈয়দ উল্লাহর চেহারা স্বাভাবিক হয়ে এলো। জানতে চাইলাম ঐ ঘটনা সম্পর্কে মানুষের মতামত কী!
কেউ কেউ বলে কাজটি ঠিক হয়নি। কেউ কেউ বলে আপনি ঠিকই করেছেন। জানালো সৈয়দ উল্লাহ। নিজের বুকে হাত রেখে একটু নরম সুরেই সৈয়দ উল্লাহ বললো, অবশ্য আমি তখন বালক ছিলাম।
ঃ সৈয়দ উল্লাহ, সংঘর্ষের সময় তুমি কোথায় ছিলে? ঃ টিলার উপর ঘর বাড়ির কাছে।
খানিকটা রূঢ় স্বরে সৈয়দ উল্লাহ এবার বললো- ঃ আপনি আমার পিতাকে হত্যা করেছেন। ঃ তিনি কি বৃদ্ধ ছিলেন? ঃ জ্বি হ্যাঁ। ঃ তিনি সংঘর্ষের সময় মারা যাননি। আমি বরং ঐ সময় তাঁকে বাঁচিয়েছিলাম। আমি ঠিক বলছি না? ঃ ঠিকই বলেছেন, তিনি মারাত্মক আহত হয়েছিলেন। কয়েক মাস পর মারা যান।
সৈয়দ উল্লাহ ভাঙ্গা ভাঙ্গা ইংরেজীতে সেই ঘটনার বর্ণনা দিল। সে জানালো তার বাবা পীরজাদার চাকর ছিলেন না। তার নুন নিমক খেয়েছেন। সে আরো বললো যে, পীরজাদা, তাঁর দুই ভাই এবং তাদের কয়েকজন সমর্থক মারা যান। কিন্তু কীভাবে দাঙ্গার উৎপত্তি হয়েছিল সে সম্পর্কে সৈয়দ উল্লাহ কিছু না বললেও জানালো যে, ঐ সময় দেশে ক্ষোভ ও অসন্তোষ বিরাজমান ছিলো।”
এভাবে কথার মারপ্যাচে এবং ভালো মানুষ সেজে কৌশলে রবার্ট লিন্ডসে সৈয়দ উল্লাহ’র জিঘাংসার কবল থেকে পার পেয়ে যান। সৈয়দ উল্লাহর সঙ্গে ভালো ব্যবহার করে লিন্ডসে তার মনও জয় করতে সক্ষম হন। অতঃপর লিন্ডসে সৈয়দ উল্লাহকে জিজ্ঞেস করে জানতে পারেন সৈয়দ উল্লাহ খুব ভালো মাংসের ঝোল রান্না করতে পারেন। রবার্ট লিন্ডসে মাংসের ঝোল খুব বেশি পছন্দ করতেন। লিন্ডসে তৎক্ষণাৎ সৈয়দ উল্লাহকে তার পাচক হিসেবে নিয়োগ দিয়ে সেখানে রেখে দেন।
সৈয়দ উল্লাহ তার বৃদ্ধ শহীদ পিতার হত্যাকারীকে হত্যার প্রতিশোধ নেবার উদ্দেশ্যে দূর দেশ ইংল্যান্ডে গিয়ে অবশেষে রবার্ট লিন্ডসের পাচক হয়ে সে দেশে থেকে যান।
শাহী ঈদগাহ থেকে সামান্য দূরে মীরবক্সটুলার (নয়াসড়ক) খ্রিস্টান ওয়েলস মিশন টিলার উত্তর প্রান্ত সীমায় শহীদ পীরজাদা, সৈয়দ হাদা মিয়া, সৈয়দ মাদা মিয়া ও অন্য শহীদদের লাশগুলো সমাহিত করা হয়। এই টিলার উত্তর পাদদেশে জামেয়া ইসলামিয়া হুসাইনিয়া মাদ্রাসার ঠিক পিছন দিক সংলগ্ন টিলার উপরে ছিল উপমহাদেশের প্রথম স্বাধীনতা যুদ্ধে প্রাণ দানকারী বীর দেশপ্রেমিক শহীদদের কবরস্থানটি। কবরস্থানটি ঘিরে চিহ্নিতভাবে ১০ ডিসিমেল জায়গা ডিসি’র খতিয়ানভুক্ত ছিলো। পরবর্তীকালে ক্রমে ক্রমে টিলার মাটি কেটে আমাদের স্বাধীনতা যুদ্ধের পূর্বসূরি শহীদদের স্মৃতিবিজড়িত পবিত্র স্থানটি মাটিতে মিশিয়ে দেওয়া হয়েছে। ঐতিহাসিক-ঐতিহ্যবাহী কবরস্থানটি এখন মাদ্রাসা সীমানার অন্তর্ভুক্ত।
[সূত্র : ‘সিলেটে আমার বারো বছর’ মূল : রবার্ট লিন্ডসে, ভাষান্তর : আবদুল হামিদ মানিক, প্রকাশকাল- ডিসেম্বর ২০০২, পৃষ্ঠা-৭৪, ৭৫]
লেখক : শিক্ষক, কলামিস্ট ও সংস্কৃতিসেবী।

এই সংবাদটি 1,045 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com