বৃহস্পতিবার, ১২ সেপ্টে ২০১৯ ০৭:০৯ ঘণ্টা

কাশ্মীরে ইসলামের আগমন

Share Button

কাশ্মীরে ইসলামের আগমন

::মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী ::

কাশ্মীরে ইসলাম: কাশ্মীর এবং সারা পৃথিবী ব্যাপী পীর মাশায়েখ তথা সূফীদের শান্তিপূর্ণ প্রচারের মাধ্যমে ইসলাম ব্যাপক প্রসার লাভ করেছে-এই ধারণা মুসলিম এবং অমুসলিম পণ্ডিতদের মধ্যে সর্বজনীনভাবে স্বীকৃত। কাশ্মীরে ইসলামী শাসন কখন প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল সেটা বলা কঠিন। তবে এব্যাপারে মাওলানা মুহিউদ্দীন খান সম্পাদিত মাসিক মদীনায় (অক্টোবর ২০০১ সংখ্যা) প্রকাশিত একটি গবেষণা মুলক লেখায় মুহিউদ্দীন মুহাম্মদ আলমগীর লিখেছেন, কাশ্মীরে যিনি সর্বপ্রথম ইসলামের বাণী বয়ে এনেছিলেন, তিনি ছিলেন সর্বভারতের প্রথম মুসলিম বিজেতা মোহাম্মদ বিন কাসিমের এক দলছুট সেনা অফিসার হামিম বিন ওসামা। ৭১২ খ্রীষ্টাব্দে র্দুধর্ষ মুসলিম সেনানায়ক মোহাম্মদ বিন কাসিমের দুর্বার আক্রমনে সিন্ধু রাজ রাজাদাহির সম্পূর্নভাবে পরাজিত হন ও নিহত হলেন। রাজ-রানীরা আগুনে আত্মহুতি দিলেন। কন্যারা সব বন্দিনী হয়ে দামেস্কে নিত হলেন। ইত্যবসরে হামিম বিন ওসামা রাজাদাহিরের একপুত্রকে অতি সন্তর্পণে নিশ্চিত মৃত্যুর হাত থেকে উদ্ধার করে কাশ্মীরে পৌছাতে সক্ষম হন, এই রূপ একটি মহৎ কর্মের স্বীকৃতিস্বরূপ কাশ্মীরের রাজকীয় দরবারে তিনি অত্যন্ত সম্মান ও মর্যাদার আসনে অধিষ্ঠিত হলেন। তাঁকে সেখানকার সেনাধ্যক্ষ নিযুক্ত করা হয়। চাকুরী হতে অবসর গ্রহণ করার পর তাঁকে কাশ্মীরের জায়গীর স্বরূপ কিছু ভূ-খন্ড প্রদান করা হয়। সেখানে তিনি একটি মসজিদ নির্মাণ করে ইসলাম প্রচার কল্পে নিজেকে নিয়োজিত রাখেন। তার পর হতে কাশ্মীরে ক্রমাগত আরব এবং তুর্কীদের আগমন প্রতিনিয়তই ঘটতে থাকে। কাশ্মীরে ইসলাম প্রচারের ভূমিকায় যাদের অবদান সবচেয়ে বেশী তাদের অন্যতম হলেন হযরত লালা আরেফা (রহ) নামক জনৈকা খ্দোাভক্ত মহিয়সী রমণী। হযরত লালা আরেফা প্রথমে হিন্দু ধর্মের অনুসারী ছিলেন। পীর মাশায়েখগণ দ্বীন ইসলামের পযগাম নিয়ে কাশ্মীরে প্রবেশ করলে লালা আরেফা ইসলাম ধর্মগ্রহণ করেন। এছাড়া চর্তুদশ শতাব্দীর প্রারম্ভে হযরত আব্দুর রহমান ওরফে বুল বুল শাহ (র) নামক একজন তুর্কী দরবেশ কাশ্মীরে আগমন করেন।
অপর দিকে-এম,এ, খান তার গবেষণায় বলেন, পৃথিবী ব্যাপী শান্তিপূর্ণভাবে ইসলাম প্রচারের জন্য সর্বজনীনভাবে সূফীদেরকে কৃতিত্ব দেওয়া হয়। এক কিংবদন্তী অনুযায়ী কাশ্মীরে কোন এক সময় একজন রাজা ছিলেন যার কোন ধর্ম ছিল না। একদিন তিনি ঠিক করলেন যে তিনি কোন একটি ধর্ম গ্রহণ করবেন। মুসলমান এবং হিন্দু উভয় দলই রাজাকে স্বধর্মে দীক্ষিত করতে এল। অতঃপর রাজা উভয় পক্ষের পরসপর বিরুদ্ধ বক্তব্য শুনে বিভ্রান্ত হলেন এবং ঠিক করলেন যে, “পরদিন সকাল বেলায় তিনি প্রাসাদ থেকে রাস্তায় বেরিয়ে যে ব্যক্তিকে প্রথম দেখবেন তিনি তার ধর্ম গ্রহণ করবেন।” (ঈযধঢ়ঃবৎ ২, ইধযধৎরংঃধহ-র-ঝযধযর, ধহ ধহড়হুসড়ঁং ১৭ঃয-পবহঃঁৎু চবৎংরধহ নড়ড়শ ড়হ ঃযব যরংঃড়ৎু ড়ভ কধংযসরৎ, ঃৎধহংষধঃবফ নু চৎড়ভ. ক. ঘ. চঁহফরঃ)। এবং পরদিন রাজা একজন দরবেশের প্রথম দেখা পেলেন এবং এভাবে কাশ্মীর ইসলামে প্রবেশ করল।

এটা বলা কঠিন যে এ সকল অভিযানের মধ্যে কোনটি দ্বারা কাশ্মীরে ইসলাম প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। তবে ইসলামীকরণে ইসলামের প্রবক্তা সূফীদের যে একটা প্রধান ভূমিকা ছিল সে কথা বলা যায়। কাশ্মীরে জনগণের ইসলাম গ্রহণ সম্পর্কে আমরা আরো যে ধারণা পাই সেটা হচ্ছে এ রকম যে, ১৩৭১ অথবা ১৩৮১ সালের দিকে একজন বিখ্যাত সূফী দরবেশ বা সাধু সাঈদ আলী হামদানী কাশ্মীরে প্রবেশ করেন, এবং তার সঙ্গে ইসলামও কাশ্মীরে প্রবেশ করে। তার আগমনের পূর্বে শাসনকারী সুলতান কুৎবুদ্-দীন ইসলামী আইন বলবৎ করার ব্যাপারে খুব সামান্যই মনোযোগ দিয়েছিলেন। দরবেশ সাঈদ হামদানী কাশ্মীরী মুসলমানদের কার্যকলাপ দেখে আতঙ্কিত হন, এবং তিনি ইসলামী নিয়ম পালনে শৈথিল্য দূর করে সঠিক ইসলাম প্রবর্তনের চেষ্টা করেন। সূফী দরবেশ কাশ্মীরে ইসলামী আইন কার্যকর করার জন্য সুলতান সিকান্দারকে প্রণোদিত করেন। সুলতান কুৎবুদ্-দীন সূফী দরবেশের নির্দেশনা না মানলেও সিকান্দার তা মেনে নিতে রাজী হন। এইভাবে কাশ্মীর থেকে মূর্তিপূজা এবং তার প্রবক্তাদের সকল চিহ্ন মুছে ফেলার জন্য সিকান্দার এবং সূফী সাধক সাঈদ মুহামমদ ঐক্যবদ্ধ হন। এর আগে সুলতান মাহমুদের পুত্র সুলতান মাসুদ ১০৩৩ খ্রীষ্টাব্দে পিতার ব্যর্থতার প্রতিকারের উদ্দেশ্যে “কাশ্মীরের সুরসুতি দুর্গ আক্রমণ করেন। নারী ও শিশু বাদে দুর্গের সকল সৈন্যকে হত্যা করা হয় এবং জীবিত নারী ও শিশুদেরকে দাস হিসাবে নিয়ে যাওয়া হয়”।

অনুসন্ধানে জানাগেছে, যুগস্রষ্টা শাসক শেহাব উদ্দীন মোহাম্মদ ঘুরি তৎকালীন পীরমাশায়েখদের সহায়তায় কাশ্মীরের বিভিন্ন স্থানে মসজিদ,মক্তব-মাদরাসা নির্মাণ করেন। দ্বীন প্রচারের ক্ষেত্রে শাসকরা সহযোগী শক্তি ও উপাদান হলেও মূল অবদান ছিল পীর মাশায়েখ ও মোবাল্লেগদের। যাদের অক্লান্ত পরিশ্রম ও নি:র্স্বাথ প্রচারের ফলশ্রুতিতে দিক দিগন্তে ইসলাম বিস্তৃতি লাভ করেছিলো। শুধু বাংলাই নহে সমগ্র ভারতবর্ষে দ্বীন ইসলামের দেদীপ্যমান মশাল পীর মাশায়েখ এবং মোবাল্লিগিন কেরামের অসাধারণ পরিশ্রম,জুহদ,তাক্বুয়া,রিয়াজত,মোরাকাবা,মোশাহাদা,হিজরত-নছরত এবং তালিমের মাধ্যমেই প্রচার হয়েছিলো। ভারতে সুফী সম্্রাট খাজা মঈনুদ্দীন চিশতি (র), মোজাদ্দেদে আলফেছানী (র) তদ্রুপভাবে বাংলাদেশে হযরত শাহ সুলতান কমর উদ্দীন রুমী (১০৫৩ খৃ, ৪৪৫ হিজরী), হযরত শাহ জালাল , হযরত শাহ শারফুদ্দীন বোখারী, হযরত মহিউদ্দীন বলখী মাহি সওয়ার (র) প্রমুখ এর অক্লান্ত জুহুদ ও তাকীয়ার দ্বারা মুলকে বাঙ্গালেও ইসলাম প্রতিষ্টিত হয়েছিলো। অনুরূপ ভাবে হযরত আব্দুর রহমান বুলবুল,হযরত সৈয়দ মীর আলী হামদানী, হযরত নুরউদ্দীন (র) প্রমুখের অক্লান্ত প্রচেষ্টায় কাশ্মীরে ইসলাম প্রতিষ্ঠিত হয়েছিলো।

সংক্ষিপ্ত পরিচিতি: জম্মু ও কাশ্মীর হল ভারতের কেন্দ্র শাসিত অঞ্চল যা এতদিন স্বতন্ত্র রাজ্য ছিলো। এই অঞ্চলটি প্রধানত হিমালয পার্বত্য অঞ্চলে অবস্থিত। ভারতের এই কেন্দ্র শাসিত অঞ্চলটির দক্ষিণে ভারতের হিমাচল প্রদেশ ও পাঞ্জাব রাজ্য দুটি অবস্থিত। জম্মু ও কাশ্মীরের উত্তরে পাক-অধিকৃত গিলগিট-বালতিস্তান অঞ্চল ও পূর্বে ভারতের কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল লাদাখ অবস্থিত। এই অঞ্চলের পশ্চিমে ও উত্তরপশ্চিমে লাইন অব একচুয়াল কন্ট্রোলের ওপারে পাকিস্তান অধিকৃত কাশ্মীর গিলগিত-বালতিস্তান অবস্থিত। কাশ্মীর উপত্যকা প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের জন্য বিখ্যাত।
স্থাপিত: ২৬ অক্টোবর, ১৯৪৭।
রাজধানী: জম্মু (শীতকালীন), শ্রীনগর (গ্রীষ্মকালীন)।
বৃহত্তম শহর শ্রীনগর। জেলার সংখ্যা ২২।
বিধানসভা : দ্বিকক্ষীয় (৮৯ + ৩৬ আসন)
আয়তন: মোট ২২২২৩৬ কিমি২ (৮৫৮০৬ বর্গমাইল)
উচ্চতা : ৩২৭ মিটার (১০৭৩ ফুট)
জনসংখ্যা (২০১১): মোট ১,২৫,৪৮,৯২৬
আইএসও ৩১৬৬ কোড ওঘ-ঔক
মানব উন্নয়ন সূচক ক্রম ১৭তম (২০০৫)
সাক্ষরতা ৬৬.৭% (২১তম)
সরকারি ভাষা: উর্দু।
প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী চালিত ভারতের সরকার সংসদের উভয় কক্ষে ব্যাপক সমর্থন নিয়ে ভারতীয় সংবিধানের জম্মু ও কাশ্মীর এর বিশেষ মর্যাদা ধারা ৩৭০ ও ধারা ৩৫ক, ৫ই আগষ্ট ২০১৯ এ বাতিল করে দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল তৈরী করে,যথা জম্মু ও কাশ্মীর এবং লাদাখ। জম্মু ও কাশ্মীর উপত্যকা এই দুই অঞ্চল নিয়ে জম্মু ও কাশ্মীর কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলটি গঠিত। শ্রীনগর এই অঞ্চলের গ্রীষ্মকালীন রাজধানী এবং জম্মু শীতকালীন রাজধানী।
৩৭০ ধারাটি রদ করায় পাক-ভারতের সীমান্ত উত্তেজনা বিরাজ করছে। অপর দিকে কাশ্মীরে ভারতীয় বাহিনীর অত্যাচার,টুন্ঠনের খবরে বিশ্বব্যাপী নিন্দার ঝড় উঠেছে।
পাক-ভারত লড়াই:
কাশ্মীরকে কেন্দ্র করে ভারত আর পাকিস্তানের মধ্যে দু’বার যুদ্ধ হয়েছে। এখন উভয়েই পারমাণবিক শক্তিধর দেশে পরিণত হয়েছে, এবং পুলওয়াামার ঘটনাকে কেন্দ্র করে আবারও তারা যুদ্ধংদেহি অবস্থানে। কিন্তু কাশ্মীর নিযয়ে ভারত আর পাকিস্তানের এই সংঘাতের কারণ কি? ১৯৪৭ সালের আগস্ট মাসে পাকিস্তান আর ভারত স্বাধীনতা পাবার আগে থেকেই কাশ্মীর নিয়ে বির্তকের সূচনা হয়েছিলো। ‘ইন্ডিয়ান ইনডিপেন্ডেন্স এ্যাক্ট’ নামে ব্রিটিশ ভারত বিভক্তির যে পরিকল্পনা তৈরি হয়েছিল তাতে বলা হয়েছিল, কাশ্মীর তার ইচ্ছে অনুযায়ী ভারত অথবা পাকিস্তান – যে কোন রাষ্ট্রেই যোগ দিতে পারবে। কাশ্মীরের তৎকালীন হিন্দু মহারাজা হরি সিং চাইছিলেন স্বাধীন থাকতে অথবা ভারতের সাথে যোগ দিতে। অন্যদিকে পশ্চিম জম্মু এবং গিলগিট-বালতিস্তানের মুসলিমরা চাইছিলেন পাকিস্তানের সাথে যোগ দিতে।
১৯৪৭ সালের অক্টোবরে পাকিস্তানের পাশতুন উপজাতীয় বাহিনীগুলোর আক্রমণের মুখে হরি সিং ভারতে যোগ দেবার চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন, এবং ভারতের সামরিক সহায়তা পান। পরিণামে ১৯৪৭ সালেই শুরু হয় ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধ – যা চলেছিল প্রায় দু’বছর ধরে। জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে ১৯৪৮ সালে ভারত কাশ্মীর প্রসঙ্গ উত্থাপন করে।
জাতিসংঘের ৪৭ নম্বর প্রস্তাবে কাশ্মীরে গণভোট, পাকিস্তানের সেনা প্রত্যাহার, এবং ভারতের সামরিক উপস্থিতি ন্যূনতম পর্য য়ে কমিয়ে আনতে আহ্বান জানানো হয়।
ইতিহাস বলছে, ১৯২৫ সালে হরি সিং কাশ্মীরের রাজা হন। ১৯৪৭ সালে ভারতের স্বাধীনতা লাভ পর্যন্ত তিনিই ছিলেন কাশ্মীরের শাসক। ১৯৪৭ সালে ভারত-বিভাজনের অন্যতম শর্ত ছিল, ভারতের দেশীয় রাজ্যের রাজারা ভারত বা পাকিস্তানে যোগ দিতে পারবেন, অথবা তাঁরা স্বাধীনতা বজায় রেখে শাসনকাজ চালাতে পারবেন। ১৯৪৭ সালের ২২ অক্টোবর পাকিস্তান-সমর্থিত পশ্চিমাঞ্চলীয় জেলার বিদ্রোহী নাগরিক এবং পাকিস্তানের উত্তর-পশ্চিম সীমান্ত প্রদেশের পশতুন উপজাতিরা কাশ্মীর রাজ্য আক্রমণ করে। কাশ্মীরের রাজা তাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ শুরু করলেও গভর্নর-জেনারেল লর্ড মাউন্টব্যাটেনের কাছে সহায়তা চাইলেন। কাশ্মীরের রাজা ভারতভুক্তির পক্ষে স্বাক্ষর করবেন, এই শর্তে মাউন্টব্যাটেন কাশ্মীরকে সাহায্য করতে রাজি হন। ১৯৪৭ সালের ২৬ অক্টোবর হরি সিং কাশ্মীরের ভারতভুক্তির চুক্তিতে সই করেন। ২৭ অক্টোবর তা ভারতের গভর্নর-জেনারেল কর্তৃক অনুমোদিত হয়। চুক্তি সই হওয়ার পর, ভারতীয় সেনা কাশ্মীরে প্রবেশ করে অনুপ্রবেশকারীদের সঙ্গে যুদ্ধে লিপ্ত হয়। ভারত বিষয়টি (জাতি) রাষ্ট্রসংঘে উত্থাপন করে। রাষ্ট্রসংঘ ভারত ও পাকিস্তানকে তাদের অধিকৃত এলাকা খালি করে দিয়ে রাষ্ট্রসংঘের তত্ত্বাবধানে গণভোটের প্রস্তাব দেয়। ভারত প্রথমে এই প্রস্তাবে সম্মত হয়েছিল। কিন্তু ১৯৫২ সালে জম্মু ও কাশ্মীরের নির্বাচিত গণপরিষদ ভারতভুক্তির পক্ষে ভোট দিলে ভারত গণভোটের বিপক্ষে মত দেয়। ভারত ও পাকিস্তানে রাষ্ট্রসংঘের সামরিক পর্যবেক্ষক গোষ্ঠী উভয় রাষ্ট্রের মধ্যে যুদ্ধবিরতি তত্ত্বাবধানে আসে। এই গোষ্ঠীর কাজ ছিল, যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘনের অভিযোগগুলি খতিয়ে দেখা ও তদন্তের রিপোর্ট প্রত্যেক পক্ষ ও রাষ্ট্রসংঘের মহাসচিবের কাছে জমা দেওয়া। যুদ্ধবিরতির শর্ত হিসেবে কাশ্মীর থেকে উভয় পক্ষের সেনা প্রত্যাহার ও গণভোটের প্রস্তাব দেওয়া হয়। কিন্তু ভারত গণভোটে অসম্মত হয় এবং এজন্য পাকিস্তান সেনা প্রত্যাহারে অসম্মত হয়। ভারত গণভোট আয়োজনে অসম্মত হয় এজন্য যে, এটা নিশ্চিত ছিল যে গণভোটে মুসলিম অধ্যুষিত কাশ্মীরের বেশিরভাগ ভোটারই পাকিস্তানের পক্ষে ভোটদান করবেন ও এতে কাশ্মীরে ভারত ত্যাগের আন্দোলন আরো বেশী জোড়ালো হবে। মুসলিম প্রধান কাশ্মীর ও অন্যান্য কারণকে কেন্দ্র করে ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্ক খারাপ হয়। এরপর ১৯৬৫ সালের ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধ ও ১৯৯৯ সালের কার্গিল যুদ্ধ হয়। (উইকিপিডিয়া)
মুসলিম চরিত্র বদলানোই মূল লক্ষ্য?
মুসলিম-সংখ্যাগরিষ্ঠ কাশ্মীরের ‘ডেমোগ্রাফি’ বা জনসংখ্যাগত চরিত্র বদলে দেওয়াই ভারত কর্তৃক সংবিধানের ৩৭০ ধারা বিলোপের পেছনে আসল উদ্দেশ্য বলে মনে করা হচ্ছে।
ভারতে ক্ষমতাসীন দল বিজেপি বা তাদের পুরনো অবতার জনসঙ্ঘ অবশ্য বহু বছর ধরেই ভারতীয় সংবিধানের এই বিতর্কিত ধারাটি বিলোপ করার দাবি জানিয়ে আসছিল।
বিজেপির বক্তব্য ছিল, কাশ্মীর যাতে সম্পূর্ণভাবে ভারতের সাথে সংযুক্ত বা ‘আত্মীকৃত’ হতে পারে সে জন্যই এই ধারাটি বিলোপ করা দরকার। স্বাধীনতার সাত দশক পর ভারতে একটি বিজেপি সরকার অবশেষে তাদের এই বহু পুরনো রাজনৈতিক এজেন্ডাটি (২০১৯) বাস্তবায়ন করল। কিন্তু এদিন পার্লামেন্টে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ্-র নাটকীয় ঘোষণার কিছুক্ষণের মধ্যেই প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেস বুঝিয়ে দেয়, তারা এই পদক্ষেপের মধ্যে অন্য অভিসন্ধি দেখছে।
বস্তুত ৩৭০ ধারা বিলোপের সমর্থনে বিজেপি ঠিক এই যুক্তিটাই দিচ্ছে যে এতদিনে কাশ্মীর ভারতের আর পাঁচটা রাজ্যের সঙ্গে সমান কাতারে এল, কাশ্মীরের ভারতভুক্তি সম্পূর্ণ হল। ইসরায়েল একদিন যা ফিলিস্তিনি-অধ্যুষিত অঞ্চলে করেছে অথবা চীনও করেছে তিব্বতে – সুন্নি মুসলিম-গরিষ্ঠ কাশ্মীরে ভারতও ঠিক সেই একই ধরনের পদক্ষেপ নিল বলে অনেকেই মনে করছেন।

এই সংবাদটি 1,769 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com