রবিবার, ২৩ ফেব্রু ২০২০ ০১:০২ ঘণ্টা

পরিচ্ছন্ন হবিগঞ্জ গড়তে চান জেলা প্রশাসক কামরুল হাসান

Share Button

পরিচ্ছন্ন হবিগঞ্জ গড়তে চান জেলা প্রশাসক কামরুল হাসান

ডেস্ক রিপোর্ট:শিক্ষাক্ষেত্রে অনগ্রসর হবিগঞ্জকে একটি অগ্রসর দূষণমুক্ত পরিচ্ছন্ন জেলা হিসেবে গড়তে চান নবাগত জেলা প্রশাসক কামরুল হাসান। এ লক্ষ্যে ইতিমধ্যে শিক্ষার্থীদের বইয়ের প্রতি আগ্রহী করতে বইমেলাসহ নিয়মিত আয়োজন করছেন পাঠচক্রের। শিক্ষার গুণগত মানোন্নয়নের লক্ষ্যে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে প্রতি সপ্তাহে আয়োজন করা হচ্ছে ‘মিট দ্যা ডেপুটি কমিশনার’ প্রোগ্রাম, সাপ্তাহিক পাঠচক্রসহ নানা কর্মসূচী। ক্রীড়া, সাংস্কৃতিক ও সামাজিক উন্নয়নেও অগ্রণী ভূমিকা রাখতে চান তিনি। এছাড়া শিল্পাঞ্চলে পরিবেশ দূষণ রোধে কঠোর প্রদক্ষেপ নিচ্ছেন জেলা প্রশাসক। তার নির্দেশে এরই মধ্যে গুড়িয়ে দেয়া হয়েছে জেলার সকল অবৈধ ইটভাটা। মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে অবৈধ বালু উত্তোলনকারীদের ড্রেজার মেশিন জ্বালিয়ে দেয়াসহ জেল জরিমানা করা হচ্ছে নিয়মিত। এছাড়া হবিগঞ্জে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার নির্মাণে জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তাদের একদিনের বেতন প্রদানের ঘোষণা দিয়েছেন জেলা প্রশাসক।
বঙ্গবন্ধুর দৃস্টিনন্দন মুড়াল নির্মাণের উদ্যোগও নেয়া হয়েছে। গতকাল বিকেলে নিজ কার্যালয়ে মানবজমিনের সঙ্গে একান্ত আলাপচারিতায় এসব কথা জানান জেলা প্রশাসক। তিনি বলেন, হবিগঞ্জে শিক্ষার হার অনেক কম। বিশেষ করে চা বাগানগুলোতে শিক্ষার হার হতাশাজনক। এজন্য আমরা প্রাইমারি স্কুলে শিক্ষক ও ছাত্র-ছাত্রীদের উপস্থিতি নিশ্চিত করার জন্য মনিটরিং ব্যবস্থা জোরদার করার উদ্যোগ নিয়েছি। গত ১০ তারিখে জেলা ও উপজেলার সকল শিক্ষা কর্মকর্তাদের নিয়ে সেবা প্রদান প্রতিশ্রুতি বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। প্রতিটি উপজেলার সবচেয়ে ভাল, মাঝারি ও সবচেয়ে খারাপ এ তিন ধাপের ৩টি প্রাথমিক বিদ্যালয়কে নির্বাচনের জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। এছাড়া শিক্ষার্থীদের বইয়ের দিকে আগ্রহী করতে তাদের অংশগ্রহণে নিয়মিত চলছে পাঠচক্রের আয়োজন। ভাষার মাসকে সম্মান জানাতে প্রতিটি উপজেলা থেকে জেলা পর্যায়ে ‘বাংলাবিদ’ প্রতিযোগিতার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। ১৭ই মার্চ জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী উদ্‌যাপন উপলক্ষে জেলার সকল স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের মাঝে, ‘বঙ্গবন্ধুকে জান, বাংলাদেশকে জান’ শীর্ষক প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হবে। এপ্রিল মাসে শিশুদেরকে মুজিবনগর সরকার গঠন ও মুক্তিযুদ্ধ সম্পর্কে জানাতে ব্যাপক প্রচারণা চালানো হবে। এছাড়া পর্যটনকে উদ্বুদ্ধ করতে পর্যটন বিষয়ক নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে। ভাষার মাসে শুদ্ধ বাংলা বানান চর্চার জন্য কর্মকর্তা, শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মধ্যে ‘বাংলা ভাষা ও রীতি’ বইটি বিতরণ করা হয়েছে। জেলা প্রশাসক বলেন, হবিগঞ্জে এখনও কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার নাই এটা দুঃখজনক। বাধ্য হয়ে ২১শে ফেব্রুয়ারিতে বৃন্দাবন সরকারি কলেজের শহীদ মিনারে বিশৃঙ্খল পরিবেশে পুস্পস্তবক অর্পণ করেন সর্বস্থরের জনগণ। আমি ২১ ফেব্রুয়ারী মাতৃভাষা দিবসের সভায় ঘোষণা করেছি শহীদ মিনার নির্মাণে আমরা জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা একদিনের বেতন প্রদান করব। সাংস্কৃতিক মন্ত্রণালয়, হবিগঞ্জ পৌরসভা এবং হবিগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্যও সার্বিক সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছেন। আমি মনে করি ভাল উদ্যোগ নিলে অর্থ কোন সমস্যা হবেনা। ভাষা দিবসের সভা শেষ করে ঐদিন বিকেলেই সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট আবু জাহির মহোদয়কে নিয়ে আমরা জেলা প্রশাসনের নিমতলায় শহীদ মিনার নির্মাণের জন্য স্থান পরিদর্শন করেছি। আমি আশা করছি ১৭ মার্চের পূর্বেই শহীদ মিনার নির্মাণের কাজ শুরু হবে। আগামী ২১ ফেব্রুয়ারীতে আমরা চাই নবনির্মিত কেন্দ্রীয় মিনারে সুশৃঙ্খল পরিবেশে শ্রদ্ধা প্রদর্শন করতে পারবেন হবিগঞ্জবাসী। এছাড়া জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের প্রবেশমূখে বঙ্গবন্ধুর একটি সুদৃশ্য দৃষ্টিনন্দন ম্যুরাল তৈরিরও উদ্যোগ নিয়েছি আমরা। সেইসঙ্গে ‘পরিচ্ছন্ন গ্রাম, পরিচ্ছন্ন শহর’ বাস্তবায়নের লক্ষ্যে প্রতি শুক্র ও শনিবার ভোর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত সারা শহরে পরিচ্ছন্নতা অভিযান শুরু করেছেন। বিডিক্লিন, হবিগঞ্জ পৌরসভাসহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের কর্মীরা নিয়মিতভাবে এ পরিচ্ছন্নতা অভিযান পরিচালনা করছি আমরা। তিনি বলেন, শহরের যানজট নিরসনে নতুন করে কোন টমটমের লাইসেন্স দেয়া হবে না। পর্যায়ক্রমে শহরে টমটম চালনা সীমিত করা হবে। অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার লক্ষ্যে নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। একটি সবুজ ও নান্দনিক জেলা হিসেবে গড়ে তুলতে শহরে বৃক্ষরোপণসহ নানা কর্মসূচি গ্রহণের পরিকল্পনা নিয়েছেন তিনি। জেলার সকল সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে ছাদবাগান করতে উদ্বুদ্ধ করছেন জেলা প্রশাসক। কৃষকদের কল্যাণে ন্যায্যমূল্যে ধান সংগ্রহে অনিয়মরোধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে জানান জেলা প্রশাসক।
তিনি বলেন, সম্প্রতি অনুষ্ঠিত হয়েছে ৫ দিনব্যাপী শুদ্ধ নজরুল সঙ্গীত প্রশিক্ষণ কর্মশালা ও নজরুল সম্মেলন। এ উপলক্ষে জাতীয় কবির জীবনদর্শন নিয়ে খ্যাতিমান নজরুল গবেষকদের বিমোহিত আলোচনা শ্রবণ করেছেন নজরুলপ্রেমী দর্শক ও শিক্ষার্থীরা। সাংস্কৃতিক উন্নয়নে ৩ দিনব্যাপী লোকজ উৎসবের আয়োজন করা হবে। বিশেষ দিবসগুলোতে লোকজ সংস্কৃতির অমর কথা মহুয়া-মলুয়া গীতিকা পরিবেশন করা হবে। মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক নাটক ‘লাল জমিন‘ জেলা ও প্রতিটি উপজেলায় পরিবেশন করা হবে। এছাড়া বিভিন্ন স্কুল-কলেজে শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার আয়োজন চলবে নিয়মিত। মুজিববর্ষকে সামনে রেখে ফুটবল, ভলিবল, হ্যান্ডবল ও ক্রিকেট প্রতিটি আইটেমে কমপক্ষে একশ নতুন খেলোয়াড় তৈরির লক্ষ্যে বিশেষ উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। ইতিমধ্যে নতুন খেলোয়াড়রা জালাল স্টেডিয়ামে নিয়মিত প্র্যাকটিস শুরু করেছে। বিভিন্ন স্কুলে ফুটবল হ্যান্ডবলসহ অন্যান্য ক্রীড়াসামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। আলাপচারিতায় জানা যায়, শহরের সবচেয়ে বড় সমস্যা জলাবদ্ধতা দূরীকরণে বিশেষ উদ্যোগ নিয়েছেন জেলা প্রশাসক। সম্প্রতি সার্কিট হাউজ ও মুক্তিযোদ্ধা চত্বরের সামনে বড় ড্রেন নির্মাণের কাজ শুরু হয়েছে। খোয়াই নদীর অবৈধ দখলদারদের বিরুদ্ধে উচ্ছেদ অভিযান চলমান রয়েছে। এছাড়া শিগগিরই নবীগঞ্জের শাখা বরাক নদীতে অবৈধ উচ্ছেদ অভিযান শুরু হবে। বানিয়াচংসহ বিভিন্ন উপজেলার খাল দখল উচ্ছেদ অভিযানও পরিচালিত হবে। জেলা প্রশাসক বলেন, মুজিববর্ষ উপলক্ষে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে আজমিরীগঞ্জের নদীপাড়ে গত ৮ই ফেব্রুয়ারি মেডিকেল ক্যাম্পে ৩ হাজারের অধিক রোগীকে বিনামূল্যে চিকিৎসাসেবা প্রদান করা হয়েছে। এছাড়া বন্ধন, সন্ধানীর মাধ্যমে নিয়মিত রক্তদান কর্মসূচির আয়োজনসহ গ্রহণ করা হয়েছে মুজিবর্ষের নান আয়োজন। তিনি বলেন, হবিগঞ্জ জেলা ই-ফাইলিং এ সারাদেশে একাধিকবার প্রথম হয়েছে। আমরা চেষ্টা করছি প্রতিটি উপজেলা ই-ফাইলিং-এ সারাদেশে এগিয়ে থাকুক। সাধারণ মানুষ ভোগান্তি থেকে মুক্তি পাক। জনগণের দোরগোড়ায় সেবা পৌঁছে দেয়ার লক্ষ্যে অনলাইন সেবা জোরদারকরণের কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে । সততা ও নিরপেক্ষতা বজায় রেখে আমি হবিগঞ্জকে একটি দূষণমুক্ত পরিচ্ছন্ন ও স্বনির্ভর জেলা হিসেবে গড়ে তুলতে চাই। এজন্য সকল মহলের সহযোগিতা কামনা করছি।

এই সংবাদটি 1,007 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com