শতবর্ষী নানা মাস্টার শফিকুর রহমান খানের চির বিদায়

প্রকাশিত: ২:২০ অপরাহ্ণ, মে ২৯, ২০২০

শতবর্ষী নানা মাস্টার শফিকুর রহমান খানের চির বিদায়

শাহ নজরুল ইসলামঃ

আমার নানা মরহুম আব্দুল ওয়াহ্হাব খান এর ছোট ভাই জনাব মোহাম্মদ শফিকুর রহমান খান আর নেই। তিনি গত ৩০ রমজান ১৪৪১ হিজরি শনিবার রাত তিনটায় ইন্তেকাল করেন। আলাপুর টিনের বাড়ির কৃতি পুরুষ শতবর্ষী শফিকুর রহমান খানের জন্ম ১৯২১ সালে ব্রিটিশ ভারতের সিলেট জেলার হবিগঞ্জ মহকুমা সদরের ৫ নং গোপায়া ইউনিয়নের আলাপুর গ্রামে। পিতা বিদ‍্যুৎসাহী শরাফত খান দাদা খান বাহাদুর আব্দুল মজীদ খান ছিলেন সমকালে এলাকার প্রভাবশালী নামীদামি মানুষ। এ অঞ্চলে ব্রিটিশ ভারতে প্রথম টিনের ঘর হয়েছিল তাদের বাড়িতে এজন‍্য এ বাড়ির নাম পরে যায় টিনের বাড়ি। তার পর যখন দালান উঠলো তখন নাম পড়ে গেল দালান বাড়ি। আবার খাঁ বাড়ি হিসেবেও এ বাড়ির নাম ডাক ছিলো এবং আছে।
মরহুমের বাপ চাচা চার জন ছিলেন। সর্ব জনাব মরহুম শরাফত খান, তরীকত খান, মারফত খান এবং মুন্সী আব্দুর রহমান খান চার ভাই ছিলেন কিংবদন্তি পুরুষ হবিগঞ্জের কৃতিসন্তান বিপ্লবী সংস্কারক আল্লামা আসাদুল্লাহ রহ. এর সহকর্মী দক্ষিণহস্ত। বাপ চাচার আদর্শ ধারণ করে তিনি বেড়ে উঠেছিলেন। তৎকালিন সমাজে শিক্ষার হার খুব কম ছিলো। তাই দাদা আব্দুল মজিদ খান নিজ বাড়িতে প্রাইমরি স্কুল স্থাপন করে পরিবারের ছেলে মেয়ে সহ এলাকায় শিক্ষা বিস্তারে এগিয়ে আসেন। বাড়িতে প্রতিষ্ঠিত স্কুলেই শফিকুর রহমান খানের হাতেখড়ি। তখন এই স্কুলে একজন মাত্র শিক্ষক ছিলেন মাওলানা আব্দুর রহমান রহ, । স্কুলের মিয়াছাব নামে সুপরিচিত ছিলেন। বাড়ি ছিলো সুনামগঞ্জের জগন্নাতপুর থানার সৈয়দপুর । তার কাছে আমার নানারা পড়েছেন, আমার আম্মা ও মামারা পড়েছেন আবার আমরাও পড়েছি। নিয়মিত তাহাজ্জুদ গুজার ছিলেন। আমি যখন আলাপুর প্রাইমারি স্কুলে পড়ি তখন তিনি অবসরে। জামিয়া সাদিয়া রায়ধরে শিক্ষকতা করেন। শীতের দিনে আমার নানী নিয়মিত গরম পানি করে দিতেন আমি নিয়ে দিতাম। ঘুম থেকে উঠিয়ে গরম পানি দিয়ে পাঠাতেন।
আমার এই নানা ছিলেন এই অঞ্চলের মানুষের বাতিঘর। তিনি টানা পঞ্চান্ন বছর শিক্ষকতা করেন। হোমিও প্রাক্টিস করতেন। মসজিদ কমিটি ঈদগাহ কমিটি আলাপুর সরকারি স্কুল কমিটি ও গোলাপগঞ্জ বাজার কমিটির সভাপতি ছিলেন।
আজ লক ডাউনের মাঝেই বিকাল দুইটায় তার জানাযা পড়ালাম। দাফনে শরীক হলাম।
তার জীবনে শিক্ষণীয় বিষয় ছিলো
১. কথা কম বলতেন।
২. মিতব‍্যায়ি ছিলেন।
৩. নিয়মিত জামাতে নামায পড়তেন।
৪. নিয়মিত কুরআন তিলাওয়াত করতেন।
৫. আমানতদার ছিলেন।
মহান আল্লাহ তাকে জান্নাতুল ফিরদাউস নসীব করুন।

দুই.
জনাব মোঃ শফিকুর রহমান খান ভাতিজা ভাতিজির মাস্টার চাচা আর আমাদের মাস্টার নানা এ বংশের সর্বাধিক বয়সপ্রাপ্ত ব‍্যাক্তি ছিলেন তিনি। তার সাথে সর্ব শেষে যখন আমার দেখা হয় তখন তিনি বাড়িতেই। সম্ভবত ২০১৮ সালের শুরুতে। আমাকে দেখে খুব খুশি হলেন। কিছু খাওয়ানোর জন‍্য ব‍্যাতিব‍্যস্ত হয়ে পড়লেন। আর বারবার বলছিলেন আজ আমার সাথে থেকে যাও। এমন করে এর আগে কখনো বলেন নি। কিন্তু আমার পেশাদারি ব‍্যস্ততার কারণে থাকা সম্ভব হয়নি। আজ যখন নানা চলে গেছেন না ফেরার দেশে তখন খুব করে মনে হচ্ছে ঐ দিন কোন মতে একরাত তার সাথে থেকে গেলে হয়তো নানা নাতির অনেক গল্প হতো। জানতে পারতাম অনেক কিছু। ব‍্যক্তিগত আলাপচারিতায় হয়তো উঠে আসতো ইতিহাসের অনেক তথ‍্য উপাত্ত।
আমি একটি বিষয় লক্ষ করেছি মানুষ যখন জীবনের শেষ মঞ্জিলে উপনীত হয় তখন তার জীবনের অনেক না বলা কথা সে অন্যকে বলতে চায় অন‍্যের সাথে শেয়ার করতে চায়। কিন্তু তাকে সময় দেয়ার মানুষ পায় না তার কথা শোনার লোক থাকে না। আমরা যারা স্বজন তারা অনুধাবন করি না যে এ লোকটি যে কোনো সময় চলে যেতে পারেন। সুতরাং তাকে একটু সময় দেয়া দরকার। নানা তো চলে গেছেন আর কে এমন বলবে আজ আমার সাথে থেকে যাও। সে দিন থাকলে হয়তো আমার কথাও তিনি শোনতেন আর তার জীবনের হিরন্ময় স্মৃতিগোলো আমাকে শোনাতেন। সবার কাছে সব কথাতো বলা যায় না। বলার জন্যও উপযুক্ত মানুষ লাগে। আজ আমার খুব আফসোস হচ্চে কেন সেদিন থাকলাম না।
আমার নানাকে আমি দেখিনি। আমার মায়ের বিয়ের আগেই তিনি বসন্ত রোগে ইন্তেকাল করেন। এরপর এ পরিবারের তিনিই অভিভাবক হন। তার অভিভাবকত্বেই মায়ের বিয়ে হয় আর তিনিই খোঁজ খবর রাখতেন। আমার জন্ম হয়েছিল আমার মায়ের নানা বাড়ি কাটাখালিতে। শায়খুল হাদীস আল্লামা তাফাজ্জুল হক রহ এর বাড়িতে। আমার আব্বা তখন পাকিস্তানে একটা কোম্পানিতে চাকরি করেন। আর ঐ সময় সন্তান প্রসবকালীন মেয়েদের বাপের বাড়িতে নিয়ে যাওয়ার প্রথা ছিলো। আর নানীকে উনার বাবা সরপঞ্চ আলীমুজ্জান পাঠান রহ, নিজের কাছে নিয়ে গিয়েছিলেন। তিনি ছিলেন হবিগঞ্জি মুহাদ্দিস সাহেবের বড়চাচা। একাধারে তিনি ঐ অঞ্চলে স্কুল মসজিদ মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন। বৃটিশ খেদা আন্দোলনের সৈনিক ছিলেন। হবিগঞ্জে জমিয়তে উলামায়ে হিন্দের যিম্মাদার ছিলেন। শায়খুল হিন্দ মাহমুদ হাসান রহ. এর ভাবশিষ‍্য ছিলেন। শায়খুল ইসলাম হুসাইন আহমদ মাদানী রহ. এর আন্দোলনের সহযোগী ছিলেন। উন্নত চরিত্রের মানবিক স্বভাবের মানুষ ছিলেন।
আমার মা অনেকবার আমাকে বলেছেন আমার জন্মের খবর শোনে আলাপুর থেকে একটি বড় নৌকা রিজার্ভ করে সকলকে নিয়ে দেখতে গিয়েছিলেন নানা। অনেক প্রয়োজনীয় জিনিস পত্র নিয়েছিলেন। এমনকি ঐসময়ের জালানি কেরোসিনের টিন নিয়েছিলেন। ঐ সময় বিদ‍্যুৎ ছিলো না সৌর বিদ‍্যুৎও ছিলো না। বাচ্ছা হলে সারারাত ল‍্যাম্প জ্বালাতে হতো। সেই প্রয়োজন পুরণে এই আয়োজন। আমাদের বাড়িতেও আমার ছোট বেলা অনেকবার গিয়েছেন। আম্মার খোঁজ খবর রেখেছেন। বলা যায় চাচা হয়ে বাবার দায়িত্ব পালন করেছন। আহ্ কত সুন্দর কথা বলেছেন আমাদের নবীজি সা. ‘চাচা বাপের মত।’।

তিন.
আমার এক প্রিয় সহকর্মী কৃষিবিদ জনাব আনোয়ারুল কাদির নানার শতবর্ষী হবার পেছনে তাঁর খাদ্যাভ্যাসের বিষয়ে লিখতে বললেন। আসলে হায়াৎ মউত তো মালিকের নির্ধারিত বিষয়। তারপরও মানুষের জীবনাচার ও খা‍দ‍্যাভ‍্যাসের একটা ভূমিকা থাকে।
নানার জীবনে তিনি একটি সুশৃঙ্খল রুটিন ম‍্যান্টেন করে চলছেন। নিয়মিত তিনি এটা মেনে চলেছেন। ‘আরলি টু বেড আরলি টু রাইজ। ইংরেজি ছড়ায় আছে। বাস্তবে কয়জনে মানে। হাদীস শরীফেও এশার পর কথা বার্তা না বলার কথা এসেছে। নানা সাড়া জীবন তা মেনে চলেছেন। এশার নামায পড়েই ঘুম আর ফজরের আগে উঠে যাওয়া তার নিয়মিত অভ‍্যাস ছিলো। পাঁচ ওয়াক্ত নামায জামায়াতের সাথে আদায় করাও তার নিয়মিত আমল ছিলো।
তিনি প্রচুর হাটতেন। বাড়ি থেকে স্কুলে হেটে যেতেন হেটেই আসতেন। এতে তার নিয়মিত হাটা হয়ে যেতো ৮ থেকে ১০ মাইল। গোপালগঞ্জ বাজারে যেতেন সপ্তাহে দুদিন। তাতেও হাটা হতো ৫/৭ কিলোমিটার। বাড়ি থেকে হবিগঞ্জেও আসা যাওয়া করতেন পায়ে হেঁটে।

চার.
আমার প্রিয় সহকর্মী ইমাম প্রশিক্ষণ একাডেমি সিলেটের সহকারি পরিচালক জনাব মোঃ আনোয়ারুল কাদির লিখেছেন সুশৃংখল জীবন মানুষের সুস্থতার প্রতীক । শতবর্ষী জীবন আমাদের পথচলা শিখায় । হার্টের রোগীর-ডাক্তারগণ বলেন হাটুন নিয়মিত । ডায়াবেটিস রোগীর-ডাক্তারগণ বলেন ৩টি অভ্যাস মেনে চলুন
১. ডিসিপ্লিন/সুশৃংখল জীবন যাপন,
২. ড্রাগ/নিয়মিত ঔষধ সেবন।
৩.ডায়েট/পরিমিত খাবার ।
আর হাদীসের নির্দেশনা হল -পেটের তিন ভাগের এক ভাগ পানি পান করুন, এক ভাগ খাবাiর খান, আর বাকীটুকু খালি রাখুন । তাই আসুন সুন্দর জীবনাচার মেনে চলি । বিশিষ্ট আলেমে দ্বীন শাহ মুহাম্মদ নজরুল ইসলাম সাহেবের নানা শত বছর জীবন লাভ করেছেন এর মাঝে আমাদের জন‍্য বার্তা থাকবে।
তিনি নানার শতবর্ষী হবার পেছনে তাঁর খাদ্যাভ্যাসের বিষয়ে আমাকে লিখতে বললেন। আসলে হায়াৎ মউত তো মালিকের নির্ধারিত বিষয়। তারপরও মানুষের জীবনাচার ও খা‍দ‍্যাভ‍্যাসের একটা ভূমিকা থাকে।
নানার জীবনে তিনি একটি সুশৃঙ্খল রুটিন ম‍্যান্টেন করে গেছেন। নিয়মিত তিনি এটা মেনে চলতেন। ‘আরলি টু বেড আরলি টু রাইজ। ইংরেজি ছড়ায় আছে। বাস্তবে কয়জন মানে। হাদীস শরীফেও এশার পর কথাবার্তা না বলার কথা এসেছে। নানা সাড়া জীবন তা মেনে চলেছেন।
এশার নামায পড়েই ঘুম আর ফজরের আগে উঠে যাওয়া তার নিয়মিত অভ‍্যাস ছিলো। পাঁচ ওয়াক্ত নামায জামায়াতের সাথে আদায় করাও তার নিয়মিত আমল ছিলো।
তিনি প্রচুর হাটতেন। বাড়ি থেকে স্কুলে হেটে যেতেন হেটেই আসতেন। এতে তার নিয়মিত হাটা হয়ে যেতো ৮ থেকে ১০ মাইল। গোপালগঞ্জ বাজারে যেতেন সপ্তাহে দুদিন। তাতেও হাটা হতো ৫/৭ কিলোমিটার। বাড়ি থেকে হবিগঞ্জে গেলে তা পায়ের উপর ভরসা। তিনি সাড়া জীবনে কত যে হেটেছেন আল্লাহই ভালো জানেন। প্রতিদিন সকালে গোসল করা ছিল তার আরেকটি অভ‍্যাস। খাটি সরিষার তেল ব‍্যবহার করতেন। বাইরের ফাস্ট ফুড বা ভাজাপুরা কিছু খেতন না। খাবার দাবারে পরিমিতি বোধ ছিলো। মিস্টির প্রতি আগ্রহ বেশি ছিলো। প্রিয় ফল ছিলো কাঠাল। কাঠাল খুব পছন্দ করতেন। আম কাঠালের দিনে কাঠাল নিয়মিত খাবারের তালিকায় থাকতো।
সারা জীবনই ভেজালমুক্ত খাবার খেয়েছেন। নিজের ক্ষেতের ফসল বিছরা চারার শাক সবজি বাগানের ফল গাভীর দুধ পুকুরের মাছ এগুলো কিনে খেতে হয়নি। এটাও তার ভাগ‍্য ছিলো।
মিস্টির প্রতি বেশি ঝোঁক থাকলেও নিয়মিত ৮ /১০ মাইল হাটার কারণে হয়তো ডায়বেটিস হয়নি। বলা যায় নিরোগই ছিলেন। একবার ১৯৭২/৭৩ সালের দিকে অসুস্থ হয়েছিলেন। তখন আমার মামা আব্দুল মজিদ খান ঢাকার নয়া বাজারে ব‍্যবসা করতেন। তিনি ঢাকায় নিয়ে যান মিটফোর্ড হাসপাতালে মাস খানিক চিকিৎসা করান। সেই থেকে সুস্থই ছিলেন। শেষের দিকে বার্ধক‍্যজনিত নানা জটিলতায় ভুগেছেন।
তার জীবনে পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা, শৃংখলা, পরিমিতিবোধ রুটিন মিফিক জীবন কঠোর পরিশ্রম, স্বনির্ভরতা, আত্মসম্মানবোধ, শিক্ষক সুলভ আচরণ, নিয়মানুবর্তিতা, সময়ানুবর্তিতা, মালিকের বন্দেগীর সাথে জিন্দগী যাপন, নির্মল পাপমুক্ত এক সুবর্ণ জীবনের অধিকারী ছিলেন তিনি। নিজের উপর খুব নিয়ন্রণ ছিল তার। রাগে হিতাহিত জ্ঞান হারিয়ে ফেলা সামন‍্য বিষয় নিয়ে চিল্লাচিল্লি করা তার স্বভাব বিরুদ্ধ ছিলো। মেজাযের ভারসাম‍্য ছিলো। শান্তশিষ্ঠ জীবনাচারে অব‍্যস্ত ছিলেন। সুদিনে নিদানে সর্বাবস্থায় মালিকের শুকুরগোজার ছিলেন। যে কারণে মালিক তার নিয়ামত অবিরাম তার জন‍্য বৃদ্ধি করে গেছেন।

পাঁচ.

জীবনের খেলা ঘরে আমারা মরণকে ভুলে থাকি। যে জন‍্য মৃত্যুর প্রস্ততি তেমন থাকে না। আমার নানা এবিষয়ে সচেতন ছিলেন। আলেম উলামাদের সাথে খুব ভালো সম্পর্কে রাখতেন। বাপ চাচাদের মতই রায়ধরের মাওলানা সাহেবদের সহযোগী ছিলেন। বিশেষ করে রায়ধরের মাওলানা আব্দুল লতীফ রহ. এবং হবিগঞ্জের কিংবদন্তি আলেম রায়ধরের চেয়ারম্যান সাহেব খ‍্যাত মাওলানা মখলিছুর রহমান রহ.এর সাথে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রাখতেন সহযোগিতা করতেন। আমার ছোট বেলায় আমি নানা বাড়ির ঘরে ঘরে জামেয়া ছাদিয়া রায়ধরের ছাত্রদের জায়গির থাকতে দেখিছি। মরহুম শফিকুর রহমান খানের ঘরে স্কুলের মিয়াসাব নামে সমধিক পরিচিত আলাপুর সরকারি প্রাইমারি স্কুলের অবসরপ্রাপ্ত টিচার তৎকালীন রায়ধর মাদ্রাসার শিক্ষক জনাব মাওলানা আব্দুর রহমান রহ. বলা যায় আজীবন জায়গির ছিলেন।
এই যোগাযোগ ও ঘনিষ্ঠতার ফসল হচ্ছে তার তৃতীয় পুত্র হাফিজ মাওলানা আজীজুর রহমান খান (কামাল) বর্তমানে লন্ডন প্রবাসী একটি মসজিদের ইমাম। তিনি চেয়েছিলেন তার একটি ছেলে হাফিজ আলিম হবে। সেজন‍্য আজীজুর রহমান খানকে হবিগঞ্জ সদরের ৬ নং রাজিউরা ইউনিয়নভুক্ত জামেয়া নূরীয়া তাহফিজুল কুরআন মাদ্রাসা কাটাখালিতে হিফজুল কুরআন বিভাগে ভর্তি করে দেন। এই মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা মুহতামিম তাঁর তালতো ভাই হবিগঞ্জ কওমী মাদ্রাসা বোর্ডের বর্তমান সভাপতি হাফিজ মাওলানা শামসুল হক মুসা সাহেব। তাঁর হাতে ছেলেকে সুপুর্দ করে আসেন। এটা ১৯৮৯ সালের কথা। আলহামদুলিল্লাহ্ এই ছেলে প্রাইমারি শেষ করে মাদ্রাসায় ভর্তি হয়েছিল। ১৯৯৩ সনে হিফজ সম্পন্ন করে। এরপর তাকে নিয়ে আসেন আমার কাছে। আমি তখন ইসলামিক ফাউন্ডেশন মৌলভীবাজারে কর্মরত। এর আগে আমি জামেয়া দ্বীনিয়া মৌলভীবাজারে শিক্ষকতা করতাম। সেই সুবাদে পার্ট টাইম অনারারি শিক্ষক হিসাবে তখনো যাতায়াত করি। ওখানেই সপ্তম শ্রেণিতে তাকে ভর্তি করে দেই। আমার তত্বাবধানে ছিলো দুই বছর। ১৯৯৫ সালে আমি চলে যাই ইমাম ট্রেনিং একাডেমি দিনাজপুরে ইন্সট্রাক্টর হিসাবে । এরপর তিনি চলে যান জামেয়া মাদানিয়া কাজির বাজারে। সেখান থেকে আলিয়াতে পরীক্ষা দিয়ে শেষ পর্যন্ত সিলেট সরকারি আলিয়া মাদ্রাসা থেকে কামিল পাশ করেন এবং ন‍্যাশনাল ইউনিভার্সিটি থেকে মাস্টার্স করেন কৃতিত্ত্বের সাথে। মহান আল্লাহ্ নানার আখাঙ্কা পূরণ করেন।
নানারা ছিলেন ছয় ভাই দুই বোন।
১. মরহুম আব্দুল ওয়াহহাব খান।
২. মরহুম রফিকুর রহমান খান।
৩. মরহুম সাইফুর রহমান খান। (সাবু মিয়া )
৪. মরহুম শফিকুর রহমান খান।
৫. মরহুম শামসুর রহমান খান।
৬. মরহুম বজলুর রহমান খান।
সব ছোট বজলুর রহমান খান ব‍্যবসায়ী ছিলেন। পরোপকারী ও দানশীল ব‍্যাক্তি ছিলেন। আত্মীয় স্বজনের সাথে ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ রাখতেন। তিনি আশির দশকের গোড়ার দিকে ইন্তেকাল করেন। দ্বিতীয় ও তৃতীয় ভাই কলকাতা চলে যান। তারা উচ্চ শিক্ষিত ছিলেন। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ কালীন বৃটিশ সেনাবাহিনীতে যোগদান করেন এবং নিখোঁজ হয়ে যান।
পঞ্চম ভাই ব‍্যবসায়ী ছিলেন। আর দুই বোনের একজন মরহুমা লতীফা খানম তার বিয়ে হয়েছিল মরহুম এডভোকেট শাহাবুদ্দিন (মুক্তার সাহেব হিসাবে সমধিক পরিচিত হবিগঞ্জের বিশিষ্ট গুণীজন ) এর সাথে। তিনি এক ছেলে সন্তান রেখে অল্প বয়সে ইন্তেকাল করেন। পরে তার একমাত্র পুত্র সন্তানও মারা যায়। আর দ্বিতীয় বোনের বিয়ে হয়েছিল আলাপুর হাজীবাড়িতে। তিনি নিঃসন্তান অবস্থায় মারা যান।
মরহুম শফিকুর খান প্রাইমারি শিক্ষা সমাপ্ত করে হবিগঞ্জ হাই স্কুলে পড়া শোনা করেন। এরপর চলে যান ভাইয়ের কাছে কলকাতায়। সেখানেও লেখা পড়া করেন।
এর মধ্যে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরু হয়ে যায়। মানব সভ‍্যতার ইতিহাসে এ যাবৎকাল পযর্ন্ত সংঘটিত সর্ববৃহৎ এবং সবচেয়ে ভয়াবহ যুদ্ধ। ১ সেপ্টেম্বর ১৯৩৯ সাল থেকে ২ সেপ্টেম্বর ১৯৪৫ খ্রিষ্টাব্দ পযর্ন্ত ছয় বছর একদিন ব‍্যাপী এই যুদ্ধ হয়। কলকাতা বৃটিশ বাহিনীর পক্ষে প‍্যারামিলিটারিতে তিনি যোগ দেন। যুদ্ধ শেষে বাড়িতে আসেন। ১৯৫৫ খ্রিষ্টাব্দে প্রাইমারি স্কুলের শিক্ষক হিসাবে যোগদান করেন।
১৯৫৮ খ্রিষ্টাব্দে হবিগঞ্জ সদরের নিজামপুর ইউনিয়নের শ্রীরাপুর গ্রামের মরহুম ইসহাক মিয়ার মেয়ে মেহেরুন্নেসার সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। ১৯৬০খ্রি. তাদের প্রথম সন্তানের জন্ম হয়। নাম রাখেন নাসিরা খানম। বর্তমানে তিনি বিবাহিতা সন্তান সন্ততি নিয়ে সুখী জীবন যাপন করছেন। ১৯৬২ খ্রিষ্টাব্দে তাদের দ্বিতীয় সন্তান জন্ম গ্রহণ করে। নাম রাখেন মোঃ মুজিবুর রহমান খান (সুফি মিয়া )। তিনি বতর্মানে হবিগঞ্জে ব‍্যবসা করছেন। সন্তান সন্ততি নিয়ে ভালো আছেন।
১৯৬৩ খ্রিষ্টাব্দে নানার জীবনে ঘটে যায় বিয়োন্তক ঘটনা। তার প্রিয়তমা স্ত্রী মেহেরুন্নেসা সাত মাসের দুগ্ধপোষ্য শিশু সুফি মিয়াকে রেখে ইন্তেকাল করেন।……

এই সংবাদটি 190 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com